300X70
রবিবার , ২৮ জানুয়ারি ২০২৪ | ১১ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
  1. অপরাধ ও দূর্নীতি
  2. আইন ও আদালত
  3. আনন্দ ঘর
  4. আনন্দ ভ্রমন
  5. আবহাওয়া
  6. আলোচিত খবর
  7. উন্নয়নে বাংলাদেশ
  8. এছাড়াও
  9. কবি-সাহিত্য
  10. কৃষিজীব বৈচিত্র
  11. ক্যাম্পাস
  12. খবর
  13. খুলনা
  14. খেলা
  15. চট্টগ্রাম

যে কারণে মাংস ব্যবসায়ী খলিলকে হত্যার হুমকি

প্রতিবেদক
বাঙলা প্রতিদিন২৪.কম
জানুয়ারি ২৮, ২০২৪ ৮:২৯ অপরাহ্ণ

বাঙলা প্রতিদিন ডেস্ক :
গত বছরের ১৯ নভেম্বর রাজধানীর শাজাহানপুরের মাংস ব্যবসায়ী খলিল তার ‘খলিল গোস্ত বিতান’ এ ৫৯৫ টাকায় প্রতি কেজি মাংস বিক্রি শুরু করেন। যা সমাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় ব্যাপক সাড়া ফেলে। মাংস ব্যবসায়ী খলিলের দেখাদেখি আরও কিছু মাংস ব্যবসায়ী প্রতি কেজি গরুর মাংস ৬০০ টাকায় বিক্রি করেন। পরবর্তী সময়ে গত ২২ ডিসেম্বর ভোক্তা অধিদপ্তর, মাংস ব্যবসায়ী সমিতি ও বাংলাদেশ ডেইরি ফার্মার্স অ্যাসোসিয়েশন সম্মিলিত বৈঠক করে ৬৫০ টাকায় গরুর মাংস বিক্রির সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে।

এমন সিদ্ধান্তে বাজারে ফিরে আসে স্বস্তি। এসময় যে সব মাংস ব্যবসায়ী ন্যয্য মূল্যে মাংস বিক্রি করেন, মুনাফালোভী অসাধু ব্যবসায়ীরা তাদেরকে বিভিন্নভাবে হুমকি প্রদান করতে থাকেন। এছাড়াও কিছুদিন আগে রাজশাহীর বাঘার আড়ানী হাটে ন্যয্য মূল্যে গরুর মাংস বিক্রি করায় একজন মাংস ব্যবসায়ী খুন হওয়ার ঘটনা ঘটে।

গত ১৮ জানুয়ারি রাজধানীর শাহাজাহানপুরের আলোচিত মাংস ব্যবাসয়ী খলিলুর রহমানের মোবাইল ফোনে অপর একটি মোবাইল নম্বর থেকে ফোন করে ২৫ লাখ টাকা চাঁদা দাবি এবং কম দামে মাংস বিক্রি করলে তাকে ও তার ছেলেকে দুই দিনের মধ্যে গুলি করে হত্যার হুমকিসহ অকথ্য ভাষায় গালি-গালাজ করা হয়। এছাড়াও খলিল এবং তার ছেলেকে হত্যা করার জন্য গুলি ও পিস্তল রেডি করা হয়েছে জানিয়ে তার মোবাইল ফোনে পিস্তল, গুলি, রামদা এবং মাথা ছাড়া লাশের ছবি পাঠিয়ে ভয়ভীতি দেখানো হয়। এরই পরিপ্রেক্ষিতে মাংস ব্যবসায়ী খলিল রাজধানীর শাহাজাহানপুর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। বিষয়টি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় প্রচারিত হলে দেশব্যাপী ব্যাপক সমালোচিত হয়। এ ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতারের লক্ষ্যে র‌্যাব গোয়েন্দা নজরদারি বৃদ্ধি করে মাংস ব্যবসায়ী খলিলকে হত্যার হুমকিদাতা ও নির্দেশদাতাকে ঢাকার আশুলিয়া থেকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব।

গ্রেপ্তাররা হলেন- মো. নুরুল হক (৬৭) এবং তার অন্যতম সহযোগী মোহাম্মদ ইমন (২২)। রোববার (২৮ জানুয়ারি) দুপুরে কারওয়ান বাজার র‌্যাব মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান বাহিনীর লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন। তিনি বলেন, “গ্রেফতার নুরুল হক দীর্ঘদিন ধরে আশুলিয়া থানার পাথালিয়া ইউনিয়নের চারিগ্রাম এলাকায় ডিস ও ইন্টারনেট লাইনের ব্যবসার করে আসছিলেন। স্থানীয় এলাকায় তার প্রায় ৫শ ডিস এবং ইন্টারনেট লাইনের সংযোগ রয়েছে। এ ব্যবসাকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ ছিল।

বিরোধের জের ধরে কিছুদিন আগে তার প্রতিপক্ষের সঙ্গে মারামারি ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটায় তার ব্যবসায় প্রতিবন্ধকতা তৈরি হয়। পরবর্তী সময়ে একজন তাকে আলোচিত মাংস ব্যবসায়ী খলিলের ব্যক্তিগত মোবাইল নম্বর প্রদান করে তাকে হত্যার হুমকি দিতে বলে। যার বিনিময়ে সে তার স্থানীয় এলাকায় ডিস ও ইন্টারনেট ব্যবসায় কোনো প্রতিবন্ধকতা বা কোনো বাধার সম্মুখীন হবে না।” তিনি আরও বলেন, “ব্যবসায়ীক সুবিধার লক্ষ্যে গ্রেফতার নুরুল হক গত ১৮ জানুয়ারি মাংস ব্যবসায়ী খলিলকে ফোন করে ২৫ লাখ টাকা চাঁদা দাবি এবং কম দামে মাংস বিক্রি করলে তাকে হত্যার হুমকি প্রদান করেন।

নুরুল হক মাংস ব্যবসায়ী খলিলকে হত্যার হুমকি প্রদানের সময় চাঁদা দাবির পাশাপাশি তার ব্যবসায়ীক প্রতিপক্ষ সেলিমের নাম উল্লেখ করেন। পরবর্তীতে একইদিনে গ্রেফতার নুরুল গ্রেফতার ইমনকে একটি ফোন ধরিয়ে মাংস ব্যবসায়ী খলিলকে গালাগালি করতে বলেন। গ্রেফতার ইমন নুরুলের কথামতো খলিলকে ফোন দিয়ে অকথ্য ভাষায় গালি-গালাজ করতে থাকেন এবং তাকে দুই দিনের মধ্যে হত্যা করবে বলে গুলি ও পিস্তল রেডি করে রেখেছে বলে জানায়। এছাড়াও গ্রেফতার ইমন খলিলের মোবাইল ফোনে পিস্তল, গুলি, রামদা এবং মাথা কাটা লাশের ছবি পাঠিয়ে ভয়ভীতি দেখায়। পরবর্তীতে হুমকি প্রদানকৃত মোবাইল ও সিম কার্ডটি পানিতে ফেলে দেয়।”

খন্দকার আল মঈন আরও বলেন, “গ্রেফতার নুরুল হক ঢাকার আশুলিয়া এলাকায় বসবাস করে এবং ডিস ও ইন্টারনেট ব্যবসায়ী। সে ডিস ব্যবসার পাশাপাশি কৃষি কাজ করতো। নুরুল হক এলাকায় বিভিন্ন জনকে হুমকি প্রদানের মাধ্যমে চাঁদাবাজি, জমি দখলসহ বিভিন্ন ধরনের অপকর্মের সঙ্গে জড়িত। গ্রেফতার নুরুলের নামে ঢাকা জেলার আশুলিয়া থানায় হত্যার হুমকি, চাঁদাবাজি এবং মারামারিসহ বিভিন্ন অপরাধে ৪টির বেশি মামলা রয়েছে “ “গ্রেফতার ইমন দীর্ঘদিন ধরে নুরুলের ডিসের ব্যবসার কাজে সহায়তা করতেন। এছাড়াও সে গ্রেফতার নুরুলের সঙ্গে এলাকায় বিভিন্ন জনকে হুমকি প্রদানের মাধ্যমে চাঁদাবাজি, জমি দখলসহ বিভিন্ন অপকর্মের সঙ্গে জড়িত। এছাড়াও মাদকাসক্ত ছিলেন বলে জানা যায়। গ্রেফতার আসামিদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।”

সর্বশেষ - খবর

আপনার জন্য নির্বাচিত

মুনিয়ার মৃত্যু রহস্য খুলতে পারে যে ৫ তথ্য 

কোভিড-১৯ এর উৎস সম্পর্কিত মার্কিন গোয়েন্দাদের তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশ নিয়ে উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী মা ঝাওশু’র বিবৃতি

বিপিএম-পিপিএম পদক পেলেন ১১৫ পুলিশ কর্মকর্তা

রৌমারীতে শিশুর বস্তাবন্দী লাশ উদ্ধার

আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার ভাষণের পূর্ণ বিবরণ

গোল্ডেন লায়ন জিতল ‘নোম্যাডল্যান্ড’

ভূমিকম্প পরবর্তী দুর্যোগ ব্যবস্থাপনার উপর আন্তর্জাতিক অনুশীলনের উদ্বোধন

করোনা ভাইরাসে এখন নিরাপদ বাংলাদেশ: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

দেশজুড়ে ডেলিভারি ম্যানদের পেমেন্ট সহজ করবে বিকাশ

আমরা শান্তিতে বিশ্বাস করি, আমাদের পররাষ্ট্রনীতি অত্যন্ত স্পষ্ট: প্রধানমন্ত্রী

ব্রেকিং নিউজ :