300X70
শনিবার , ৮ জুন ২০২৪ | ৩১শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অপরাধ ও দূর্নীতি
  2. আইন ও আদালত
  3. আনন্দ ঘর
  4. আনন্দ ভ্রমন
  5. আবহাওয়া
  6. আলোচিত খবর
  7. উন্নয়নে বাংলাদেশ
  8. এছাড়াও
  9. কবি-সাহিত্য
  10. কৃষিজীব বৈচিত্র
  11. ক্যাম্পাস
  12. খবর
  13. খুলনা
  14. খেলা
  15. চট্টগ্রাম

‘সিরাজুল আলম খান ইতিহাসের অন্যতম নির্মাতা’

প্রতিবেদক
বাঙলা প্রতিদিন২৪.কম
জুন ৮, ২০২৪ ২:৩০ পূর্বাহ্ণ

বাঙলা প্রতিদিন নিউজ : স্বাধীনতা সংগ্রামের অন্যতম সংগঠক ও নিউক্লিয়াস প্রধান সিরাজুল আলম খান দাদা’র প্রথম মৃত্যুবার্ষিকীর আলোচনা সভায় বক্তারা বলেছেন, সিরাজুল আলম খান ইতিহাসের অন্যতম নির্মাতা।

শুক্রবার (৭ জুন) সিরারাজুল আলম খান দাদা’র প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষ্যে আয়োজিত আলোচনা সভায় বক্তারা এসব কথা বলেন।
গতকাল জাতীয় প্রেস ক্লাবের আবদুস সালাম হলে বিকাল ৪টায় ‘স্বাধীনতার সংগ্রাম ও সিরাজুল আলম খান’ শীর্ষক আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। সভার আয়োজন করে ‘সিরাজুল আলম খান ফাউন্ডেশন ও রিসার্চ ইনস্টিটিউট’।

সভায় সভাপতিত্ব করেন, সিরাজুল আলম খান রিসার্চ ইনস্টিটিউটের চেয়ারম্যান সাংবাদিক আবু সাঈদ খান। মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন লেখক কলামিস্ট শামসুদ্দিন পেয়ারা।
আলোচনায় অংশ নেন, জাসদ সভাপতি হাসানুল হক ইনু, বাংলাদেশ জাসদ সভাপতি শরীফ নুরুল আম্বিয়া, বাসদ উপদেষ্টা কমরেড খালেকুজ্জামান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক অর্থনীতিবিদ ড. মাহবুব উল্লাহ, সুপ্রিম কোর্টের সিনিয়র আইনজীবী জেড. আই খান পান্না, সুশাসনের জন্য নাগরিক সুজনের সম্পাদক বদিউল আলম মজুমদার, সিরাজুল আলম খান ফাউন্ডেশন ট্রাস্টি বোর্ডের সদস্য ডা. এ বি এম হারুন ও জেএসডি সহ সভাপতি এম এ আউয়াল। সভা পরিচালনা করেন, সিরাজুল আলম খান রিসার্চ ইনস্টিটিউটের সদস্য সচিব ব্যারিস্টার ফারাহ খান।

সভায় জাসদ সভাপতি হাসানুল হক ইনু বলেন, ইতিহাসের নির্মাতাদের অন্যতম নির্মাতা সিরাজুল আলম খান। বঙ্গবন্ধু ও সিরাজুল আলম খান ছিলেন এক আত্মা দুই দেহ। বঙ্গবন্ধু ছিলেন স্বাধীনতা সংগ্রামের  অবিসংবাদি নেতা আর সিরাজুল আলম খান হলেন মাঠের আন্দোলনের নেতাদের নেতা। সিরাজুল আলম খানকে শ্রদ্ধা জানাতে হলে বঙ্গবন্ধুকে শ্রদ্ধা জানাতে হবে।

ঊনসত্তর সালে গণঅভুত্থানের শুরু দিকে সিরাজুল আলম খানের সঙ্গে প্রথম দেখা হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, সিরাজুল আলম খান জাতীয়তাবাদী সংগঠনের ভেতর কাজ করেছেন। স্বাধীনতার আহ্বান জানিয়ে ১৯৬১ সালের মাঝামাঝিতে ইপিএলএফ নামে একটি প্রচারপত্র বিলি করা হয়। সেটি লিখেছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আর বিলি করেছিলেন সিরাজুল আলম খানের নেতৃত্বে ছাত্র নেতারা।

ওই প্রচারপত্রে পাকিস্তানের দুই অংশের বৈষম্যের কথা বলা হয়েছিল। আর নিউক্লিয়াস গঠিত হয়েছিল পরের বছর ১৯৬২ সালে। অনেকেই স্বাধীনতার স্বপ্ন দেখেছিলেন। আর একই স্বপ্ন নিয়ে সিরাজুল আলম খান বঙ্গবন্ধুর সংগঠনের ভেতর কাজ করার সুযোগ পেয়েছিলেন।
কমরেড খালেকুজ্জামানের এক বক্তব্যের জবাবে ইনু বলেন, সিরাজুল আলম খান জাসদ ভাঙার পর দল ছাড়েননি। জাসদ ভাঙার পর বাসদ গঠিত হওয়ার আড়াই বছর পর তিনি দল ছাড়েন।

‘অনেকেই কাপালিক, রহস্য পুরুষ বলেন। অনেকেই বলেন তিনি কোনো পদ পদবি নেননি, মঞ্চে উঠেন না, ভাষণ দেন না, নিজেকে আড়ালে রাখেন ইত্যাদি। কিন্তু তিনি যেখানে প্রয়োজন পড়েছে ভাষণ দিয়েছেন, মঞ্চেও উঠেছেন বক্তৃতা দিয়েছেন, সভা পরিচালনা করেছেন। তার মধ্যে কোনো রহস্য ছিল না। তিনি ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন, কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন, শ্রমিক লীগের সদস্য ছিলেন, জাসদ কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ছিলেন।

কেন্দ্রীয় কমিটিতে রিপোর্ট দিয়েছেন, ব্যাখ্যা দিয়েছেন, ব্যাখ্যা চেয়েছেন। তিনি রহস্য পুরুষ নন,  কাপালিক নন। তিনি যা কিছু করেছেন তা বঙ্গবন্ধুর অনুমোদনেই করেছেন। তাকে নিয়ে অপপ্রচার ও বিভ্রান্তি ছড়ানোর সুযোগ নাই।’

হাসানুল হক ইনু আরো বলেন, ভারতে কূটনৈতিক যোগাযোগ আগে থেকেই সম্পন্ন করেছিলেন বঙ্গবন্ধু। বঙ্গবন্ধু মহানায়ক আর তার ডান হাত হিসেবে তার কুশলী সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে সিরাজুল আলম খানের ভূমিকা ছিল অতুলনীয়।
সভায় বাংলাদেশ জাসদ সভাপতি শরীফ নুরুল আম্বিয়া বলেন, সিরাজুল আলম খান না হলে বঙ্গবন্ধু ও স্বাধীনতা হতে পারতো না। রাষ্ট্রীয় নেতৃত্ব উদার হলে সকলের অবদান স্বীকার করে। আমাদের নেতৃত্ব উদার নয়। আমাদের দেশকে অগ্রসর করতে হলে সকলের অবদান স্বীকার করা দরকার।

১৯৭২-৭৩-৭৪ সালের মত সিরাজুল আলম খানের চিন্তা দিয়ে এখন হয়ত কিছু হবে না। আমার সময়ে যা করার তা করেছি। এখন গণতন্ত্রের মহাসড়কে যুবকদের এগিয়ে আসতে হবে। বৃদ্ধদের দিয়ে হবে না। আমাদের পরবর্তি প্রজš§ যারা স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলন করেছেন, তাদেরও সেই বয়স আর নাই। স্বৈরাচার লুটেরা শাসনকে উচ্ছেদ করতে নতুন প্রজš§কে উজ্জীবিত হতে হবে।

সভায় বাসদ উপদেষ্টা খালেকুজ্জামান বলেন,ষাটের দশকে বামপন্থী শক্তি জনগণের আকুতি ধারণ করতে পারেনি। সেখানে জায়গা করে নিয়েছিল জাতীয়তাবাদী ধারা। সিরাজুল আলম খান জাতীয়তাবাদী ধারার আপোষমুখী প্রবনতা পরাস্থ করতে পতাকা উত্তোলন, ইশতেহার পাঠ, শেষে শ্রমিকরাজ কৃষকরাজ প্রতিষ্ঠার শ্লোগান তোলেন।
স্বাধীনতা পরবর্তিতে সিরাজুল আলম খান উপলব্ধি করেছিলেন, যুব সমাজের আকাক্সক্ষা আওয়ামী লীগ ধারণ করতে পারবে না।

তখন তিনি বৈজ্ঞানিক সমাজতন্ত্রের স্লোগান দিলেন। এই স্লোগান দিয়ে যদি শাসকদের বিরুদ্ধে না দাঁড়াতেন, তাহলে ফ্যাসিবাদ কাকে বলে মানুষ হাড়ে হাড়ে টের পেত। এখন যা টের পাচ্ছে।

আমরা বলেছিলাম গণবাহিনী নয়, ঐক্যফ্রন্ট গঠন করুন। সেদিন যদি মওলানা ভাসানীর নেতৃত্বে ঐক্যফ্রন্ট গঠন করা হত, তাহলে সামরিক অভুত্থানের বদলে গণঅভুত্থান হত।

সভায় ড. মাহবুব উল্লাহ বলেন, সিরাজুল আলম খান আমাদের ইতিহাসের অন্যতম নির্মাতাদের একজন। ইতিহাসে অনেক নির্মাতা থাকে, কিন্তু আমরা সবাইকে স্মরণ করি না। রাষ্ট্র ক্ষমতায় না থাকলে অনেকের নাম মুছে যায়। তবে জনসমাজের ভেতর থেকে উদ্যোগ থাকলে সেই মহান মানুষের অবদান স্বীকৃত হয়।

১৯৬৭ সালের শেষের দিকে ছাত্র ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন জানিয়ে তিনি বলেন,  আগে স্বায়ত্বশাসনের স্লোগান দিলে ছাত্রলীগের কর্মীরা আমাদের প্লেকার্ড কেড়ে নেওয়ার চেষ্টা করত। আমরা তাদের দক্ষিণপন্থী ও মার্কিনপন্থী মনে করতাম। কিন্তু ১৯৬৬ সালের পর থেকেই পরিস্থিতি পাল্টাতে থাকে। ছাত্রলীগের মধ্যেও স্বাধীনতার আকক্সক্ষা গড়ে উঠতে থাকে।

কারণ সিরাজুল আলম খান ছাত্রলীগের অগ্রসর কর্মীদের স্বাধীনতার জন্য প্রস্তুত করেছেন। তখন তাদের নেতাদের সঙ্গে মতের আদান প্রদানের সুযোগ তৈরি হয়। বিশেষ করে সিরাজুল আলম খানের সঙ্গে। আমার কাছে মার্কসবাদের অনেক কিছুর ব্যাখ্যা চাইতেন। তার কিছু কিছু দিতে পারতাম। অনেক কিছুর জবাব দিতে পারতাম না। তখন ওত বয়স ছিল না।
১৯৬৯ সালের গণঅভ্যুত্থানের নেতৃত্ব দিয়েছেন জানিয়ে তিনি বলেন, ভিন্ন মতের হলেও সিরাজুল আলম খানের সঙ্গে ঘনিষ্ট সম্পর্ক ছিল। পরবর্তিকালে তিনি রাজনীতির পথ হাতরে বেড়িয়েছেন। এখন সৎ নেতৃত্বের অভাব। চলছে দুর্বৃত্ত পুঁজির দাপট, চলছে ব্যাংক লোপাট ও সীমাহীন দুর্নীতি।

এই পরিস্থিতি পরিবর্তনের কাজ সহজ নয়, কঠিন। এমনকি ঊনসত্তর একাত্তরের চেয়েও কঠিন। সেই সময় শত্রু ছিল পশ্চিম পাকিস্তানিরা আর এখন নিজের ঘরেই সমস্যা। এখন চলছে বিশাল শূন্যতা। মুষ্ঠিমেয় কিছু লোক রাষ্ট্র নিয়ে যে চিন্তা করছে, সিরাজুল আলম খান তাদের মধ্যে অন্যতম। তিনি অন্তলোকে থাকতেন। প্রচারে আসতেন না। তিনি অনেক বড় মানুষ। মহৎ হৃদয়ের মানুষ। লোভ লালসার উর্ধ্বে ছিলেন। ইতিহাস তাকে মনে রাখবে।

সভাপতির বক্তব্যে সাংবাদিক আবু সাঈদ খান বলেন, বাংলাদেশের ইতিহাসের অনেকেই স্বাধীনতার উদ্যোগী হয়েছিলেন। সিরাজুল আলম খান স্বায়ত্বশাসনের আন্দোলনকে স্বাধীনতার সিংহদরজায় পৌঁছে দিয়েছিলেন। প্রথম দক্ষতার সঙ্গে ছয় দফার আন্দোলনকে এক দফার আন্দোলনে পরিণত করেছিলেন।

ছয় দফা ঘোষণার পর আওয়ামী লীগের বিখ্যত নেতারা কারাগারে অন্তরীন ছিলেন, একমাত্র মিজুনুর রহমান চৌধুরী ও কাজী গোলাম মোস্তাফা বাইরে ছিলেন। তখন তরুণরাই ছিলেন আন্দোলনের প্রাণ। সিরাজুল আলম খান তারুণ্যের শক্তির সঙ্গে শ্রমিকের শক্তির সমাবেশ ঘটিয়েছিলেন। ৭ জুন যে হরতালে তিনি কেবল তরুণদের  ভরসায় ছিলেন না।

হরতাল পালনের জন্য আদমজী পোস্তগোলাসহ বিভিন্ন শ্রমিক এলাকায় কাটিয়েছিলে। সাইদুল ইসলাম সাদু, আব্দুল মান্নান, রুহুল আমিন ভুইয়াসহ বিভিন্ন শ্রমিক নেতাদের সাতই জুনের হরতালে হাজির করতে পেরেছিলেন। শ্রমিকরা কেবল ট্রেড ইউনিয়নের রাজনীতিতে যুক্ত ছিলেন। সিরাজুল আলম খানই শ্রমিকদের ট্রেড ইউনিয়নে আন্দেলন থেকে রাজনৈতিক আন্দোলনে টেনে আনেন।

৭ জুনের পথ ধরে উনসত্তরে গণঅভ্যুত্থানে শ্রমিকদের যুক্ত করেছিলেন। বঙ্গবন্ধু যখন কারাগারের যাওয়ার আগে যে দেশ দেখেছিলেন, আর কারাগার থেকে বের হওয়ার পর দেখলেন ভিন্ন দেশ, ভিন্ন জমিন। সেই জমিন প্রস্তুত করার কারিগর ছিলেন সিরাজুল আলম খান। ১১ দফার মধ্যে বঙ্গবন্ধুর ৬ দফা হুবহু যুক্ত করা হয়েছিল। এর কৃতিত্ব সিরাজুল আলম খানের।

তিনি আরো বলেন, সরকার প্রধান সিরাজুল আলম খানের মৃত্যুতে শোকবাণী দেয়নি, এর চেয়ে দুঃখজনক আর কি হতে পারে। রাষ্ট্রের যে সম্মান দেখানো উচিৎ ছিল, রাষ্ট্র তা দেখাতে পারেনি। এটা আমাদের কষ্ট।
বদিউল আলম মজুমদার বলেন, আমিও নিউক্লিয়াসের সদস্য ছিলাম। সিরাজুল আলম খানের কথায় উদ্দীপ্ত হতাম।

৬৪ সালে ছাত্রলীগের অবস্থা ভালো ছিল না। তখন সারাদেশে ছিল ছাত্র ইউনিয়নের দূর্গ। বহু কষ্ট করে সিরাজুল আলম খান ছাত্রলীগকে দাঁড় করিয়েছেন। বাংলাদেশের স্বাধীনতা আর সিরাজুল আলম খানকে পৃথক করে দেখার সুযোগ নাই।
‘আজকের রাষ্ট্র মাফিয়াদের কবলে। আমাদের অনেকের পদক্ষলন ঘটেছে। আজ সিরাজুল আলম খানের বড় বেশি প্রয়োজন। ভবিষ্যত প্রজ্মের হৃদয়ে যেন সিরাজুল আলম খান ঠাঁই পান সেই কামনা করি।’

সুব্রত চৌধুরী বলেন, স্বাধীনতার রূপকার হিসেবে সিরাজুল আলম খান প্রতিষ্ঠিত, সারাদেশ জানে। ষাটের দশকে তিনি স্বাধীনতার বীজ বপন করেছিলেন। আজ তাদের নাম ইতিহাস থেকে মুছে ফেলার আয়োজন চলছে। নায়ক মহানায়ক থেকে প্রতিপক্ষ হিসেবে আনতে চাইছে। আজ রাজনৈতিক অঙ্গনের যে অবস্থা, তাকে তো রাষ্ট্র আর স্বাধীনতা পদক দেবে না।

এই রাষ্ট্রের স্বাধীনতা পদক তার জন্য অপমানজনক হবে। বাংলাদেশ ও সিরাজুল আলম খান একে অপরের পরিপূরক।
জেড আই খান পান্না বলেন, সিরাজুল আলম খানের নেতৃত্বে নিউক্লিয়াস গঠিত হয়েছিল। আওয়ামী লীগের মত বৃহৎ দলকে স্বাধীনতার দিকে ঠেলে দিয়েছিল। যতদিন বাংলাদেশ থাকবে, ততদিন সিরাজুল আলম খানের নাম কেউ মুছে দিতে পারবে না।

সর্বশেষ - খবর

আপনার জন্য নির্বাচিত

এডিস ও ডেঙ্গু: ডিএনসিসিতে ১৫ মামলায় ৪ লক্ষ ৪১ হাজার টাকা জরিমানা

কমলাপুরে নিরাপদ কর্মস্থলের দাবিতে গেইটকিপারদের মানববন্ধন

উখিয়ায় একই স্থানে এক ঘণ্টার ব্যবধানে দুই সড়ক দুর্ঘটনা, নিহত ৩

পঁচাত্তরের শত্রুরা এদেশে এখনো সক্রিয় : শ ম রেজাউল করিম

বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ অভিন্ন সত্তা : পর্যটন প্রতিমন্ত্রী

শেরে বাংলা কৃষক সমাজকে শোষণ থেকে রক্ষা করেছেন : কাদের

কুড়িগ্রামে দোকানে হামলার প্রতিবাদে সড়ক অবরোধ

সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবি কয়রা সাংবাদিক ফোরামের

ভারতে আন্তর্জাতিক মিডিয়া কনফারেন্সে যাচ্ছেন সাংবাদিক মোস্তফা খান

দুইপক্ষের সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ ১৩ জনসহ আহত ২০

ব্রেকিং নিউজ :