300X70
সোমবার , ২২ জানুয়ারি ২০২৪ | ১১ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
  1. অপরাধ ও দূর্নীতি
  2. আইন ও আদালত
  3. আনন্দ ঘর
  4. আনন্দ ভ্রমন
  5. আবহাওয়া
  6. আলোচিত খবর
  7. উন্নয়নে বাংলাদেশ
  8. এছাড়াও
  9. কবি-সাহিত্য
  10. কৃষিজীব বৈচিত্র
  11. ক্যাম্পাস
  12. খবর
  13. খুলনা
  14. খেলা
  15. চট্টগ্রাম

নবগঠিত বাংলাদেশ সরকারের আন্তর্জাতিক স্বীকৃতির তাৎপর্য

প্রতিবেদক
বাঙলা প্রতিদিন২৪.কম
জানুয়ারি ২২, ২০২৪ ৮:৫৮ অপরাহ্ণ

মেহজাবিন বানু : জাতীয় নির্বাচনে জয়লাভের পর শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ তাদের চলমান সাফল্য দেখিয়ে টানা চতুর্থবারের মতো নতুন প্রশাসন গঠন করে।

জটিল স্থানীয় ও আন্তর্জাতিক চক্রান্ত মোকাবেলা করে শেখ হাসিনা তার নেতৃত্বে অনেক সাহসিকতার পরিচয় দিয়েছেন। গত 0৭ জানুয়ারি বাংলাদেশে অনুষ্ঠিত নির্বাচনের পর ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ বিশ্বব্যাপী সম্মান অর্জন করেছে।

অনেকেই নির্বাচনকে অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও অংশগ্রহণমূলক বলে বর্ণনা করেছেন। গণতন্ত্রের প্রতি জনগণের উৎসাহকে স্বীকার করা হয়েছে। বাংলাদেশে বিদেশী মিশনের অসংখ্য প্রধানগণ গণভোটে তাদের আনন্দ প্রকাশ করেছেন এবং শেখ হাসিনাকে তার কৃতিত্বের জন্য অভিনন্দন জানিয়েছেন।

চীন, ভারত, ব্রাজিল, রাশিয়া, অস্ট্রেলিয়াসহ বেশ কিছু রাষ্ট্রপ্রধান শেখ হাসিনার নতুন প্রশাসনকে স্বাগত জানিয়েছেন। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সমর্থন এবং নবগঠিত প্রশাসনের স্বীকৃতি তাদের মনোবল বাড়িয়েছে। চীন, ভারত এবং রাশিয়ার মতো দেশগুলি হাসিনাকে তার পুনর্নির্বাচনের জন্য প্রশংসা করেছে, যা বিদেশে তাদের আত্মবিশ্বাস বাড়িয়েছে।

হাসিনাকে পুনরায় নির্বাচিত হওয়ায় অভিনন্দন জানানোর পাশাপাশি জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস শান্তিরক্ষা প্রচেষ্টা এবং টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রায় বাংলাদেশের অবদান তুলে ধরেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেসের কাছ থেকে পুনরায় নির্বাচিত হওয়ায় অভিনন্দন গ্রহণ করেন এবং দুই দেশের দৃঢ় জোটের কথা তুলে ধরেন।

তিনি রোহিঙ্গা শরণার্থীদের প্রতি বাংলাদেশের সদিচ্ছার প্রশংসা করেন এবং জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে বাংলাদেশের বড় অবদানের প্রশংসা করেন। হাসিনার প্রশাসনের প্রতি বিদেশী সম্প্রদায়ের সমর্থন বাংলাদেশের রাজনৈতিক পরিবেশের অনুকূল দৃষ্টিভঙ্গির ইঙ্গিত দেয় এবং পরামর্শ দেয় যে দেশের সাম্প্রতিক নির্বাচনের পরে মতামত পরিবর্তিত হতে পারে।

মহাসচিব আরও টেকসই এবং অন্তর্ভুক্তিমূলক ভবিষ্যতের দিকে বাংলাদেশের প্রচেষ্টার কথা স্বীকার করেন এবং টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রার (এসডিজি) প্রতি তার নিবেদনের জন্য হাসিনার প্রশংসা করেন। তিনি গ্লোবাল ক্রাইসিস রেসপন্স গ্রুপে বাংলাদেশের সক্রিয় অংশগ্রহণে তার বিশ্বাসের কথা জানান এবং বিশ্বব্যাপী সমস্যা মোকাবেলায় টিমওয়ার্কের গুরুত্বের ওপর জোর দেন।

কমনওয়েলথের সেক্রেটারি-জেনারেল প্যাট্রিসিয়া স্কটল্যান্ডও বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হওয়ার জন্য হাসিনাকে অভিনন্দন জানিয়েছেন। হাসিনার পুনঃনির্বাচিত হওয়ার পর, তিনি তার আনন্দ প্রকাশ করতে এবং কমনওয়েলথ সনদের বাস্তবায়নে সাধারণ মূল্যবোধ-শান্তি, গণতন্ত্র এবং টেকসই উন্নয়নকে তুলে ধরে তাকে চিঠি লিখেছিলেন। কমনওয়েলথে বাংলাদেশের নেতৃত্ব এবং সক্রিয় অংশগ্রহণ স্কটল্যান্ড দ্বারা স্বীকৃত হয়েছে, যা সমুদ্রের সম্পদের ব্যহার, জলবায়ু পরিবর্তন এবং ডিজিটালাইজেশন সহ সমস্যার বিষয়ে তার প্রচেষ্টাকে মূল্যায়ন করেছে।

অবশেষে, জাতিসংঘ ও কমনওয়েলথের মহাসচিবরা বলেছেন যে তারা হাসিনার পুনর্নির্বাচন এবং দুই দেশের চলমান সহযোগিতাকে সমর্থন করেন।

বিশ্ব মানচিত্রে বাংলাদেশের একটি উল্লেখযোগ্য অবস্থান রয়েছে। তার অবস্থানের কারণে শক্তিশালী দেশগুলো বাংলাদেশের দিকে তাকিয়ে আছে। বাংলাদেশের বাস্তব রাজনৈতিক পরিস্থিতির ওপর ভিত্তি করে পশ্চিমা দেশগুলো ইতিমধ্যে বাস্তবতা স্বীকার করে শেখ হাসিনা সরকারের সঙ্গে সহযোগিতা শুরু করেছে। বাংলাদেশী প্রশাসনের সাথে জড়িত হওয়া তাদের সর্বোত্তম স্বার্থকে নিশ্চিত করতে পারে ।

মহান স্বাধীনতা আন্দোলনে আমাদের সাথে যুদ্ধ করা ভারত সবসময় বন্ধুত্বের ধারণাকে সমুন্নত রেখেছে। বিশেষ করে, যদিও শেখ হাসিনার নেতৃত্বে, ভারত বাংলাদেশের সাথে তার কূটনৈতিক সম্পর্ক প্রসারিত করেছিল।

দ্বাদশ জাতীয় পরিষদ নির্বাচনের আগে, সম্ভবত যুক্তরাষ্ট্র বা ইইউ কেউই শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন প্রশাসনের সাথে সহযোগিতামূলক সম্পর্ক পুনঃপ্রতিষ্ঠা করতে আগ্রহী হবে বলে মনে হয়েছিল। এই কাল্পনিক তথ্য এবং বাস্তবতার মধ্যে বৈসাদৃশ্য অবশ্যই বুদ্ধিমান লোকদের কাছে স্পষ্ট ছিল। নির্বাচনে সংখ্যাগরিষ্ঠ আসন নিয়ে শেখ হাসিনার সরকার গঠনের ঘোষণার পর যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়নের রাষ্ট্রদূতদের পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের সঙ্গে বৈঠক থেকে যে বার্তা উঠে এসেছে তা এক কথায় চমত্কার।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ইইউ উভয়ই বাংলাদেশের সদ্য নির্বাচিত সরকার এবং জনগণের সাথে ঘনিষ্ঠভাবে সহযোগিতা করার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। বাংলাদেশ ও ইইউ শিগগিরই একটি নতুন অংশীদারি সহযোগিতা চুক্তি (পিসিএ) স্বাক্ষর করবে। এর ফলে দুই পক্ষের সম্পর্কের উন্নতি হবে।

যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে বাংলাদেশের সংযোগকে উদাহরণ হিসেবে ব্যবহার করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, অনেক বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক রয়েছে। অনেক সময় ধরে, আমরা অনেক বিষয়ে সহযোগিতা করেছি। ভবিষ্যতে, আমি এই বিষয়গুলিতে আরও যত্ন সহকারে কাজ করতে আগ্রহী। আমরা এটা স্পষ্ট করে দিয়েছি যে আমরা বাণিজ্যের উন্নতি করতে চাই, দুই দেশের মধ্যে গভীর সম্পর্ক গড়ে তুলতে চাই এবং অন্যান্য সব ক্ষেত্রে ধাপে ধাপে সহযোগিতা করতে চাই।

বাংলাদেশ যুক্তরাষ্ট্রের কাছ থেকে প্রতিরক্ষা সহায়তা পাচ্ছে। এই বিষয়ে নতুন কথোপকথনটি পররাষ্ট্রমন্ত্রী স্পষ্ট করেছেন। আমেরিকা একই সাথে তেল ও গ্যাসের জন্য বাংলাদেশের গভীর সমুদ্র অনুসন্ধানে আগ্রহী। আমেরিকার এক ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান এরই মধ্যে তেলের সন্ধান করছে। ফলে এ বিষয়ে বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে আরও আলোচনা হতে পারে।

সম্ভাবনাময় সুনীল অর্থনীতি থেকে বাংলাদেশ এখনো লাভবান হয়নি। সামুদ্রিক সম্পদ আহরণে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মতো এক বা একাধিক শক্তিশালী দেশের সরাসরি অংশগ্রহণের ফলে বাংলাদেশ খুব বেশি লাভ করলে কোনো সমস্যা থাকবে না।

এছাড়াও, আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে রোহিঙ্গা সমস্যা। পনেরো মিলিয়নেরও বেশি রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী বাংলাদেশের অর্থনীতির বোঝা। বাংলাদেশ প্রায়ই রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে যুক্তরাষ্ট্রের সহায়তা চেয়েছে। যে বিষয়টি এখন পুনর্বিবেচনা করা হয়েছে তা অবশ্যই সঠিক একটি পদক্ষেপ।

যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশের প্রধান রপ্তানি গন্তব্য। জো বাইডেন প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হলে ইউএস-বাংলাদেশের সম্পর্ক আরও বাড়বে বলে অনুমানকারীরা অনুমান করেছিলেন। সরকারী নীতি আধিকারিকরা বিশ্বাস করেন যে তারা জলবায়ু পরিবর্তন, এবং রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনের মতো ভবিষ্যতের ভাগ করা উদ্বেগের বিষয়ে সহযোগিতার জন্য নতুন উপায় তৈরির সম্ভাবনা অন্বেষণ করতে চান।

বাংলাদেশের সাথে আরও সহযোগিতার সুযোগ রয়েছে, যেমনটি ১৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮, ওয়াশিংটন, ডিসি, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং বাংলাদেশ সরকারের মধ্যে চার বছর মেয়াদী বাণিজ্য ও বিনিয়োগ সহযোগিতা ফোরাম চুক্তি (টিআইসিএফএ) এর বৈঠকে দেখানো হয়েছে। বাংলাদেশের সাথে যুক্তরাষ্ট্রেকাজ করার পুরোপুরি সুযোগ এখন আবারও এসেছে।

“সবার সাথে বন্ধুত্ব, কারো সাথে শত্রুতা নয়” বাংলাদেশের পররাষ্ট্র নীতির কথা মাথায় রেখে বর্তমান মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ইইউর বাংলাদেশের সাথে সম্প্র্ক উন্নয়ন নিঃসন্দেহে সুবিধাজনক। এই জাতির জনগণ আশা করে যে অদূর ভবিষ্যতে, বাণিজ্য ও বিনিয়োগের নতুন পথের বিকাশ ঘটবে।

সর্বশেষ - খবর

আপনার জন্য নির্বাচিত

কৃষি খাতে বরাদ্দ ২৫ হাজার কোটি টাকা

ফেনীতে জাসদের চট্টগ্রাম বিভাগীয় প্রতিনিধি সভা অনুষ্ঠিত

১৫ বছর ধরে টিভি ব্র্যান্ড স্যামসাং নিয়ে এলো নিও কিউএলইডি ৮কে টিভি

জাতীয় ঈদগাহে ডেপুটি স্পিকারের জানাজা অনুষ্ঠিত

প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচ টি ইমামের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শোক

‘ওয়ার্ল্ড হাইপারটেনশন ডে : উচ্চরক্ত চাপ কমাই, দীর্ঘজীবন বাঁচাই

জাতির পিতার জীবন আদর্শ থেকে তরুণদের শিক্ষা নেওয়ার আহ্বান বিডিইউ উপাচার্যের

ডিবিএইচ ফাইন্যান্সের ইজিএম অনুষ্ঠিত

দুটি উপজেলা ও দুটি পৌরসভাসহ স্থানীয়সরকারের ৮০ পদে নির্বাচন আজ

গফরগাঁও প্রেসক্লাবের সভাপতি বিপ্লব ও সম্পাদক সবুজ

ব্রেকিং নিউজ :