300X70
রবিবার , ৫ মে ২০২৪ | ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অপরাধ ও দূর্নীতি
  2. আইন ও আদালত
  3. আনন্দ ঘর
  4. আনন্দ ভ্রমন
  5. আবহাওয়া
  6. আলোচিত খবর
  7. উন্নয়নে বাংলাদেশ
  8. এছাড়াও
  9. কবি-সাহিত্য
  10. কৃষিজীব বৈচিত্র
  11. ক্যাম্পাস
  12. খবর
  13. খুলনা
  14. খেলা
  15. চট্টগ্রাম

আমার জন্মদিনের ভাবনা

প্রতিবেদক
বাঙলা প্রতিদিন২৪.কম
মে ৫, ২০২৪ ৩:৫৫ অপরাহ্ণ

দ্যুতিময় বুলবুল : আজ রোববার (৫ই মে) ২০২৪ সাল, ২২ শে বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, আমার জন্মদিন। প্রতি বছরের ন্যায় এ বছরও সকাল থেকেই আমার মোবাইল ফোন, ফেসবুক একাউন্টের ওয়াল ও মেসেঞ্জার প্রিয়জনের শুভেচ্ছা, ভালোবাসায় ভরে উঠছে। অসংখ্য শুভাকাঙ্খীর জন্মদিনের শুভেচ্ছায় সিক্ত হচ্ছি। মন্দ নয়, জীবনের এই ভার্চুয়াল অনুভূতি।

ফলে সবার ভালোবাসা ও শুভেচ্ছা আমি সানন্দে গ্রহণ করছি। কারণ, প্রিয়জনের শুভেচ্ছা ও ভালোবাসার মনোমুগ্ধকর বার্তা খুব ভালো লাগে, হৃদয়ে শিহরণ জাগে। তাই শুভাশিষ দাতাদের শুভ কামনা ও কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি।

জন্মদিন জীবনের নতুন একটি বছরের শুরু। জন্মদিন মানে নতুন স্বপ্ন, সাধনা ও সংগ্রামের সূচনা। আরেকটি সুখী, সুন্দর ও কল্যাণময় বছরের প্রার্থনা। জন্মদিন মানে, জীবনের নবযাত্রার প্রথম দিন।

জন্মদিন মানে, একজন ভালো মানুষ হওয়ার শপথ গ্রহণের দিন। দেশ, জাতি ও মানুষের জন্য কাজ করার প্রত্যয় ঘোষণার দিন। স্বজন, প্রিয়জন ও অভাজনের পাশে দাঁড়ানোর অঙ্গীকারের দিন। পেশা ও নেশার অগ্রগতি এবং প্রত্যাশা ও প্রাপ্তির খেরো খাতা মেলানোর দিন। নতুন হিসাব, নিকাশ ও পরিকল্পনার ছক আঁকার দিন।

জন্মদিন মানে, আনন্দ-উল্লাস ও দুঃখ-কষ্টের মাঝে নিজের অস্তিত্ব নিয়ে ভাবনার দিন। জীবন, জগত ও সংসার নিয়ে চিন্তা করার দিন। প্রকৃতির সকল সৃষ্টির সঙ্গে নিজেকে মিলিয়ে নেওয়ার দিন। জন্মদিন মানে, নিজেকে চেনা, জানা, বোঝা এবং আত্মজিজ্ঞাসা, আত্মোপলব্ধি ও আত্মসংশোধনের দিন।

জন্মদিন মানে, আমাদের জীবনে একজন ব্যক্তির উপস্থিতি নতুন করে উদযাপন করা। জন্মদিন মানে, জীবনকে উপভোগ ও উদযাপনের নতুন সুযোগ। জীবনকে স্মরণীয়-বরণীয় করার একটি স্মরণচিহ্ন। জন্মদিন মানে, একটি সুন্দর, স্বাভাবিক ও সুস্থ জীবনের প্রত্যাশার দিন।

জন্মদিন মানে, অতীতের স্মৃতির ভাণ্ডার আরো সমৃদ্ধ করার দিন। বর্তমানকে লালন, পালন ও উদযাপন করার দিন। মঙ্গলময়, কল্যাণময় ও স্বপ্নময় ভবিষ্যতকে আহ্বান, আলিঙ্গন ও প্রত্যাশার দিন। জন্মদিন মানে, ব্যক্তিগত জীবনের নতুন করে শুভযাত্রার সূচনার দিন।

জন্মদিন মানে, জীবনের আরো একটি বছরে পদার্পন-একটি সুখ, শান্তি ও আনন্দময় জীবনের প্রত্যাশার দিন। নতুন করে স্বপ্ন দেখা ও অতীতের ভুল-ভ্রান্তি, দুঃখ-বেদনা এবং ব্যর্থতা-হতাশা থেকে মুক্ত হওয়ার সুযোগ লাভের দিন। জন্মদিন মানে নতুন সকাল, নতুন দিন, নতুন জীবন শুরুর আবাহনের দিন।

তাই প্রতি বছর যখন জীবনে নতুন করে জন্মদিন আসে, তখন সেই সৌভাগ্যের জন্য, অনন্য প্রাপ্তির জন্য, আমরা আনন্দিত হই, খুশি হই। কারণ, জীবনে বয়স যতটা গুরুত্বপূর্ণ, তার চেয়ে অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ সুস্থ, স্বাভাবিক ও কর্মমুখর জীবন। দুঃখ, বেদনা ও হতাশামুক্ত জীবন।

আশা, আকাঙ্খা ও অগ্রগতির চেতনা এবং প্রেরণা নিয়ে বেঁচে থাকার প্রত্যাশা ও প্রত্যয়। কারণ, মানুষের জীবন মাত্রই সুখ-দুঃখের মিলন তীর্থ। জন্মদিন একইসঙ্গে মনে করিয়ে দেয়-এই সুন্দর, মোহময় ও বিস্ময়কর বিপুলা পৃথিবীতে আমার সময় আরো এক বছর কমে গেল।

প্রতিটি জন্মদিন এই খবর জানিয়ে দেয়, সময় ফুরিয়ে আসছে…। কারণ, জীবনের শেষ পরিণতি মৃত্যু। আর তাই জীবন মানেই মৃত্যুর দিকে এগিয়ে যাওয়ার একমাত্র পথ। প্রত্যেক প্রাণীর মৃত্যু অনিবার্য। অর্থাৎ জীব জগতে যার জন্ম আছে তার মৃত্যু অবশ্যম্ভাবী,অলঙ্ঘনীয় -এটাই প্রকৃতির বিধান।

সত্যি বলতে কি, জীবনের ফেলে আসা প্রতিটি দিন এখন অতীত। আগামী দিনগুলো মৃত্যুর প্রহর গুনছে। আমাদের জীবন থেকে প্রতিটি মুহূর্ত চিরদিনের জন্য হারিয়ে যাচ্ছে-মহাকালের গর্ভে, রহস্যময় কৃষ্ণগহ্বরে। শত সহস্র চেষ্টা করেও তা আর ফিরে পাওয়া যাবে না।

ফলে জীবনের একটি বছর অতিক্রম হওয়ার অর্থ হলো, মৃত্যুর দিকে আরো একটি ধাপ এগিয়ে যাওয়া। তাই ক্ষণস্থায়ী এই জীবনে অর্জন-বর্জন ও প্রাপ্তি-বিসর্জনের হিসাব কষে কী লাভ! দেশ, জাতি, মানুষ তথা জগত সংসারের জন্য যদি কিছু করার ইচ্ছা থাকে, তা হলে খুব তাড়াতাড়ি করতে হবে। অলস সময় পার করা যাবে না। আগামীকালের জন্য ফেলে রাখলে কোনো দিনই হয়ত সেই কাজ করা হবে না।

সবারই জীবনে কিছু না কিছু লক্ষ্য থাকে, স্বপ্ন থাকে। জীবনের কাছে মানুষের প্রত্যাশার শেষ নেই। তাই দ্রুত প্রত্যাশা পুরণের চেষ্টা করতে হয়। পরিশ্রম সাফল্যের চাবিকাঠি। মেধা ও প্রতিভার জোর সামান্যই। ভাগ্য অপ্রত্যক্ষ, অদর্শনীয় অনুমাননির্ভর একটি বিশ্বাস। ফলে প্রত্যাশা পূরণের জন্য সঠিক সময়ে সঠিক প্রচেষ্টা, শ্রম ও সাধনার বিকল্প নেই। তাই তো ফকির লালন বলেছেন, “দিন থাকিতে দিনের সাধন কেন করলে না। সময় গেলে সাধন হবে না।”

আমার কাছে সব সময় মনে হয় স্বপ্ন-তীর্থে পৌঁছে যাবার চেয়ে, স্বপ্নযাত্রাটা অনেক বেশি চমকপ্রদ ও আনন্দময়। তাই আমি স্বপ্নপথের যাত্রী। এ পথের শেষ কোথায়, জানি না। ফলে পৃথিবীর মায়া ছেড়ে চলে যাবার জন্য এখনো আমি প্রস্তুত না। কোনো মানুষই মৃত্যুর জন্য প্রস্তুত থাকে না। কেউ মরতে চায় না- অজানা অচেনা জগতে যেতে চায় না।

মৃত্যু জীবনের একটি স্বাভাবিক, অনিবার্য অংশ। মৃত্যু আমাদের জীবনের অঙ্গ। আমরা প্রকৃতির অঙ্গ, আর সেই জন্য মৃত্যুও এই বিশ্ব প্রকৃতির অঙ্গ।
যুক্তিসঙ্গতভাবে, জীবনের প্রারম্ভ ও শেষ আছে-তাই জন্ম এবং মৃত্যু আছে। যিশু খ্রিস্ট ক্রুশ বিদ্ধ হয়ে তাঁর অনুগামীদের দেখিয়েছিলেন যে, মৃত্যুই শেষ পরিণতি।

বুদ্ধও মৃত্যুর মধ্য দিয়েই নির্বাণ লাভ করেছেন বলে বৌদ্ধদের বিশ্বাস। গৌতম বুদ্ধ বলেছেন, নির্বাণ লাভ কিংবা কামনা-বাসনা থেকে মুক্তি লাভের ফলে দুঃখের অবসান ঘটে। এর মধ্য দিয়ে দূর হয় অজ্ঞানতা।

আল-কুরআনেও স্পষ্ট বলা হয়েছে, ‘সকল প্রাণীকেই একদিন মৃত্যুর স্বাদ গ্রহণ করতে হবে।’ আজ না হোক কাল মৃত্যু ঘটবে। মৃত্যু অবশ্যম্ভাবী ও প্রশ্নাতীতভাবে সত্য। তাই তো কবি মধুসূদন দত্ত লিখেছেন, “জন্মিলে মরিতে হবে,/ অমর কে কোথা কবে/ চিরস্থির কবে নীর,/ হায় রে, জীবন-নদে?” এ সত্য রবীন্দ্রনাথও নিঃশঙ্ক চিত্তে মেনে নিয়েছেন। তাঁর মৃত্যুচিন্তা সবাইকে স্পর্শ করে। অসংখ্য প্রিয়জনের মৃত্যু প্রত্যক্ষ করে অসহায়ভাবে মৃত্যুকে স্বাগত জানিয়েছেন তিনি। বলেছেন, “মরণরে তুঁহু মম শ্যাম সমান।”

তবুও কি রবীন্দ্রনাথের মধ্যে মৃত্যু ভীতি ছিল? স্বেচ্ছায় মৃত্যুর জন্য তিনি কি প্রস্তুত ছিলেন না? পৃথিবীর রূপ, রস, গন্ধ ও সৌন্দর্যে তিনি মুগ্ধ ছিলেন। তাই হয়ত তাঁর বাঁচার জন্য আকুল আবেদন, “মরিতে চাহি না আমি সুন্দর ভুবনে,/ মানবের মাঝে আমি বাঁচিবারে চাই।/ এই সূর্যকরে এই পুষ্পিত কাননে/ জীবন্ত হৃদয়-মাঝে যদি স্থান পাই।”

সে কারণেই স্টিভ জবস বলেছেন, সত্যি বলতে কী-পৃথিবীতে কেউই মরতে চায় না। এমনকি যে স্বর্গে যেতে চায়, সেও স্বর্গে যাওয়ার জন্য মরতে চায় না। তবুও, মৃত্যু আমাদের সবার গন্তব্য। কেউ কখনো মৃত্যু এড়াতে পারেনি। মৃত্যু আসলে এমনই হওয়া উচিত। কারণ, মৃত্যু সম্ভবত জীবনের একক সেরা আবিষ্কার। মৃত্যু জীবনের পরিবর্তন এজেন্ট। মৃত্যু নতুন জীবনের পথ তৈরি করতে পুরাতনকে বিনাশ করে।

অবশ্য পৃথিবীর ইতিহাসে দর্শনের প্রথম মৃতুঞ্জয়ী দার্শনিক সক্রেটিস হেমলক পানে নিরব ও নির্বিকারভাবে নির্ভীক চিত্তে দেহত্যাগ করেছেন। সবচেয়ে উত্তম, সবচেয়ে জ্ঞানী এবং সবচেয়ে ন্যায়পরায়ণ এই দার্শনিক জেনেছেন মৃত্যুই জীবনের একমাত্র সত্য। শ্বাশত সুন্দর।

তাই মৃত্যুর পূর্ব মুহূর্তে শিষ্যদের তিনি বলেছেন, “তোমরা উচ্চস্বরে কেঁদো না, আমায় শান্তিতে মরতে দাও।” সক্রেটিস দৃঢচিত্তে মৃত্যুর আগে বলেছেন, “The hour of departure has arrived, and we go our separate ways, I to die, and you to live. Which of these two is better only God knows.”

স্টিফেন হকিংও মৃত্যুভয়ে ভীত ছিলেন না। তিনি বলেছেন, মৃত্যু নিয়ে আমি ভীত নই। কিন্তু মরার জন্য তাড়াও নেই আমার। মৃত্যুর আগে করার মতো অনেক কাজ আছে আমার। মৃত্যু নিয়ে সজাগ ছিলেন মহাত্মা গান্ধীও। তিনি বলেছেন, “এমনভাবে অধ্যয়ন করবে, যেন তোমার সময়াভাব নেই, তুমি চিরজীবী। এমনভাবে জীবনযাত্রা নির্বাহ করবে, যেন মনে হয় তুমি আগামীকালই মারা যাবে।”

আমি বিশ্বাস করি, একটি নির্দিষ্ট এসাইনমেন্ট নিয়ে এই পৃথিবীতে এসেছি, সেটি শেষ না হওয়া পর্যন্ত আমি ধরাধাম ছেড়ে যাব না। ২০১২ সালে রেয়ার ভাইরাস ‘গিলেন ব্যারে সিনড্রোম-জিবিএস’ (Guillain-Barré Syndrome-GBS) আক্রান্ত হয়ে দীর্ঘদিন মৃত্যুর সঙ্গে লড়াই করেছি। আইসিইউ থেকে ফিরে এসেছি জীবনের নিয়মে, প্রিয় পৃথিবীতে, প্রিয়জনের মাঝে। কাজেই আপাতত মৃত্যুচিন্তা বাদ দিয়ে সেই এসাইনমেন্ট নিয়ে ভাবতে চাই। কিন্তু কী সেই এসাইনমেন্ট? সক্রেটিসের ভাষায়, “Know Thyself”.

প্রতিটি মানুষের এই বিশ্ব চরাচরে নিজের একান্তই কিছু চাওয়া-পাওয়া থাকে, আমারও তাই। কিন্তু আজও তা পুরণ হয়নি। হয়ত কোনো দিন হবেও না। কারণ, প্রতিটি মানুষ অতৃপ্তি ও অপূর্ণতা নিয়ে এই পৃথিবী থেকে বিদায় নেয়। কেউ স্বপ্ন ও প্রত্যাশা পূরণ করতে পারে না। স্বপ্ন ও প্রত্যাশা স্থির নয়, ক্রমবর্ধমান-অপরিমেয়। তাই স্বপ্ন অধরা ও প্রত্যাশা অতৃপ্তই থেকে যায়।

আজ জন্মদিনে বিশেষ কোনো চাহিদা নেই। শুধু তিনটি প্রত্যাশা আছে- একটি হলো আমার প্রাণের মানুষ রবীন্দ্রনাথের ‘এবার ফিরাও মোরে’ কবিতার ভাষায়-“অন্ন চাই, প্রাণ চাই, আলো চাই, চাই মুক্ত বায়ু,/ চাই বল, চাই স্বাস্থ্য, আনন্দ-উজ্জ্বল পরমায়ু।”

পড়াশুনা এবং লেখালেখি করা, পৃথিবীর সবচেয়ে সেরা ও সর্বাধিক গৌরবময় কাজ। তাই জন্মদিনে আমার দ্বিতীয় প্রত্যাশা পড়াশুনা এবং লেখালেখির অভ্যাস বজায় রাখা। পড়ালেখার অভ্যাস আমাকে যতটুকু নির্মল আনন্দ দেয়, জগতের আর কিছু সেই আনন্দ দিতে পারে না।

তৃতীয়ত, পৃথিবীতে সমাজ, রাষ্ট্র ও মানুষের জন্য কিছু কাজ করে যেতে চাই। জীবনে এ পর্যন্ত স্বজন, প্রিয়জন ও দুর্জন সব ধরনের মানুষকেই সাধ্যমতো সাহায্য, সহযোগিতা ও সহমর্মিতা দিয়েছি, পাশে দাঁড়িয়েছি, ভালোবেসেছি।

প্রতিদান কতটুকু পেয়েছি, হিসাব রাখিনি। বিনিময় প্রত্যাশাও করিনি। কারণ, দান-অনুদান, সাহায্য- সহযোগিতা কিংবা প্রেম-ভালোবাসা শর্তমুক্ত, নিঃস্বার্থ- প্রতিদানহীন, প্রত্যাশাহীন। গীতায় শ্রীকৃষ্ণ বলেছেন, ‘কর্ম করাই তোমার অধিকার, ফলাফলে না, তাই তুমি কর্মফলের বাসনা রেখো না এবং কর্ম ত্যাগ করার বিচার কর না।’

তবুও রবীন্দ্রনাথের ভাষায় বলতে চাই, “ –বহুদিন মনে ছিল আশা/ প্রাণের গভীর ক্ষুধা/ পাবে তার শেষ সুধা;/ ধন নয়, মান নয়, কিছু ভালোবাসা/ করেছিনু আশা।
কারণ, মানুষ স্বপ্ন দেখে, মানুষ আশা করে। স্বপ্ন শেষ হয় না, আশাও ফুরায় না। নিজে কিছু অর্জন করতে চাওয়ার নাম আশা। আর অন্যের থেকে কিছু অর্জন করতে চাওয়ার নাম প্রত্যাশা। আশা করা উচিত নিজের কাছে। অন্যের কাছে প্রত্যাশা করা উচিত নয়। জ্ঞাণীরা বলেন, প্রত্যাশাহীন জীবন স্বর্গের মতন।

মানুষ আশা ছাড়ে না। স্বপ্নও হারায় না। স্বপ্নের কাছে পৌঁছানোর আশা আমৃত্যু জেগে থাকে। মৃত্যুপথযাত্রী ব্যক্তির চোখেও আশার স্বপ্ন ভাসে। কারণ, মানুষ নিজের জীবনকে ভালোবাসে। মানুষের জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে জীবনের প্রতি ভালোবাসা। তাই মানুষ প্রেমময় জীবনের স্বপ্ন দেখে। এর অর্থ মানুষ নিজেকেই ভালোবাসে। নিজেকে ভালোবাসতে না পারলে স্বপ্নের পেছনে ছোটা সম্ভব না।

আশা আর ভালোবাসা একে অন্যের সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িত। যেখানেই ভালোবাসা, সেখানেই আশা। ভালোবাসায় থাকে বিশ্বাস, শ্রদ্ধা, সম্মান, আস্থা, সহযোগিতা, সহমর্মিতা, অনুভব। ভালোবাসা হারায় না। পৃথিবীতে ভালোবাসা ছিল, আছে, থাকবে। স্বপ্ন, আশা, প্রত্যাশা সবই আছে পৃথিবীতে। থাকবেও চিরকাল। শুধু জীবনের আয়ু ক্ষণকাল।

আমি মনে করি, বিশ্বব্রক্ষ্মান্ডের মহাযজ্ঞে ক্ষণিকের অতিথি আমি। এই যজ্ঞের আমি কেউ নই। মহাকালের মহাস্রোতে ভাসমান অজস্র জলরাশির ক্ষুদ্রাতি ক্ষুদ্র আণুবীক্ষণিক কণাও না।

তবে যে ক্ষণিকের জীবন পেয়েছি, তাতেই আমি ধন্য। এই প্রাপ্তি অনন্য। তাই আজ আমার জন্মদিনে রবীন্দ্রনাথের ভাষায় বলতে চাই, “জগতে আনন্দযজ্ঞে আমার নিমন্ত্রণ। ধন্য হল, ধন্য হল, মানবজীবন॥”
লেখা ফেসবুক থেকে সংগৃহীত, লেখক : সাংবাদিক ও গবেষক। 

সর্বশেষ - খবর

আপনার জন্য নির্বাচিত

অভিনন্দন না জানিয়ে বিএনপি পদ্মা সেতুর বিরোধিতা স্বীকার করে নিয়েছে : তথ্যমন্ত্রী

পুলিশ বাহিনী সর্বদা মানুষের সেবায় সচেষ্ট : প্রতিমন্ত্রী রাসেল

জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির বৈঠক আজ

সোয়ারিঘাট ও নারায়ণগঞ্জে ৩ হাজার ৮০০ কেজি জাটকাসহ স্পীডবোট জব্দ

৭৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ছাত্রলীগের শ্রদ্ধা

“বসুন্ধরা খাতা ব্রেইল বই ডোনেশন প্রোগ্রাম, তোমার হাতে তোমার ভবিষ্যৎ-২০২২”

তেজগাঁওয়ে ট্রেনে নাশকতা তদন্তে ৫ সদস্যের কমিটি

ইসলামী ব্যাংক রংপুর জোনের ব্যবসায় উন্নয়ন সম্মেলন অনুষ্ঠিত

ক্রিকেটপ্রেমীদের জন্য সিঙ্গার নিয়ে এলো প্রতিদিন বিনামূল্যে টিভি জেতার সুযোগ

একদিনে করোনায় ঝড়ল আরো ৩৭ প্রাণ, নতুন শনাক্ত ১৬০৮ জন

ব্রেকিং নিউজ :