300X70
শুক্রবার , ৮ সেপ্টেম্বর ২০২৩ | ৫ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অপরাধ ও দূর্নীতি
  2. আইন ও আদালত
  3. আনন্দ ঘর
  4. আনন্দ ভ্রমন
  5. আবহাওয়া
  6. আলোচিত খবর
  7. উন্নয়নে বাংলাদেশ
  8. এছাড়াও
  9. কবি-সাহিত্য
  10. কৃষিজীব বৈচিত্র
  11. ক্যাম্পাস
  12. খবর
  13. খুলনা
  14. খেলা
  15. চট্টগ্রাম

আজ আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবস

প্রতিবেদক
বাঙলা প্রতিদিন২৪.কম
সেপ্টেম্বর ৮, ২০২৩ ১:৪১ পূর্বাহ্ণ

বাঙলা প্রতিদিন ডেস্ক : বিশ্বের অন্যান্য দেশের ন্যায় বাংলাদেশেও আগামী ৮ সেপ্টেম্বর (শুক্রবার) আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবস পালিত হতে যাচ্ছে।

ইউনেস্কো কর্তৃক নির্ধারিত এ বছর সাক্ষরতা দিবসের প্রতিপাদ্য ‘পরিবর্তনশীল ও শান্তিপূর্ণ সমাজ গঠনে সাক্ষরতার প্রসার’; যা সময়ের গুরুত্ব বিবেচনায় অত্যন্ত প্রাসঙ্গিক বলে জানিয়েছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়।

১৯৭২ সালে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের যে সংবিধান প্রণীত হয় তার ১৭নং অনুচ্ছেদে দেশ থেকে নিরক্ষরতা দূরীকরণ এবং শিক্ষাকে অবৈতনিক ও বাধ্যতামূলক হিসেবে ঘোষণা করা হয়।

সাক্ষরতা বিস্তারে ১৯৭২ সালে স্বাধীন বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো সাক্ষরতা দিবস উদযাপিত হয়। ১৯৭৩ ঠাকুরগাঁওয়ে সাক্ষরতা অভিযান শুরু হয়। ১৯৭৩ সালে আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবসের প্রধান অনুষ্ঠানটি হয় ঠাকুরগাঁয়ে।

এদিনে ঠাকুরগাঁ-এর কচুবাড়ী-কৃষ্টপুর গ্রামকে বাংলাদেশের প্রথম নিরক্ষরতামুক্ত গ্রাম হিসেবে ঘোষণা করা হয়। বর্তমানে সাক্ষরতার হার ৭৬.০৮ শতাংশ।

সাক্ষরতা দিবসের কর্মসূচিগুলো- আলোচনানুষ্ঠান, ক্রোড়পত্র প্রকাশ, সংবাদ সম্মেলন, পোস্টার প্রকাশ, প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় এ সংক্রান্ত টকশো ও প্রতিবেদন প্রকাশ ইত্যাদি।

ঢাকার অনুষ্ঠান হবে সকাল ১০টায় তেজগাঁওয়ে উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরোর (বিএনএফই) প্রধান কার্যালয়ে। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন। সভাপতিত্ব করবেন সচিব ফরিদ আহাম্মদ।

৭ সেপ্টেম্বর সকাল ১১টায় প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে এক সংবাদ সম্মেলন আয়োজন করা হয়।

আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবস উপলক্ষে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা সচিব ফরিদ আহাম্মদ বলেন, শতভাগ সাক্ষরতা অর্জনে মন্ত্রণালয়ের নিরন্তর প্রয়াস অব্যাহত আছে।

এদিকে, সরকারের নানামুখী কার্যক্রম বাস্তবায়নের ফলে সাক্ষরতার হার ২০০৭ সালের ৪৬.৬৬ শতাংশ থেকে বৃদ্ধি পেয়ে বর্তমানে ৭৫.৬ শতাংশে উন্নীত হয়েছে। প্রাথমিক শিক্ষায় মেয়েদের অংশগ্রহণ ৯৮.২৫ শতাংশে উন্নীত হয়েছে।

প্রাথমিক বিদ্যালয় ও বিদ্যালয়ে শিক্ষকের সংখ্যা সরকারের সাড়ে চৌদ্দ বছরে দ্বিগুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। স্কুলে ছাত্র-ছাত্রী ভর্তি ও প্রাথমিক শিক্ষা সমাপ্তির হার বৃদ্ধি পেয়েছে, ঝরে পড়া শিক্ষার্থীর সংখ্যা হ্রাস পেয়েছে।

যুগের পরিবর্তনের সাথে শিক্ষার চাহিদা ও শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা পদ্ধতিতে বৈচিত্র্য এসেছে। ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত-সমৃদ্ধ স্মার্ট বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে সবার জন্য শিক্ষার সুযোগ সৃষ্টি, বৃত্তিমূলক শিক্ষা, উদ্যোক্তা উন্নয়ন ও কর্মসংস্থানমূলক প্রশিক্ষণ এবং তথ্যপ্রযুক্তিসহ সাক্ষরতা প্রদান জরুরি।

সর্বশেষ - খবর

আপনার জন্য নির্বাচিত

বৃহস্পতিবার শাফি হোসেন চিশতী ইউশার ৫ম মৃত্যুবার্ষিকী

মঙ্গলবার ঢাকা দক্ষিণে প্রতিটি থানায় বিএনপির বিক্ষোভ

টি-টোয়েন্টি সিরিজে বাংলাদেশ জয়লাভ করায় ক্রিকেট দলকে যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রীর অভিনন্দন

দিল্লির উদ্দেশে ঢাকা ছাড়লেন রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী ল্যাভরভ

দেশের বাজারে পাওয়া যাচ্ছে ইনফিনিক্সের ইনবুক সিরিজের দুই ল্যাপটপ

ভোটের দিন বিএনপি’র সন্ত্রাস-নৈরাজ্যের চক্রান্ত  গোয়েন্দা সংস্থাগুলো জেনে গেছে : তথ্যমন্ত্রী

সংসদ নির্বাচনে বৈধ প্রার্থীর সংখ্যা দাঁড়ালো ২২৬০ জনে

যাত্রাবাড়ীতে ট্রাকচাপায় আহত পোশাকশ্রমিক চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেলেন

বেনাপোল র‍্যাবের অভিযানে ইয়াবা সম্রাট আটক

দুপুরে ঢাকায় আসছেন ব্রুনাইয়ের সুলতান, স্বাগত জানাবেন রাষ্ট্রপতি

ব্রেকিং নিউজ :