300X70
শনিবার , ২২ জুন ২০২৪ | ২৯শে আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অপরাধ ও দূর্নীতি
  2. আইন ও আদালত
  3. আনন্দ ঘর
  4. আনন্দ ভ্রমন
  5. আবহাওয়া
  6. আলোচিত খবর
  7. উন্নয়নে বাংলাদেশ
  8. এছাড়াও
  9. কবি-সাহিত্য
  10. কৃষিজীব বৈচিত্র
  11. ক্যাম্পাস
  12. খবর
  13. খুলনা
  14. খেলা
  15. চট্টগ্রাম

জন্মদিনে প্রণতি, অঞ্জলি লহ মোর

প্রতিবেদক
বাঙলা প্রতিদিন২৪.কম
জুন ২২, ২০২৪ ৯:১৯ অপরাহ্ণ

দুলাল আচার্য : সাংবাদিকতার নানা ধাপ পেরিয়ে তিনি আজ আলোকিত মানুষ। ছাত্ররাজনীতি দিয়ে তারুণ্যের প্রকাশ ঘটলেও এখন তাঁর মূল পরিচয় সাংবাদিক। তাঁর অনেক গুণের মধ্যে অন্যতম একটি হলো বাঙালি সংস্কৃতির প্রতি প্রবল অনুরাগ, যার প্রকাশ ঘটছে সাংবাদিকতায়। উদার, মানবিক, স্বচ্ছ ও সংস্কারমুক্ত মানুষটির ৬৭তম জন্মদিন আগামীকাল।

বয়স বার্ধ্যক ছুঁইছুঁই; কিন্তু মননে, কর্মনিষ্ঠা ও মানসিকতায় তিনি এখনো তারুণ্যদীপ্ত। ১৯৫৮ সালের ২৩ জুন তাঁর জন্ম। তিনি জাফর ওয়াজেদ। সাংবাদিক, কবি, সংগঠক, সুবক্তা, অনুসন্ধানী পাঠক, প্রতিশ্রুতিশীল লেখক ‘নানা অভিধায় তাঁকে অভিহিত করা যায়।

জন্ম বাংলাদেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে হলেও তাঁর কর্মপরিধি দেশজুড়ে। শিক্ষাজীবন শেষ করে সাংবাদিকতায় প্রবেশ তাঁর। কর্মজীবনে দৈনিক সংবাদের জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক, বাংলাবাজার পত্রিকা ও দৈনিক মুক্তকণ্ঠের প্রধান প্রতিবেদক এবং দৈনিক জনকণ্ঠের সহকারী সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

একসময় সাংবাদিক নেতা হিসেবে সাংগঠনিক নেতৃত্বে ছিলেন তিনি। ছিলেন ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) সহসভাপতি ও ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সহসভাপতি। পালন করেছেন বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের ভারপ্রাপ্ত সভাপতির দায়িত্বও।

ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সিনেটে ছাত্র প্রতিনিধি (১৯৮০-১৯৮১), বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সদস্য (১৯৮০-১৯৮২) এবং গ্রন্থনা ও প্রকাশনা সহ-সম্পাদক (১৯৮৪-১৯৮৬), বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সম্পাদনা পরিষদ সদস্য (১৯৮৩-১৯৮৫), আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় সম্মেলন সাংস্কৃতিক উপ-পরিষদের সদস্য সচিব (১৯৮৬), আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় সম্মেলন প্রচার ও প্রকাশনা উপ-পরিষদের সদস্য সচিব (১৯৮৬)।

এছাড়া ‘পেন্ডুলাম’ ‘নক্ষত্রবীথি’‘মন্তব্য’‘বারুদ’সহ বহু সাহিত্য সাময়িকী সম্পাদনা করেছেন। তিনি শিশু-কিশোর সংগঠন চাঁদের হাটের কেন্দ্রীয় কমিটিতে কাজ করেছেন।

পঁচাত্তর-পরবর্তী রাজনীতির অন্ধকার সময়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে মুজিববাদী ছাত্রলীগের অগ্রভাগে ছিলেন একঝাঁক তরুণ ছাত্রনেতা। যাদের তেজোদীপ্ত কণ্ঠ প্রতিবাদে মুখরিত ছিল জাতির পিতার হত্যাকারীদের বিরুদ্ধে। সেই সম্মুখসারির একজন জাফর ওয়াজেদ। একদিকে স্বৈরনায়ক জিয়াউর রহমানের সামরিক শাসন, অন্যদিকে শাসক মদতপুষ্ট কথিত প্রতিবিপ্লবীদের দুবৃর্ত্তায়ন।

এমন এক প্রতিকূল সময়ে রুখে দাঁড়িয়েছেন একজন প্রতিরোধযোদ্ধার মতো। এই প্রতিরোধ সশস্ত্র নয়, প্রতিরোধের ভাষা ছিল শিল্প-সাহিত্য। প্রতিরোধের অস্ত্র ছিল কবিতা, গান, সভা-সেমিনার। যে সময় মিডিয়ায় ‘বঙ্গবন্ধু’ শব্দটি নিষিদ্ধপ্রায়, যখন সামরিক শাসকের কোপানলে মুজিবপ্রেমীরা, সেই ক্লান্তিকালে জাফর ওয়াজেদ লিখেন ‘ঘরে ঘরে শেখ মুজিব’ শিরোনামের কবিতা।

‘আজও বাংলার ঘরে ঘরে শেখ মুজিবের রক্তের দাগ
আজও বুকের ক্ষতে দাউ দাউ জ্বলে ওঠে বীভৎস কালো রাত
করুণ বিনাশে অপচয়ের ক্লান্ত ইতিহাস ভাঙে ক্রন্দন ক্ষোভ
আমাদের জীবনের সব সংগ্রামে ভাসে সাহসী মুজিবের মুখ।’

কবিতার এই সাহসী উচ্চারণ সেসময়কার তরুণ সমাজকে প্রতিবাদের সাহস জুগিয়েছে। তাঁর এই দীর্ঘ সংগ্রামের পথে নানা বাধা এসেছে। সাম্প্রদায়িক শক্তির কোপানলে পড়েছেন বহুবার।

বিশেষ করে স্বাধীনতাবিরোধী জামায়াত-শিবির প্রতিক্রিয়াশীল চক্রের। নানা সময়ে বিশেষ করে সাংবাদিকতা পেশায় এসে হাতের কবজি কেটে নেওয়াসহ তাঁর জীবননাশের চেষ্টাও হয়। তারপরও থেমে থাকেনি তাঁর কলম, তাঁর এই পথচলা।

তাঁর মূল নাম আলী ওয়াজেদ জাফর (জাফর ওয়াজেদ নামে সবাই তাঁকে চেনেন)। জাফর ওয়াজেদ কুমিল্লা জেলার দাউদকান্দি উপজেলার ইলিয়টগঞ্জে নানাবাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন। পৈতৃক নিবাস একই জেলার চান্দিনা উপজেলার মহিচাইল ইউনিয়নের জোড়পুকুরিয়া গ্রামে।

অধ্যক্ষ আছমত আলী ও মোসাম্মৎ রোকেয়া বেগম দম্পতির সাত সন্তানের মধ্যে জাফর ওয়াজেদ ষষ্ঠ। তিনি বাংলা সাহিত্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর ডিগ্রি লাভ করেন। শিক্ষার্থী থাকাবস্থায় তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) সাহিত্যবিষয়ক সম্পাদক ছিলেন।

বর্তমানে তিনি প্রেস ইনস্টিটিউট বাংলাদেশ (পিআইবি)-এর মহাপরিচালক। ২০১৯ সালের ২১ এপ্রিল বাংলাদেশ সরকার তাঁকে এই পদে নিয়োগ প্রদান করে। সম্প্রতি টানা ৪র্থ মেয়াদের জন্য তিনি পিআইবির মহাপরিচালক পদে নিয়োগ পেয়েছেন।

সাংবাদিকতায় গুরুত্বপূর্ণ অবদানের জন্য বাংলাদেশ সরকার তাঁকে ২০২০ সালে একুশে পদক প্রদান করে। ব্যক্তিগত জীবনে জাফর ওয়াজেদ স্ত্রী দিলশান আরা এবং দুই কন্যা অ্যালমা ও আহেলীকে নিয়ে সুখের সংসার।

আমার মতো অসংখ্য সাংবাদিকের শিক্ষাগুরু তিনি। একজন ভক্ত ও অনুরাগী হিসেবে তাঁর সঙ্গে আমার প্রথম পরিচয় ১৯৯৮ সালে। কর্মক্ষেত্রে এসে তাঁকে খুব কাছ থেকে দেখার সুযোগ হয় আমার। নব্বইয়ের দশকের শেষদিকে শেখ রেহানা প্রকাশিত ও সম্পাদিত সাপ্তাহিক বিচিত্রায় কাজ করতে গিয়ে লেখালেখির সূত্রে তাঁর সান্নিধ্য পাই।

পরে দৈনিক জনকণ্ঠে সম্পাদকীয় বিভাগে কাজ করতে গিয়ে সহকর্মী হিসেবে ব্যক্তিগত সম্পর্কের পরিধির বন্ধন আরও সুদৃঢ় হয়। বলা চলে, এখন ঢাকায় আমার অন্যতম অভিভাবক তিনি।

অসংখ্য কলাম, কবিতা, গান লেখার পাশাপাশি কয়েকটি গ্রন্থের প্রণেতা তিনি। সম্প্রতি মত ও পথ প্রকাশনী থেকে প্রকাশিত ‘ভুবনজোড়া শেখ হাসিনার আসনখানি’ শিরোনামের একটি গ্রন্থ প্রকাশিত হয়েছে তাঁর। গ্রন্থটির বেশির ভাগ লেখা বিভিন্ন সময়ে দৈনিক জনকণ্ঠে কলাম আকারে প্রকাশিত হয়।

দৈনিক জনকণ্ঠের সম্পাদকীয় বিভাগে কাজ করার সুবাদে এই লেখাগুলোর সম্পাদনা ও প্রকাশে আমার সক্রিয় ভূমিকা ছিল। এসব লেখা সম্পাদনা করতে গিয়ে আমার নিজের লেখালেখির পরিধিও সম্প্রসারিত হয়।

এতে নিজেকে পরিপক্ব করার সুযোগ হয়েছিল আমার। সহজ করে বললে আমার লেখালেখির প্রেরণার নাম জাফর ওয়াজেদ। এখনো শেখ হাসিনা, বঙ্গবন্ধু এবং মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে তাঁর অসংখ্য লেখা রয়েছে, যা দিয়ে আরও কয়েকটি গ্রন্থ প্রকাশের সুযোগ রয়েছে।

বঙ্গবন্ধুর সম্প্রীতি তথা অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার ধারা বয়ে নিয়ে যাচ্ছেন তাঁর কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সে পথের একজন সেনাপতির কাজ করছেন জাফর ওয়াজেদ।

আর সেই বিশ্বাসের পথে আমার মতো একজন ক্ষুদ্র সৈনিকের পথচলা তাঁর হাত ধরে। তাঁর এই পথচলা আরও মসৃণ ও সুদৃঢ় হোক। শতায়ু হোন জাফর ওয়াজেদ। জন্মদিনে প্রণতি গুরুদেব, অঞ্জলি লহ মোর।
লেখক: সহকারী সম্পাদক, প্রেস ইনস্টিটিউট বাংলাদেশ (পিআইবি) ।

সর্বশেষ - খবর

ব্রেকিং নিউজ :