300X70
শুক্রবার , ২৪ মে ২০২৪ | ২৯শে আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অপরাধ ও দূর্নীতি
  2. আইন ও আদালত
  3. আনন্দ ঘর
  4. আনন্দ ভ্রমন
  5. আবহাওয়া
  6. আলোচিত খবর
  7. উন্নয়নে বাংলাদেশ
  8. এছাড়াও
  9. কবি-সাহিত্য
  10. কৃষিজীব বৈচিত্র
  11. ক্যাম্পাস
  12. খবর
  13. খুলনা
  14. খেলা
  15. চট্টগ্রাম

গোবিন্দগঞ্জে নোটিশ ছাড়াই ৯ লক্ষ টাকার ঔষধ ও মালামালসহ দোকান ভেঙ্গে দিল সাসেক

প্রতিবেদক
বাঙলা প্রতিদিন২৪.কম
মে ২৪, ২০২৪ ২:২৬ অপরাহ্ণ

গাইবান্ধা প্রতিনিধি: গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে কোন ৭ ও ৮ ধারার নোটিশ ছাড়াই প্রায় ৯ লক্ষ টাকার ওষুধ ও মালামাল সহ ১টি দোকান ভেঙে দিয়েছে মহাসড়ক সম্প্রসারণ কাজে নিয়োজিত ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান সাসেক কর্তৃপক্ষ। এ সুষ্ঠ বিচার ও ক্ষতি পুরণের দাবি করে প্রশাসনের কাছে ধর্ণা দিলেও এখন পর্যন্ত এ ব্যপারে কোন সুরহা হয়নি বলে অভিযোগ করেছে ভুক্তভোগী নিরঞ্জন কুমার সরকার। এ ঘটনায় সুষ্ঠু সমাধান ও ক্ষতিপুরণের দাবিতে বিভিন্ন দপ্তরে আবেদন করেছেন তিনি। কিন্ত কোন দপ্তর থেকেই সহযোগিতা না পাওয়ায় হতাশ হয়ে পরেছেন। এই দোকানটি ছিল নিরঞ্জনের এমকাত্র আয়ের উৎস। দোকান টি ভেঙে দেয়ায় পরিবার পরিজন বিপাকে পরেছেন তিনি।
জেলা প্রশাসক সহ বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগে জানা যায় গোবিন্দগঞ্জ শহরের হাইস্কুল মার্কেটের ওষুধ ব্যবসায়ি যমুনা মেডিকেল ষ্টোরের সত্বাধিকারী নিরঞ্জন কুমার দীর্ঘ দিন ধরে ব্যবসা করে আসছিলেন। কিন্ত এই মার্কেটের বেশী অংশ চলমান মহাসড়ক সম্পসারণ আওতায় পরলে সাসেক থেকে এই মার্কেটের দোকান গুলি উচ্ছেদের জন্য ৭ ধারা ও ৮ ধারার নোটিশ দেয়া হলেও যমুনা মেডিকেল সহ আসপাশের ৫টি দোকানে কোন নোটিশ দেওয়া হয়নি। এ জন্য নিরঞ্জনসহ অন্যান্য ব্যবসায়ির ধারণা এই দোকানগুলি অধিগ্রহণের বাইরে রয়েছে। এজন্য নিরঞ্জন সেখানে ব্যবসা করে আসছিলেন। তারপরেও সন্দেহমুক্ত হওয়ার জন্য গত ২১ এপ্রিল জেলা প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবরে লিখিত আবেদন করেন অধিগ্রহণ সম্পর্কে জানার জন্য । এরই এক পর্যায়ে হঠাৎ করে গত ৩০ এপ্রিল বিকেলে সাসেকের একটি বুলডোজার অন্যান্য দোকানের সাথে নিরঞ্জন সরকারের যমুনা মেডিকেল ষ্টোরটি ওষুধসহ অন্যান্য মালামাল সমেত ভেঙে গুড়িয়ে দেয়। দোকান মালিক নিরঞ্জন জানান এতে তার প্রায় ৮ লক্ষ টাকার ওষুধ ও লক্ষধিক টাকার বিভিন্ন মালামাল এবং আসবাব পত্র ছিল। যা সব কিছুই সষ্ট হয়ে গেছে। হঠাৎ করে এভাবে দোকান ভেঙে দেয়ায় আয় উপার্জন বন্ধ হওয়ায় পরিবার পরিজন নিয়ে অবর্নণীয কষ্টে দিন কাটাচ্ছি। অথচ মার্কেটের মালিক পক্ষ হাইস্কুল থেকে এবং জেলা প্রশাসন থেকে আমাকে ৭ এবং ৮ ধারা কোন নোটিশ দেয়নি। এমনকি মালামাল আসবাব পত্র সরিয়ে নেয়ার জন্য মৌখিক ভাবেও আমাকে কেউ জানায়নি। আমি দ্রæত এ ব্যাপারে ক্ষতি পূরণের দাবি করছি।
এদিকে সড়ক সম্প্রসারণ কাজের ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান সাসেক এর সহকারি প্রকৌশলী ফেরদৌস বলেন হাইস্কুল মার্কেটের মালিক পক্ষকে ক্ষতিপূরণ দেয়ার পর জেলা প্রশাসন আমাদেরকে জায়গা বুঝে দিলে আমাদের বুলডোজার স্থাপনা করেছে। এ ক্ষেত্রে তার আবেদনের বিষয়টি জেলা প্রসাশন বিবেচনা ও পরীক্ষা নীরিক্ষা করতে পারে।পাশাপাশি স্কুল কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনা করতে পারে।
তবে গোবিন্দগঞ্জ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক (ভারপ্রাপ্ত) মোকাররম হোসেন রানা বলেন এ ক্ষেত্রে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষে তেমন দায় নেই। জেলা প্রশাসন ৭ও ৮ ধার্রা নোটিশ দিয়ে থাকে।

সর্বশেষ - খবর

আপনার জন্য নির্বাচিত

সাগরে লঘুচাপ, বন্দরে ৩ নম্বর সতর্কসংকেত

ডিএনসিসি ডেডিকেটেড কোভিড-১৯ হাসপাতালে এক্সিম ব্যাংকের হাই-ফ্লো নেজাল ক্যানোলা প্রদান

সিলেটের বানভাসি অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে বিজিবি

বিশ্ব স্ট্রোক দিবস আজ: না করলে সময়ক্ষেপণ, স্ট্রোক হলেও বাঁচবে জীবন

জাতির পিতার সমাধিতে ফায়ার সার্ভিসের ডিজির বিনম্র শ্রদ্ধা নিবেদন

এফডিসিতে হাউমাউ করে কান্নায় ভেঙে পড়লেন রিয়াজ!

যাত্রাবাড়ীতে জাটকা ইলিশ সংরক্ষণ ও বিক্রয়, ২ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা জরিমানা

সবাইকে তিনটি করে গাছ লাগানোর আহবান প্রধানমন্ত্রীর

জাতীয়করণসহ ৫দফা দাবিতে নড়াইলে শিক্ষকবন্ধন অনুষ্ঠিত

পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে পদত্যাগ করতে নোটিশ

ব্রেকিং নিউজ :