300X70
বৃহস্পতিবার , ৩ ডিসেম্বর ২০২০ | ২রা বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অপরাধ ও দূর্নীতি
  2. আইন ও আদালত
  3. আনন্দ ঘর
  4. আনন্দ ভ্রমন
  5. আবহাওয়া
  6. আলোচিত খবর
  7. উন্নয়নে বাংলাদেশ
  8. এছাড়াও
  9. কবি-সাহিত্য
  10. কৃষিজীব বৈচিত্র
  11. ক্যাম্পাস
  12. খবর
  13. খুলনা
  14. খেলা
  15. চট্টগ্রাম

বেলাবতে সহপাঠীদের মারধরে আহত ছাত্রের মৃত্যু

প্রতিবেদক
বাঙলা প্রতিদিন২৪.কম
ডিসেম্বর ৩, ২০২০ ৯:২৮ অপরাহ্ণ

বেলাব উপজেলা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাতের তদন্ত:

এম, লুৎফর রহমান : নরসিংদীর বেলাবতে স্কুলের এ্যাসাইনমেন্ট জমা দিতে গিয়ে সহপাঠীদের মারধরে আহত হওয়ার চারদিন পর মোঃ শুভ মিয়া (১৩) নামে এক ছাত্রের মৃত্যু হয়েছে। গতকাল বুধবার (০২ ডিসেম্বর) রাতে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। এর আগে গত গত ২৮ নভেম্বর সহপাঠীদের হামলায় সে আহত হয়। নিহত শুভ নরসিংদীর রায়পুরা উপজেলার রাধানগর ইউনিয়নের লক্ষীপুর গ্রামের মোঃ লায়েছ মিয়ার ছেলে ও বেলাব উপজেলার নারায়ণপুর সরাফত উল্লাহ উচ্চ বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ শ্রেণীর শিক্ষার্থী। নিহতের সহপাঠী ও পরিবারের লোকজন জানায়, গত ২৮ নভেম্বর নারায়ণপুর সরাফত উল্লাহ উচ্চ বিদ্যালয়ে এ্যাসাইনমেন্ট জমা দিতে যায় শুভ। ওই সময় শ্রেণী কক্ষের ফাস্ট বেঞ্চে বসাকে কেন্দ্র করে শুভর সঙ্গে রিফাত প্রধান ও মোজাম্মেলের বিরোধ দেখা দেয়। এরই জেরে স্কুলে প্রাঙ্গনে ওই দুইজনসহ আরো ৮/১০জন মিলে শুভর মাথায় ও শরীরে আঘাত করে পালিয়ে যায়। এরপর স্কুলের প্রধান শিক্ষকের কাছে জড়িতদের বিচার চেয়ে বাড়ি ফিরে অসুস্থ হয়ে পড়ে শুভ। আঘাতে তার মাথায় রক্ত জমাট বেঁধে যায়। পরে আহত শুভকে তার স্বজনরা প্রথমে স্থানীয় প্রাইভেট হাসপাতালে ও পরে অবস্থার অবন্নতি হলে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতলে ভর্তি করেন। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ঘটনার পাঁচদিন পর বুধবার রাতে মারা যায় শুভ। রায়পুরা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মহসনিুল কাদির বলেন, নিহত স্কুলছাত্রের লাশ ময়না তদন্তের জন্য নরসিংদী সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। নিহত স্কুল ছাত্রের মরদেহের সুরতহাল রিপোর্ট তৈরী করা হয়েছে। যেহেতু বিষয়টি বেলাব থানার সেহেতু মামলাটি বেলাব থানায় দায়ের করা হবে।

বেলাব উপজেলা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাতের তদন্ত:

নরসিংদীর বেলাবতে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সমসের জামান ভূঁইয়া রিটনের বিরুদ্ধে দুই ভাইস চেয়ারম্যানের সম্মানী, আপ্যায়ন ও ভ্রমণ ভাতা আত্মসাতের অভিযোগে তদন্ত হয়েছে। বৃহস্পতিবার (০৩ ডিসেম্বর) দুপুরে নরসিংদীর সার্কিট হাউজে এসব অভিযোগের তদন্ত করেন ঢাকার অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার খান মোঃ নুরুল আমিন। এর আগে চলতি বছরের মার্চে এসব ভাতা আত্মসাতের অভিযোগ তুলে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়, বিভাগীয় কমিশনার ও জেলা প্রশাসক বরাবর লিখিত অভিযোগ করা হয়। যৌথভাবে অভিযোগ করেন বেলাব উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান মনিরুজ্জামান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান শারমিন আক্তার খালেদা। এসব অভিযোগের সত্যতা নিশ্চিত হওয়ার জন্য আজ নির্ধারিত দিনে অভিযোগকারী ও অভিযুক্তসহ দুই পক্ষের সংশ্লিষ্টদের নিয়ে এই তদন্ত কার্যক্রম পরিচালিত হয়। দুই ভাইস চেয়ারম্যান মনিরুজ্জামান ও শারমিন আক্তার খালেদা জানান, ২০১৯ সালের নভেম্বর মাসের সম্মানী ভাতা, আপ্যায়ন ভাতা ও ভ্রমণ ভাতা হিসেবে আমাদের দুজনের প্রাপ্য ৭০ হাজার টাকার চেক আমাদের অবগত না করেই ব্যাংক থেকে উত্তোলন করা হয়। উপজেলা চেয়ারম্যান সমসের জামান ভূঁইয়া রিটন নিজে স্বাক্ষর করে ওই টাকার চেক উত্তোলন করেন এবং তা আত্মসাৎ করেন। পরবর্তী সময়ে ওই টাকা আমরা ফেরত চাইলেও তা আমাদের ফেরত দেননি তিনি। এই ঘটনায় আমরা যৌথভাবে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়, বিভাগীয় কমিশনার ও জেলা প্রশাসক বরাবর লিখিত অভিযোগ করি। এরই প্রেক্ষিতে আজ সার্কিট হাউজে চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যানদের উপস্থিতিতে অভিযোগের তদন্ত করেছেন ঢাকার অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার খান মোঃ নুরুল আমিন। আশা করছি, আমরা সুবিচার পাব। অভিযুক্ত উপজেলা চেয়ারম্যান সমসের জামান ভূঁইয়া জানান, আমি উপজেলা পরিষদের দুই ভাইস চেয়ারম্যানের সম্মতি নিয়েই তাদের চেকের টাকা ব্যাংক থেকে উত্তোলন করি। সম্মানী ভাতার ওই টাকা তাদের সম্মতিতেই সামাজিক কমর্কান্ডের অংশ হিসেবে স্থানীয় একটি মাজারের ওরশে ব্যয় করেছি। কিন্তু পরবর্তী সময়ে তারা ওই টাকা দিতে অস্বীকৃতি জানালে আমি তা ফেরত দিতে চেয়েছিলাম কিন্তু তারা তা নেননি। আমাকে রাজনৈতিকভাবে অপদস্থ করার জন্য তারা এসব অভিযোগ করেছেন। তদন্ত শেষে ঢাকার অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার খান মোঃ নুরুল আমিন এই বিষয়ে সাংবাদিকদের কোন বক্তব্য দেননি।

সর্বশেষ - খবর

ব্রেকিং নিউজ :