300X70
বুধবার , ২৬ জুন ২০২৪ | ৫ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অপরাধ ও দূর্নীতি
  2. আইন ও আদালত
  3. আনন্দ ঘর
  4. আনন্দ ভ্রমন
  5. আবহাওয়া
  6. আলোচিত খবর
  7. উন্নয়নে বাংলাদেশ
  8. এছাড়াও
  9. কবি-সাহিত্য
  10. কৃষিজীব বৈচিত্র
  11. ক্যাম্পাস
  12. খবর
  13. খুলনা
  14. খেলা
  15. চট্টগ্রাম

এমপি আনার হত্যা : পাতাল মন্দিরে ২৩ দিন আত্মগোপনে থাকার পর ফয়সাল-মোস্তাফিজ

প্রতিবেদক
বাঙলা প্রতিদিন২৪.কম
জুন ২৬, ২০২৪ ৯:০৭ অপরাহ্ণ

বাঙলা প্রতিদিন নিউজ : ঝিনাইদহ-৪ আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজীম আনার হত্যার ঘটনায় মাস্টারমাইন্ড শিমুল ভুঁইয়ার পর দ্বিতীয় ও তৃতীয় ব্যক্তি হিসেবে জড়িত ছিল ফয়সাল ভুঁইয়া ও মোস্তাফিজুর রহমান। ১৯ তারিখ তারা দেশে ফেরে।

শিমুল ভুঁইয়ার কাছ থেকে পায় মাত্র ৩০ হাজার টাকা। সেই টাকা নিয়ে সীতাকুণ্ড পাতাল কালীমন্দিরে তারা আত্মগোপনে চলে যায়। সেখানে তারা হিন্দু পরিচয়ে আশ্রয় নিয়ে ২৩ দিন অবস্থান করে।

সর্বশেষ আজ বুধবার (২৬ জুন) ঢাকা মেট্রোপলিটন গোয়েন্দা পুলিশ সেখানে সাঁড়াশি অভিযান চালিয়ে দুজনকে গ্রেপ্তার করে। পরবর্তীতে তাদের ঢাকায় আনা হয়।

তাদের বহন করা হেলিকপ্টারটি বিকেলে পূর্বাচলে ১৮ নম্বর সেক্টরে বঙ্গবন্ধু ট্রাই-টাওয়ারের জমিতে অবতরণের পর সাংবাদিকদের এসব তথ্য জানান ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার (ডিবি) হারুন অর রশীদ।

তিনি বলেন, আমরা গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে ঝিনাইদহ-৪ আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজীম আনার হত্যার ঘটনার তদন্ত করছিলাম। গতকাল শুনলাম তারা খাগড়াছড়ি বা সীতাকুন্ড পাহাড়ের দিকে অবস্থান করছে।

এর পরিপ্রেক্ষিতে আমাদের টিম গতকাল সেখানে সাঁড়াশি অভিযানে যায়। এরপর আজ সকালে আমরা আরেকটি টিম সেখানে যায়। অনেক উঁচু পাহাড়, সেখানে যাওয়া অনেক কঠিন। হেঁটে পৌঁছাতে ৭/৮ ঘণ্টা লাগে। পরে সেখান থেকে মোস্ট ওয়ানটেড দুজনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

তিনি বলেন, যে রুমটিতে সংসদ সদস্য আনারকে হত্যা করা হয়েছে, সেখানে ছিল ফয়সাল ভুঁইয়া। যিনি হত্যার আগে ক্লোরোফম দিয়ে অজ্ঞান করেছিল আনারকে। আর মোস্তাফিজুর রহমান আনারকে চেয়ারে বেঁধে বিবস্ত্র করেছিল, একই সঙ্গে মৃত্যু নিশ্চিত করেছিল। এরপর তাকে বাথরুমে নেওয়া হয়েছিল। সেখানে মূল মাস্টারমাইন্ড শিমুল ভুঁইয়ার সহযোগী হিসেবে ছিল গ্রেপ্তার জিহাদ, আর আজকে গ্রেপ্তার ফয়সাল ভুঁইয়া, মোস্তাফিজুর রহমান।

হারুন দাবি করেন, এই দুজন গ্রেপ্তার হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে সবকিছু আমাদের কাছে স্বীকার করেছেন। এরপরও আমরা দুজনকে আরো জিজ্ঞাসাবাদ করব। তারপর তাদের ভূমিকা সম্পর্কে বিস্তারিত বলা যাবে।

খাগড়াছড়ি তো গহীন অঞ্চল, সেখানে তারা কাদের আশ্রয়ে ছিল— জানতে চাইলে হারুন বলেন, সীতাকুন্ড পাহাড়ের নিচে পাতাল কালীমন্দির আছে। সেখানে তারা নিজেদের নাম বদলে ফেলেন। ফয়সাল পলাশ রায় আর মোস্তাফিজুর শিমুল রায় নাম ধারণ করে হিন্দু সেজে মন্দিরে অবস্থান করেন। বলেন, মাকে তারা খুব ভালবাসেন। কালীমন্দির ছাড়া থাকতে পারি না। এভাবে তারা ছদ্মবেশ ধারণ করে সেখানে ২৩ দিন অবস্থান করেন।

হারুন বলেন, তারা ইন্ডিয়াতে হত্যার কাজ শেষ করে ১৯ তারিখ দেশে ফেরেন। তারা শামীমের সঙ্গে কথা বলেন। দুজনকে মাত্র ৩০ হাজার টাকা দেওয়া হয়। এই টাকা নিয়ে তারা খাগড়াছড়িতে চলে যায়।

যেহেতু তারা আগে ট্রাকে চালাতেন সেজন্য তারা সীতাকুণ্ডের গহীন এলাকা চিনতেন। নিরাপদ ভেবে বাঁচার জন্য সেখানে অবস্থান নেন। হিন্দু নাম ধারণ করে আত্মগোপন করেন। বাঁচার জন্য তারা আরও নানান জায়গায় যাওয়ার আপ্রাণ চেষ্টা করেছে।

তিনি বলেন, বহুদিন ধরে তাদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছিল। কখনো খবর পেতাম সুন্দরবনে, কখনো সমুদ্রে, কখনো গহীন বনে আছে। আমি বলেছিলাম, তারা যেখানেই থাকুক, পাহাড়ে থাকুক আর সমুদ্রে থাকুক তাদের ধরে আনব। আজকে তাদের ধরেছি। সংসদ সদস্য আনারকে হত্যায় যে সাতজন অংশ নিয়েছিল তার মধ্যে এই দুজন ছিল শিমুল ভুঁইয়ার পর দ্বিতীয় ও তৃতীয় ব্যক্তি। আজকে এই দুজনকে গ্রেপ্তারের মধ্য দিয়ে কিলিং মিশনে যে সাতজন অংশ নিয়েছিল তারা সবাই গ্রেপ্তার হলো।

এর বাইরে বাকি যারা মাস্টারমাইন্ড হিসেবে কাজ করেছে, অর্থনৈতিকভাবে সহযোগিতা করেছে, বিভিন্ন বিষয়ে তথ্য দিয়ে সহযোগিতা করেছে আমরা মনে করি এসব ব্যক্তিকে এখন গ্রেপ্তার করতে হবে। আমরা ইতোমধ্যে শিমুল ভুঁইয়ার ১৬৪ ধারায় দেওয়া জবানবন্দির ভিত্তিতে মিন্টু ও গ্যাস বাবুকে গ্রেপ্তার করেছি। বাংলাদেশের কাছে সাতজন গ্রেপ্তার ও ইন্ডিয়াতে আছে সিয়াম ও জিহাদ।

এক প্রশ্নের জবাবে হারুন বলেন, ডিবি পুলিশ শিমুল ভুঁইয়া, শিলাস্তি ও তানভীরকে যখন প্রথম গ্রেপ্তার করে তখন কিন্তু ইন্ডিয়ান পুলিশ এসে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে। আমরাও কিন্তু টিম নিয়ে তাদের হাতে গ্রেপ্তার জিহাদকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছি, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। এরপর যখন জানলাম সিয়াম নেপালে তা তাদের জানিয়েছি। নেপালে গিয়েছি, সিয়ামকে গ্রেপ্তারে তথ্য-উপাত্ত দিয়ে সহযোগিতা করেছি।

তিনি বলেন, আনার হত্যার আরেক মাস্টারমাইন্ড যিনি আমেরিকা পালিয়েছেন। তাকে গ্রেপ্তারে আমরা আমেরিকা দূতাবাসে কথা বলেছি। দেখা করে গ্রেপ্তারের অনুরোধ করেছি। ইন্টারপোলের সহযোগিতা চেয়েছি। ইন্ডিয়ার কাছে কিন্তু সে মোস্ট ওয়ানটেড। তাদের সঙ্গে আমেরিকার চুক্তি আছে। তারাও চেষ্টা করছে, আমরাও চেষ্টা করছি।

মাস্টারমাইন্ডদের গ্রেপ্তারের প্রসঙ্গে জানতে চাইলে হারুন বলেন, আজকে গ্রেপ্তার দুজনসহ আগে গ্রেপ্তার সবাইকে আবারো জিজ্ঞাসাবাদ করব। সবকিছু মিলে যদি আরও কেউ থাকে যারা সাহায্য-সহযোগিতা করেছে, অর্থ দিয়েছে, প্ল্যান করেছে, তাদের যদি নাম পাই, তথ্য-উপাত্ত পাই, পারিপার্শ্বিক প্রমাণ পাই, তাহলে তাদেরও গ্রেপ্তার করা হবে।

রাজনৈতিক প্রভাব বা বাধা চাপ আছে কি না— জানতে চাইলে হারুন বলেন, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ডিএমপি কমিশনার একাধিকবার বলেছেন কোনো চাপ নেই। যদি আমাদের উপরে চাপ থাকতো তাহলে এতো অ্যাচিভমেন্ট করতে পারতাম না। আমরা কিন্তু একজনের পর একজন আসামি গ্রেপ্তার করেছি।

যার বিরুদ্ধে অভিযোগ পেয়েছি তাকেই গ্রেপ্তার করেছি। যারা সরাসরি ক্লিন মিশনে জড়িত সুস্পষ্ট প্রমাণ আছে, আমরা শুধু তাদেরকেই আইনে আওতায় নিয়ে আসছি। আমরা অনর্থক কোনো দিকে দাপাদাপি করছি না, নির্দোষ কাউকে হয়রানি করছি না। আমি মনে করি যিনি দোষী তাকেও কেউ ছাড়াতে পারবে না।

সর্বশেষ - খবর

আপনার জন্য নির্বাচিত

পলিথিন নয় মানুষের হাতে থাকবে সোনালী ব্যাগ : বস্ত্র ও পাট মন্ত্রী নানক

অফিসে নিয়মিত হাজিরা দিতে হবে, অন্যথায় কঠোর ব্যবস্থা: রাষ্ট্রপতি

অপহরণ করে টানা পাঁচদিন কিশোরীকে দলবদ্ধ ধর্ষণ!

ওয়েস্টার্ন ইউনিয়নে পাঠানো রেমিটেন্স তোলা যাবে বিকাশ এজেন্ট পয়েন্টে

দক্ষিণ কেরাণীগঞ্জে র‌্যাবের পৃথক অভিযানে ১৪ জুয়াড়ি গ্রেফতার

ঈদের চাঁদ দেখা নিয়ে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের বিজ্ঞপ্তি

পানি বিষয়ক সমস্যার সমাধান না হলে দেশ মহাবিপর্যয়ে পড়বে

সাসটেইনেবল ব্যাংকিংয়ে অসাধারণ কার্যক্রমের জন্য ব্র্যাক ব্যাংকের স্বীকৃতি অর্জন

মহিলা পরিষদের সভাপতি আয়শা খানমের মৃত্যুতে এলজিআরডি মন্ত্রী শোক

২০২৩ সালের এসএমই বিজনেস হিরোদের ব্র্যাক ব্যাংকের সম্মাননা