300X70
শনিবার , ৯ মার্চ ২০২৪ | ৮ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অপরাধ ও দূর্নীতি
  2. আইন ও আদালত
  3. আনন্দ ঘর
  4. আনন্দ ভ্রমন
  5. আবহাওয়া
  6. আলোচিত খবর
  7. উন্নয়নে বাংলাদেশ
  8. এছাড়াও
  9. কবি-সাহিত্য
  10. কৃষিজীব বৈচিত্র
  11. ক্যাম্পাস
  12. খবর
  13. খুলনা
  14. খেলা
  15. চট্টগ্রাম

বিশেষজ্ঞ হতে শপথ নিলেন ১৪২৩ চিকিৎসক

প্রতিবেদক
বাঙলা প্রতিদিন২৪.কম
মার্চ ৯, ২০২৪ ৯:৪০ অপরাহ্ণ

# বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের রেসিডেন্টদের ইনডাকশন প্রোগাম অনুষ্ঠিত
#ধৈর্য ধরে রোগীদের কথা শোনে সেবা দিতে হবে : স্বাস্থ্যমন্ত্রী
# বেসিক সাবজেক্ট আকৃষ্ট করতে ইনটেনসিভ দিতে হবে : বিএসএমএমইউর উপাচার্য
বাঙলা প্রতিদিন ডেস্ক : বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে মার্চ ২০২৪ সেশনে এমডি/ এমএস প্রোগ্রাম ফেইজ-এ ভর্তিকৃত রেসিডেন্টদের ইনডাকশন প্রোগ্রাম অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার সকাল ৮ টায় (৯ মার্চ) বিশ্ববিদ্যালয়ের এ-ব্লক অডিটোরিয়ামে এর আয়োজন করে বিশ্ববিদ্যালয় কৃর্তৃপক্ষ। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ও ইনডাকশন বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী ডা. সামন্ত লাল সেন।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ডা. রোকেয়া সুলতানা,এমপি। সভাপতিত্ব করেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মোঃ শারফুদ্দিন আহমেদ।

এবার ইনডাকশন প্রোগ্রামে ১ হাজার ৪শ ২৩ জন চিকিৎসক অংশ নিয়ে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক হবার জন্য শপথ গ্রহণ করেন। অনুষ্ঠানে রেসিডেন্টদের শপথ বাক্য পাঠ করান বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মোঃ শারফুদ্দিন আহমেদ।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী ডা. সামন্ত লাল সেন বলেন, আজকে যারা ইনডাকশনে রেসিডেন্ট হিসেবে বসে আছেন, তারা আগামীর দিনে চিকিৎসক হিসেবে কান্ডারী। ডাক্তার ও রোগীদের ভালো সম্পর্ক অনেক কিছুর উপর নির্ভর করছে। শুধু ডাক্তাদের উপর নির্ভর করে না। একটি হাসপাতালে ভাল কাজ একজন পরিচালক থেকে শুরু করে একজন অধ্যাপক, নার্স, ওয়ার্ডবয়, পরিচ্ছন্ন কর্মীর উপর নির্ভর করে। এদের সবার উপর একটি হাসপাতালের সুনাম বৃদ্ধি নির্ভর করে।

তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশের চিকিৎসকদের মান পৃথিবীর কোন দেশের চিকিৎসকদের তুলনায় কম নয়। বাংলাদেশের চিকিৎসকদের যে মেধা আছে, তার অনেক প্রমাণ আছে। আমরা ভুটান থেকে রোগী নিয়ে এসে চিকিৎসা দিচ্ছি। রোগী যে বাইরে যাচ্ছে এমন নয়।

ভারত থেকেও রোগী আসছে। হাঙ্গেরী থেকে যে চিকিৎসক দল জোড়া মাথা আলাদা করেছিল, সেই অপারেশন রোগীদের এ্যানেস্থসিয়া হাঙ্গেরী চিকিৎসকরা দিতে পারেননি। তাদের এ্যানেসথেসিয়া দিয়েছিল বাংলাদেশের চিকিৎসকরা।

মাননীয় মন্ত্রী ডা. সামন্ত লাল সেন নবীন চিকিৎসকদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেন, আমি বিশ্বাস করি, আমরা চিকিৎসকদের মান সম্মান এমন এক জায়গায় নিয়ে যেতে পারব কোন একদিন এই দেশের মানুষ চিকিৎসকদের দেখলে শ্রদ্ধায় মাথা নিচু করতে হয়।

এটি করতে হলে আমাদের একটু ধৈর্য ধরে রোগীদের কথা শোনা, ধৈর্য নিয়ে রোগীদের সেবা দেয়া। এজন্য সময় মতো হাসপাতালে যাবো, আসবো। এদেশের সাধারণ মানুষ বেশী কিছু চায় না। তাদের গায়ে হাত বুলিয়ে কথা বলা, সেবা দেয়া। কেমন আছেন এটুকু বলা।

তিনি আরও বলেন, বঙ্গবন্ধু যে স্বপ্ন দেখেছিলেন, সাধারণ মানুষের চিকিৎসা সেবা উন্নতি করা সেটি সম্ভব আমাদের দ্বারা। আমাদের মনে রাখতে হবে ঢাকায় সব কিছু না। আমরা চিকিৎসকদের ইনটেনসিভ দেব। আমাদের প্রতিমন্ত্রীকে নিয়ে এ সপ্তাহে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করব।

আমি বিশ্বাস করি যদি তাকে সঠিক তথ্য দিয়ে বুঝাতে পারি তবে তিনি চিকিৎসকদের সব কিছু করবেন। স্বাস্থ্যখাতের উন্নয়নের জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এই প্রথম জন চিকিৎসককে দায়িত্ব দিয়েছেন। রমজান মাসে স্বাস্থ্য সুরক্ষা আইন নিয়ে মিটিং করব। এটি যাতে সংসদে পাস হয় সেজন্য আমি চেষ্টা করব।

সভাপতির বক্তব্যে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মোঃ শারফুদ্দিন আহমেদ বলেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা ১৯৯৮ সালের ৩০ এপ্রিল বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার পর ১২ হাজার চিকিৎসক বিশেষজ্ঞ হিসেবে পাস করে বেড়িয়ে গেছেন।

তারা জাতিকে সেবা দিচ্ছেন। এ বিশ্ববিদ্যালয়ে যারা ভর্তি হয় তাদের মেধার যথাযথ মূল্যায়ন করা হয়। এজন্য নিজেদেরকে শাণিত করতে নিয়মিত ক্লাস পরীক্ষা ও ওয়ার্ডে কাজ করতে হয়। এখানে ক্লাস পরীক্ষা যথাযথ নিয়ম অনুসরণ করে হয়।

তিনি বলেন, বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের সংখ্যা আরও দরকার। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে প্রতি এক লাখে একজন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক থাকা উচিত। কিন্তু আমরা জানি, এ্যানেসথেসিয়া, ইএনটির মতো বিষয়ে সে সংখ্যক বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক নাই। বেসিক সাবজেক্টে একই অবস্থা।

গতকাল আমাদের এমফিল এনাটমিতে যে ভর্তি পরীক্ষা হয়েছে, সেখানে আমরা ভর্তি করতে পারি ৩৬ জন। কিন্তু ভর্তির জন্য আবেদন করেছে মাত্র ২৬ জন। চান্স পেয়েছে ১৪ জন। গত এমডি এনাটমি কোর্সের ভর্তির পরীক্ষার সময় দেখলাম সিট ৭১ টি, আবেদন করেছে ৪৯ জন কিন্তু চান্স পেয়েছে ২৯ জন। এখনো আমরা বেসিক সাবজেক্টকে চিকিৎসকদের আকৃষ্ট করতে পারছি না।

বেসিক সাবজেক্ট বায়োকেমিস্ট্রি, ফার্মাকোলোজি, ফরেনসিক মেডিসিন ও অ্যানেসথেসিয়ার মত বিষয়ে ইনটেনসিভ দিতে হবে। তাদের বয়স বৃদ্ধি করতে হবে। অন্যথায় আমরা অভিজ্ঞ কাউকে পাবো না। আমরা গত তিন বছরে বেসিক সাবজেক্টে অনেক আসন বাড়িয়েছি।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (একাডেমিক) অধ্যাপক ডা. একেএম মোশাররফ হোসেন। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ হাফিজুর রহমান।

অনুষ্ঠানে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. ছয়েফ উদ্দিন আহমদ, সার্জারি অনুষদের ডিন অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ হোসেন, মেডিসিন অনুষদের ডিন অধ্যাপক ডা. আবু নাসার রিজভী, ডেন্টাল অনুষদের ডিন অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ আলী আসগর মোড়ল, শিশু অনুষদের ডিন অধ্যাপক ডা. মানিক কুমার তালুকদার, বেসিক সাইন্স ও প্যারা ক্লিনিক অনুষদের ডিন অধ্যাপক ডা. আহমেদ আবু সালেহসহ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় অধিভুক্ত ইন্সিটিটিউটের প্রধানরা দিক নির্দেশনা মূলক বক্তব্য রাখেন।

সর্বশেষ - খবর

আপনার জন্য নির্বাচিত

টঙ্গীতে পৃথক তিন স্থানে ভয়াবহ অগ্নিকান্ড

ফেনীর দাগনভূঁইয়ার গৌতমখালী গ্রামের পরিবেশ বান্ধব পুনর্বিকাশ পরিকল্পনার প্রস্তাবনা

মাইলফলক অর্জন করেছে “লেটস রিড টুগেদার” প্রকল্প

দেশে করোনার সংক্রমণ সবচেয়ে বেশি হচ্ছে যেসব জেলায়

মেডিক্যাল চেকআপের জন্য দিল্লিতে গেছেন সাবেক মন্ত্রী তােফায়েল আহমেদ

বাংলাদেশ রেলওয়ের জন্য ৪২০টি ব্রডগেজ ওয়াগন সংগ্রহের লক্ষ্যে চুক্তি স্বাক্ষরিত

জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির সিদ্ধান্ত ও পরিবহণ ধর্মঘট প্রত্যাহারের দাবি যাত্রী কল্যাণ সমিতির

গণজাগরণের ঐতিহ্যবাহী নাট্য উৎসব অনুষ্ঠিত 

লালমনিরহাটে ট্রাক ও ট্যাংকলরী শ্রমিক ইউনিয়নের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ায় আহত পাঁচ, মহাসড়ক অবরোধ

রাজধানীর যেসব এলাকায় পালাক্রমে দৈনিক ৮ ঘণ্টা বিদ্যুৎ থাকবে না

ব্রেকিং নিউজ :