300X70
বৃহস্পতিবার , ৭ মার্চ ২০২৪ | ৮ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অপরাধ ও দূর্নীতি
  2. আইন ও আদালত
  3. আনন্দ ঘর
  4. আনন্দ ভ্রমন
  5. আবহাওয়া
  6. আলোচিত খবর
  7. উন্নয়নে বাংলাদেশ
  8. এছাড়াও
  9. কবি-সাহিত্য
  10. কৃষিজীব বৈচিত্র
  11. ক্যাম্পাস
  12. খবর
  13. খুলনা
  14. খেলা
  15. চট্টগ্রাম

বাংলাদেশের চিকিৎসকদের মান পৃথিবীর কোন দেশ থেকেই কম নয় : স্বাস্থ্যমন্ত্রী

প্রতিবেদক
বাঙলা প্রতিদিন২৪.কম
মার্চ ৭, ২০২৪ ৮:২৬ অপরাহ্ণ

# চিকিৎসাক্ষেত্রে বাংলাদেশ অপার সম্ভাবনার দেশ
বাঙলা প্রতিদিন ডেস্ক : স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী ডা. সামন্ত লাল সেন বলেছেন, কোয়ালিটি ডাক্তার সংখ্যায় কম বের হলেও সমস্যা নেই। আপনারা কোয়ান্টিটি দেখবেন না, দেখবেন কোয়ালিটির দিকে।
স্বাস্থ্য মন্ত্রী বলেন, “চিকিৎসাক্ষেত্রে বাংলাদেশ অপার সম্ভাবনার দেশ। এই সম্ভাবনাকে ঠিকভাবে কাজে না লাগিয়ে স্বাস্থ্যখাতে দিনের পর দিন উলটো কেবল দুর্নাম হয়েছে। কাজে লাগাতে পারলে বাংলাদেশ পারে না এমন কোন কাজ নেই। দেশে প্রতি বছর হাজার হাজার মেধাবী চিকিৎসক ছেলেমেয়ে বের হচ্ছে। তারা বেশিরভাগই উন্নত বিশ্বের ডাক্তারদের সমান দক্ষ। ডাক্তারদের সুযোগ দিলে তারা ভালো কাজ করে দেখিয়ে দেয়, এটা আমি জানি। এজন্য যথার্থ সুযোগ দিয়ে তাদের কাছ থেকে সঠিক কাজগুলো আদায় করে নিতে হবে।
আজ বৃহস্পতিবার (৭ মার্চ) সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল এডুকেশন কনফারেন্স রুমে সিলেট বিভাগীয় স্বাস্থ্য বিভাগ কর্তৃক আয়োজিত মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

আর আমি আগেও বলেছি, প্রধানমন্ত্রী দেশের মানুষের স্বাস্থ্যসেবার কথা চিন্তা করে আমাকে স্বাস্থ্যমন্ত্রী করেছেন। আমি মন্ত্রী হওয়া মানে সব চিকিৎসকের জন্যই সম্মানের। সুতরাং আমাদের সকলের প্রতি সম্মানের এই মর্যাদা ধরে রাখতে আমাদেরকে চিকিৎসা সেবা দিয়ে দেখিয়ে দিতে হবে। মানুষকে দরদ দিয়ে সেবা করতে হবে। আর, এটাও বলে রাখি, ভালো করে কাজ না করলে কিংবা হাসপাতালে ঠিকভাবে অফিস না করলে, বা দায়িত্ব পালন না করলে আমি কিন্তু কারো কোন সুপারিশ মানবো না।”

চিকিৎসকদের কর্মক্ষেত্রে অসুবিধা থাকলে তা উপরের কর্মকর্তাকে জানাতে হবে উল্লেখ করে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, “চিকিৎসকদেরকে কর্মক্ষেত্রে তাদের অসুবিধার কথাগুলো বলতে হবে। আমি মন্ত্রী হওয়ার আগে মন্ত্রণালয়ের পিওন থেকে উপর পর্যন্ত সব জায়গায় ঘুরেছি। কোথাও না পেলে আমি একেবারে প্রাইম মিনিস্টার পর্যন্ত চলে যেতাম। কিন্তু আমার কাজের জন্য যা প্রয়োজন তা আমি চাইতাম এবং আদায় করতাম। এক দড়জা থেকে অন্য দড়জা ঘুরতে ঘুরতেই মাত্র পাঁচটি বার্ণ বেড থেকে পাঁচশ বেডের বার্ণ হাসপাতাল করেছি। আপনাদেরকেও নিজের কাজের জন্য এভাবে আন্তরিক হতে হবে, মনে দরদ দিয়ে রোগীর সেবা করতে হবে।

সভায় উপস্থিত উর্দ্ধতন কর্মকর্তা ও চিকিৎসক নেতৃবৃন্দ বিভিন্ন দাবী তুলে ধরে বক্তব্য রাখলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক এবিএম খুরশীদ আলম বলেন, বর্তমান স্বাস্থ্যমন্ত্রীর নেতৃত্বে বিভাগে বিভাগে আমরা ছুটে চলে যাচ্ছি কারন বিভাগীয় স্বাস্থ্য সমস্যাগুলো জেনে সেখানেই যাতে সমাধান করা যায়। আপনাদের পক্ষ থেকে স্পেসেফিক দাবীগুলো জানাতে হবে। আমরা চেষ্টা করবো সব দাবী যাতে কমবেশি পুরণ করতে পারি।
সিলেট বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক এনায়েত হোসেন জানান, বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব বিশ্ববিদ্যালয়ের কাজের জন্য পিডি নিয়োগ দেওয়া সহ কিছু লোকবল নিয়োগ প্রয়োজন আছে।
বিএমএ মহাসচিব অধ্যাপক ডা. এহতেশামুল হক চৌধুরী বর্তমান স্বাস্থ্যমন্ত্রী সম্পর্কে বলেন, এই মন্ত্রী ডাক্তারদের নিজেদের মন্ত্রী। এই মন্ত্রীর আগামী পাঁচ বছর দেশের সব চিকিৎসকদের সৌভাগ্যের বছর। সবাই সহোযোগিতা করলে আমাদের বর্তমান স্বাস্থ্যমন্ত্রীর হাত ধরেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্মার্ট বাংলাদেশের স্মার্ট হেলথ ব্যবস্থাপনা আগামী পাঁচ বছর শেষ হবার অনেক আগেই সম্ভব হবে।

এর আগে স্বাস্থ্যমন্ত্রী ৭ই মার্চ উপলক্ষে সকাল সাড়ে সাত টায় সিলেট সিভিল সার্জন অফিসে যান এবং সেখানে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। সেখানে সিভিল সার্জন অফিসে কর্মরত স্বাস্থ্যকর্মীদের ৭ই মার্চের তাৎপর্য তুলে ধরে বক্তব্য রাখেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা সামন্ত লাল সেন।
মন্ত্রী সকাল নয় টায় সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ইনডোর ও আউটডোরে রোগীদের সাথে কথা বলেন এবং তাদের চিকিৎসার খোঁজ নেন।
পরে সিলেটের বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের নির্মাণ কাজ পরিদর্শন করে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলেন তিনি।

সিলেট বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক শিশির রঞ্জনের সভাপতিত্বে সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক এবিএম খুরশীদ আলম, সিলেট বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর অধ্যাপক এনায়েত হোসেন, বিএমএ কেন্দ্রীয় কমিটির মহাসচিব অধ্যাপক এহতেশামুল হক চৌধুরী, সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মাহবুব, সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ সহ বিএমএ সিলেট শাখার সভাপতি ও সম্পাদক, স্বাচিপ সিলেট শাখার সভাপতি ও সম্পাদক সহ বিভিন্ন স্তরের পেশাজীবি চিকিৎসক নেতৃবৃন্দ এবং অন্যান্য কর্মকর্তাবৃন্দ।

সর্বশেষ - খবর

আপনার জন্য নির্বাচিত

চট্টগ্রামে শুঁটকির গুদামে ভয়াবহ বিস্ফোরণ, আহত ৪

প্রাথমিকের নিয়োগ পরীক্ষা ২২ এপ্রিল থেকে শুরু

সিরাজগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য হলেন সাংবাদিক হত্যার প্রধান আসামি মিরু

পরীক্ষা কেন্দ্র পরিদর্শন করলেন বাউবি উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. মাহবুবা নাসরীন

করোনার বুস্টার ডোজ সপ্তাহ শুরু, লক্ষ্য দেড় কোটি মানুষ

আইসিটি একাডেমি প্রতিষ্ঠায় একসাথে হুয়াওয়ে ও কুয়েট

বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডের অসম্পূর্ণ বিচার সম্পন্ন করতে হবে : মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী

বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উদ্যাপনে ‘র‌্যাব সেবা সপ্তাহ’ উপলক্ষে র‌্যাব-২ এর শীতবস্ত্র বিতরণ

চেরনোবিল পারমাণবিক বিদ্যুতকেন্দ্র দখল করেছে রাশিয়ান সেনারা, আরেকটি বিপর্যয়ের আশঙ্কা

রেলের অব্যবস্থাপনার বিষয়ে হাইকোর্টে আসুন : আন্দোলনরত শিক্ষার্থীকে আদালত

ব্রেকিং নিউজ :