300X70
বুধবার , ৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ | ১১ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
  1. অপরাধ ও দূর্নীতি
  2. আইন ও আদালত
  3. আনন্দ ঘর
  4. আনন্দ ভ্রমন
  5. আবহাওয়া
  6. আলোচিত খবর
  7. উন্নয়নে বাংলাদেশ
  8. এছাড়াও
  9. কবি-সাহিত্য
  10. কৃষিজীব বৈচিত্র
  11. ক্যাম্পাস
  12. খবর
  13. খুলনা
  14. খেলা
  15. চট্টগ্রাম

দেশের প্রতি বিভাগে বিকেএসপির মতো প্রতিষ্ঠান হবে : প্রধানমন্ত্রী

প্রতিবেদক
বাঙলা প্রতিদিন২৪.কম
ফেব্রুয়ারি ৭, ২০২৪ ১২:৪৭ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক :খেলাধূলার মান উন্নয়নে প্রতিটি বিভাগে বাংলাদেশ ক্রীড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের (বিকেএসপি) মতো প্রতিষ্ঠান তৈরি করা হবে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এছাড়া দেশের প্রতিটি উপজেলায় মিনি স্টেডিয়ামও গড়ে তোলা হচ্ছে বলে জানান তিনি।

বুধবার (৭ফেব্রুয়ারি) সকালে রাজশাহীর মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতি স্টেডিয়ামে ৫২তম শীতকালীন জাতীয় ক্রীড়া প্রতিযোগিতার চূড়ান্তপর্বের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি যোগ দিয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, খেলাধুলার মধ্য দিয়ে ছেলে-মেয়েদের উদার মানসিকতা গঠনে সরকার পদক্ষেপ নিয়েছে। দেশের ছেলে-মেয়েরা মেধাবী। সুযোগ পেলেই তারা ক্রীড়াঙ্গনে সুনাম অর্জন করবে। তিনি বলেন, দেশ স্বাধীন হয়েছে বলেই ছেলেমেয়েরা খেলাধুলায় আন্তর্জাতিক পর্যায়েও দক্ষতার প্রমাণ রাখতে পারছে। আমাদের পরিবারটাই খেলাধুলার সঙ্গে সর্বতভাবে জড়িত। খেলাধুলার বিকাশ ঘটাতে চাই, এ বিষয়ে মনোযোগ আছে।

দেশীয় খেলাগুলো যেন হারিয়ে না যায়, তার জন্য সবাইকে উদ্যোগ নেওয়ার আহবান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশীয় খেলাকে আরও আকর্ষণীয় করতে হবে। খেলাধুলার মধ্য দিয়ে ঐক্যের বন্ধন দৃঢ় শরীরচর্চা হয়। মাধ্যমিক পর্যায়ে ক্রীড়া প্রতিযোগিতা সমর্থন করি। আন্তঃস্কুল, আন্তঃকলেজ, আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় প্রতিযোগিতার চর্চা করা প্রয়োজন। বিদেশেও ছেলেমেয়েরা খেলাধুলায় ভালো অর্জন করছে। ৮২৪ জন খেলোয়াড় জাতীয় শীতকালীন ক্রীড়া প্রতিযোগিতার চূড়ান্ত পর্বে এসেছে। এই প্রতিযোগিতায় যারা শ্রেষ্ঠত্ব অর্জন করবে তাদের অগ্রিম অভিনন্দন জানান প্রধানমন্ত্রী। তিনি আরও বলেন, রাজশাহী অঞ্চলে খেলাধুলার আরও সুযোগ রয়েছে। সব ধরনের খেলা জানতে হবে, পাশাপাশি দেশীয় খেলার চর্চা করতে হবে। যেন এই খেলাগুলো হারিয়ে না যায়। ২০৪১ সালের মধ্যে স্মার্ট বাংলাদেশ গড়বো। আজকের শিশু-কিশোর-তরুণরাই হবে তার সৈনিক।
৫২তম শীতকালীন জাতীয় ক্রীড়া প্রতিযোগিতার চূড়ান্তপর্বের খেলা শুরু হলো রাজশাহীর মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতি স্টেডিয়ামে। এবারের আয়োজনে ১৩টি ইভেন্টে মোট সাত লাখ শিক্ষার্থী অংশ নিয়ে চূড়ান্ত পর্বে টিকেছে ৮২৪ জন।

দেশীয় খেলাগুলো যেন হারিয়ে না যায়: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, পর্যায়ক্রমে সব উপজেলায় মিনি স্টেডিয়াম তৈরি করা হবে। এর মূল লক্ষ্য সব ধরনের খেলার পাশাপাশি দেশীয় খেলাগুলো যেন হারিয়ে না যায়, সেটির চর্চা বাড়ানোর উদ্যোগ নিতে হবে। যাতে লেখাপড়ার পাশাপাশি খেলাধুলার মাধ্যমে সুস্থ নাগরিক হয়ে পরিবার, সমাজ এবং দেশের জন্য অবদান রাখতে পারে আজকের শিশুরা। আন্তঃস্কুল, আন্তঃকলেজ ও আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় খেলার প্রতিযোগিতার আয়োজন করার দরকার। খেলাধুলা শরীর সুস্থ রাখে, প্রতিযোগিতামূলক মনোভাব তৈরি হয়, তাই এটার গুরুত্ব সবচেয়ে বেশি-এ কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী দেশীয় খেলাগুলো যেন হারিয়ে না যায়, যেমন হাডুডু থেকে সব ধরনের দেশীয় খেলার চর্চা বাড়ানোর আহ্বান জানান শেখ হাসিনা। এ সময় সব ধরনের খেলার পাশাপাশি দেশীয় খেলাগুলো যেন হারিয়ে না যায় সেটির চর্চা বাড়ানোর কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, আমাদের ছেলে-মেয়েরা মেধাবী। সুযোগ করে দিলে তারা আরও ভালো করতে পারবে। সব ধরনের খেলাকে আমাদের হাতে আনতে হবে। আমাদের কিছু দেশীয় খেলা, সেই ডাংগুলি থেকে শুরু করে, বিভিন্ন খেলাধুলা আগে প্রচলিত ছিল। সেগুলো আমাদের আবার চালু করা উচিত। আমাদের নিজস্ব দেশীয় খেলাগুলো, হাডুডু থেকে শুরু করে সবগুলো খেলা সক্রিয় রাখতে উদ্যোগ নিতে হবে। আমাদের ছেলে-মেয়েরাসহ সবাই মিলে উদ্যোগ নেবে, যেন দেশীয় খেলাগুলো হারিয়ে না যায়।

উপজেলায় কয়েকটি মিনি স্টেডিয়াম নির্মাণ করা হয়েছে: উপজেলা পর্যায়ে কয়েকটি মিনি স্টেডিয়াম নির্মাণ করা হয়েছে। পর্যায়ক্রমে সব উপজেলায় এটি তৈরি করা হবে। যাতে লেখাপড়ার পাশাপাশি খেলাধুলার মাধ্যমে সুস্থ নাগরিক হয়ে পরিবার, সমাজ এবং দেশের জন্য অবদান রাখতে পারে আজকের শিশুরা। এটা (স্টেডিয়াম) তৈরি করার মূল লক্ষ্য হলো, তারা যেন কোনো নো কোনো খেলার সাথে সারা বছর যুক্ত থাকতে পারে। ক্রিকেট ও ফুটবল স্টেডিয়াম তো আছে সেগুলো আলাদা। কিন্তু উপজেলা পর্যায়ে কয়েকটি মিনি স্টেডিয়াম নির্মাণ করার একটা লক্ষ্য হচ্ছে, সেখানে সব ধরনের খেলাধুলা হবে, প্রতিযোগিতা হবে। আন্তঃস্কুল, আন্তঃকলেজ ও আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় খেলার প্রতিযোগিতার আয়োজন করার জন্য। শেখ হাসিনা বলেন, জাতির পিতা নিজেই খেলাধুলার প্রতি অত্যন্ত মনোযোগী ছিলেন। আমি মনে করি, বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছে বলে আমাদের ছেলে-মেয়েরা খেলাধুলার ব্যাপক সুযোগ পাচ্ছে। আন্তর্জাতিক পর্যায়ে পর্যন্ত তাদের দক্ষতা প্রমাণ রাখতে পারছে। জাতির পিতার উদ্যোগে স্বাধীনতার পর এই শীতকালীন জাতীয় ক্রীড়া প্রতিযোগিতা শুরু হয়েছিল। আমাদের পরিবার সবসময় খেলাধুলার সঙ্গে জড়িত ছিল। আমার দাদা নিজেই ফুটবল খেলোয়াড় ছিলেন, আমার বাবাও ফুটবল খেলোয়াড় ছিলেন এবং আমার ভাই জামাল, কামাল, রাসেল সবাই স্পোর্টসের সঙ্গে জড়িত ছিল। এমনকি কামালের স্ত্রী সুলতানা কামাল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্লু উপাধি পেয়েছিল। জামালের স্ত্রী পারভীন জামালও খেলাধুলার সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িত ছিল। খেলাধুলার উন্নতি করাই আমাদের লক্ষ্য। পরে তিনি বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন।

সর্বশেষ - খবর

ব্রেকিং নিউজ :