300X70
বুধবার , ১৩ মার্চ ২০২৪ | ৭ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অপরাধ ও দূর্নীতি
  2. আইন ও আদালত
  3. আনন্দ ঘর
  4. আনন্দ ভ্রমন
  5. আবহাওয়া
  6. আলোচিত খবর
  7. উন্নয়নে বাংলাদেশ
  8. এছাড়াও
  9. কবি-সাহিত্য
  10. কৃষিজীব বৈচিত্র
  11. ক্যাম্পাস
  12. খবর
  13. খুলনা
  14. খেলা
  15. চট্টগ্রাম

জমজমাট চকবাজারের ইফতার বাজার

প্রতিবেদক
বাঙলা প্রতিদিন২৪.কম
মার্চ ১৩, ২০২৪ ৯:৩৫ অপরাহ্ণ

বাঙলা প্রতিদিন ডেস্ক : ইফতারে বাহারি ও রকমারি খাবার না হলে যেন পূর্ণতাই পায় না ইফতার। তাই রোজার দ্বিতীয় দিনেও ঢাকার ঐতিহ্যবাহী চকবাজারের ইফতার বাজার জমজমাট।

সরেজমিনে দেখা যায়, ঐতিহ্যবাহী এই বাজারে বড় বাপের পোলা, সুতি কাবাব, মোখরোচক বিরিয়ানি আর শাহি হালিম ও জিলাপির জন্য বিখ্যাত। প্রজন্মের পর প্রজন্ম এখানে ইফতারির পসরা সাজিয়ে বসা বিক্রেতারা এবারও মুখরোচক সব খাবার নিয়ে বসেছেন।

এই বাজারের কয়েকটি বিখ্যাত খাবারের মধ্যে বিখ্যাম খাবার সুতি কাবাব। গরুর সুতি কাবাব কেজি ১০০০ টাকায় এবং খাসির সুতি কাবাব কেজি ১২০০ টাকা বিক্রি হচ্ছে।

এছাড়াও চকের এই ইফতারি বাজারে প্রতি কেজি শাহি ছোলা ২৮০ টাকা, ঘুঘনি ১৪০ টাকা, চিকেন আচারি ১৩০০ টাকা, কাশ্মীরি বিফ আচারি ১৫০০ টাকা বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া টানা পরোটা গরু ৬০ টাকা, খাসি ৭০ টাকা এবং মুরগি ৫০ টাকা বিক্রি হচ্ছে।

এবারের চকবাজারে দ্বিতীয় দিনে পুরান ঢাকার ঐতিহ্যবাহী ‘বড় বাপের পোলায় খায়’ বিভিন্ন আকারে দাম বেড়েছে ৬০ টাকা। প্রতি লিটার মাঠার দাম ছিলো ১০০ টাকা, যা আগের দামই রয়েছে। তবে ৩০ থেকে ৪০ টাকা দাম বেড়ে ২০০ টাকা হচ্ছে বিভিন্ন ধরনের শরবত।

ব্যবসায়ীরা জানান, দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতিতে সবকিছু দাম বাড়লে খাবারের দাম বাড়ানো যায়নি। যদিও কেউ কেউ খাবারের দাম বাড়িয়েছে। তবে বেশিরভাগ দোকানিরাই বিক্রি এবং লাভের পরিমাণ ধরে রাখার জন্য আগের দামেই খাবার বিক্রি করছে।

শাহ আলম নামের এক ব্যবসায়ী সংবাদ প্রকাশকে বলেন, “ছোলা কেজিপ্রতি ১০৬ টাকা করে কিনে সবকিছু বানিয়ে ১৮০ টাকায় বিক্রি করতে হচ্ছে। এ দামে লাভের পরিমাণ সীমিত থাকছে। যা দিয়ে এ ঢাকা শহরে চলা খুবই কঠিন। তবে কি আর করার ব্যবসা ঐতিহ্য ধরে রাখার চেষ্টা করছি আমরা।”

তিনি আরও বলেন, “কিছু কিছু ব্যবসায়ী খাবারের দাম বাড়িয়েছে। সামনের দিকে আমরা দাম বাড়ানোর পরিকল্পনা নিয়েছি। দাম না বাড়ালে ব্যবসায় লোকসান গুণতে হবে।”

এদিকে খাবারের দাম বাড়ায় ক্ষুব্ধ সাধারণ মানুষ। দাম সহনীয় থাকলে মানুষের ক্রয়ের চাহিদা বাড়বে বলে দাবি তাদের।

রাফসান নামের এক ক্রেতা সংবাদ প্রকাশকে বলেন, “৩০০ টাকার মুরগি বিক্রি হচ্ছে ৪০০ টাকায়। এছাড়াও বাকি খাবারের দাম না হয় নাই বললাম। দাম এমন বেড়েছে যেটা অস্বাভাবিক। ”

তিনি আরও বলেন, “শুনেছি ১০০ বছরের ঐতিহ্য এ ইফতার বাজার। সব পাওয়া যায় এখানে। তাই আসলাম কিছু কিনতে। আগামী রমজানগুলোয় যদি দাম স্বাভাবিক থাকে তাহলে আবার আসবো।”

সর্বশেষ - খবর

আপনার জন্য নির্বাচিত

সারাবিশ্বে করোনায় মধ্যে সুস্থ হয়েছে ৯ কোটি ৭৪ লাখ সাড়ে ৬ হাজার

এক সার্টিফিকেটেই ভূমির চূড়ান্ত মালিকানা নির্ধারণের বিষয়টি বিবেচনাধীন

স্বাধীনতা দিবসে ইসলামী ব্যাংকের শ্রদ্ধা নিবেদন

স্বাস্থ্যবিধি মেনে শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টারের জন্মদিন পালিত হবে

শ্যামপুরে ৬৫ লিটার চোলাই মদসহ ২ জন গ্রেফতার

নতুনের লড়াইয়ে জয়ী গুজরাট

পার্বত্য চট্টগ্রামের দুর্গম পাহাড়ে সেনা সদস্যদের সাথে ঈদ আনন্দ ভাগাভাগি করলেন সেনাবাহিনী প্রধান

ড্যাশবোর্ডের মাধ্যমে মাঠ পর্যায়ের ভূমি সেবা মনিটরিং করা হচ্ছে : ভূমিমন্ত্রী

ট্রাকের ধাক্কায় প্রাণ গেল অটোযাত্রীর, মাইক্রোবাস উল্টে আহত ৮

ডিএনসিসির কোরবানির পশুর হাটে ডিজিটাল পেমেন্ট বুথের উদ্বোধন

ব্রেকিং নিউজ :