300X70
রবিবার , ২৬ মে ২০২৪ | ৩রা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অপরাধ ও দূর্নীতি
  2. আইন ও আদালত
  3. আনন্দ ঘর
  4. আনন্দ ভ্রমন
  5. আবহাওয়া
  6. আলোচিত খবর
  7. উন্নয়নে বাংলাদেশ
  8. এছাড়াও
  9. কবি-সাহিত্য
  10. কৃষিজীব বৈচিত্র
  11. ক্যাম্পাস
  12. খবর
  13. খুলনা
  14. খেলা
  15. চট্টগ্রাম

পায়রা-মোংলায় ৭ নম্বর বিপদ সংকেত

প্রতিবেদক
বাঙলা প্রতিদিন২৪.কম
মে ২৬, ২০২৪ ১:২৩ পূর্বাহ্ণ

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্টি হওয়া ঘূর্ণিঝড় রেমালের প্রভাবে দেশের চারটি সমুদ্র বন্দরের ওপর সতর্ক সংকেত বাড়ানো
বাঙলা প্রতিদিন ডেস্ক : বঙ্গোপসাগরে সৃষ্টি হওয়া ঘূর্ণিঝড় রেমালের প্রভাবে দেশের চারটি সমুদ্র বন্দরের ওপর সতর্ক সংকেত বাড়ানো হয়েছে।

এর মধ্যে মোংলা ও পায়রা সমুদ্র বন্দরে ৭ নম্বর বিপদ সংকেত এবং চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার সমুদ্র বন্দরে ৬ নম্বর বিপদ সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। শনিবার (২৫ মে) রাতে আবহাওয়া অধিদপ্তরের ওয়েবসাইটে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

এর আগে বাংলাদেশ ওয়েদার অবজারভেশন টিম (বিডব্লিউওটি) জানায়, বঙ্গোপসাগরে অবস্থান করা গভীর নিম্নচাপটি সন্ধ্যা ৭টা ১০ মিনিটে ঘূর্ণিঝড় রেমালে পরিণত হয়েছে। যা সর্বোচ্চ ক্যাটাগরি-১ শক্তিমাত্রার ঝড় হিসেবে ২৬ মে দিবাগত রাত থেকে ২৭ মে সকালের মধ্যে উপকূল অতিক্রম করতে পারে।

অন্যদিকে বিজ্ঞপ্তিতে আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে, পূর্ব মধ্য বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থান করা গভীর নিম্নচাপটি ঘূর্ণিঝড় রেমালে পরিণত হয়েছে।

ঘূর্ণিঝড়টি সন্ধ্যা ছয়টায় পায়রা সমুদ্র বন্দর থেকে ৩৬৫ কিলোমিটার, মোংলা থেকে ৪০৫ কিলোমিটার, কক্সবাজার থেকে ৪০০ কিলোমিটার এবং চট্টগ্রাম সমুদ্র বন্দর থেকে ৪৫৫ কিলোমিটার দূরে অবস্থান করছিল।

ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে উপকূলীয় এলাকায় স্বাভাবিকের চেয়ে ৩-৫ ফুট জলোচ্ছ্বাসের আশঙ্কা করা হচ্ছে। পাশাপাশি ৮টি বিভাগে অতি ভারী বর্ষণ হতে পারে বলেও বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

উপকূলের আকাশে মেঘ ও চাঁদের লুকোচুরি : বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ভারী নিম্নচাপটি ঘূর্ণিঝড় রেমালে রূপান্তর হয়েছে। এ অবস্থায় শনিবার রাত ৯টার দিকে মোংলা ও তৎসংলগ্ন এলাকায় ৭ নম্বর বিপদ সংকেত জারি করেছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

এদিন বিকেল থেকে উপকূলের বিভিন্ন এলাকায় ঝড়ো হাওয়াসহ কালো মেঘের আধিক্য দেখা গেছে।

সন্ধ্যার পর কোথাও কোথাও বিচ্ছিন্নভাবে বৃষ্টি হলেও রাতে আকাশে চাঁদ দেখা গেছে। শনিবার রাত ১১টার দিকে বাগেরহাটের আকাশে কালো মেঘ সরে গিয়ে চাঁদ দেখা যায়।

রামপালের বাসিন্দা শেখ হাবিব বলেন, বিকেল থেকে কালো মেঘ দেখেছি। সন্ধ্যার দিকে দমকা বাতাস হয়ে কিছুক্ষণ বৃষ্টি হয়েছে। থেমে থেমে কয়েকবার বৃষ্টি হওয়ার পর এখন দেখছি চাঁদ উঠেছে। কিছুক্ষণ পরপর চাঁদ ও মেঘের লুকোচুরি দেখা যাচ্ছে।

বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তরের মোংলা আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগারের ইনচার্জ হারুন অর রশিদ বলেন, বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় রেমাল ক্রমেই উপকূলের দিকে অগ্রসর হচ্ছে। বর্তমানে ৭ নম্বর বিপদ সংকেত জারি করা হয়েছে। রাতের ভেতরেই উপকূলে ঝড়-বৃষ্টির আশঙ্কা রয়েছে।

আগামীকাল সন্ধ্যা নাগাদ ঘূর্ণিঝড়টি উপকূল অতিক্রম করার কথা রয়েছে বলেও জানান তিনি।

বাগেরহাটের জেলা প্রশাসক মোহা. খালিদ হোসেন বলেন, ঘূর্ণিঝড় রেমাল মোকাবিলায় জেলায় মোট ৩৫৯টি আশ্রয়কেন্দ্র প্রস্তুত করা হয়েছে। ঘূর্ণিঝড়টি রোববার সন্ধ্যা নাগাদ বাগেরহাট উপকূলে আঘাত হানতে পারে। রোববার দুপুরের ভেতর সবাই যেন আশ্রয়কেন্দ্রে যায় সে লক্ষ্যে মাইকিং করে আহ্বান জানানো হচ্ছে।

এ ছাড়া নগদ অর্থ, শুকনো খাবার ও ওষুধ প্রস্তুত রাখা হয়েছে। সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নিজ নিজ কর্মস্থলে থাকার জন্য বলা হয়েছে। ইতোমধ্যে জেলা-উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যায়ে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির সভা হয়েছে।

সর্বশেষ - খবর

ব্রেকিং নিউজ :