ভূমধ্যসাগরের লিবিয়া উপকূলে ভয়াবহ নৌকাডুবি: পাঁচ শিশুসহ নিহত ৪৫

 

দেশের বাহিরের ডেস্ক:

ভূমধ্যসাগরের লিবিয়া উপকূলে এই বছরের সবচেয়ে ভয়াবহ নৌকাডুবিতে পাঁচ শিশুসহ অন্তত ৪৫ জন অভিবাসী ও শরণার্থী নিহত হয়েছেন। জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থা ইউএনএইচসিআর দেওয়া তথ্যের বরাত দিয়ে বিদেশী সংবাদমাধ্যম এ খবর প্রকাশ করে।

বুধবার (১৯ আগস্ট) ইউএনএইচসিআর বলছে, ৮০ জনের বেশি যাত্রী নিয়ে যাত্রা শুরু করা ওই নৌকার ইঞ্জিন জারা উপকূলের কাছে বিস্ফোরিত হয়। তারপরই ডুবে যায় নৌকাটি। এতে প্রায় অর্ধশত মৃত্যুর ঘটনা ঘটে। স্থানীয় জেলেরা ৩৭ জনের মতো যাত্রীকে জীবিত উদ্ধার করে।

ইউএনএইচসিআর ও আন্তর্জাতিক অভিবাসী সংস্থা (আইওএম) এক যৌথ বিবৃতিতে উদ্ধার অভিযান জোরদার করার আহ্বান জানায়। তারা বলেছে, ব্যাপক উদ্ধার অভিযান ছাড়া ভূমধ্যসাগরে আরও অনেক প্রাণহানির ঘটনা ঘটতে থাকবে।

এ বছর লিবিয়া থেকে ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিয়ে ইউরোপ যাওয়ার চেষ্টারত তিনশতাধিক মানুষের প্রাণহানি ঘটে। ধারণা করা হচ্ছে প্রকৃত সংখ্যা আরও বেশি।

২০১১ সালে সাবেক প্রেসিডেন্ট মুয়াম্মার গাদ্দাফিকে ক্ষমতাচ্যুত ও হত্যার পর থেকে অভিবাসীদের জন্য ইউরোপ যাওয়ার গুরুত্বপূর্ণ ট্রানজিটে পরিণত হয়েছে লিবিয়া।

সর্বশেষ নৌকাডুবিতে বেঁচে যাওয়াদের বেশিরভাগই সেনেগাল, মালি, শাদ ও ঘানার। তাদের উদ্ধার করে লিবিয়ায় এনে আটক দেখানো হয়েছে।
সংবাদমাধ্যমের খবর, লিবিয়ায় অভিবাসীরা খুব বাজে আচরণের শিকার হচ্ছেন। বিশেষ করে তারা যদি মিলিশিয়ান কিংবা মানব পাচারকারীদের হাতে পড়েন। তাদের কাছে অভিবাসীরা নির্যাতনের শিকার তো হনই, কাছে থাকা অর্থও দিয়ে দিতে হয়।