300X70
বুধবার , ৬ মার্চ ২০২৪ | ৮ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অপরাধ ও দূর্নীতি
  2. আইন ও আদালত
  3. আনন্দ ঘর
  4. আনন্দ ভ্রমন
  5. আবহাওয়া
  6. আলোচিত খবর
  7. উন্নয়নে বাংলাদেশ
  8. এছাড়াও
  9. কবি-সাহিত্য
  10. কৃষিজীব বৈচিত্র
  11. ক্যাম্পাস
  12. খবর
  13. খুলনা
  14. খেলা
  15. চট্টগ্রাম

৩ দিনে ১১শ হোটেল-রেস্তোরাঁয় অভিযান, আটক ৮৭২

প্রতিবেদক
বাঙলা প্রতিদিন২৪.কম
মার্চ ৬, ২০২৪ ৯:৩২ অপরাহ্ণ

অনিয়ম-অব্যবস্থাপনার বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত
# আতঙ্কে রেস্তোরাঁকর্মীরা
#কাচ্চি ভাইসহ অভিজাত রেস্তোরাঁয় অভিযান
#কাগজপত্র ঠিক করতে সময় চান মালিকরা
# গুলশানে ২ বাণিজ্যিক ভবন ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা
নিজস্ব প্রতিবেদক : রেস্তোরাঁর অনিয়ম-অব্যবস্থাপনার বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। গতকাল বুধবারেও একাধিক সরকারি সংস্থা বিভিন্ন দোকানে হানা দেয়। রাজধানীর গুলশান-১, গুলশান-২, বেইলি রোড, খিলগাঁও, মোহাম্মদপুর, মিরপুরসহ রাজধানীর প্রায় সব এলাকায় অভিযান চালানো হয়। এদিকে, ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) বিশেষ অভিযানে ৩ দিনে রেস্তারাঁ মালিক ও কর্মচারীসহ ৮৮৭ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। দায়ের করা হয়েছে ২০টি মামলা। গত ৩ থেকে ৫ মার্চ পর্যন্ত ঢাকার হোটেল-রেঁস্তোরা, গ্যাস সিলিন্ডারের দোকান ও কেমিক্যাল গোডাউনে এই বিশেষ অভিযান পরিচালনা করা হয়। ৩ দিনে ১১শর বেশি হোটেল-রেস্তোরাঁয় অভিযানে যায় পুলিশ।

বুধবার এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন ডিএমপির মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশনস বিভাগের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার কে এন রায় নিয়তি। তিনি জানান, ৩ ফেব্রুয়ারি ২৭৫টি হোটেল-রেস্তোরাঁয় অভিযান চালিয়ে গ্রেপ্তার করা হয়েছে ৩৪৭ জনকে। ওইদিন ২০৪টি প্রসিকিউশনে দায়ের করা হয়েছে ৫টি মামলা।
এরআগে মঙ্গলবারের গত ২৪ ঘণ্টায় অভিযান চলেছে ২৮৫ রেস্তোরাঁয়। আর আদালতে প্রসিকিউশন দেওয়া হয়েছিল ২০৪টি। রেস্তোরাকর্মী, ব্যবস্থাপকসহ গ্রেপ্তার করা হয় অন্তত ৪০০ জনকে। সব মিলিয়ে ওই দুই দিনে ৭৩০ রেস্তোরাঁয় অভিযান চালানো হয়। আদালতে প্রসিকিউশন দেওয়া হয়েছে ৪৩৩টি।

অপরদিকে, বুধবার রাজধানীর গুলশান-২ নম্বরে ‘কাচ্চি ভাই’ রেস্টুরেন্টকে ১ লাখ টাকা জরিমানা করেছে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের ভ্রাম্যমাণ আদালত। রেস্টুরেন্টটিতে ট্রেড লাইসেন্স ছাড়া অন্য কোনো অনুমতি নেই। খিলগাঁও পল্লীসংসদ এলাকায় অভিজাত রেস্তোরাঁয় অভিযান চালায় রাজউক। এ সময় বেশ কয়েকটি রেস্তোরাঁয় জরিমানাসহ মুচলেকা নেওয়া হয়। বুধবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত এই উচ্ছেদ অভিযান চালান রাজউকের পরিচালক ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ কামরুল ইসলাম। অগ্নি নিরাপত্তা নিশ্চিতে সংরতি ফায়ার এক্সটিংগুইশার মেয়াদ উত্তীর্ণ থাকাসহ বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগে গুলশান-১ নম্বরে অবস্থিত ধানসিঁড়ি রেস্টুরেন্টকে ৪০ হাজার টাকা জরিমানা করেছে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের ভ্রাম্যমাণ আদালত। গতকাল বুধবার ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের অঞ্চল-০৩ এর আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাহমুদুল হাসান এর নেতৃত্বে গুলশান ও বনানী এলাকার বিভিন্ন রেস্তোরাঁ ও ভাবনের অগ্নি নিরপত্তা ঝুঁকি পরিদর্শনপূবর্ক অভিযান পরিচালনা হয়। অভিযানে এই জরিমানা আদায় করা হয়।

কয়েকটি এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, অনেক রেস্তোরাঁকে করা হয়েছে জরিমানা, কোনোটি করা হয় সিলগালা। কোথাও ছোটখাটো ত্রুটি থাকলে তাদের মুচলেকা রেখে ছেড়ে দেওয়া হয়। আবার কাউকে জামিন দিয়েছেন আদালত। তবে ধানমন্ডি ও ভাটারা থেকে গ্রেপ্তার ১৯ জনের জামিন আবেদন নাকচ করে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেওয়া হয়েছে। কিছু এলাকায় অভিযান শুরুর আগেই টের পেয়ে গা-ঢাকা দেন দোকানকর্মী ও ব্যবস্থাপক। সব মিলিয়ে রেস্তোরাঁকর্মীদের মধ্যে বিরাজ করছে অভিযান আতঙ্ক। এদিকে গত মঙ্গলবার এক সংবাদ সম্মেলনে এ ধরনের অভিযানকে হয়রানি বলে দাবি করছে রেস্তোঁরা মালিক সমিতি। অভিযানের সঙ্গে সংশ্লিষ্টরা বলছেন, কাউকে হয়রানি করা তাদের ল্য নয়। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে ঢাকা মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার (ক্রাইম অ্যান্ড অপারেশন) ড. খন্দকার মহিদ উদ্দিন বলেন, অভিযানে আতঙ্কিত হওয়ার কারণ নেই। নিয়ম মেনে ব্যবসা করতে কারও বাধা নেই। অভিযানের মূল ল্য হলো রেস্তোঁরার পরিবেশের ব্যাপারে সবাইকে সচেতন করা। যতদিন পরিবেশ উন্নত হবে না, ততদিন অভিযান চলবে।

বেইলি রোডের সুলতান’স ডাইন, নবাবী ভোজ ছাড়াও তিনটি রেস্তোঁরাকে সিলগালা করেছে রাজউক। সেগুলো হলো, পিৎজা মাস্তান, রোস্টার ক্যাফে ও চিলপ। এ ছাড়া বেইলি ডেলি রেস্টুরেন্টে দুই লাখ, ভূতের আড্ডা রেস্টুরেন্টে এক লাখ ও সুইসে এক লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।
ঢাকা মহানগর পুলিশ থেকে প্রাপ্ত তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, রাজধানীতে সবচেয়ে বেশি অভিযান চালানো হয় মতিঝিলে। গত ৪৮ ঘণ্টায় সেখানে ১৩৩টি প্রতিষ্ঠানে হানা দেয় পুলিশ। আদালতে প্রসিকিউশন দিয়েছে ৬৫টি। অভিযানে দ্বিতীয় অবস্থানে উত্তরা; সেখানে ১০৮টি রেস্তোঁরায় অভিযান চলেছে। প্রসিকিউশন দিয়েছে ৮৭টি। রমনা বিভাগে ১০৪টি অভিযান চলেছে এবং ৩২টি প্রসিকিউশন দিয়েছেন আদালতে। লালবাগ বিভাগের অভিযান সংখ্যা ৭৫। প্রসিকিউশন সংখ্যা ৬৪। ওয়ারী বিভাগে অভিযান চলেছে ৮৪টি এবং আদালতে প্রসিকিউশন দিয়েছে ২৪টি। তেজগাঁও বিভাগের অভিযান সংখ্যা ১০৪, প্রসিকিউশন দিয়েছে ৬২টি। মিরপুর বিভাগের অভিযান সংখ্যা ৬৯, প্রসিকিউশন সংখ্যা ৫৮। গুলশান বিভাগে অভিযান চলেছে ৫৩টি, আদালতে প্রসিকিউশন দিয়েছে ৪১টি। এ ছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় রেস্তোরাঁ ছাড়াও ঝুঁকিপূর্ণ গ্যাস সিলিন্ডার রয়েছে এমন ১০৪ দোকানে অভিযান চালিয়েছে পুলিশ। তিনটি রাসায়নিক গুদামেও অভিযান চালানো হয়।

‘সংস্কারকাজের জন্য রেস্টুরেন্ট বন্ধ আছে’ এমন নোটিশ টানানো রাজধানীর বেইলি রোডের সুলতান’স ডাইনের শাখার গেটে। গত মঙ্গলবার দুপুরে রাজউকের ভ্রাম্যমাণ আদালত দোতলা ও তিন তলায় উঠে রেস্তোঁরাটি বন্ধ থাকার প্রমাণ পায়। এর পর নিচতলায় নেমে প্রধান গেট সিলগালা করে দেন আদালত। এর মধ্যেই ভবনটির চার তলার আবাসিক বাসিন্দারা ছুটে আসেন। এই গেট দিয়ে তারাও যাতায়াত করেন। এটি সিলগালা করে দিলে তারা বাসা থেকে বের হতে কিংবা ঢুকতে পারবেন না। ভ্রাম্যমাণ আদালত বিষয়টি আমলে নেন এবং সুলতান’স ডাইনের দোতলা ও তিন তলার গেট সিলগালা করেন। বেইলি রোডের নবাবী ভোজও সিলগালা করে দেয় রাজউক। এ ছাড়া ওই রোডের অন্তত চারটি প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা করা হয়।

অভিযানে নেতৃত্ব দেওয়া রাজউকের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মনির হোসেন হাওলাদার বলেন, রেস্তোরাঁর দায়িত্বপ্রাপ্ত লোকজন কোনো কাগজপত্র দেখাতে পারেননি। তাদের দাবি, সব কাগজপত্র আছে। যেহেতু কাগজপত্র উপস্থাপন করেনি, তাই আপাতত সিলগালা করা হয়েছে। কাগজপত্র দেখালে পরবর্তী পদপে নেওয়া হবে। নবাবী ভোজে সিলগালা বিষয়ে তিনি বলেন, প্রতিষ্ঠানটি করা হয়েছে আইনের ব্যত্যয় ঘটিয়ে। এ কারণে সিলিগালা করা হয়েছে।
দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে বেইলি রোডের ক্যাপিটাল সিরাজ সেন্টারের পাঁচ তলায় অবস্থিত ফুডকোর্টে অভিযান চালান ভ্রাম্যমাণ আদালত। অগ্নি সুরার কাগজপত্র হালনাগাদ না থাকায় সেখানে দুই লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

এতে ােভ প্রকাশ করেন ফুডকোর্টের পরিচালক সারফুদ্দিন। তিনি বলেন, আমাদের সবকিছু ঠিকঠাক। ফায়ারের ছাড়পত্রের জন্য আবেদন করেছি অনেক আগে। তবে সেটি আমরা হাতে পাইনি। বিষয়টি আমি ভ্রাম্যমাণ আদালতকে জানিয়েছিলাম। পুলিশের মাঠ পর্যায়ের একাধিক কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, প্রথম ২৪ ঘণ্টায় ২০৪টি প্রসিকিউশনে যদি ৩৭৪ জন আসামি হয়, তাহলে দ্বিতীয় ২৪ ঘণ্টায় ২২৯টি প্রসিকিউশনে আসামি সংখ্যা এর চেয়ে বেশি হওয়ার কথা। সে হিসাবে প্রায় ৪০০ আসামি গ্রেপ্তার করা হতে পারে। অর্থাৎ ৪৮ ঘণ্টায় গ্রেপ্তার সংখ্যা সাড়ে সাতশর বেশি। ডিএমপি অধ্যাদেশের ১০০ ধারায় তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। একই আইনের ৬৯ ধারায় প্রকাশ্যে বিচারের জন্য আদালতে প্রসিকিউশন দাখিল করা হয়। অধর্তব্য অপরাধে আসামিদের বিরুদ্ধে প্রসিকিউশন দেওয়া হয়। তবে এসব অপরাধে বেশির ভাগ েেত্র অভিযুক্তদের অর্থদণ্ড দেন আদালত। এর পর ছাড়া পান তারা। ৪৮ ঘণ্টায় বিভিন্ন অভিযোগে পুলিশ আদালতে প্রসিকিউশন দিয়েছে ৪৩৩টি।

খিলগাঁওয়ের চিত্র : রাজধানীর খিলগাঁওয়ে নাইটিঙ্গেল স্কাই ভিউ টাওয়ার আবাসিক ভবনে রেস্তোরাঁ করায় একটি সাত তলা ভবন সিলগালা করেছেন ঢাকা দণি সিটি করপোরেশনের ভ্রাম্যমাণ আদালত। মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টায় খিলগাঁওয়ে অভিযান শুরু করেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। এ সময় ভবনটি সিলগালা করা হয়। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. জাহাঙ্গীর আলম এ আদালত পরিচালনা করেন। তবে খিলগাঁও এলাকায় অভিযানের খবর পেয়ে অধিকাংশ কর্মী রেস্তোরাঁ বন্ধ করে সটকে পড়েন। অভিযানে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন করপোরেশনের অঞ্চল-২ এর নিরাপদ খাদ্য পরিদর্শক মোহা. কামরুল হাসান, ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের উপসহকারী পরিচালক এটিএম শামসুজ্জোহাসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।

অভিযানের সময় আদালত ৯১৯/১ হোল্ডিংয়ের নাইটিঙ্গেল স্কাই ভিউ টাওয়ারে গেলে সেখানে দ্বিতীয় তলার শর্মা কিং বাদে বাকি সবই ছিল রেস্তোরাঁ। তবে অভিযানের সময় মালিক বা ব্যবস্থাপক কেউ ছিলেন না। তাদের মোবাইল ফোনে কল দিয়েও কথা বলা যায়নি। এ ছাড়া রেস্তোরাঁ কর্মীরাও কোনো কাগজপত্র দেখাতে পারেননি। পরে দুপুর ১২টায় একই ভবনের তৃতীয় তলায় পাস্তা কাব নামে আরেকটি রেস্তোরাঁয় ঢোকেন অভিযানকারীরা। সেখানেও মালিককে পাননি ভ্রাম্যমাণ আদালত। এ সময় আদালত ভবনের বেজমেন্টসহ যত্রতত্র ঝুঁকিপূর্ণ রান্নাঘর গড়ে তোলায় ভবনটি সিলগালা করা হয়। এ সময় ভবনের সামনে একটি ব্যানার টানিয়ে দেন ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের প্রতিনিধিরা।
সরেজমিন এ ভবনের প্রতি তলায় একটি রেস্টুরেন্ট দেখা গেছে। নিচতলায় ছিল একটি গার্মেন্টসের শোরুম। পার্কিংয়ের জায়গায় একটি রেষ্টুরেন্টের নির্মাণকাজ চলতে দেখা গেছে।

অভিযান বিষয়ে করপোরেশনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ‘আমরা সেখানে বেজমেন্টসহ যত্রতত্র রেস্টুরেন্ট এবং অপ্রশস্ত সিঁড়ি দেখতে পাই। এ ছাড়া বিল্ডিং কোড অনুযায়ী সেখানে প্রয়োজনীয় সংখ্যক সিঁড়ি ছিল না।’ স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, খিলগাঁওয়ের ৯০ শতাংশ রেস্তোরাঁ বাসাবাড়িতে গড়ে উঠেছে, যা রাজউকের আইন অনুযায়ী অবৈধ।
রাজধানীর বেইলি রোডে গ্রিন কোজি কটেজ নামে সাত তলা ভবনে আগুন লেগে ৪৬ জনের মৃত্যুর পর সেখানকার ব্যবসা-বাণিজ্য স্থবির। বৃহস্পতিবার রাতের আগুনের ঘটনার পর ওই এলাকার কিছু দোকান খুলতে শুরু করেছে। বেইলি রোডে মানুষের আনাগোনা এখনও কম।
ঢাকায় নিউমার্কেটে অভিযান, ১৩ দোকানমালিককে জরিমানা : রাজধানীর নিউ সুপার দণি মার্কেটে অভিযান চালিয়েছে ঢাকা দণি সিটি করপোরেশন এবং ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স। এ সময় বিধিমালা ভেঙে সিঁড়িতে ভাসমান দোকান করায় ১৩টি দোকানমালিককে ৫ হাজার টাকা করে মোট ৬৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

গতকাল বুধবার দুপুর ১২টার দিকে এ অভিযান চালানো হয়। অভিযানে পরিচালনা করেন ঢাকা দণি সিটি করপোরেশনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. জাহাঙ্গীর আলম। ঢাকা দণি সিটি করপোরেশনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট বলেন, ‘মার্কেটের সিঁড়ি হচ্ছে জরুরি বহির্গমন অর্থাৎ আগুন লাগলে মানুষজন নেমে যাওয়ার জন্য। কিন্তু আমরা এখানে এসে দেখেছি সবগুলো সিঁড়ি দখল করে দোকান বসানো হয়েছে। যে কোনো দুর্ঘটনায় ফায়ার সার্ভিস সেই স্থানে পৌঁছাতে কিংবা মানুষজন নেমে যেতে বড় ধরনের সমস্যা তৈরি করবে। এ কারণে ১৩ দোকানমালিককে জরিমানা করা হয়েছে। একই সঙ্গে দোকান সরিয়ে দেওয়া হয়েছে।

কেএফসি ও ডোমিনোজ পিজ্জাকে ৪ লাখ টাকা জরিমানা : রাজধানীর রেস্টুরেন্টগুলোতে চলমান অভিযানের অংশ হিসেবে কেএফসি ও ডোমিনোজ পিজ্জাকে ৪ লাখ টাকা জরিমানা করেছে রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপ (রাজউক)। ফায়ার সেফটি না থাকা ও বাণিজ্যিক ভবনে রেস্টুরেন্ট করায় তাদেরকে এ জরিমানা করা হয়। গতকাল বুধবার রাজউক কর্মকর্তারা রাজধানীর খিলগাঁও এলাকার বিভিন্ন রেস্তোরাঁয় এ অভিযান চালান।
রাজউকের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও পরিচালক কামরুল ইসলাম জানান, কেএফসি ও ডোমিনোজ পিজ্জায় গিয়ে ফায়ার সেফটি ও ভবনে বিকল্প কোন সিঁড়ি পাওয়া যায়নি। আবাসিক ভবনে রেস্টুরেন্ট তৈরি করা হয়েছে। এসব অনিয়মের কারণে দুটি রেস্টুরেন্টকে ২ লাখ টাকা করে মোট ৪ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। এছাড়া, চায়না ল্যান্ড রেস্টুরেন্টকে ১ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। একই কারণে চারটি রেস্টুরেন্টকে মোট ৭ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।
কামরুল ইসলাম বলেন, তাদেরকে সব নিয়ম-কানুন মেনে এবং নিরাপত্তা নিশ্চিত করে রেস্টুরেন্ট চালাতে বলা হয়েছে। রেস্টুরেন্ট মালিকদের পাশাপাশি শিগগিরই ভবন মালিকদেরও শাস্তির আওতায় আনা হবে।

গুলশানে ধানসিঁড়ি রেস্টুরেন্টেকে জরিমানা :
অগ্নি নিরাপত্তা নিশ্চিতে সংরতি ফায়ার এক্সটিংগুইশার মেয়াদ উত্তীর্ণ থাকাসহ বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগে গুলশান-১ নম্বরে অবস্থিত ধানসিঁড়ি রেস্টুরেন্টকে ৪০ হাজার টাকা জরিমানা করেছে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের ভ্রাম্যমাণ আদালত। গতকাল বুধবার ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের অঞ্চল-৩ এর আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাহমুদুল হাসান এর নেতৃত্বে গুলশান ও বনানী এলাকার বিভিন্ন রেস্তোরাঁ ও ভাবনের অগ্নি নিরপত্তা ঝুঁকি পরিদর্শনপূবর্ক অভিযান পরিচালনা হয়। অভিযানে এই জরিমানা আদায় করা হয়।

অভিযানে দেখা যায়, ধান সিঁড়ি রেস্টুরেন্টের কিচেন রুমে যথাযথ নিয়ম মেনে পরিচালনা করা হচ্ছিল না। কর্তৃপ প্রয়োজনীয় কাগজপত্র দেখাতে পারিনি। এছাড়া রেস্টুরেন্টটিতে মেয়াদ উত্তীর্ণ ফায়ার এক্সটিংগুইশার পাওয়া যায়। ফায়ার সার্ভিসের নিয়ম অনুযায়ী একটি ফায়ার এক্সটিংগুইশারের মেয়াদ থাকে সর্বোচ্চ দুই বছর। কিন্তু ধানসিঁড়ি রেস্টুরেন্টে থাকা ফায়ার এক্সটিংগুইশারের মেয়াদ ১০ বছর করে লিখা আছে। যা সম্পূর্ণ ভুয়া বলে জানিয়েছে ফায়ার সার্ভিস।

এ বিষয়ে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাহমুদুল হাসান বলেন, ধানসিঁড়ি রেস্টুরেন্টে বিভিন্ন অনিয়ম পাওয়া গিয়েছে । তাদের কাছে বিভিন্ন কাগজপত্র চাওয়া হল তারা সেটি দেখাতে পারেনি। এছাড়া তাদের ফায়ার এক্সটিংগুইশারগুলো মেয়াদ উত্তীর্ণ। এসব অভিযোগের ভিত্তিতে রেস্টুরেন্ট কে ৪০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড করা হয়েছে।

কাচ্চি ভাইয়ের গ্যাস সিলিন্ডার বাথরুমে : অভিযানের খবর পেয়ে প্রশাসনের নজর এড়াতে বাথরুমে গ্যাস সিলিন্ডার লুকিয়ে রেখেছে গুলশান দুই নম্বরে অবস্থিত কাচ্চি ভাই নামের রেস্টুরেন্ট কর্তৃপ। তবে রেস্টুরেন্ট কর্তৃপরে দাবি, সিলিন্ডারে গ্যাস না থাকার কারণে বাথরুমে রেখে দেওয়া হয়েছে। এদিকে, ট্রেড লাইসেন্স ব্যতীত অন্য কোনো কাগজপত্র না থাকায় কাচ্চি ভাই রেস্টুরেন্টকে ১ লাখ টাকা জরিমানা করেছে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন। গতকাল বুধবার ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের অঞ্চল-০৩ এর আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জুলকার নায়নের নেতৃত্বে গুলশান ও বনানী এলাকার বিভিন্ন রেস্তোরাঁ ও ভাবনের অগ্নিনিরাপত্তা ঝুঁকি পরিদর্শনপূবর্ক অভিযান পরিচালনা হয়। অভিযানে এই জরিমানা আদায় করা হয়।

জরিমানা শেষে অভিযানকারী দল চলে গেলে বাথরুমে ঢুকে এই গ্যাস সিলিন্ডার দেখতে পান। বাথরুমে গ্যাস সিলিন্ডার রাখার বিষয়ে জানতে চাইলে কাচ্চি ভাই রেস্টুরেন্ট কর্তৃপ বলেন, সিলিন্ডারে গ্যাস না থাকার কারণে বাথরুমে রেখে দেওয়া হয়েছে।
নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জুলকার নায়ন বলেন, ট্রেড লাইসেন্স ব্যতীত কোন কাগজপত্র না থাকায় কাচ্চি ভাইকে ১ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। অনাদায়ে ৩ মাসের জেল দেওয়া হয়েছে। আগামী ৭ দিনের মধ্যে ফায়ার সার্টিফিকেট, পরিবেশের ছাড়পত্রসহ সকল অনুমোদন সম্পন্ন করতে হবে। যদি কাগজপত্র প্রস্তুত করতে না পারে তাহলে কাচ্চি ভাই সিলগালা করা হবে।

উল্লেখ্য, গত ২৯ ফেব্রুয়ারি (বৃহস্পতিবার) রাত ৯টা ৫০ মিনিটের দিকে রাজধানীর বেইলি রোডের গ্রিন কোজি কটেজ নামের বহুতল একটি ভবনে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। ফায়ার সার্ভিসের ১৩টি ইউনিটের চেষ্টায় রাত ১১টা ৫০ মিনিটের দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে। আগুনে ৪৬ জনের মৃত্যু হয়।
অগ্নিকান্ডের ঘটনায় ইতোমধ্যে গ্রেফতার চারজনের দুদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। এছাড়া ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তের ল্েয দুটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। এরমধ্যে রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপরে (রাজউক) আওতাধীন ৭ সদস্যের এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর প থেকে ৫ সদস্যের কমিটি করা হয়েছে।
গুলশানে ২ বাণিজ্যিক ভবন অগ্নি ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা :
অগ্নি প্রতিরোধ ব্যবস্থা না থাকায় রাজধানীর গুলশান-২ এর একটি ছয়তলা ও আরেকটি সাততলা বাণিজ্যিক ভবন ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা করে ব্যানার টানিয়ে দিয়েছেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) ভ্রাম্যমাণ আদালত।
বুধবার দুপুর ১টায় ডিএনসিসির অঞ্চল-৩ এর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জুলকার নায়ন এ আদালত পরিচালনা করেন। তার সঙ্গে আছেন সিটি করপোরেশনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাহমুদুল হাসান ও ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের কর্মকর্তারা।

এর আগে দুপুর ১২টায় গুলশান-২ এর ৪৬ নম্বর রোডের ৩৩ নম্বর হোল্ডিংয়ের এই ভবনে থাকা কাচ্চি ভাই রেস্তোরাঁকে ১ লাখ টাকা জরিমানা করেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। এছাড়া একই অভিযোগে ধানসিঁড়ি নামে আরেকটি রেস্তোরাঁকে ৪০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। আর ৩৪ নম্বর হোল্ডিংয়ে সেভা হাউজের সামনে সিঁড়িতে মালামাল রাখায় ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

এই দুটি ভবনেই অগ্নি ঝুঁকিপূর্ণ ব্যানার টানানো হয়েছে।
জানতে চাইলে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জুলকার নায়ন বলেন, ৩৩ নম্বর হোল্ডিংয়ের বাণিজ্যিক ভবনটিতে অনেকগুলো রেস্তোরাঁ রয়েছে। কিন্তু তার কোনোটিতেই অগ্নি নির্বাপণ ব্যবস্থা নেই। এছাড়া এ ভবনের দ্বিতীয় ও তৃতীয় তলায় একটি আবাসিক হোটেল রয়েছে। নাম দি এইচ হোটেল। কিন্তু অগ্নিকাণ্ড ঘটলে বের হওয়ার সুযোগ কম। দুই পাসে দুটি সিঁড়ি থাকলেও তা সরু। এমন পরিস্থিতিতে এই হোটেলটি কীভাবে অনুমোদন পেলো, তার সব কাগজপত্র আজ বিকেলের মধ্যে দিতে বলা হয়েছে। কাগজপত্র দেখে পরবর্তী করণীয় ঠিক করা হবে।

সর্বশেষ - খবর

ব্রেকিং নিউজ :