300X70
বৃহস্পতিবার , ১ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ | ১১ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
  1. অপরাধ ও দূর্নীতি
  2. আইন ও আদালত
  3. আনন্দ ঘর
  4. আনন্দ ভ্রমন
  5. আবহাওয়া
  6. আলোচিত খবর
  7. উন্নয়নে বাংলাদেশ
  8. এছাড়াও
  9. কবি-সাহিত্য
  10. কৃষিজীব বৈচিত্র
  11. ক্যাম্পাস
  12. খবর
  13. খুলনা
  14. খেলা
  15. চট্টগ্রাম

ইজতেমা ময়দানের এক তৃতীয়াংশ মুসল্লিতে পরিপূর্ণ

প্রতিবেদক
বাঙলা প্রতিদিন২৪.কম
ফেব্রুয়ারি ১, ২০২৪ ২:০২ পূর্বাহ্ণ

বিএ রায়হান, টঙ্গী (গাজীপুর) : আগামীকাল শুক্রবার ফজরের নামাজের পর আমবয়ানের মধ্য দিয়ে গাজীপুরের টঙ্গীর তুরাগ তীরে শুরু হতে যাচ্ছে ৫৭তম বিশ্ব ইজতেমার প্রথমপর্ব। গতকাল বুধবার বিকেলের মধ্যে ইজতেমা ময়দানের এক তৃতীয়াং জায়গা পূরণ হয়ে গেছে। এর আগে, গত মঙ্গলবার থেকে বাস-ট্রেন ও পিকআপে করে আসতে শুরু করেন মুসল্লিরা। প্রথম পর্বের বিশ্ব ইজতেমায় অংশ নিচ্ছেন মাওলানা জুবায়ের সমর্থক মুসুল্লিরা।
সরেজমিনে দেখা গেছে, ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক, ঢাকা রোড, আশুলিয়া রোড, টঙ্গী, কামার পড়া রোড হয়ে ট্রাক, পিকআপে করে প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র নিয়ে দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে মুসল্লিরা আসতে শুরু করেছেন তুরাগ তীরে। তার তাদের নির্ধারিত খিত্তায় গিয়ে অবস্থা নিচ্ছেন। সেসব খিত্তায় চট নেই সেখানে নিজ উদ্যোগে মুসল্লিদের টাঙিয়ে নিতে দেখা গেছে চট ও সামিয়ানা। অনেক খিত্তা ইতোমধ্যে মুসল্লি দিয়ে পরিপূর্ণ হয়ে গেছে। যেসব খিত্তায় উপস্থিতি কম সেসব খিত্তায় অবস্থান নেওয়া মুসল্লিরা জানান, আজ বুধবার রাতের মধ্যেই পূর্ণ হয়ে যাবে মাঠ। কারণ তাদের সাথিরা সবাই রওনা হয়েছেন। সিরাজগঞ্জ থেকে আসা আব্দুর রহমান বলেন, ‘ফজরের নামাজ পড়ে লোকাল ট্রেনে টঙ্গী স্টেশনে নেমেছি। আমরা আগে এসে নিজ নিজ যায়গায় অবস্থান নিয়েছি। অন্য সাথিরা রাতের মধ্যে চলে আসবে। সহিসালামতে ময়দানে আসতে পেরেছি এজন্য আল্লাহর কাছে কোটি কোটি শুকরিয়া।’
কুমিল্লা থেকে আসা আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘৬০ জনের একটি দল নিয়ে ইজতেমা ময়দানে এসেছি। বাসে করে এসেছি। বাস থেকে আমাদের সকাল ৯টার দিকে ময়দানের নামিয়ে দিয়েছে। আমরা আগে থেকেই ভাগ করে নিয়েছি কাজ। কেউ রান্না করবেন, কেউ বাজার করবেন। ইজতেমা শেষ করে যারা চিল্লায় যাবেন তাদেরকে ভাগ করে দেওয়া হবে এখান থেকে।’
প্রথম পর্বের মিডিয়া সমন্বয়কারী মুফতি জহির ইবনে মুসলিম বলেন, ময়দান প্রস্তুত হয়ে গেছে। ইজতেমা পরিচালনারর জন্য সব কিছুই প্রস্তুত করা হয়েছে। মুসল্লিরা গতরাত থেকেই ময়দানে আসতে শুরু করেছেন। সকালের দিকে মুসল্লি আসার সংখ্যা বেড়েছে। আজ রাতের মধ্যে মাঠ প্রায় পূর্ণ হয়ে যাবে।
গাজীপুর জেলা প্রশাসক আবুল ফাতে মোহাম্মদ সফিকুল ইসলাম বলেন, এবারের বিশ্ব ইজতেমায় বিশুদ্ধ পানির সরবরাহ নিশ্চিত করা হয়েছে। ইজতেমা ময়দান ও আশপাশের এলাকায় বিশুদ্ধ খাবার সরবরাহ নিশ্চিত করতে গাজীপুর জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রটের একাধিক টিম দায়িত্বে থাকবে।
পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, আইন শৃঙ্খলাবাহিনীর ১৫ হাজার সদস্য নিয়ে ৬ স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা গড়ে তোলা হয়েছে। ইজতেমায় আগত দেশী ও বিদেশি মুসল্লিদের সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিতের পাশাপাশি চুরি ও ছিনতাই রোধে র‌্যাবের বিপুল সংখ্যক সদস্য কাজ করছেন।

বিশ্ব ইজতেমায় থাকছে ৭ স্তরের নিরাপত্তা: র‌্যাব
আসন্ন বিশ্ব ইজতেমা-২০২৪ উপলক্ষে ইজতেমা মাঠসহ আশেপাশের এলাকায় যে কোন অপ্রীতিকর পরিস্থিতি মোকাবেলায় প্রস্তুত রয়েছে পুলিশের বিশেষায়িত ইউনিট র‌্যাবপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)। র‌্যাবের ৫টি ব্যাটালিয়নের (১, ২, ৩, ৪ ও ১০) এর সমন্বয়ে আকাশপথে র‌্যাবের হেলিকপ্টার টহল, ডক স্কোয়াড টিম, ফুট পেট্রোলিং, মোবাইল টিম, টহল টিম, সাইবার মনিটরিংসহ ৭ স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকছে এবার বিশ্ব ইজতেমায়। গতকাল বুধবার বেলা ১১ টার দিকে টঙ্গীর কামারপাড়া রোড়ে র‌্যাবের অস্থায়ী ক্যাম্পে বিশ্ব ইজতেমা উপলক্ষে ইজতেমা মাঠের সার্বিক নিরাপত্তা ব্যবস্থা সংক্রান্ত ব্রিফিংয়ে এসব কথা বলেন র‌্যাব মহাপরিচালক (জিডি) এম খুরশীদ হোসেন। এই বছরও দুই ধাপে ৩ দিন করে মোট ৬ দিন ইজতেমা অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। প্রথম ধাপে মাঠে থাকবেন জুবায়ের পন্থী ২-৪ ফেব্রুয়ারি এবং দ্বিতীয় ধাপে সাদ পন্থী ৯-১১ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত ইজতেমা অনুষ্ঠিত হবে। র‌্যাব মহাপরিচালক (জিডি) এম খুরশীদ হোসেন বলেন, সার্বিকভাবে সব ধরনের ঝুঁকি পর্যালোচনা করে সার্বক্ষণিক নিচ্ছিদ্র নিরাপত্তা নিশ্চিতকল্পে অন্যান্য আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর পাশাপাশি র‌্যাবও নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করবে। রাজধানী ঢাকার সন্নিকটে তুরাগ নদীর তীরে মুসলিম ধর্মাবলম্বীদের জন্য আয়োজিত বিশ্ব ইজতেমায় বিদেশি মুসল্লিসহ সারাদেশ থেকে বিপুল সংখ্যক ধর্মপ্রাণ মুসলমান অংশগ্রহণ করে থাকেন। তিনি বলেন, সুষ্ঠু ও নির্বিঘ্নে বিশ্ব ইজতেমা আয়োজন নিশ্চিত করার মাধ্যমে দেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করতে র‌্যাব ফোর্সেস অন্যান্য আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী, প্রশাসন, গোয়েন্দা সংস্থাসমূহের সাথে সমন্বয় করে সার্বক্ষণিক কাজ করে যাচ্ছে। ইজতেমা এলাকাসহ পার্শ্ববর্তী এলাকায় নিয়মিত টহল জোরদার ও সাদা পোশাকে গোয়েন্দা নজরদারি বৃদ্ধি করতে পর্যাপ্ত সংখ্যক র‌্যাব সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে। সামগ্রিকভাবে আসন্ন বিশ্ব ইজতেমার নিরাপত্তা নিশ্চিতকল্পে র‌্যাব ফোর্সেস সদর দপ্তর, র‌্যাব-১ সহ ঢাকাস্থ অন্যান্য ৫টি ব্যাটালিয়ন মোতায়েন থাকবে। তিনি বলেন, ইজতেমা এলাকার সার্বিক নিরাপত্তা ব্যবস্থা সার্বক্ষণিকভাবে মনিটরিং করতে কন্ট্রোল রুম স্থাপন করা হয়েছে। এ ছাড়া র‌্যাব সদর দপ্তর হতে সার্বিক পরিস্থিতি মনিটরিং করা হবে। ইজতেমা মাঠ ও তার পার্শ্ববর্তী এলাকা সমূহে সাদা পোশাকে গোয়েন্দা নজরদারি বৃদ্ধি ও ইউনিফর্মে টহল বৃদ্ধি করে নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হচ্ছে। পাশাপাশি সুইপিং টিম দ্বারা তল্লাশি কার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে। র‌্যাব ডিজি বলেন, যে কোন উদ্ভূত পরিস্থিতি মোকাবেলার জন্য র‌্যাবের স্পেশাল টিম, বোম্ব ডিসপোজাল ইউনিট এবং পর্যাপ্ত স্ট্রাইকিং ও রিজার্ভ ফোর্স সার্বক্ষণিকভাবে প্রস্তুত রাখা হয়েছে। এছাড়াও ইজতেমা উপলক্ষে র‌্যাবের হেলিকপ্টারের মাধ্যমেও টহল প্রদান করা হবে। নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সমগ্র ইজতেমা ময়দান ঘিরে র‌্যাবের অবজারভেশন পোস্ট স্থাপন করা হয়েছে। ইজতেমা স্থলে র‌্যাবের পর্যাপ্ত সংখ্যক সিসিটিভি’র মাধ্যমে সার্বক্ষণিকভাবে সমগ্র ইজতেমা এলাকা মনিটরিং করা হচ্ছে। নৌপথে যেকোন বিশৃংখলা ও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড রোধকল্পে চলমান টহলের পাশাপাশি সার্বক্ষণিকভাবে নৌ টহল পরিচালনা করা হচ্ছে। র‌্যাব ডিজি বলেন, যে কোন অনাকাক্সিক্ষত ঘটনা রোধকল্পে দুই ধাপে আয়োজিত ইজতেমা মধ্যবর্তী সময়ে কঠোর সতর্কতামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। ইজতেমা এলাকার আশপাশে উচ্ছৃঙ্খলতা, মাদকাসক্ততা, ছিনতাই, পকেটমার, মলমপার্টি ইত্যাদির দৌরাত্ম্য কমাতে যথাযথ আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। তিনি বলেন, বিদেশি মুসল্লিদের নিরাপত্তার জন্য বিদেশি খিত্তা এলাকায় অবৈধ অনুপ্রবেশ রোধকল্পে সতর্ক দৃষ্টি ও নজরদারি রাখা হয়েছে। ইজতেমামুখী যানবাহন ও যাত্রীদের তল্লাশির জন্য চেরাগআলী বাসস্ট্যান্ড, টঙ্গী কালীগঞ্জ রোড, উত্তরা নর্থ টাওয়ার এর সামনে এবং আশুলিয়া কামারপাড়া এলাকায় নিয়মিত চেকপোস্ট স্থাপন করে তল্লাশি কার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে। ইজতেমা এলাকায় র‌্যাবের চিকিৎসা কেন্দ্র সার্বক্ষণিকভাবে সকলের জন্য উন্মুক্ত থাকবে। র‌্যাবের পর্যাপ্ত সংখ্যক মেডিকেল টিম এবং অ্যাম্বুলেন্সসহ সার্বক্ষণিকভাবে আগত মুসল্লিদের চিকিৎসা সেবা প্রদানে নিয়োজিত থাকবে। তিনি বলেন, মাঠে আগত মুসল্লিদের জন্য বিশুদ্ধ খাবার পানির ব্যবস্থা করা হবে। বিশ্ব ইজতেমার আখেরি মোনাজাতের দিনে আগত ও ঘরমুখী মুসুল্লিরা যাতে হয়রানির শিকার না হয় সে জন্য র‌্যাবের নিচ্ছিদ্র নিরাপত্তা চলমান থাকবে। বিশ্ব ইজতেমাকে কেন্দ্র করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে রাষ্ট্র ও ধর্ম বিরোধী অপপ্রচার-গুজব রোধে র‌্যাবের সাইবার মনিটরিং টিম অনলাইনে নজরদারি অব্যাহত রাখছে। আসন্ন ইজমেতাকে কেন্দ্র করে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি বিনষ্ট করতে কোন ব্যক্তি, স্বার্থান্বেষী মহলের অপচেষ্টা-অপপ্রচার কঠোরভাবে দমন করতে প্রস্তুত রয়েছে র‌্যাব। সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে র‌্যাব ডিজি বলেন, বিশ্ব ইজতেমাকে ঘিরে কোন ধরনের হুমকি বা নাশকতার আশঙ্কা নেই। অপ্রীতিকর পরিস্থিতি মোকাবেলায় প্রস্তুত রয়েছে র‌্যাব। কুচক্রী মহলের অপচেষ্টা, সাইবার আপরাধ ও গুজব রোধে সচেষ্ট থাকবে র‌্যাব।

সর্বশেষ - খবর

ব্রেকিং নিউজ :