বৈশ্বিক মহামারি করোনায় প্রাণ ফিরেছে গাজীপুরের বঙ্গবন্ধু সাফারি পার্কে

গাজীপুরের বঙ্গবন্ধু সাফারি পার্ক

গাজীপুর প্রতিনিধি
বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে দর্শনার্থী প্রবেশ বন্ধ থাকায় বদলে গেছে গাজীপুরের বঙ্গবন্ধু সাফারি পার্কের চিত্র। প্রাণ ফিরেছে এখানকার প্রকৃতি, প্রাণী ও উদ্ভিদের মাঝে। প্রাকৃতিক পরিবেশে জন্ম নিচ্ছে দেশি-বিদেশি বিভিন্ন প্রাণীর শাবক, গাছে গাছে গজাচ্ছে নতুন পাতা। কোলাহলমুক্ত পরিবেশ পেয়ে স্বাধীন বিচরণ করছে পশু-পাখি।

সরেজমিনে দেখা গেছে, সাফারি জোনের সীমানায় উন্মুক্ত বসবাস জেব্রা, হরিণ, জিরাফ, অরিক্স, গ্যাজেল, কমনইলান্দ, শামবার, ওয়েল বিস্টসহ দেশি-বিদেশি বিভিন্ন প্রাণীর। বর্তমানে এদের মধ্যে ৯টি প্রাণীর বাচ্চা হয়েছে। প্রতিনিয়ত বাড়ছে এ সংখ্যা। দর্শনার্থী না থাকায় বন্যপ্রাণীদের জন্য এ পার্ক নিরাপদ ও উপযুক্ত স্থান হয়ে উঠেছে।

বঙ্গবন্ধু সাফারি পার্কের কর্মচারীরা জানান, এখানকার বন্যপ্রাণীরা এখন নির্দ্বিধায় ও স্বাচ্ছন্দে ঘুরে বেড়াচ্ছে। এই সময় বন্যপ্রাণীদের প্রজনন আগের চেয়ে ভালো। করোনা মহামারির মধ্যেও এক মুহূর্তের জন্য প্রাণীগুলোর সেবা-যত্ন বন্ধ থাকেনি।

প্রাণীর পাশাপাশি প্রাকৃতিকভাবে পাখির সংখ্যাও বাড়ছে। পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় প্রতি বছর কিছুদিনের জন্য সাফারি পার্কে দর্শনার্থী প্রবেশ বন্ধ রাখা প্রয়োজন বলেও মনে করেন কর্মকর্তারা।

বঙ্গবন্ধু সাফারি পার্কের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (এসিএফ) মো. তবিবুর রহমান জানান, এ পার্কে অনেক প্রজাতির পাখি বসবাস করছে। পাখিগুলো বাইরে খেতে গেলেও এখানে এসে রাতযাপন করে। এটা পার্কের জন্য পজিটিভ পয়েন্ট, যা করোনার কারণে হয়েছে। এখন দর্শনার্থী কম, তাই প্রাণীদের দেখভাল করা সহজ।

তিনি আরো জানান, সঠিকভাবে রক্ষণাবেক্ষণ করা গেলে এখান থেকে দেশের অন্যান্য বিনোদন কেন্দ্রে বিভিন্ন প্রাণী সরবরাহ করার সম্ভাবনা তৈরি হবে।