রবিবার , ২২ জানুয়ারি ২০২৩ | ১৭ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
  1. অপরাধ ও দূর্নীতি
  2. আইন ও আদালত
  3. আনন্দ ঘর
  4. আনন্দ ভ্রমন
  5. আলোচিত খবর
  6. উন্নয়নে বাংলাদেশ
  7. এছাড়াও
  8. কবি-সাহিত্য
  9. কৃষিজীব বৈচিত্র
  10. ক্যাম্পাস
  11. খবর
  12. খুলনা
  13. খেলা
  14. চট্টগ্রাম
  15. জাতীয়

তিস্তার চরে আগাম ভুট্টার বাম্পার ফলনের আশা

প্রতিবেদক
বাঙলা প্রতিদিন
জানুয়ারি ২২, ২০২৩ ১:০৫ পূর্বাহ্ণ

নীলফামারী প্রতিনিধি : নীলফামারীর ডিমলায় তিস্তার চরগুলোতে আগাম জাতের ভুট্টা চাষে এবার বাম্পার ফলনের আশা করছেন কৃষকেরা। উপজেলা কৃষি অফিস বলছে, প্রাকৃতিক দুর্যোগ না হলে এবার আগাম ভুট্টার বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা রয়েছে।

চরের কৃষকরা জানান, অন্য ফসলের তুলনায় অধিক লাভজনক হওয়ায় ভুট্টা চাষে ঝুঁকছেন এখানকার কৃষকেরা। চরের প্রতি শতক জমিতে প্রায় ২ মন করে ভুট্টা উৎপাদিত হয়। যা উৎপাদনের খরচ মিটিয়ে দ্বিগুণ লাভ হয়। এছাড়া ভুট্টার পাতা, কাণ্ড গবাদি পশুর খাদ্য ও জ্বালানি হিসেবে বিক্রি হয়।গত বছর আগাম ভুট্টা চাষ করে আশানুরূপ ফল পাওয়ায় এ বছর অধিক পরিমাণ আগাম জাতের ভুট্টা চাষ করেছেন তারা।

উপজেলা উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা নাজমুল হোসেন জানান, এবার উপজেলার ১৪ হাজার ২০০ হেক্টর জমিতে ভুট্টার চাষ করেছেন কৃষকেরা। গত বছরের অক্টোবর থেকে নভেম্বরের মাঝামাঝি সময়ে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় আগাম জাতের ভুট্টার বীজ বপন করা হয়। এরই মধ্যে গাছে ফলন এসেছে। সবকিছু ঠিক থাকলে ফেব্রুয়ারির শেষের দিকে খেত থেকে ভুট্টা মাড়াই করে ঘরে তুলবেন কৃষকেরা।

সরেজমিনে উপজেলার টাপুর চর, ঝিনঝির পাড়া, জুয়ার চর, কিসামত ছাতনাই, পূর্ব খড়িবাড়ী, বাইশপুকুর, ভেন্ডাবাড়ি তিস্তার চরের বিভিন্ন গ্রামে দেখা যায়, বিস্তীর্ণ মাঠজুড়ে ভুট্টা চাষ করেছেন কৃষকরা।মাঠে মাঠে শোভা পাচ্ছে ভুট্টাগাছ। কৃষকরা ভুট্টা ক্ষেতে সেচ দিচ্ছেন।পুরুষদের পাশাপাশি নারীরাও কাজ করছেন মাঠে। এসব চরের সবাই কম বেশি আগাম জাতের ভুট্টা চাষ করেছেন।

কিসামত চরের আরিফ ইসলাম বলেন, গত বছর শেষ সময়ে ভুট্টা পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় এবার আগাম জাতের ভুট্টা চাষ করেছেন তারা। এছাড়া আগাম ভুট্টা বাজারে ভালো দাম পাওয়া যায়।

দোহল পাড়ার বর্গাচাষী আব্দুর রহমান বলেন, ভুট্টা চাষ করে চরের মানুষদের অর্থনৈতিক মুক্তি মিলেছে । তিনি জানান, অন্য ফসলের তুলনায় ভুট্টা চাষ করতে খরচ কম। ফলনও বেশি। ফলে ভুট্টা চাষ লাভজনক। ৩ একর জমিতে আগাম জাতের ভুট্টা চাষ করেছি। তাতে আমার খরচ হয়েছে প্রায় ৯০ হাজার টাকা। ফলন হবে প্রায় ৫০০ মণ। আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে সব খরচ মিটিয়ে তিন লাখ টাকা লাভ হবে বলে আশা করছি।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সেকেন্দার আলী বলেন, এ উপজেলায় ভুট্টার চাষ গত পাঁচ বছরে দ্বিগুণ হয়েছে। কম খরচে বেশি মুনাফা অর্জনের ফলে দিন দিন এ চাহিদা ব্যাপক হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে।তিনি জানান,এবার আগাম উচ্চফলনশীল ভুট্টার চাষ বেশ সম্প্রসারণ হয়েছে।এতে কৃষকরা এক জমিতেই তিন ফসল চাষ করতে পারবেন।

সর্বশেষ - জাতীয়

ব্রেকিং নিউজ :