300X70
বৃহস্পতিবার , ৯ মে ২০২৪ | ১২ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অপরাধ ও দূর্নীতি
  2. আইন ও আদালত
  3. আনন্দ ঘর
  4. আনন্দ ভ্রমন
  5. আবহাওয়া
  6. আলোচিত খবর
  7. উন্নয়নে বাংলাদেশ
  8. এছাড়াও
  9. কবি-সাহিত্য
  10. কৃষিজীব বৈচিত্র
  11. ক্যাম্পাস
  12. খবর
  13. খুলনা
  14. খেলা
  15. চট্টগ্রাম

জলবায়ু পরিবর্তনে বেড়েছে বজ্রপাতের হার 

প্রতিবেদক
বাঙলা প্রতিদিন২৪.কম
মে ৯, ২০২৪ ১২:৩০ পূর্বাহ্ণ

সুমাইয়া আকতার :বাংলাদেশ দূর্যোগপ্রবণ দেশ।তবে সাম্প্রতিক সময়গুলোতে উদ্ব্যেগজনক হারে ক্রমাগত বাড়তে থাকা জলবায়ু পরিবর্তনের বৈরী পরিস্থিতি পরিবেশের প্রাকৃতিক ভারসাম্যকে প্রতিহত করে চলেছে।

এর প্রভাবে ঋতু বৈচিত্র্যে পরিবর্তনের পাশাপাশি বাড়ছে নানা ধরনের প্রাকৃতিক দূর্যোগ।দূর্যোগের প্রতিকূলতার সাথে নতুন মাত্রায় যুক্ত হয়েছে অস্বাভাবিক ও ঘন ঘন বজ্রপাতের নাম।বাংলাদেশে বজ্রপাতের বৃদ্ধির প্রবণতার সঙ্গে মূলত জলবায়ু পরিবর্তনকে দায়ী করেছেন বিশেষজ্ঞরা।

এছাড়াও পরিবেশে তীব্র দাবদাহের পরিমাণ বৃদ্ধি পাওয়া, বর্ষীয়ান গাছগুলির পর্যাপ্ত সংরক্ষণ না করা, পরিবেশে মানবসৃষ্ট হুমকি এবং সময়োপযোগী জনসচেতনতার অভাবকে দায়ী করা হচ্ছে।কিন্তু চলতে বছরে গরম বেশি হওয়াতে বজ্রপাতের প্রবণতা এবং বজ্রপাতে মৃত্যুর আশংকা করেছে আবহাওয়াবিদরা।

আবহাওয়াবিদ এবং বিশ্লেষকরা বলছেন, এবার তাপ বেশি হওয়ার কারণে বজ্রপাত বেশি হবে। আর একই সঙ্গে বর্ষাকালের দৈর্ঘ্য বেড়ে যাওয়ার কারণে বজ্রপাতের পরিমাণ বেশি হবে।বজ্রপাতের সংখ্যা বেড়ে যাওয়ার পেছনে বৈশ্বিক উষ্ণতা বৃদ্ধির পাশাপাশি আরও কিছু কারণকেও দায়ী করছেন আবহাওয়াবিদরা।

গাছপালা কেটে ফেলা, বাতাসে ধূলিকণা বেড়ে যাওয়া এবং মোবাইল টাওয়ারের মতো আধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহারে বেড়েছে বজ্রপাত। তবে আমাদের দেশে বজ্রপাতের মূল কারণ─দেশটির ভৌগোলিক অবস্থান। এর কারণ হিসাবে দেখা দিয়েছে তাল, নারিকেল, সুপারি ও বট বৃক্ষের মত বড় গাছের অভাব, কৃষি যন্ত্রপাতিতে ধাতব দ্রব্যের ব্যবহার বৃদ্ধি, নদনদী শুকিয়ে যাওয়া, জলাভূমি ভরাট হওয়া,ধাতব পদার্থের ব্যবহার বৃদ্ধি,গাছপালা ধ্বংসের কারণে তাপমাত্রা বেড়ে যাওয়া ইত্যাদি বজ্রপাতের হার বাড়ার অন্যতম কারণ।

আবার আবহাওয়াবীদগণ বলছেন দক্ষিণ বঙ্গোপসাগর থেকে আসা আর্দ্র বায়ু এবং উত্তর হিমালয় থেকে আসা শুষ্ক বাতাসের মিলনে বজ্রমেঘ, বজ্রঝর ও বজ্রপাতের সৃষ্টি হচ্ছে।বাংলাদেশ মেডিকেল রিসার্চ কাউন্সিলে প্রকাশিত এক গবেষণায় বলা হয়েছে, বাংলাদেশে গত ২৫ বছরে তাপমাত্রা ১ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস বেড়েছে।

তামপাত্রা বৃদ্ধি বজ্রপাত বৃদ্ধির অন্যতম কারণ। জলোচ্ছ্বাস, আকস্মিক বন্যা ও হারিকেনের পর আবহাওয়াসংক্রান্ত কারণে সবচেয়ে বেশি মৃত্যু হচ্ছে বজ্রাঘাতে। এছাড়াও বজ্রপাতে যারা আহত হচ্ছেন তাদের স্বাভাবিক জীবনেও ঘটছে নানা বিপত্তি। বজ্রপাতে যারা আহত হচ্ছেন তারা বিভিন্ন স্বাস্থ্যগত ঝুঁকির মধ্যে পড়েন। হৃদরোগ, ফুসফুস ক্ষতিগ্রস্ত হওয়া, স্নায়বিক সমস্যা, পুড়ে যাওয়া, চোখের ক্ষতি ও পেশির ক্ষতি হতে পারে। পেশির ক্ষতি হলে ইউরিনের সমস্যার কারণে কিডনিতে প্রভাব পড়তে পারে। প্রজনন স্বাস্থ্য ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে।

দেশের প্রতি বর্গকিলোমিটার এলাকায় গড়ে ৪০টি বজ্রপাত হয়ে থাকে।বিশ্বে মোট বজ্রপাতের ৭৮ শতাংশ ঘটে ক্রান্তীয় অঞ্চলে। দক্ষিণ এশিয়া তথা বাংলাদেশ যেহেতু ক্রান্তীয় অঞ্চলের খুব কাছাকাছি অবস্থিত, তাই মার্চ থেকে মে মাস পর্যন্ত বজ্রপাত ও বজ্রঝড় এখানে নৈমিত্তিক ব্যাপার।জাতিসংঘের তথ্য অনুযায়ী, বাংলাদেশে প্রতি বছর বজ্রপাতে গড়ে ৩০০ মানুষ মারা যায়। যেখানে যুক্তরাষ্ট্রে বজ্রপাতের কারণে বছরে ২০ জনেরও কম মৃত্যু ঘটে।তবে দেশের ১৬টি জেলায় বজ্রপাত ও মৃত্যু বেশি। এ তালিকায় রয়েছে সিলেট, সুনামগঞ্জ, হবিগঞ্জ, কিশোরগঞ্জ, নেত্রকোনা, সিরাজগঞ্জ, ময়মনসিংহ, দিনাজপুর, পাবনা, নওগাঁ, বগুড়া, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, রাজশাহী, জামালপুর, গাইবান্ধা ও টাঙ্গাইল।

দেশে বজ্রপাতকে ২০১৬ সালে দুর্যোগ ঘোষণা করা হয়। যুক্তরাষ্ট্রের কেন্ট সেন্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের এক গবেষণায় বলা হয়েছে, হিমালয়ের পাদদেশ থেকে বঙ্গোপসাগর পর্যন্ত বিস্তৃত অঞ্চলে জলবায়ুর পরিবর্তনে বাংলাদেশে অতিমাত্রায় বজ্রপাত হয়ে থাকে।তার মতে, বায়ু দূষণের সাথে বজ্রপাতের সম্পর্ক খুবই নিবিড়।

বেশিরভাগ গবেষকই মনে করেন, বাতাসে সালফার ও নাইট্রোজেনের যৌগগুলোর পরিমাণ, তাপ শোষন ও সাময়িক সংরক্ষনকারী গ্যাসের মাত্রা বৃদ্ধির সংগে বজ্রপাত বাড়া কিংবা কমার সর্ম্পক রয়েছে।প্রকৃতিতে কার্বনডাই অক্সাইউ নিঃসরণ ক্রমাগতভাবেই বেড়ে চলছে বিধায় বৈশ্বিক উষ্ণতা বৃদ্ধির কারণে মেঘে মেঘে সংঘর্ষ বজ্রপাতকে তরান্বিত করছে।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তর বলছে, দুর্যোগ ঘোষণার পর বজ্রপাতপ্রবণ এলাকাগুলো চিহ্নিত করা হয়। প্রতিরোধে ব্যবস্থাও নেয়া হচ্ছে। এ কার্যক্রম চলমান। এরই মধ্যে কিছু লাইটনিং অ্যারেস্টার বসানো হয়েছে।পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ তাদের আবহাওয়ার উপযোগী করে প্রয়োজন মতো বিভিন্ন বজ্রনিরোধক যন্ত্র বা ব্যবস্থা তৈরির পর তা ব্যবহার করে আসছে। সবচেয়ে শক্তিশালী বজ্রনিরোধক ব্যবস্থা ব্যবহার করা হয় উড়োজাহাজে।

এরইমধ্যে বিদেশ থেকে ব্যয়বহুল বজ্রপাত সৃষ্টিকারী মেঘ শনাক্তের জন্য ‘রাডার’ ও বজ্রপাত শনাক্তের জন্য ‘লাইটনিং ডিটেক্টর’ যন্ত্র আমদানি করে দেশের কয়েকটি অঞ্চলে স্থাপন করা হয়েছে। রাডার দিয়ে বজ্রপাত সৃষ্টিকারী মেঘ শনাক্ত করে পূর্বাভাস দেওয়ার ব্যবস্থা করার চেষ্টা চলছে।প্রাচীনকালে বড় বড় গাছপালা ছিল, ফলে ঘন ঘন বজ্রপাতের ঘটনা ঘটলেও গাছের জন্য মানুষের প্রাণ রক্ষা পেত। কিন্তু বর্তমানে বড় বড় গাছ কেটে ফেলায় খুব সহজেই মানুষের প্রাণ কেড়ে নিচ্ছে বজ্রপাত।

এখন তাল গাছকে বজ্রপাতের উপশম হিসাবে কাজে কেন বাছাই করা হলো তা অনেকেরই মনে প্রশ্ন এবং কৃষিও পরিবেশ বিজ্ঞানী ড. এম এ ফারুক  বলেছেন, তাল গাছ একটি বহুজীবি উদ্ভিদ যার জীবন কাল নব্বই থেকে একশত বছর, ভূমি সংরক্ষনের সহায়ক সব জমিতে আইলে জম্মায়, মাটির মূল গভীরে বিধায় ফসল ক্ষতিকারক নয়, কম বৃষ্টিতে অধিক তাপমাত্রায় ও তীব্র বায়ু প্রবাহ সহ্য করতে পারে ইত্যাদি। কিন্তু বীজ বপনের পর বজ্রপাতের ঝুকি হ্রাসের উপযোগী করতে ১৪ থেকে ১৬ বছরের অধিক সময় লাগবে।

তবে এই পরিকল্পনার সাথে সুপারি গাছও বিবেচনায় আনা যায় যা দ্রুত বর্ধনশীল ৫০-৬০ ফুট উচুতে হয় এবং তাল গাছের প্রতি ৩০ ফুটের মধ্যবর্তী স্থানে রোপন করা যায় ইত্যাদি। এই ব্যবস্থাপনায় বিশ্বের বিভিন্ন দেশে সুফল পাওয়া গেছে।এবং এই টেকসই কার্যক্রমকে স্ব-উদ্যেগের সাথে বাস্তবায়ন করা সম্ভব হলে বজ্রপাতের হ্রাসের পরিমাণ নিরসন করা সহজতর হবে।বজ্রপাতের সময় আমাদের বেশকিছু সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে। বজ্রপাতের সময় দালান বা পাকা ভবনের নিচে আশ্রয় নিতে হবে। ঘন ঘন বজ্রপাত হতে থাকলে কোনো অবস্থাতেই খোলা বা উঁচু স্থানে থাকা যাবে না।

পাশাপাশি বজ্রপাত-ভয়াবহতার এমন প্রেক্ষাপটে টেকসই দৃষ্টিকোণ থেকে শিক্ষাসচেতনতা, বনায়ন,বর্ষীয়ান গাছ সংরক্ষণকারী প্রক্রিয়া চলমান রাখা,বজ্রনরোধক টাওয়ার স্থাপন, বজ্রপাত নিরোধক বৃক্ষায়ণ,

 নির্মাণশিল্প, বিদ্যুৎ ও টেলিকম অবকাঠামোর সমন্বিত ও ঝুঁকিপূর্ণ দিকগুলোর ওপর নজর দেওয়ার সমন্বিত প্রয়াস জরুরি।

সর্বশেষ - খবর

ব্রেকিং নিউজ :