300X70
সোমবার , ৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ | ১১ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
  1. অপরাধ ও দূর্নীতি
  2. আইন ও আদালত
  3. আনন্দ ঘর
  4. আনন্দ ভ্রমন
  5. আবহাওয়া
  6. আলোচিত খবর
  7. উন্নয়নে বাংলাদেশ
  8. এছাড়াও
  9. কবি-সাহিত্য
  10. কৃষিজীব বৈচিত্র
  11. ক্যাম্পাস
  12. খবর
  13. খুলনা
  14. খেলা
  15. চট্টগ্রাম

অডিও ভার্সনে পাঠক-শ্রোতাদের কাছে কাহিনীক অডিওবুক

প্রতিবেদক
বাঙলা প্রতিদিন২৪.কম
ফেব্রুয়ারি ৫, ২০২৪ ১২:০৯ পূর্বাহ্ণ

শতাধিক অডিওবুক নিয়ে কাহিনীক অডিওবুক বইমেলার ৩৯৭ নং স্টলে
বাঙলা প্রতিদিন ডেস্ক : এবারের অমর একুশে বইমেলা ২০২৪-এ কাহিনীক অডিওবুক থাকছে প্রথমবারের মত সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের ৩৯৭ নম্বর স্টলে।

সাথে থাকছে শতাধিক অডিওবুক। সাহিত্যপ্রেমীরা পাবেন উপেন্দ্রকিশোর, অবন ঠাকুর, বঙ্কিম, রবীন্দ্র, নজরুল, রোকেয়া, শরৎ, মানিক, বিভূতি, সুকুমার, ওয়ালিউল্লাহ, নিমাই – পাবেন আল মাহমুদ, কাজী আনোয়ার হোসেন, এম আর আখতার মুকুল, ম. হামিদ, সেলিনা হোসেন, আব্দুল্লাহ আল-মুতী, মুহম্মদ জাফর ইকবাল – পাবেন মাসুম রেজা, সাদাত হোসাইন, মৌরী মরিয়ম, ইমতিয়ার শামীম, মাহরীন ফেরদৌস, হরিশংকর জলদাস, সাদিয়া মাহ্‌জাবীন ইমাম – পাবেন অনুবাদ সাহিত্য দস্তয়েভভস্কি, খলিল জিবরান, এরিখ মারিয়া রেমার্ক, নিকোলাই অস্ত্রভস্কি, খুশবন্ত সিং – পাবেন শিশুতোষ অসংখ্য দেশী-বিদেশী ক্লাসিক।

এবারের বইমেলায় কাহিনীক অ্যাপ রেজিস্টার করলেই পাবেন গিফট ভাউচার-ইন্সট্যান্ট ক্যাশব্যাক। দেখা হবে আপনার সাথে। কাহিনীক স্টলে এসে উপভোগ করুন এত্ত এত্ত সব বই।
কাহিনীক স্টলে – বই বাজুক আপনার কানে।

বইমেলার যাত্রা :
বইমেলার ইতিহাস ঘেঁটে দেখা গেছে, ১৯৭২ সালে চিত্তরঞ্জন সাহার শুরু করা বইমেলা ১৯৭৩ সালে বাংলা একাডেমি মহান একুশে মেলা উপলক্ষে ১৫ ফেব্রুয়ারি থেকে ২১ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত বিশেষ হ্রাসকৃত মূল্যে একাডেমির প্রকাশিত বই বিক্রির ব্যবস্থা করে৷

এর পাশাপাশি মুক্তধারা, স্ট্যান্ডার্ড পাবলিশার্স এবং তাদের দেখাদেখি আরো কেউ কেউ বাংলা একাডেমির মাঠে নিজেদের বই বিক্রির ব্যবস্থা করে৷ ১৯৭৪ সালে বাংলা একাডেমি সে বছরের ১৪ ফেব্রুয়ারি জাতীয় সাহিত্য সম্মেলনের আয়োজন করে৷ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ঐ সম্মেলনের উদ্বোধন করেন৷ এ উপলক্ষে বাংলা একাডেমি তার নিজস্ব প্রকাশিত বই প্রদর্শন ও ম্যুরাল প্রদর্শনীর আয়োজন করে৷

১৯৭৫ সালে একাডেমি মাঠের কিছু জায়গা চুনের দাগ দিয়ে প্রকাশকদের জন্য নির্দিষ্ট করে দেয়৷ সেখানে প্রকাশকরা নিজেদের মতো স্টল তৈরি করে বই বিক্রির ব্যবস্থা করে৷

এভাবে চলতে চলতে ১৯৮৩ সালে মেলার সহযোগী প্রতিষ্ঠান হিসেবে জাতীয় গ্রন্থকেন্দ্রকে বাদ দেওয়া হয়৷১৯৮৪ সাল থেকে এই মেলার নতুন নামকরণ করা হয় ‘অমর একুশে গ্রন্থমেলা’৷ এরপর পেছনে ফিরতে হয়নি৷ দিন দিন বেড়েছে মেলার কলেবর৷ বেড়েছে বিক্রিও৷

প্রকাশকেরা গত কয়েক বছর ধরেই ডিজিটাল ভার্সনের বই বের করার চেষ্টা করে যাচ্ছেন৷

ভিন্নধারার প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান ‘কাহিনীক লিমিটেড’ সোহরাওয়ার্দী উদ্যান চত্ত্বরের ৩৯৭ নম্বর স্টলে আগত সাহিত্যপ্রেমীদের ‘কাহিনীক’ অ্যাপের মাধ্যমে সাহিত্যরস আস্বাদনের সুযোগ করে দিচ্ছে৷

বিশ্বব্যাপী ধ্রূপদ ও সমকালীন বাংলা সাহিত্যের বিশাল ভাণ্ডার হিসেবে শতাধিক অডিওবুক নিয়ে সম্প্রতি আনুষ্ঠানিকভাবে আত্মপ্রকাশ করেছে কাহিনীক৷ দেশের প্রথম সারির বিভিন্ন প্রকাশনা প্রতিষ্ঠানের ভালোমানের বই নিয়ে তারা অডিওভার্সন তৈরি করেছে৷

শুধু কাহিনীক নয়, কাব্যিক ও শুনবই নামে আরও দু’টি প্রতিষ্ঠান পাওয়া গেল বাংলা একাডেমি চত্ত্বরে৷

স্টলে থাকা কাব্যিকের ব্রান্ড এক্সিকিউটিভ সুমাইয়া জামান মিম বলেন, ‘‘২০২২ সালের শেষের দিকে যাত্রা শুরু হয় কাব্যিক অডিওবুক প্লার্টফর্মের৷ ইতিমধ্যে এই প্লাটফর্মে বাড়ছে বাংলা ভাষাভাষী মানুষের সংখ্যা৷

আড়াই হাজারের বেশি বই ইতিমধ্যে যুক্ত হয়েছে এই প্লার্টফর্মে৷ হরর, থ্রিলার, রোমান্স, এডভেঞ্চার, মোটিভেশন, ক্লাসিক, রিলিজিয়াস, বায়োগ্রাফি, কবিতা, বিশেষ শিশুতোষ কন্টেন্টসহ কাব্যিকের রয়েছে নিজস্ব অনেক কন্টেন্ট৷

২০২৩ সালেও অমর একুশে গ্রন্থমেলায় ছিলো কাব্যিকের স্টল৷ এবারও আমাদের স্টলে বইপ্রেমীরা এসে ভিড় করছেন আর অভিজ্ঞতা নিচ্ছেন দেশের সর্ববৃহৎ এই অডিও লাইব্রেরির৷”

শুনবই-এর স্টলে দায়িত্বে থাকা সিমু আক্তার বলেন, ‘‘আমাদের এই উদ্যোগটা মূলত সব শ্রেনীর মানুষের জন্য৷ মানুষ এখন অনেক বেশি ডিজিটাল মাধ্যমে সময় কাটায়৷

অনেকে মোবাইলে পড়তে চান না৷ তাদের জন্য আমাদের অডিও বুকের ব্যবস্থা৷ শিশুরা যেমন অডিও বুক শুনতে পারে, তেমনি অনেক বয়স্ক ব্যক্তি আছেন যারা পড়তে পারেন না, তাদের জন্যই আমাদের এই আয়োজন৷ দিন দিন মানুষের আগ্রহ বাড়ছে৷”

এখন পর্যন্ত ৩০০ বই নিজেদের প্লাটফর্মে এনেছেন বলে জানালেন স্টলে থাকা অরেক কর্মী জান্নাতুল ফেরদৌস৷

প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান অনন্যা প্রকাশনী, কাকলি, অনুপমসহ বেশ কয়েকটি প্রকাশনার বইয়ের অডিওভার্সন পাওয়া যাচ্ছে কাহিনীক প্রকাশনীতে৷ অনুপম প্রকাশনীর স্বত্বাধিকারী মিলন নাথ বলেন, ‘‘পাঠক, বই ও সাহিত্যপ্রেমীদের তরুণ অংশ এখন ডিজিটাল ডিভাইস নির্ভর৷

সেই প্রবণতা বিবেচনায় রেখেই অডিও ভার্সনে পাঠক-শ্রোতাদের কাছে পৌঁছে দেওয়ার অবিরাম চেষ্টা চলছে৷ আশা করছি, এক্ষেত্রে দেশের গণ্ডি ছাড়িয়ে যাবে আমাদের বইয়ের প্রকাশ ও প্রচারণা৷ প্রযুক্তি হচ্ছে এ সরকারের ভিশন৷ এই ভিশনের সঙ্গে আমরাও আছি৷’’

সবচেয়ে বেশি বই রয়েছে রকমারি ই-বুকে৷ রকমারির ই-বুকের স্টল বাংলা একাডেমি চত্ত্বরে৷ স্টলে থাকা শিমুল মোল্লা বলেন, ‘‘আমাদের ই-বুকে ৭ হাজারেরও বেশি বই রয়েছে৷ কিছু বই ফ্রি পড়া যায়৷ আর কিছু বই টাকা দিয়ে পড়তে হয়৷ সব ধরনের লেখকের বই আছে আমাদের অনলাইনে৷ গত এক বছরে আমরা চার হাজারেরও বেশি বই অনলাইনে যুক্ত করতে পেরেছি৷ ভবিষ্যতে আরো সমৃদ্ধ হবে৷’’

অনন্যা প্রকাশনীর মনিরুল হক বলেন, ‘‘বইমেলার উদ্বোধনকালে প্রধানমন্ত্রী কিন্তু ডিজিটাল প্রকাশক হওয়ার তাগিদ দিয়েছেন ৷

প্রধানমন্ত্রীর ডিজিটাল প্রকাশনার এই ভাবনায় উদ্বুদ্ধ হয়েছেন অনেক প্রকাশক৷ ইতিমধ্যে অনেকে বইয়ের অডিও, ভিডিও ফরম্যাট করার চেষ্টা করছেন৷ ফলে আমরাও প্রযুক্তির সঙ্গে তাল মিলিয়ে এগিয়ে যাব৷ অডিও ও ই-বইয়ের মধ্য দিয়ে ব্যবসারও অগ্রগতি হবে৷’’

সর্বশেষ - খবর

ব্রেকিং নিউজ :