আফগানিস্তানে আকস্মিক বন্যায় ৭০ জনের মৃত্যু

দেশের বাহিরে ডেস্ক:

আফগানিস্তানের উত্তর ও পূর্বাঞ্চলীয় এলাকায় আকস্মিক বন্যায় অন্তত ৭০ জনের মৃত্যু হয়েছে। কর্মকর্তারা বলছেন, এই প্রলয়ে পারওয়ান প্রদেশের রাজধানীন চারিকর শহরের বড় একটি অংশ ধ্বংসস্তুপে পরিণত হয়েছে। বুধবার (২৬ আগস্ট) পারওয়ানের মুখপাত্র ওয়াহিদা শাহকর জানিয়েছেন, ধ্বংস হয়ে যাওয়া বাড়িগুলোর নিচে চাপা পড়া মানুষদের উদ্ধারে কাজ চলছে। ফলে হতাহতের সংখ্যা বাড়তে পারে বলে জানান তিনি। এখন পর্যন্ত বেশ কয়েকটি শিশুসহ ৬৮ জনের মরদেহ এবং ৯০ জনকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করা গেছে বলেও জানিয়েছেন প্রাদেশিক সরকারের ওই কর্মকর্তা। কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরার প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।

আফগানিস্তানের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, রাতভর ভারি বৃষ্টিপাতের পর আকস্মিক বন্যায় তলিয়ে যায় পারওয়ান ও ময়দান ওয়ারদাক প্রদেশের বিশাল এলাকা। বন্যার কারণে সৃষ্ট ভূমিধসে ধ্বংস হয়েছে এসব এলাকার হাজার হাজার ঘরবাড়ি। প্রাদেশিক কর্মকর্তারা বলছেন, ঘটনার ব্যাপকতা এবং আক্রান্ত মানুষের সংখ্যা এতো বেশি যে তাদের সাহায্য পৌঁছানো প্রাদেশিক সরকারের সক্ষমতার বাইরে। কেন্দ্রীয় সরকারকে দ্রুত এগিয়ে আসার তাগিদ দিয়েছেন তারা। হতাহতদের পরিবারগুলোর প্রতি শোক জানিয়ে দ্রুত ত্রাণ পৌঁছানোর নির্দেশ দিয়েছেন আফগান প্রেসিডেন্ট আশরাফ ঘানি।

পারওয়ান প্রদেশের শাহরাক-মালিমিন গ্রামের বাসিন্দা আহমেদ জান জানিয়েছেন, ‘এখনও বেশিরভাগ মানুষ বাড়িঘরের ধ্বংসস্তুপের নিচে আটকা পড়ে রয়েছে। তিনি বলেন, আমার এলাকায় ৫০টিরও বেশি বাড়ি সম্পূর্ণ ধ্বংস হয়ে গেছে। জানি না কতো মানুষ মারা গেছে তবে বেশিরভাগই নিজ নিজ ছাদের নিচে আটকা পড়েছে। খুব ভোরে এই বিপর্যয় আঘাত হানে, সেসময় বেশিরভাগ মানুষই ঘুমিয়ে ছিল। উদ্ধারকারী দল মৃতদেহ ও আহতদের উদ্ধারে সহায়তা করছে।’

আফগানিস্তানের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র আহমাদ তামিম আজিমি জানান, বন্যার কারণে বন্ধ হয়ে গেছে পূর্ব ও উত্তরাঞ্চলীয় প্রদেশগুলোর মহাসড়ক। তিনি বলেন, ‘মানুষ উদ্ধারের পাশাপাশি আমরা মহাসড়কগুলো যান চলাচলের উপযোগী করে তুলতে কাজ করছি।’

আজিমি জানান, পারওয়ান প্রদেশে প্রায় তিনশ’ বাড়ি ধ্বংস হয়েছে আর এক হাজারের বেশি মানুষ বাস্তুচ্যুত হয়ে পড়েছে। বন্যা কবলিত মানুষের কাছে ত্রাণ পৌঁছাতে সড়ক পরিবহন ছাড়াও আকাশ পথ ব্যবহার করা হচ্ছে বলেও জানান ওই কর্মকর্তা। তিনি বলেন, বাসিন্দাদের সম্ভাব্য বন্যার বিষয়ে মঙ্গলবার রাতে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সতর্ক করা হয়েছিল।

আকস্মিক বন্যায় বাড়িঘর ও রাস্তাঘাট ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ার পাশাপাশি শত শত একর কৃষি জমি নষ্ট হয়েছে। পূর্বাঞ্চলীয় নুরিস্তান প্রদেশের প্রায় সব ফসলই বন্যার পানিতে নষ্ট হয়েছে। এছাড়া কাপিসা, পঞ্জশির এবং পাকিতা প্রদেশেও বহু বাড়ি ও সড়ক ধ্বংস হয়েছে বলেও জানান দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র আহমাদ তামিম আজিমি। পূর্বাঞ্চলীয় ময়দান ওয়ারদাক প্রদেশে আকস্মিক বন্যায় বেশ কয়েকটি বাড়ি ধ্বংস হয়ে দুই জন নিহত ও অপর পাঁচ জন আহত হয়েছে বলেও জানান আজিমি।