300X70
রবিবার , ২৮ মে ২০২৩ | ১৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
  1. অপরাধ ও দূর্নীতি
  2. আইন ও আদালত
  3. আনন্দ ঘর
  4. আনন্দ ভ্রমন
  5. আলোচিত খবর
  6. উন্নয়নে বাংলাদেশ
  7. এছাড়াও
  8. কবি-সাহিত্য
  9. কৃষিজীব বৈচিত্র
  10. ক্যাম্পাস
  11. খবর
  12. খুলনা
  13. খেলা
  14. চট্টগ্রাম
  15. জাতীয়

আগামীর কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে প্রত্যাশা

প্রতিবেদক
বাঙলা প্রতিদিন২৪.কম
মে ২৮, ২০২৩ ১১:১০ পূর্বাহ্ণ

আজ ১৭ পেরিয়ে ১৮তম বর্ষে পদার্পণ

ফয়সাল মিয়া : আজ ২৮ মে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় দিবস।২০০৬ সালের মে মাসের এই দিনে দেশের ২৬তম পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় পথচলা শুরু করে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়। বিশ্ববিদ্যালয়টি চট্টগ্রাম বিভাগের অন্তর্গত কুমিল্লা জেলার সদর দক্ষিণ উপজেলার সালমানপুরে গ্রামে অবস্থিত। আজ ১৭ বছর পেরিয়ে ১৮ তম বর্ষে পদার্পণ করছে বিশ্ববিদ্যালয়টি। এই দিবসকে ঘিরে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন নানামুখী অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে। প্রথম বারের মতো তৈরি হতে যাচ্ছে কুবির থিম সং ।

এবারের জন্মতিথীতে প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে প্রতিটি বিভাগের পক্ষ থেকে। সাবেক বর্তমান শিক্ষার্থীদের পদচারণায় আবারো প্রাণ ফিরে পাকে কুবি। সারা দিন ব্যাপী চলবে নানা আয়োজন। বিকেল ৩.০০টায় কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে লেখা থিম সংয়ে সুর তুলবেন সাবেক-বর্তমান শিক্ষার্থীসহ বিশ্ববিদ্যালয় সংশ্লিষ্টরা; চলবে গান,নাচসহ বিভিন্ন সংস্কৃতিক পর্বের অনুষ্ঠান।

সাজানো গুছানো সৌন্দর্যে ভরপুর একটি ক্যাম্পাস কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় যার আরেক নাম লাল মাটি’র ক্যাম্পাস। সারাদিন পড়াশোনার শেষ করে ক্লান্তি নিবারণের জন্য শহীদ মিনার বা মুক্তমঞ্চে বন্ধু-বান্ধবদের নিয়ে আড্ডা দেওয়ার মজাই আলাদা।

কুবির প্রধান আকর্ষণ তার ক্যাম্পাস মেইট গেইট। বিশালাকার এই গেইট দেখে যে কেউ অতি সহজেই তার প্রেমে পড়ে যাবে। এখানে হলে থাকা শিক্ষার্থীদের জীবনতো আরো ভালোবাসা ও ভালোলাগায় ভরপুর। তবে চাকরির দিক দিয়ে অল্প সময়েই ভালো সুনাম অর্জন করেছে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় । সারাদেশেই সরকারি, বেসরকারি ও মাল্টিন্যাশনাল কোম্পানিগুলোর ঊর্ধ্বতন পদে রয়েছে সাবেক কুবিয়ান হাজারো শিক্ষার্থী।

এসব সুনাম অর্জনের মাধ্যমে অতিস্বল্প সময়ে এই বিশ্ববিদ্যালয়টি সারাদেশে খ্যাতি অর্জন করেছে । বিশ্ববিদ্যালয়টির সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ দিকটি হলো এর সার্বিক পরিবেশ। নিরব নিস্তব্ধ ও পরিচ্ছন্নতায় ভরপুর কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় , যা দেখে যে কোনো শিক্ষার্থীর মন প্রাণ আনন্দে বিহ্বলিত হয়ে যেতে পারে।

বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয়টিতে রয়েছে ৬ টি অনুষদ মিলে মোট ১৯ টি বিভাগ। রয়েছে ৭১৩৯ জন শিক্ষার্থী ও ২৫৬ জন শিক্ষক। এর যাত্রাটা শুরু হয়েছিল ৩০০ জন শিক্ষার্থী ও ২৫ জন শিক্ষকদের নিয়ে। প্রত্যেকটি ডিপার্টমেন্ট সাজানো গুছালো, পরিচ্ছন্নতায় ভরপুর।

এর পাশাপশি রয়েছে মেধাবৃত্তির ব্যবস্থা যা প্রতিবছর দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন উপাচার্য মহোদয়। ক্যাম্পাসে রয়েছে বিভিন্ন রকমের ফুল ও ফলগাছের সমাহার। যাতায়াতের জন্য রয়েছে কুবির নিজস্ব ০৮ টি বাস ও ভাড়ায় চালিত বিআরটিসির ০৯ টি লাল বাস। বাসগুলো শহরের বিভিন্ন জায়গা থেকে শিক্ষার্থীদের ক্যাম্পাসে আনা নেওয়ায় ব্যবহার করা হয়।

অন্য দিকে গুচ্ছ ভর্তি ব্যবস্থার কারনে বিশ্ববিদ্যালয়টি একটি আঞ্চলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিনত হচ্ছে। দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে শিক্ষার্থী আসার আগ্রহ কমে যাচ্ছে।

ফলে বিভিন্ন জাতিগোষ্ঠীর সাথে মেশার সুযোগ হয়ে উঠেছে না। খাদ্যের গুণগত মানের দিক দিয়েও রয়েছে নানা সমস্যা। কেন্দ্রীয় ক্যাফেটেরিয়াসহ আশপাশের এলাকার দোকানগুলোতে খাবারের দাম বেশ চড়া। ২/৩ বেলায় খাবারের খরচ বাবদ ১৮০ টাকা ব্যয় হয় যা একজন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীর পক্ষে বহন করা সম্ভব হয় না। ফলে পরিবারের কাছ থেকে প্রতিমাসে মুটা অংকের টাকা আনতে হয়।

তবে অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের চিত্র ঠিক এরকম নয়। এরকম সমস্যা ও সফলতা আজ ১৭ বছর পেরিয়ে গেলো বিশ্ববিদ্যালয়টির। প্রত্যাশা আগামীতে সফলতার মুখ দেখবে এই বিশ্ববিদ্যালয়টি এবং বিশ্বের সেরা বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর সাথে র‌্যাংকিংয়ে এগিয়ে থাকবে। একদিন দেশের নম্বর ওয়ান বিশ্ববিদ্যালয়ে হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হবে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় ।

লেখক: লোক প্রশাসন বিভাগ, কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়।

সর্বশেষ - খবর

আপনার জন্য নির্বাচিত
ব্রেকিং নিউজ :