300X70
শুক্রবার , ১৪ জুন ২০২৪ | ২৯শে আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অপরাধ ও দূর্নীতি
  2. আইন ও আদালত
  3. আনন্দ ঘর
  4. আনন্দ ভ্রমন
  5. আবহাওয়া
  6. আলোচিত খবর
  7. উন্নয়নে বাংলাদেশ
  8. এছাড়াও
  9. কবি-সাহিত্য
  10. কৃষিজীব বৈচিত্র
  11. ক্যাম্পাস
  12. খবর
  13. খুলনা
  14. খেলা
  15. চট্টগ্রাম

দুর্বৃত্তদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থানে আওয়ামী লীগ

প্রতিবেদক
বাঙলা প্রতিদিন২৪.কম
জুন ১৪, ২০২৪ ১:৩৩ পূর্বাহ্ণ

বাঙলা প্রতিদিন প্রতিবেদক :দলের শৃঙ্খলা ভঙ্গকারী, দলের ভেতর সুবিধাবাদী, লুটেরা এবং দলের নাম ভাঙিয়ে বিভিন্ন অপকর্মের সঙ্গে যুক্ত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থানে যাচ্ছে দলটি।

দলের ভেতর থাকা বিভিন্ন রকমের অপকর্ম করছে যে সমস্ত আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা, তাদের বিরুদ্ধে শুদ্ধি অভিযান শুরু করতে যাচ্ছে টানা চার মেয়াদে ক্ষমতায় থাকা দল আওয়ামী লীগ।

মূলত ২৩ জুনের পর আওয়ামী লীগের ক্র্যাশ প্রোগ্রাম অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। ক্র্যাকডাউন হবে দলের শৃঙ্খলা ভঙ্গকারী এবং দলের সুনাম নষ্টকারীদের বিরুদ্ধে। আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ ব্যাপারে শূন্য সহিষ্ণুতা নীতি অনুসরণ করবে।

বৃহস্পতিবার (১৩জুন) আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীল একাধিক সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

জানা গেছে, সাম্প্রতিক সময়ে আনার হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদঘাটন করতে গিয়ে আওয়ামী লীগের অভ্যন্তরে দুর্বৃত্তদের ব্যাপারে নানারকম চাঞ্চল্যকর তথ্য গণমাধ্যমে আসছে। আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা এই সমস্ত ঘটনায় অত্যন্ত বিব্রত।

আওয়ামী লীগ মনে করছে, দলের ভেতর থেকে যারা এ ধরনের অপকর্ম করছে তাদের বিরুদ্ধে এখনই ব্যবস্থা নেওয়ার সময়। আর এ কারণেই দলের ভেতরে থেকে যারা বিভিন্ন রকমের অনিয়ম করছে, বিভিন্ন কমিটিতে থেকে যারা দলের সুনাম নষ্ট করছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

আওয়ামী লীগের একজন প্রেসিডিয়াম সদস্য বলেছেন, দলের ভেতর বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি, দলের ভেতরের কোন্দল, বিভক্তি এবং নিজেদের স্বার্থ উদ্ধারের জন্য দলকে ব্যবহার করা, দলের স্বার্থ ক্ষুণ্ণ করা এই সমস্ত বিষয়গুলোকে একেবারেই বরদাস্ত করা হবে না।
দলের দায়িত্বশীল সূত্রমতে, আগামী ২৩ জুন দলটির ৭৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী।

এই প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী নিয়ে আওয়ামী লীগের এখন প্রস্তুতি চলছে। ঈদের পর থেকে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর জন্য ব্যস্ত থাকবে দলের নেতৃবৃন্দ। প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর পর থেকেই শুদ্ধি অভিযান শুরু হবে।

সাম্প্রতিক সময়ে ঝিনাইদহর এমপি আনার হত্যাকাণ্ডের পর বেরিয়ে আসতে থাকে আওয়ামী লীগের অভ্যন্তরীণ কিছু চিত্র। এই হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িয়ে গেছেন আওয়ামী লীগের কিছু নেতাও।

ঘটনাটি যে শুধু ঝিনাইদহের এমনটি নয়, সারা দেশে আওয়ামী লীগের ভেতর এ ধরণের একটি সহিংস গোষ্ঠীর উত্থান ঘটেছে। একটি দুর্বৃত্ত চক্র ক্রমশ বিভিন্ন স্থানে প্রভাবশালী হয়ে উঠেছে বলে মনে করছেন আওয়ামী লীগের নীতি নির্ধারকরা।

আর এই কারণেই তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য এখনই উদ্যোগ নেওয়া প্রয়োজন বলেও মনে করছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ইতোমধ্যেই বিষয়টি নিয়ে দলের একাধিক শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে কথা বলেছেন।

দলের সাধারণ সম্পাদক এখন সিঙ্গাপুরে অবস্থান করছেন তার চিকিৎসার জন্য। সিঙ্গাপুর থেকে ফিরে আসার পর এ বিষয়ে তিনি সাংগঠনিক সম্পাদক এবং অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ নেতাদের সঙ্গে বসবেন বলে জানা গেছে।

এছাড়াও প্রতিটি বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক এবং যুগ্ম সাধারণ সম্পাদকদের দায়িত্ব দেওয়া হবে, তারা যেন তাদের বিভাগে প্রত্যেকটি জেলা, ওয়ার্ডের তালিকা তৈরি করে, যেখানে আওয়ামী লীগের বিভিন্ন নেতাকর্মীরা নানা ধরনের অনিয়ম করছেন, অপকর্ম করছেন। এই তালিকার ভিত্তিতে যাচাই বাছাই করা হবে এবং কার কী ভূমিকা ইত্যাদি নিরীক্ষা করা হবে।

এরপর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। তবে শুধু মাত্র আওয়ামী লীগের উৎস থেকে তথ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে না, অন্যান্য বিভিন্ন উৎস থেকেও তথ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে। সাম্প্রতিক সময়ে একটি গোয়েন্দা সংস্থাকেও দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পদে থাকা ব্যক্তিরা কে কী করছেন সে সম্পর্কে খোঁজখবর নেওয়ার জন্য।

আওয়ামী লীগের একাধিক নেতাই মনে করেন টানা ক্ষমতায় থাকার কারণে আওয়ামী লীগের অনেকে এখন দুর্বৃত্ত হিসেবে দাঁড়িয়ে গেছেন।

তারা এলাকায় আধিপত্য বিস্তারের চেষ্টা করছেন। ব্যবসা-টেন্ডার সহ নানা রকম সুযোগ সুবিধা আদায়েরও চেষ্টা করছেন। এই সমস্ত বিষয়গুলোকে এখনই না থামালে তা দলের জন্যই ক্ষতিকারক হবে এবং দলের সুনাম নষ্ট করবে।

ইতোমধ্যে আনার হত্যাকণ্ডের ঘটনায় আওয়ামী লীগের মধ্যেই নানারকম সমালোচনা হচ্ছে। এ ধরনের লোকরা কীভাবে এতদিন বহাল তবিয়তে ছিলেন সে নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে। আর এ কারণেই আওয়ামী লীগ এখন দলের ভেতর থাকা দুর্বৃত্তদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থানে যাচ্ছে বলে জানা গেছে।

আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য, পাট ও বস্ত্রমন্ত্রী অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেছেন, দুর্নীতির বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ থেকে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে। যেই দুর্নীতি করেছে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়েছেন। কিন্তু বিএনপির নেতারা এই নজির সৃষ্টি করতে পারেননি।

তবে আওয়ামী লীগের একজন সাংগঠনিক সম্পাদক বলেছেন, সারাদেশে আওয়ামী লীগের নাম ভাঙ্গিয়ে যারা অপকর্ম করছেন, দলের শৃঙ্খলা ভঙ্গ লঙ্ঘন করছেন এবং দলের ভেতর নানা রকম বিশৃঙ্খলার সৃষ্টি করছেন তাদের তালিকা তৈরি করা হচ্ছে এবং এই তালিকা আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে দেওয়া হবে।

সর্বশেষ - খবর

ব্রেকিং নিউজ :