300X70
মঙ্গলবার , ৩১ অক্টোবর ২০২৩ | ৬ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অপরাধ ও দূর্নীতি
  2. আইন ও আদালত
  3. আনন্দ ঘর
  4. আনন্দ ভ্রমন
  5. আবহাওয়া
  6. আলোচিত খবর
  7. উন্নয়নে বাংলাদেশ
  8. এছাড়াও
  9. কবি-সাহিত্য
  10. কৃষিজীব বৈচিত্র
  11. ক্যাম্পাস
  12. খবর
  13. খুলনা
  14. খেলা
  15. চট্টগ্রাম

বাংলাদেশের চলমান উন্নয়ন প্রক্রিয়ায় বঙ্গবন্ধু টানেলের তাৎপর্য

প্রতিবেদক
বাঙলা প্রতিদিন২৪.কম
অক্টোবর ৩১, ২০২৩ ১:০২ পূর্বাহ্ণ

অনুপ সিনহা : ২৮ অক্টোবর মহান জাতীয় গর্বের আধুনিক পরিবহন ব্যবস্থা বঙ্গবন্ধু টানেল উদ্বোধন করা হয়। এটি একটি সুড়ঙ্গের চেয়েও বেশি কিছু – এটি দেশপ্রেম এবং জাতীয় গর্বের প্রতীক। বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ এই স্বপ্নের টানেল নির্মাণের জন্য।

তার অদম্য আবেগ, নির্ভীকতা এবং নিরলস প্রবৃদ্ধির মনোভাব দেশকে কর্ণফুলী নদীর তলদেশে সর্বাধুনিক সুড়ঙ্গ উপহার দিয়েছে। এই সুড়ঙ্গটি দক্ষতা এবং আত্মবিশ্বাসের প্রতিনিধিত্ব করে।

২০১৬ সালের ১৪ অক্টোবর বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী ও চীনের প্রেসিডেন্ট এই টানেলের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন, যা বাংলাদেশে প্রথম এবং দক্ষিণ এশিয়ার দীর্ঘতম। ২০১৯ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি বঙ্গবন্ধু টানেলের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এটি যোগাযোগ ব্যবস্থার আরেকটি মাইলফলক। বাংলাদেশ দক্ষিণ এশিয়ার প্রথম নদী টানেল নির্মাণ করে। ভারতীয় ল্যান্ড টানেলগুলি নদীর নীচে অবস্থিত। এখনো টানেল নেই। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাহসী ও কল্পনাপ্রসূত উদ্যোগের কারণে পদ্মা সেতুর পর নির্মিত হয় ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান টানেল’।

চীনের সবচেয়ে বড় ও জনবহুল শহর সাংহাই। হুয়াংপু নদী, একটি চাংজিয়াং নদীর উপনদী, সাংহাইকে বিভক্ত করেছে। নদীর তলদেশে সুড়ঙ্গগুলি তীরকে সংযুক্ত করে।

বিশ্ব এখন সাংহাইকে ‘ওয়ান সিটি টু টাউন’ বলে ডাকে। সাংহাই বিশ্বের বৃহত্তম এবং ব্যস্ততম সমুদ্র বন্দর। বাংলাদেশের সর্ববৃহৎ সামুদ্রিক বন্দর চট্টগ্রাম। কর্ণফুলী নদী চট্টগ্রামকে সাংহাইয়ের মতো আলাদা করেছে। সাংহাইয়ের মতো ‘ওয়ান সিটি টু টাউন’ নির্মাণে কর্ণফুলী নদীর চারপাশে ড্রিম টানেল তৈরি করা হয়েছে।

এই সুড়ঙ্গটি সরকারী শাসনকেও উপকৃত করবে। মানবপ্রেমী জনকল্যাণমুখী ভালো শাসক না থাকলে কার্যকর প্রশাসন অসম্ভব। স্বপ্নদ্রষ্টা জাতির পিতার কন্যা। এর উদ্বোধন একটি আনন্দদায়ক এবং উত্তেজনাপূর্ণ ইভেন্ট। দেশব্যাপী হাসির দিন।

উন্নয়ন দর্শনের লক্ষ্য মানুষের কল্যাণকে সর্বাধিক করা। বঙ্গবন্ধু টানেল নিয়ে সরকার গর্বিত। সুড়ঙ্গটি চীনের সাংহাইয়ের মতো নদীর তীরকে সংযুক্ত করবে। টানেলের দৈর্ঘ্য ৩.৩২ কিলোমিটার। সুড়ঙ্গটি নদীর ১৮-৩১ মিটার নীচে অবস্থিত। পাস করতে ৩-৩.৫ মিনিট সময় লাগবে। সুড়ঙ্গে গাড়িগুলি ৮০ কিলোমিটার / ঘন্টা পৌঁছাতে পারে।

বঙ্গবন্ধু টানেলের মাধ্যমে কক্সবাজার-চট্টগ্রাম রুট ৪০ কিলোমিটার কমে যাবে। কক্সবাজার ও দক্ষিণ চট্টগ্রামের গাড়িগুলো চট্টগ্রামকে বাইপাস করে টানেলর মাধ্যমে সারা দেশে যেতে পারবে। এতে চট্টগ্রামের যানজট উল্লেখযোগ্য ভাবে কমে যাবে।

দেশি-বিদেশি বিনিয়োগকারীরা কক্সবাজারের মহেশখালী উপজেলার মাতারবাড়িতে কয়লাভিত্তিক তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র ও এলএনজি স্টেশন নির্মাণ করছে। টানেলটি বিদেশী বিনিয়োগ এবং উল্লেখযোগ্য উন্নয়ন প্রকল্পগুলিকে বাড়িয়ে তুলবে।

যোগাযোগ বিশেষজ্ঞরা বলছেন, টানেলটি চালু হলে তা ‘এক শহরে দুই শহর’ এবং কর্ণফুলী নদীর তলদেশে একটি করিডোরে পরিণত হবে। বঙ্গবন্ধু টানেল চালু হলে অর্থনৈতিক বিপ্লব, দক্ষিণ চট্টগ্রামের শিল্প-কারখানা এবং সম্ভাবনাময় শিল্পাঞ্চল গভীর সমুদ্রবন্দরের কার্যক্রম ত্বরান্বিত করবে।

চট্টগ্রাম-কক্সবাজার-টেকনাফ-সেন্টমার্টিন-মাউন্টেন ট্যুরিজমের পুরোটাই এই টানেলের ওপর আবর্তিত হবে। কর্মসংস্থান সৃষ্টি, দারিদ্র্য বিমোচনসহ বিভিন্ন কর্মকাণ্ডে উল্লেখযোগ্য পরিবর্তনের আশা থাকবে। অর্থনীতিবিদরা মনে করেন, বঙ্গবন্ধু টানেল জিডিপি বাড়াবে। সব মিলিয়ে বঙ্গবন্ধু টানেল বাংলাদেশের সমৃদ্ধ ভবিষ্যতের প্রতিনিধিত্ব করবে।

দক্ষিণ চট্টগ্রামের সঙ্গে একটি সেতুর দীর্ঘদিনের প্রয়োজন ছিল। কর্ণফুলী টানেল নির্মাণ অবস্থান অনুযায়ী ন্যায়সঙ্গত। টানেলটি বাংলাদেশের সবচেয়ে খরস্রোতা নদী কর্ণফুলীর মুখের কাছে নির্মিত হয়েছে। বাকি তিনটি সেতু কর্ণফুলী নদীর উজানে হওয়ায় পানির গতিবেগ সামান্য।

যাইহোক, মোহনায় প্রচণ্ড বেগ রয়েছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, প্রবল স্রোতের কারণে সেতুর সাপোর্ট ভেঙে গেছে। কর্ণফুলী নদীর মোহনায় নির্মিত একটি সেতু ঝুঁকিপূর্ণ কারণ পানি সাপোর্টের নিচ থেকে ময়লা সরিয়ে নিতে পারে। সেতুর পলি জমে যাওয়ার ঘটনাও ঘটে।

নির্মাণের কারণে নদীর নাব্যতা হারিয়ে যায়। বাংলাদেশের প্রধান সমুদ্রবন্দর চট্টগ্রাম বন্দর তখন হুমকির মুখে ছিল। ভবিষ্যতের অসুবিধাগুলি মোকাবেলার জন্য সেতুর পরিবর্তে সুড়ঙ্গ ব্যবহার করা হয়েছে।

২০০৮ সালে চট্টগ্রামের লালদীঘি ময়দানে এক জনসভায় আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা টানেল নির্মাণের অঙ্গীকার করেন। তিনি নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার পরে সুড়ঙ্গ নির্মাণ শুরু করেছিলেন। এছাড়া ২০১৪ সালের জুনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার চীন সফরের সময় বাংলাদেশ কর্ণফুলী নদীর তলদেশে টানেল নির্মাণের অনুরোধ জানায়। চীনে একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়েছে।

২০১৬ সালের অক্টোবরে চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং বাংলাদেশে এই প্রকল্পের উদ্বোধন করেন। ২০১৭ সালের নভেম্বরে চীনের এক্সিম ব্যাংক থেকে ঋণ নেওয়া হয়। ২০১৯ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা টানেলের প্রাথমিক কাজ উদ্বোধন করেন। ৯.৩ কিলোমিটার সুড়ঙ্গটি নদীর ৩.৫ কিলোমিটার নীচে অবস্থিত। দুটি টিউব ৩৬-১০৮ ফুট গভীরে স্থাপন করা হয়।

চার লেনে ১৮-৩১ মিটার গতিতে যানবাহন চলাচল করবে। বাংলাদেশ সরকার প্রকল্পের ব্যয়ের ৪০ শতাংশ এবং চীনের এক্সিম ব্যাংক ৬০ শতাংশ অর্থায়ন করবে।

বর্তমান সরকারের একটি চট্টগ্রাম মাস্টার প্ল্যান রয়েছে। একটি আধুনিক, নিরবচ্ছিন্ন যোগাযোগ অবকাঠামো প্রদানের জন্য চট্টগ্রামে একটি টানেল নির্মাণের পরিকল্পনা রয়েছে। এই টিউব চট্টগ্রামের যোগাযোগ অবকাঠামোকে শক্তিশালী করবে। পূর্ব এবং পশ্চিম প্রান্ত সংযুক্ত, তাই ভ্রমণের সময় এবং অর্থ নেওয়া হয়। এটি সাশ্রয়ী হবে।

প্রাচ্যের শিল্পপণ্য সহজেই চট্টগ্রাম বন্দর, বিমানবন্দর এবং অন্যান্য অঞ্চলে পরিবহন করা যেতে পারে। পর্যটন কেন্দ্র কক্সবাজার, পার্বত্য বান্দরবান এবং দক্ষিণ চট্টগ্রাম দেশব্যাপী ভ্রমণকে সহজ করে তোলে। ঢাকা বা অন্য কোথাও থেকে কক্সবাজার ও দক্ষিণ চট্টগ্রাম ঘুরে আসুন।

বন্দর নগরীতে প্রবেশ অপ্রয়োজনীয়। কর্ণফুলী নদীর ওপর শাহ আমানত সেতুসহ তিনটি সেতু অতিক্রম করতে হবে। টানেলটি যেহেতু চট্টগ্রামের বাইরে অবস্থিত, তাই যান চলাচল অনেক হালকা হবে। টানেলের মধ্য দিয়ে চট্টগ্রাম বাইপাস দ্রুত আসে।

দক্ষিণ-পূর্ব আনোয়ারা টানেল আউটলেটটি পটিয়া হয়ে কক্সবাজার জাতীয় মহাসড়ক রোড-১ এর সাথে সংযুক্ত। বাঁশখালী-পেকুয়া-চকরিয়া হয়ে কক্সবাজার পর্যন্ত আরেকটি রুট সম্প্রসারণ করা হলে চট্টগ্রাম ৩৫-৪০ কিলোমিটার কাছাকাছি হবে।

টানেলটি পতেঙ্গা থেকে ৩ কিলোমিটার এবং ১৫ কিলোমিটার দূরে বিমানবন্দর ও বন্দর ব্যবহার করা সহজ করে তোলে। চট্টগ্রামের মিরসরাই থেকে কক্সবাজার পর্যন্ত সামুদ্রিক সড়ক নির্মাণ করা হচ্ছে। তৈরি করা হয়েছে।

সরকার চায় চট্টগ্রাম একটি বৈশ্বিক বাণিজ্য কেন্দ্র হয়ে উঠুক। আঞ্চলিকভাবে নির্মিত ক্রমাগত যোগাযোগ অবকাঠামোর কোনও বিকল্প নেই। এর জন্য প্রাথমিকভাবে যোগাযোগ অবকাঠামো প্রয়োজন। পণ্য পরিবহনের জন্য, গুরুত্বপূর্ণ অর্থনৈতিক করিডোরগুলির মধ্যে দূরত্ব হ্রাস করুন।

বঙ্গবন্ধু টানেল বন্দর এটি অর্থনৈতিক অঞ্চলগুলোকে বিমানবন্দর-জোনের যোগাযোগ বজায় রাখতে সহায়তা করবে। ভারত-নেপাল-ভুটান দ্রুত চট্টগ্রাম বন্দর থেকে তাদের দেশে পণ্য পরিবহন করতে পারে।

মাতারবাড়ী গভীর সমুদ্র বন্দর, বিদ্যুৎ কেন্দ্র, এলএমজি টার্মিনাল, এলজিপি টার্মিনাল, তেল টার্মিনাল, গ্যাস ট্রান্সমিশন, সিঙ্গেল পয়েন্ট মুরিং প্রকল্প, তেল শোধনাগার, জ্বালানি ও খাদ্য সংরক্ষণ, পর্যটন এবং কোরিয়া ও চীন অর্থনৈতিক অঞ্চলের সাথে উন্নত যোগাযোগ উন্নয়নাধীন রয়েছে।

বঙ্গবন্ধু টানেল থেকে পর্যটন ব্যাপকভাবে উপকৃত হবে। পতেঙ্গা সৈকত ও আনোয়ারা পার্কিং বিচ দর্শনার্থীদের আকৃষ্ট করবে। টানেলের কারণে পতেঙ্গা থেকে আনোয়ারা যেতে সময় লাগবে ৪ ঘণ্টার পরিবর্তে ২০-৩০ মিনিট।

মেরিন ড্রাইভ ও টানেলকে ঘিরে থাকবে ফৌজদারহাট-পতেঙ্গা পর্যটন কেন্দ্র। এছাড়া কক্সবাজারের সোনাদিয়া ইকো ট্যুরিজম পার্ক, টেকনাফের শাবরাং ট্যুরিজম ও নাফ ট্যুরিজমের প্রসার ঘটবে।

টানেলের মাধ্যমে ঢাকা-চট্টগ্রাম-কক্সবাজার সংযোগকারী অত্যাধুনিক স্মার্ট যোগাযোগ ব্যবস্থা গড়ে তোলা হবে। এশিয়ান হাইওয়ের সাথে সংযোগের ফলে মায়ানমার-বাংলাদেশ-ভারত পণ্য পরিবহন সংযোগ সহজতর হবে। শিল্পায়ন ব্যাপক কর্মসংস্থান সৃষ্টি করবে। জাতি আর্থ-সামাজিকভাবে সমৃদ্ধ হবে এবং দারিদ্র্য বিমোচন করবে। অর্থনীতি ব্যাপক সম্প্রসারণ দেশের অর্থনীতিতে প্রভাব ফেলবে।

প্রবাদ অনুসারে, স্বপ্নের জন্য সাহস প্রয়োজন। বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার সব আশা-আকাঙ্ক্ষা বাস্তবায়িত হচ্ছে। পদ্মা সেতু, মেট্রোরেল, এলিভেটেড মোটরওয়ে, বঙ্গবন্ধু টানেলের পর কানেকটিভিটি সিস্টেম সম্প্রসারিত হয়েছে। শেখ হাসিনা সম্ভাবনার কথা তুলে ধরেন। সুড়ঙ্গটি বাংলাদেশের গর্ব ও আত্মমর্যাদার প্রতিনিধিত্ব করে।
লেখক : গবেষক ও কলামিস্ট।

সর্বশেষ - খবর

আপনার জন্য নির্বাচিত

এক লাখ বানর চীনে পাঠাতে চায় শ্রীলঙ্কা

মাকে ৫ টুকরো করে হত্যায় ছেলেসহ ৭ জনের ফাঁসি

চরকি ও বঙ্গবিডি’র সাবস্ক্রিপশনে বিকাশ পেমেন্টে ৫০% ক্যাশব্যাক

যেসব নতুন ফিচার থাকছে উইন্ডোজ-১১ তে

বিদেশে বসে দেশবিরোধী ষড়যন্ত্রকারীদের বিরুদ্ধে সোচ্চার হোন

বঙ্গবন্ধুর হাত ধরে বাংলাদেশে নারী অধিকার ও নারীর ক্ষমতায়নের প্রক্রিয়া শুরু হয় : এনামুল হক শামীম

জামালপুরে নিখোঁজ মাদ্রাসার ৩ শিক্ষার্থী ঢাকায় উদ্ধার

বেপজা বৈচিত্র্যময় পণ্য উৎপাদনে ৫.৭৪ মিলিয়ন মার্কিন ডলার বিনিয়োগ

এডিস মশার লার্ভা: ডিএনসিসিতে ২৮টি মামলায় ৫ লক্ষ ৪৭ হাজার টাকা জরিমানা

এসএসসি ও এইচএসসির সংক্ষিপ্ত পাঠ্যসূচি-২০২২ প্রকাশ