300X70
সোমবার , ১৩ নভেম্বর ২০২৩ | ৬ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অপরাধ ও দূর্নীতি
  2. আইন ও আদালত
  3. আনন্দ ঘর
  4. আনন্দ ভ্রমন
  5. আবহাওয়া
  6. আলোচিত খবর
  7. উন্নয়নে বাংলাদেশ
  8. এছাড়াও
  9. কবি-সাহিত্য
  10. কৃষিজীব বৈচিত্র
  11. ক্যাম্পাস
  12. খবর
  13. খুলনা
  14. খেলা
  15. চট্টগ্রাম

মাতারবাড়ী গভীর সমুদ্র বন্দর : দেশের অবকাঠামোগত উন্নয়নে মাইলফলক

প্রতিবেদক
বাঙলা প্রতিদিন২৪.কম
নভেম্বর ১৩, ২০২৩ ৮:১২ অপরাহ্ণ

 মেহজাবিন বানু : গত ১১ নভেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আনুষ্ঠানিকভাবে মাতারবাড়ী বন্দর চ্যানেলের উদ্বোধন করেন এবং মাতারবাড়ী গভীর সমুদ্র বন্দরের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। বঙ্গোপসাগরের উপকূল ঘেঁষে কক্সবাজারের মহেশখালী উপজেলার মাতারবাড়িতে ১ হাজার ৩১ একর জমিতে গভীর সমুদ্রবন্দর নির্মাণের পরিকল্পনা রয়েছে। বন্দরের উন্নয়নে জাপান ডেভেলপমেন্ট কো-অপারেশন এজেন্সি (জাইকা) জড়িত। পুরো খরচ আসে ৮,৯৫৬ কোটি টাকা। জাইকা ৫০,০০০ টাকা ঋণ প্রদান করবে। ৬,৭৪২ কোটি টাকা। অবশিষ্ট অর্থ বাংলাদেশ সরকার ব্যবহার করবে। বন্দর চালু হলে দক্ষিণাঞ্চলের পাশাপাশি বদলে যাবে বাংলাদেশ। যেহেতু এটি দক্ষিণ এশিয়ার বাণিজ্যিক কেন্দ্র হিসেবে কাজ করবে।

দেশের উন্নয়নের সাথে সাথে বৈদেশিক বাণিজ্য বাড়ছে। এ কারণে দেশে জাহাজ আগমনের বার্ষিক হার ১১ শতাংশের বেশি হারে বাড়ছে। এই প্রবণতা অব্যাহত থাকলে, ২০৪১ সালে ১৪ মিলিয়ন টিইইউএস কনটেইনার হ্যান্ডেল করা হবে, যার মধ্যে ৮ হাজার ২০০ টি জাহাজ রয়েছে। বর্তমানে যে বন্দরগুলি রয়েছে তা কেবল এই পরিমাণ কন্টেইনার এবং জাহাজগুলি পরিচালনা করতে পারে না। তদুপরি, দেশের সমুদ্রবন্দরগুলি এমনকি গভীর জলের বন্দরও নয়। তাই বড় জাহাজ বন্দরে ডক করতে পারছে না। জাহাজের জন্য গভীরতর জেটি সুবিধা প্রদানের জন্য ‘মাতারবাড়ী বন্দর উন্নয়ন প্রকল্প’কে সরকার অগ্রাধিকার প্রকল্প হিসেবে মনোনীত করেছে।

২০০৯ সালে, কক্সবাজারের সোনাদিয়া দ্বীপে একটি গভীর সমুদ্র বন্দর এবং পরবর্তীকালে পটুয়াখালীর পায়রা নির্মাণের পরিকল্পনাও বিবেচনা করা হয়। কিন্তু বহুবার চেষ্টা করেও ভূ-রাজনৈতিক কারণে তা সম্ভবপর হয়নি। তারা বিনিয়োগ করতে চায় কারণ জাপানি গবেষণায় পরামর্শ দেওয়া হয়েছে যে এলাকাটি শক্তির কেন্দ্র হয়ে উঠতে পারে। ২০১৪ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাপান সফরে গেলে তিনি বিনিয়োগের প্রস্তাব দেন এবং মহেশখালীর জ্বালানি উৎপাদনে আগ্রহ দেখান। উপরন্তু, মাতারবাড়ী একটি কয়লা ভিত্তিক, ১২৫০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণে অবদান রেখেছে। তবে কয়লাবাহী বড় জাহাজগুলোকে বসানোর জন্য একটি চ্যানেল বা জেটির প্রয়োজন। যার জন্য ১৪ কিমি দৈর্ঘ্য, ২৫০ মিটার প্রস্থ এবং ১৮.৫ মিটার গভীরতার একটি চ্যানেল তৈরি করা হয়েছে। জাইকার গবেষণা অনুসারে, এই চ্যানেলটি গভীর সমুদ্র বন্দর নির্মাণে ব্যবহার করা যেতে পারে। তখন থেকেই গভীর সমুদ্রবন্দর নির্মাণের কাজ চলছে। যা ২০২৬ সালের ডিসেম্বরে শেষ হবে এবং আগামীকাল আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হবে।

মাতারবাড়ী গভীর সমুদ্র বন্দরটি জাপানের কাশিমা বন্দরের উপর ভিত্তি করে নির্মিত হবে। যাইহোক, এটি নির্মাণের ক্ষেত্রে কাশিমা বন্দরের চেয়ে ২.৫ গুণ বড়। চ্যানেল নির্মাণের মাধ্যমে সমুদ্রের পরিবর্তে বন্দরটিকে সমুদ্রের সঙ্গে যুক্ত করা হবে। ব্রেক ওয়াটার ড্যাম নির্মাণ পানি প্রবাহ বন্ধ করবে এবং চ্যানেলটিকে পলি পড়া থেকে রক্ষা করবে।

মালাক্কা প্রণালী দক্ষিণ চীন সাগরকে বঙ্গোপসাগরের সাথে সংযুক্ত করেছে। চীন ও জাপান বঙ্গোপসাগরকে বিশেষ গুরুত্ব দেয়। বঙ্গোপসাগরের চারপাশে নির্মিত হবে বিশাল অর্থনৈতিক অবকাঠামো যা জাপান ‘বিগ বি’ (বে অফ বেঙ্গল গ্রোথ বেল্ট) এর অংশ হিসেবে মনোনীত করেছে। এ কারণে মহেশখালীর মাতারবাড়ী সমুদ্রবন্দর গুরুত্বপূর্ণ হবে।

গভীর-সমুদ্র বন্দরটি খোলার পরে ফিডার জাহাজগুলির ১৮.৫ মিটার-গভীর চ্যানেলে নোঙর করার ক্ষমতা থাকতে হবে। এতে পণ্য পরিবহনে সময় ও অর্থ সাশ্রয় হবে। গভীর বন্দরটি ৮,২০০ টিইইউএস-সক্ষম কন্টেইনার জাহাজ ধারণ করবে যখন এটি সম্পূর্ণরূপে চালু হবে। বাংলাদেশের ব্যবসায়ীদের সিঙ্গাপুর, কলম্বো এবং মালয়েশিয়ার বন্দরে তাদের পণ্য আমদানি-রপ্তানির জন্য অপেক্ষা করতে হবে না। বর্তমানে ইউরোপ বা আমেরিকায় পণ্য পাঠাচ্ছে এমন বড় জাহাজগুলোকে বিদেশি বন্দরে অপেক্ষা করতে হয়। এই দিনগুলিতে আমেরিকা ভ্রমণ করতে কমপক্ষে ৪৫ দিন সময় লাগে। ২০২৬ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে, বন্দরটি সম্পূর্ণরূপে চালু হবে এবং পণ্যগুলি আমেরিকা পৌঁছতে মাত্র ২৩ দিন সময় লাগবে। ট্রানজিট ছাড়াই পণ্য আমদানি-রপ্তানি সম্ভব। মোটামুটি ৩০% দ্বারা পরিবহন খরচ সংরক্ষণ করার জন্য।

মাতারবাড়ী গভীর সমুদ্র বন্দর থেকে চট্টগ্রাম বন্দর ৩৪ নটিক্যাল মাইল দূরে। জাহাজে যেতে সময় লাগবে দুই থেকে তিন ঘণ্টা। সড়কপথে ১১২ কিলোমিটার রয়েছে। এখানেও সময় লাগবে দুই থেকে আড়াই ঘণ্টা। মংলা বন্দর থেকে পায়রা বন্দর ১৯০ নটিক্যাল মাইল আলাদা। ফলস্বরূপ, মাতারবাড়ী গভীর জল বন্দর থেকে পণ্যদ্রব্য দ্রুত খালাস করে স্থল বা সমুদ্রপথে অন্য বন্দরে পাঠানো যায়। জাহাজগুলো চট্টগ্রাম বন্দরের জেটিতে মাত্র ৯.৫ মিটারের ড্রাফ্ট নিয়ে ডক করতে পারে। যার ধারণক্ষমতা ৮০০-২৪০০ টিইইউএস কন্টেইনার। যেখানে মাতারবাড়িতে ১০,০০০ টিইইউএস কন্টেইনার রাখা যাবে। যা চট্টগ্রাম বন্দরের চেয়ে আট হাজার টিইইউএস বেশি ধারণক্ষমতা।

স্বাধীনতা লাভের পর থেকে জাপান বাংলাদেশের প্রধান উন্নয়ন সহযোগী। বিগ-বি ২০১৪ সালে বাংলাদেশ এবং জাপান সরকার দ্বারা শুরু হয়েছিল। এর প্রাথমিক কেন্দ্র মাতারবাড়ি হিসাবে নির্ধারণ করা হয়েছিল।এই কারণে, একটি বাণিজ্যিক বন্দর প্রতিষ্ঠার জন্য বিভিন্ন অবকাঠামো প্রকল্প, যেমন একটি কয়লা বিদ্যুৎ কেন্দ্র, একটি এলএমজি টার্মিনাল এবং একটি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল তৈরি করা হচ্ছে। উল্লেখযোগ্য পরিমাণ বিদেশী বিনিয়োগ প্রত্যাশিত। কৌশলগত অবস্থানের কারণে গভীর সমুদ্র বন্দরটি দক্ষিণ এশিয়ার বাণিজ্যিক কেন্দ্র হিসেবে আবির্ভূত হবে।

মাতারবাড়ী সমুদ্রবন্দরকে শিল্পের কেন্দ্রে পরিণত করা হবে। বাণিজ্য বৃদ্ধি পাবে। অসংখ্য মানুষ কাজ খুঁজে পাবে। আমদানি-রপ্তানি বৃদ্ধির প্রতিক্রিয়ায় রাজস্ব বাড়বে। দেশটির “সুনীল অর্থনীতি”, যার মধ্যে গ্যাস, তেল এবং অন্যান্য সামুদ্রিক সম্পদ আহরণ এবং ব্যবহার অন্তর্ভুক্ত রয়েছে, সুযোগগুলি প্রসারিত করবে। যা দেশের অর্থনৈতিক কাঠামোতে গভীর সমন্বয় ঘটাবে। এই গভীর সমুদ্র বন্দরটি দেশের উন্নয়নশীল থেকে একটি উন্নত রাষ্ট্রে রূপান্তরের একটি গুরুত্বপূর্ণ বাঁক হিসেবে চিহ্নিত করবে।

দেশের প্রথম গভীর সমুদ্র বন্দর টার্মিনাল সম্পূর্ণরূপে চালু হলে সামগ্রিকভাবে অর্থনীতির পরিবর্তন হবে। এই বন্দরটি চীন, মায়ানমার, ভুটান, ভারত এবং নেপালে প্রবেশযোগ্য। যা বাংলাদেশ বৈদেশিক মুদ্রায় বেশ লাভবান হবে। দেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির দুই থেকে তিন শতাংশ আসবে বন্দর থেকে।

গভীর সমুদ্র বন্দর নির্মাণ বাংলাদেশের দীর্ঘদিনের স্বপ্ন। দেশরত্নকে বাস্তবে রূপ দিচ্ছেন শেখ হাসিনা। এটি বর্তমান প্রশাসনের উন্নয়নে আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ মোড়কে চিহ্নিত করে।

লেখকা : কলামিস্ট, নিরাপত্তা ও কৌশলগত বিষয়ক বিশ্লেষক।

সর্বশেষ - খবর

আপনার জন্য নির্বাচিত

বাংলাদেশের নির্বাচনে হস্তক্ষেপ করবে না চীন: রাষ্ট্রদূত

‍চীন বাংলাদেশের পরীক্ষিত ও বিশ্বস্ত বন্ধু : ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী

নতুন ওসির সঙ্গে মধ্যরাতে এমপির প্রতিনিধির বৈঠক

অবশেষে এমপি নিক্সন চৌধুরীর বিরুদ্ধে মামলা করলো ইসি

প্রাতঃভ্রমণে গিয়ে ভ্যানচাপায় সাবেক ইউপি সদস্য নিহত

প্রেমিকার স্বামীর কাছে ধরা পড়ার ভয়ে ছয়তলা থেকে ঝাঁপ!

নেতারা আত্মগোপনে থেকে কর্মীদের দিয়ে গাড়ি পোড়ানোই বিএনপির অবরোধ : তথ্যমন্ত্রী

কর্মক্ষেত্রে বিগত ৬ মাসে দুর্ঘটনায় মারা গেছে ৩৮৯ শ্রমিক

চকবাজারের রাসায়নিক নিয়ে কারখানায় তৈরি হয় বিশ্বখ্যাত ব্র্যান্ডের প্রসাধনী সামগ্রী

বিদেশে আমাদের প্রভু নেই, বন্ধু আছে: কাদের