জাতীয় প্রেসক্লাবে খ্যাতিমান সাংবাদিক রাহাত খানের কুলখানি অনুষ্ঠিত

প্রায়ত সাংবাদিক রাহাত খান- ফাইল ছবি

নিজস্ব প্রতিবেদক:
একুশে পদকপ্রাপ্ত খ্যাতিমান সাংবাদিক ও কথাসাহিত্যিক রাহাত খানের কুলখানি অনুষ্ঠিত হয়েছে। শুক্রবার ( ৪ আগষ্ট) বাদ আসর জাতীয় প্রেসক্লাবের উদ্যোগে এই কুলখানি অনুষ্ঠিত হয়। জাতীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি সাইফুল আলমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত কুলখানিতে পরিবারের পক্ষ থেকে মরহুমের স্ত্রী অপর্ণা খান সবার কাছে দোয়া চেয়ে বক্তব্য রাখেন।

এ সময় বিএফইউজের সাবেক সভাপতি মঞ্জুরুল আহসান বুলবুল, প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি ওমর ফারুক, যুগ্ম সম্পাদক শাহেদ চৌধুরী, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ আলম খান তপু, জাতীয় প্রেসক্লাবের সদস্য কাজী রওনক হোসেন, আতাউর রহমান, দেলওয়ার হাসান, মোহাম্দ আল মামুন, শাহীন উল ইষরাম চৌধুরী প্রমুখসহ পরিবারের অন্যান্য সদস্যরাও উপস্থিত ছিলেন।

দীর্ঘদিন দৈনিক ইত্তেফাকে ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করা সাংবাদিক রাহাত খান গত ২৮ আগস্ট রাতে রাজধানীর ইস্কাটন গার্ডেনের নিজ বাসভবনে ইন্তেকাল করেন । তিনি ১৯৪০ সালের ১৯ ডিসেম্বর কিশোরগঞ্জ জেলার তাড়াইল উপজেলার পূর্ব জাওয়ার গ্রামের খান পরিবারের জন্মগ্রহণ করেন।

রাহাত খান ১৯৬১ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বাংলায় স্নাতক ডিগ্রি লাভ করেন। শিক্ষা জীবন শেষে তিনি ময়মনসিংহ জেলার নাসিরাবাদ কলেজ, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ ও চট্টগ্রাম সরকারি কলেজসহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অধ্যাপনা করেন। ১৯৬৯ সালে তিনি দৈনিক সংবাদ পত্রিকায় সাংবাদিকতা শুরু করেন। পরবর্তীতে দৈনিক ইত্তেফাকের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক ও সম্পাদক হিসেবে কর্মরত ছিলেন। তিনি জাতীয় বার্তা সংস্থা বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থা (বাসস) পরিচালনা বোর্ডের চেয়ারম্যান হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন।

রাহাত খান ১৯৯৬ সালে বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক প্রদত্ত দ্বিতীয় সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মাননা একুশে পদকে ভূষিত হন। এ ছাড়াও তিনি বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার (১৯৭৩), সুহৃদ সাহিত্য পুরস্কার (১৯৭৫), সুফী মোতাহার হোসেন পুরস্কার (১৯৭৯), আবুল মনসুর আহমদ স্মৃতি পুরস্কার (১৯৮০), হুমায়ুন কাদির স্মৃতি পুরস্কার (১৯৮২), ত্রয়ী সাহিত্য পুরস্কার (১৯৮৮) এবং দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রাষ্ট্রীয় একুশে পদক (১৯৯৬) পেয়েছেন।