300X70
বৃহস্পতিবার , ১৬ মে ২০২৪ | ১১ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অপরাধ ও দূর্নীতি
  2. আইন ও আদালত
  3. আনন্দ ঘর
  4. আনন্দ ভ্রমন
  5. আবহাওয়া
  6. আলোচিত খবর
  7. উন্নয়নে বাংলাদেশ
  8. এছাড়াও
  9. কবি-সাহিত্য
  10. কৃষিজীব বৈচিত্র
  11. ক্যাম্পাস
  12. খবর
  13. খুলনা
  14. খেলা
  15. চট্টগ্রাম

দত্তনগর কৃষি খামারের মাটি কেটে বাগান ভরাটের অভিযোগ

প্রতিবেদক
বাঙলা প্রতিদিন২৪.কম
মে ১৬, ২০২৪ ১১:৫২ অপরাহ্ণ

জাহিদুল ইসলাম, ঝিনাইদহ : দত্তনগর কৃষি খামারের যুগ্ম পরিচালক এ কে এম কামরুজ্জামান শাহিনের বিরুদ্ধে সরকারী কৃষি খামারের মাটি কেটে নিজের বাগান ভরাট করার অভিযোগ উঠেছে। বিষয়টির সুষ্ঠ তদন্ত ও তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য কৃষি মন্ত্রণালয় ও খামারবাড়ীসহ বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত আবেদন করেছে এলাকাবাসী।
অভিযোগে বলা হয়, ঝিনাইদহের সীমান্তবর্তী উপজেলার মহেশপুরে অবস্থিত এশিয়ার বৃহত্তম শস্য (বীজ) উৎপাদন খামার দত্তনগর কৃষি ফার্ম। তার বিরুদ্ধে দত্তনগর খামারের ভূয়া বিল ভাউচার, হাইব্রিড বীজ প্রেরণে অনিয়ম, শ্রমিকের টাকা আত্মাসাৎ, নারী নির্যাতনসহ বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ দীর্ঘদিনের। এসব অভিযোগ থাকার পরেও খামারের মাটি ভেকু দিয়ে কেটে ট্রাক্টরে করে নিয়ে নিজের জমি ভরাট করছে বলে অভিযোগ রয়েছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, উপজেলার গোকুলনগর খামারের অভ্যন্তরে ভেকু দিয়ে মাটি কেটে ট্রাক্টরে ভর্তি করে কুশাডাঙাঙ্গা গ্রামে তার নিজ জমি ভারাট করছে। এ সময় স্থানীয় লোকজন বাঁধা দিলে কিছু সময়ের জন্য মাটি কাটা বন্ধ হয়।

জানা গেছে যুগ্ম পরিচালক (খামার) এ কে এম কামরুজ্জামানের বাড়ি চাকরিরস্থল মহেশপুর উপজেলার স্বরুপপুর ইউনিয়নের কুশাডাংগা গ্রামে। আর দত্তনগর খামারটি তার নিজ এলাকায় হওয়ায় নিজের খেয়াল খুশি মতো খামার পরিচালনা করে আসছেন বলে এলাকাবাসীর অভিযোগ।

এসময় স্থানীয় আব্দুল হামিদ নামে এক ব্যাক্তি এ প্রতিবেদকে বলেন এ কে এম কামরুজ্জামান এখানে যোগদানের পর থেকে একের পর এক অনিয়ম করে আসছেন।

তিনি আরো বলেন, সরকারি মাটি কেটে নিয়ে নিজের জমি ভরাট করায় এলাকার মানুষ বাঁধা দিলে তার লোকজন দিয়ে বিভিন্ন ভাবে হুমকি ধামকি দিয়ে থাকেন।

স্থানীয় একজন জনপ্রতিনিধি বলেন, উনি খামারের দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকে খামার গুলিতে একক রামরাজত্ব কায়েম করেছেন। উনার অন্যায়ের বিরুদ্ধে কেউ প্রতিবাদ করলে তাকে বিভিন্ন ভাবে হয়রানি করে থাকেন। তিনি স্থানীয় হওয়ায় তার বিরুদ্ধে কেউ মুখ খুলতে সাহস পায় না।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন উপ-পরিচালক বলেন, উনার কাছে সকল অনিয়মই নিয়ম। উনার গাড়ীতে প্রতি সপ্তাহে ৫০ লিটার তেল দিতে হয়। ইচ্ছা মতো তিনি শ্রমিক ছাটাই, শ্রমিকদের হাজিরা কর্তনসহ নানা অপকর্ম করে থাকেন। কেও তার বিরুদ্ধে কথা বললেই বিভিন্ন ভাবে হয়রানি করে থাকেন। শুধু হয়রানি নয় চরম ভাবে অপমান অপদস্ত করে থাকেন বলেও তিনি অভিযোগ করেন।

ওই উপ-পরিচালক আরো বলেন, এসব অপকর্মের সহযোগিতা করেন গোকুলনগর খামারের উপ-পরিচালক জাহিদুর রহমান। তিনি শ্রমিকদের হাজিরা খাতায় নিজের ইচ্ছা মতো নাম উঠান। এছাড়াও ভূয়া মাস্টার রোল তৈরি করতে উপ-পরিচালকদের বাধ্য করেন বলে অভিযোগ রয়েছে। আর শতভাগ শ্রমিকের হাজিরা ব্যাংক একাউন্টে দেওয়ার নির্দেশনা থাকলেও তিনি বিভিন্ন অজুহাতে তা এখনো বাস্তবায়ন হতে দেননি বলেও জনশ্রুতি আছে।

জানাগেছে কিছু দিন আগে যুগ্ম পরিচালক এ কে এম কামরুজ্জামান শাহিনকে বদলী করা হয়েছে। আর যশোরের যুগ্ম পরিচালক রোকনুজ্জামানকে দত্তনগর পদায়ন করা হয়। কিন্তু অদৃশ্য শক্তির বলে তিনি এখনও বহাল রয়েছেন।

যুগ্ম পরিচালক রোকনুজ্জামানের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, চিঠি পেয়ে আমি দায়িত্ব নিতে গিয়েছিলাম কিন্তু আমাকে দায়িত্ব দেওয়া হয়নি।

দত্তনগর খামারের যুগ্ম পরিচালক (খামার) এ কে এম কামরুজ্জামানের সাথে কথা বললে তিনি বলেন, খামারে মাটি থাকার কারণে কিছু অসুবিধা হচ্ছে, সেকারণে আমি কিছু মাটি স্থানান্তর করেছি। এবং সরকারি মাটি কেটে নিজের বাগান এবং জমি ভরাট করতে পারেন কিনা প্রশ্ন করলে তিনি বিষয়টি এড়িয়ে জান।

এ বিষয়ে বিএডিসির জিএম সীড দেবদাস শাহার সাথে যোগযোগ করলে তিনি বলেন, আপনার কাছে বিষয়টি শুনলাম অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

সর্বশেষ - খবর

ব্রেকিং নিউজ :