300X70
শনিবার , ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২৩ | ৬ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অপরাধ ও দূর্নীতি
  2. আইন ও আদালত
  3. আনন্দ ঘর
  4. আনন্দ ভ্রমন
  5. আবহাওয়া
  6. আলোচিত খবর
  7. উন্নয়নে বাংলাদেশ
  8. এছাড়াও
  9. কবি-সাহিত্য
  10. কৃষিজীব বৈচিত্র
  11. ক্যাম্পাস
  12. খবর
  13. খুলনা
  14. খেলা
  15. চট্টগ্রাম

দেশমাতৃকা সুরক্ষায় বাঙালির রয়েছে অপার প্রাণশক্তি : প্রফেসর ড. মশিউর রহমান

প্রতিবেদক
বাঙলা প্রতিদিন২৪.কম
সেপ্টেম্বর ১৬, ২০২৩ ১:২০ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক, বাঙলা প্রতিদিন : দেশমাতৃকা সুরক্ষায় বাঙালির রয়েছে অপার প্রাণশক্তি বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মো. মশিউর রহমান।

তিনি বলেন, ‘বাঙালির ভাষা আন্দোলন, মহান মুক্তিযুদ্ধে বিজয়ের মতো বড় সাফল্যের পরে একে একে পার্বত্য শান্তি চুক্তি, দারিদ্র্য বিমোচন, মঙ্গা দূরীকরণ, সমুদ্রসীমা বিজয়, ছিটমহল সমস্যা সমাধান, লাখো রোহিঙ্গা শরণার্থী আশ্রয় প্রদান, সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনী তৈরিসহ নানা কাজ বাঙালি আপন শক্তিতে করেছে। আগামী পথ চলায় আমরা মানবমুক্তি, মানবিক এবং আত্মমর্যাশীল বাংলাদেশ বিনির্মাণের পথে এগিয়ে যাচ্ছি।

কোনো পুঁজিবাদী রাষ্ট্রের সঙ্গে আমাদের প্রতিযোগিতা নেই। বাংলাদেশ এক ভিন্ন শক্তিকে নতুন উচ্চতায় যেতে চায়। এটিই হবে বাংলাদেশে বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধের আদর্শে উজ্জীবিত প্রাণ সঞ্চারিত মূল ধারা। সে ধারায় আগামীতে বিশ্বের বহু মানুষ শামীল হবে। সুতরাং আগামী বিশ্বের নেতৃত্ব বাঙালি দেয়ার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে।’

শুক্রবার (১৫ সেপ্টেম্বর) জাতীয় প্রেসক্লাবে এডুকেশন রিসার্চ এন্ড ডেভেলপমেন্ট ফোরাম অব বাংলাদেশ (ইআরডিএফবি) ও সাপ্তাহিক উদ্যোক্তা যৌথভাবে আয়োজিত ‘স্বাধীন সার্বভৌম রাষ্ট্রের উপর বিদেশিদের হস্তক্ষেপ’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন উপাচার্য।

দেশের প্রথিতযশা সমাজবিজ্ঞানী ড. মশিউর রহমান আরো বলেন, ‘পৃথিবীর অন্যকোনো দেশের সঙ্গে আমার সবুজে-শ্যামলে ভরা দেশমাতৃকার তুলনা করি না। বাংলাদেশ তার অনন্য শক্তিতে অপরূপ ও ভরপুর। এটি শুধু সবুজে-শ্যামলে অনন্য তা নয়, এই দেশমাতৃকা সৃষ্টিতে আমার মতো, আপনার মতো ৩০ লক্ষ মানুষ লাফিয়ে লাফিয়ে আত্মোৎসর্গ করেছেন। তাঁদের প্রত্যেকের জীবনে অন্য স্বপ্ন ছিল।

তাঁরা অন্য কিছু হতে পারতেন, দীর্ঘায়ু হতে পারতেন। পরিবার-পরিজন নিয়ে সুন্দর, স্বাভাবিক জীবন গড়তে পারতেন। সে পথে না গিয়ে তাঁরা একটি জাতিরাষ্ট্র সৃষ্টির জন্য বন্ধুকের সামনে যুদ্ধ করে নিজেদের জীবন বিসর্জন দিয়েছেন। ২ লক্ষ মা-বোন নির্যাতন সয়ে সয়ে মানচিত্র এঁকেছেন। সেই মানচিত্রে আঘাত হানবেন। আর বাংলাদেশের মানুষ নীরবে, নিভৃতে বসে থাকবে এমনটি ভাবার কোনো কারণ নেই।

এটি ইরাক নয়, আফগানিস্তান নয়- এটি বাংলাদেশ। এ বাংলাদেশে ১৯৭১ সালে সাড়ে সাত কোটি মানুষ এক হয়ে ঠিক করেছি আমাদের স্বতন্ত্র ভূখণ্ডের আগামীর পথ চলা কী হবে। আগামীর পথচলায় সংবিধানে চার মূলনীতি ঠিক করেছি- বাঙালি জাতীয়তাবাদ, ধর্মনিরপেক্ষতা, গণতন্ত্র ও সমাজতন্ত্র। এগুলোই আমার জাতিরাষ্ট্রের দর্শন। এর বাইরে যা কিছু হবে তার বিরুদ্ধে বাঙালি সোচ্চার থাকবে জীবনের শেষ দিনটি পর্যন্ত।’

বিদেশিদের স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশে অযাচিত হস্তক্ষেপ বন্ধের আহ্বান জানিয়ে উপাচার্য বলেন, ‘আপনারা নিজ দেশের প্রতি আরও বেশি যত্নবান হোন। আপনাদের দেশে মানবাধিকার লঙ্ঘন হচ্ছে, সেটিকে রক্ষায় মনোযোগী হোন। স্কুলগামী শিক্ষার্থীদের গুলি করে হত্যা করা হচ্ছে, গাড়িতে হামলা করে পুলিশ মানুষ মারছে সেসব বন্ধে আপনাদের নজর দেয়া জরুরি। বাংলাদেশ অর্থনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক মুক্তির পথে এগোচ্ছে সঠিকভাবে।’

‘মিয়ানমার থেকে একরাতে যেদিন লাখো শরণার্থী আশ্রয়হীন হয়েছিল বিদেশি ১৪০ জন বিবৃতিদাতার স্বাক্ষরের কলম সেদিন কোথায় ছিল? কেন এই লাখো শরণার্থীর মানবিক আশ্রয়ে আপনারা দাঁড়ালেন না? সেদিন বঙ্গবন্ধুর দুকন্যা একজন আরেক জনকে বলেছেন ১৬ কোটি মানুষকে যদি খাওয়ানো যায়, আর কিছু মানুষকে নিয়ে আমরা একসঙ্গে খেতে পারবো না? সেই থেকে আমাদের যাত্রা।

এই শরণার্থী আশ্রয়ে স্বাস্থ্য ঝুঁকি আছে, সংকট আছে তা জেনে শুনে বুঝেও মানবিকতাকে অগ্রাধিকার দিয়ে এই মানুষগুলোর পাশে দাঁড়িয়েছি আমরা। আজও কি আপনারা তাদের দায়িত্ব নিচ্ছেন? নানা কূটকৌশলে তারা এখানে কীভাবে থাকবে, আগামী দিনে কীভাবে সংকট তৈরি হবে তার ষড়যন্ত্র করছেন। বাংলাদেশ জানে কাকে মর্যাদা দিতে হবে আর কাকে দিতে হবে না। আপনারা জেনে রাখুন, আগামীর পথ চলায় বাংলাদেশ হবে অনন্য মডেল। এই মুক্তিযোদ্ধাদের প্রজন্ম আগামী বিশ্বের নেতৃত্ব দেবে।’

বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের (ইউজিসি) সদস্য ও ইআরডিএফবি’র সভাপতি প্রফেসর ড. মো. সাজ্জাদ হোসেনের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটির উপাচার্য প্রফেসর ড. আব্দুল মান্নান চৌধুরী। স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন স্টেট ইউনিভার্সিটির সাবেক উপাচার্য প্রফেসর ড. মো. আনোয়ারুল কবির।

বিশেষ অতিথি ছিলেন পিরোজপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. কাজী সাইফুদ্দিন আহমেদ, আরপি সাহা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মনীন্দ্র কুমার রায়, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কবি সুফিয়া কামাল হলের প্রভোস্ট প্রফেসর ড. তৌহিদা রশীদ।

অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ ও ইআরডিএফবি’র সাধারণ সম্পাদক প্রফেসর ড. মোহাম্মদ বরুজ্জামান ভুঁইয়া। এছাড়া অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের অতিরিক্ত পরিচালক মো. শাহিন সিরাজ, সিনিয়র সহকারী পরিচালক ইমরান হোসেন, সহকারী সচিব প্রবীর চন্দ্র দাসসহ বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, শিক্ষার্থীবৃন্দ।

সর্বশেষ - খবর

আপনার জন্য নির্বাচিত

কার্যনির্বাহী কমিটির সাংগঠনিক দুর্বলতা দূর করার নির্দেশ দিলেন মোকতাদির চৌধুরী

সুনামগঞ্জের হুরামন্দিরা হাওরের ১ হাজার হেক্টর বোরো ফসল পানির নিচে

নোয়াখালীতে ঘরে ঢুকে গৃহবধূকে ধর্ষণের অভিযোগে যুবক গ্রেফতার

নোয়াখালীতে গৃহবধূ ধর্ষণ মামলা একব্যক্তির যাবজ্জীবন কারাদন্ড

মনোনয়ন প্রত্যাশীদের ফরম সংগ্রহের আহ্বান আ.লীগের

কয়রা সিনিয়র ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের স্টেনো ডালিমের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ 

ইসলামী ব্যাংকের ঢাকা সেন্ট্রাল জোন ও কর্পোরেট শাখার অর্ধ-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত

প্লাস্টিক দূষণ নিয়ন্ত্রণে উদযাপন করা হবে এবারের পরিবেশ দিবস : পরিবেশমন্ত্রী

রেমিডিয়াল ক্লাস ও পুনর্বিন্যাস করা সিলেবাসে পরীক্ষা নেওয়া হবে : শিক্ষামন্ত্রী

বঙ্গবন্ধু যেমন গণমাধ্যমকে ভালোবেসেছেন, গণমাধ্যমও ভালোবেসেছে : তথ্যমন্ত্রী