300X70
বৃহস্পতিবার , ২ মে ২০২৪ | ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অপরাধ ও দূর্নীতি
  2. আইন ও আদালত
  3. আনন্দ ঘর
  4. আনন্দ ভ্রমন
  5. আবহাওয়া
  6. আলোচিত খবর
  7. উন্নয়নে বাংলাদেশ
  8. এছাড়াও
  9. কবি-সাহিত্য
  10. কৃষিজীব বৈচিত্র
  11. ক্যাম্পাস
  12. খবর
  13. খুলনা
  14. খেলা
  15. চট্টগ্রাম

বজ্রপাতে পাঁচ জেলায় প্রাণ গেল ১১ জনের

প্রতিবেদক
বাঙলা প্রতিদিন২৪.কম
মে ২, ২০২৪ ৯:০৬ অপরাহ্ণ

বজ্রপাতে কক্সবাজারে দুই লবণ চাষি, রাঙামাটিতে দুই নারীসহ তিনজন, খাগড়াছড়িতে এক কিশোর, সিলেটে এক কৃষক এবং কুমিল্লার বিভিন্ন উপজেলায় চারজনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে।
বাঙলা প্রতিদিন ডেস্ক : দেশের চার জেলায় বজ্রপাতে নারীসহ সাতজনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে কক্সবাজারে দুই, রাঙামাটিতে তিন, খাগড়াছড়িতে একজন, সিলেটে একজন ও কুমিল্লায় চার জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। আজ বৃহস্পতিবার (২ মে) ভোর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত এসব ঘটনা ঘটে।

কক্সবাজার প্রতিনিধি জানান, কক্সবাজারের পেকুয়া উপজেলার দুই ইউনিয়নে বৃষ্টি থেকে লবণ রা করতে গিয়ে বজ্রপাতে দুই চাষির মৃত্যু হয়েছে।
নিহতরা হলেন- উপজেলার মগনামা ইউনিয়নের কোদাইল্লাদিয়া এলাকার জমির হোসেনের ছেলে মো. দিদার হোসেন (২৫) এবং রাজাখালী ইউনিয়নের ছড়িপাড়ার জামাল উদ্দিনের ছেলে আরাফাতুর রহমান (১৩)।

স্থানীয়দের বরাতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. সাইফুল ইসলাম জয় বলেন, ভোর থেকে পেকুয়ায় থেমে থেমে বজ্রপাতসহ গুড়ি গুড়ি বৃষ্টিপাত শুরু হয়। এ সময় বৃষ্টি থেকে রা করতে মাঠে থাকা লবণ পলিথিনে ঢেকে রাখতে যান দিদার হোসেনসহ পরিবারের আরও ২-৩ জন। এক পর্যায়ে বজ্রপাতে ঘটনাস্থলেই মারা যান দিদার।

তিনি বলেন, প্রায় একই সময়ে রাজাখালী ইউনিয়নের ছড়িপাড়ায় পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে নিয়ে বৃষ্টি থেকে লবণ রা করতে গিয়েছিলেন কিশোর আরাফাতুর রহমান। তিনিও একইভাবে বজ্রপাতে প্রাণ হারিয়েছেন। মৃতদের লাশ স্বজনরা বাড়ি নিয়ে গেছে বলেও জানান পেকুয়ার ইউএনও।

রাঙামাটি প্রতিনিধি জানান, রাঙামাটির সদর ও বাঘাইছড়ি উপজেলায় বজ্রপাতে তিনজনের মৃত্যু হয়েছে; এ সময় আরো অন্তত সাতজন আহত হয়েছেন।

নিহতরা হলেন- শহরের সিলেটি পাড়ার বাসিন্দা মো. নজির (৫০) এবং বাঘাইছড়ি উপজেলার রূপাকারী ইউনিয়নের মুসলিম ব্লক এলাকার বাসিন্দা বাহারজান বেগম (৫৫) এবং সাজেকের লংথিয়ান পাড়ার তনিবালা ত্রিপুরা (৩৭)।
রূপকারী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জ্যাসমিন চাকমা বলেন, ইউনিয়নের ৭নম্বর ওয়ার্ডের মুসলিম ব্লক এলাকার লাল মিয়ার স্ত্রী বাহারজান বেগম গরু আনতে গিয়ে বজ্রপাতে মারা যান ।

বাঘাইছড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শিরীন আক্তার বলেন, “অনেক দিন পর আজ সকালে বজ্রপাতসহ বৃষ্টি হয়। এতে রূপাকারী ইউনিয়নে বাহারজান নামে একজন এবং সাজেকে তনিবালা ত্রিপুরা নামের আরেক নারী নিহত হয়।”
উপজেলা প্রশাসনের প থেকে নিহতদের পরিবারকে ১০ হাজার টাকা করে আর্থিক সহায়তা দেওয়া হয়েছে বলে জানান ইউএনও।

তিনি বলেন, এ ছাড়া সকাল সাড়ে ৯টার দিকে উপজেলার একটি চায়ের দোকানে বসে আড্ডা দেয়ার সময় বজ্রপাতে সাতজন আহত হয়েছেন।
রাঙামাটি জেনারেল হাসপাতালের চিকিৎসক শওকত আকবর বলেন, সকালে শহরের সিলেটি পাড়া থেকে নজিরকে হাসপাতালে আনা হয়। তিনি বজ্রপাতে নিহত হয়েছেন।

খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি জানান, খাগড়াছড়িক মাটিরাঙ্গা উপজেলায় বৃষ্টির মধ্যে আম কুড়াতে গিয়ে বজ্রপাতে এক কিশোরের মৃত্যু হয়েছে। নিহত ইয়াছিন আরাফাত উপজেলার বড়নাল ইউনিয়নের ৯নম্বর ওয়ার্ডের ইব্রাহিম পাড়ার বাসিন্দা ইউসুফ মিয়ার ছেলে।
স্বজনদের বরাতে বড়নাল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ইলিয়াস হোসেন বলেন, বৃষ্টির সময় উঠানের পাশেই আম কুড়াতে যায় দুই ভাই। এ সময় আকস্মিক বজ্রপাতে ছোট ভাই প্রাণে বেঁচে গেলেও বড় ভাই ইয়াছিন আরাফাত ঘটনাস্থলেই মারা যায়।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ডেজী চক্রবর্তী বলেন, নিহতের পরিবারকে আর্থিক সহায়তা দেওয়া হবে।

সিলেট প্রতিনিধি জানান, সিলেটের কানাইঘাট উপজেলায় বোরো ধান কাটাতে গিয়ে বজ্রপাতে এক কৃষকের মৃত্যু হয়েছে; এ সময় আরও দুইজন গুরুতর আহত হয়েছেন।
নিহত বাবুল আহমদ (৪৮) উপজেলার দণি কুয়রেরমাটি গ্রামের বাসিন্দা। আহতরা হলেন- নিহত বাবুলের ভাতিজা ফাহিম আহমদ (১৭) ও মানিকপুর গ্রামের বাবু বিশ্বাসের ছেলে প্রদীপ বিশ্বাস (২০)।

স্থানীয়দের বরাতে কানাইঘাট থানার ওসি মো. জাবেদ মাসুম বলেন, দুপুরে ভাতিজা ফাহিম আহমদ ও প্রদীপ বিশ্বাসকে নিয়ে বাবুল আহমদ স্থানীয় শফিক হাওরে বর্গা জমিতে বোরো ধান কাটতে যান। এ সময় হঠাৎ ঝড়-বৃষ্টি শুরু হলে বজ্রপাতে তারা গুরুত্ব আহত হন। পরে তাদেরকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে চিকিৎসক বাবুল আহমদকে মৃত ঘোষণা করেন।
লাশ আইনি প্রক্রিয়া শেষে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে; আহতদের উদ্ধার করে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে বলে জানান ওসি।

কুমিল্লা প্রতিনিধি জানান, কুমিল্লার বিভিন্ন উপজেলায় বজ্রপাতে চারজনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। আজ বৃহস্পতিবার (২ মে) বিকেল ৫টা থেকে সাড়ে ৫টার মধ্যে এসব ঘটনা ঘটে।
মৃত ব্যক্তিরা হলেন জেলার সদর দণি উপজেলার সূর্যনগর গ্রামের আতিকুল ইসলাম (৫০) নামে এক ব্যক্তি। চান্দিনার কিছমত শ্রীমন্তপুর গ্রামে ধান কাটতে গিয়ে মারা যান দৌলতুর রহমান (৪৭) নামে এক কৃষক। বুড়িচংয়ের পাঁচোড়া নোয়াপাড়া গ্রামে আলম হোসেন নামে এক যুবক এবং দেবিদ্বারে ধামতী গ্রামে মোখলেসুর রহমান (৫৮) নামে আরও এক ব্যক্তি মারা যান।
কুমিল্লার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) পঙ্কজ বড়ুয়া জানান, আমরা বিপ্তিভাবে বজ্রপাতে মৃত্যুর সংবাদ পাচ্ছি। সঠিক সংখ্যা জানতে আরও সময় লাগবে।

সর্বশেষ - খবর

আপনার জন্য নির্বাচিত

ফের দুঃসংবাদ পেলেন ইমরান খান, এবার বিশেষ সহকারীর পদত্যাগ ঘোষণা

ভারত ও মালদ্বীপ ন্যাশনাল ক্যাডেট কোর কর্মকর্তা ও ক্যাডেটদের বঙ্গবন্ধু প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পন

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভাংচুরের প্রতিবাদে আওয়ামী লীগের বিক্ষোভ

রাষ্ট্রপতির সঙ্গে জাতীয় সংসদে প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাৎ

মাত্র ১০ হাজার টাকায় চমক সিম্ফনির ‘জেড৩০ প্রো’ তে

ময়মনসিংহে শেখ হাসিনার জনসভা জনসমুদ্রে পরিণত হবে: শেখ পরশ

ন্যাশনাল ডিফেন্স কোর্স ও আর্মড ফোর্সেস ওয়ার কোর্স গ্র্যাজুয়েশন ডিনার সম্পন্ন

খালেদা-নিজামির গনতন্ত্র হত্যার প্রহসনের নির্বাচনের প্রতিবাদে কৃষকলীগের সমাবেশ 

ঢাকায় আসছেন ব্যাংক অফ সিলন-এর চেয়ারম্যান জয়াবর্ধন

বঙ্গবন্ধু’র স্বপ্ন ছিলো অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ : তথ্য প্রতিমন্ত্রী

ব্রেকিং নিউজ :