শেখ হাসিনার নেতৃত্বে করোনা মোকাবেলা করে ঘুরে দাঁড়াচ্ছে বাংলাদেশ

মোস্তাফিজ বুলবুল

মোস্তাফিজ বুলবুল:
বৈশ্বিক মহামারির কবলে পড়ে আমাদের বাংলাদেশের মতো গরিব দেশের অর্থনৈতিক মেরুদণ্ড ভেঙে পড়ার পথে দাঁড়িয়েছে সেকথা আশা করি এক বাক্যে সবাই স্বীকার করবেন। করোনায় আক্রান্ত হয়ে এপর্যন্ত ৪ হাজারেরও বেশি বাংলাদেশে মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। আক্রান্ত হয়েছেন তিন লাখেরও বেশি মানুষ। তবে আমাদের দেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা করোনা মোকাবেলায় সাহসি ভূমিকা নিয়ে কাজ করে যাচ্ছেন। তিনি জীবনের ঝুঁকি নিয়ে দেশবাসীর জন্যে সব ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করেছেন। করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলার জন্যে তিনি পনোদনা কর্মসূচি ঘোষণা করে সাহসিকতার সঙ্গে তা মোকাবেলায় কাজ করে যাচ্ছেন। আক্রান্ত এলাকা গুলোতে লকডাউন কর্মসূচির মাধ্যমে স্বাস্থ্য সচেতনতা বাড়িয়ে দেয়ার শিক্ষা আমাদেরকে দিয়েছেন। ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে করোনা মোকাবেলায় স্থানীয় প্রশাসনের কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলেছেন। করোনা মোকাবেলায় কিকি পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে তা তদারকি করেছেন। শেখ হাসিনার এসব মানবিক বিষয়গুলো সত্যই দেশবাসীকে অনপ্রানীত করেছে। করোনা মোকাবেলায় উৎসাহ দিয়েছে, সাহস জুগিয়েছে ও প্রেরণা দিয়েছে। বলা চলে শেখ হাসিনার এসব সাহসি পদক্ষেপেই বাংলাদেশের মানুষ করোনার সঙ্গে যুদ্ধ করে জয়ী হতে পারছেন। শুধু তাই নয়, দেশের অর্থনৈতিক মেরুদন্ড যাতে ভেঙ্গে না পড়ে সেজন্যে সর্বদা সচেষ্ট ও সচেতন রয়েছেন তিনি। প্রতিটি সেক্টরে খোঁজ খবর রেখে তাৎক্ষণিকভাবে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করছেন। এসব কারণে তৈরি পোশাক শিল্প, প্রবাসী আয়, ও বাজার ব্যবস্থাপনায় কোন ধরনের ধস নেমেছে বাংলদেশে এমন নজির সৃষ্টি হয়েছে বলে অবস্থা দৃষ্টে মনে হয় না। বরং প্রতিটি সেক্টরেই কজে কমে গতি পেয়েছে। অর্থনীতির সঙ্গে জড়িত সব সেক্টরকে তিনি সচল রাখছেন। যারফলে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সফলভাবে করোনা মোকাবেলা করে ঘুরে দাঁড়াচ্ছে বাংলাদেশ। আবার প্রাণ ফিরে পাচ্ছে পোশাক শিল্প, পরিবহণ ব্যবস্থা, বিদেশি আয়। সবচেয়ে মজার বিষয় হচ্ছে করোনার মদ্যেও রেকর্ড উচ্চতায় রয়েছে আমাদের রিজার্ভ ফান্ড। বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ৩ হাজার ৯০০ কোটি বা ৩৯ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের রেকর্ড উচ্চতায় পৌঁছেছে। প্রবাসী আয়েও গতি এসেছে আশানুরূপ। করোনাভাইরাসের প্রকোপের মধ্যেও দেশে ১৯৬ কোটি ৩৯ লাখ ডলারের প্রবাসী আয় এসেছে, বাংলাদেশি টাকায় যার পরিমাণ ১৬ হাজার ৬৯৩ কোটি টাকা। কোরবানি ঈদের কারণে গত জুলাইয়ে রেকর্ড ২৬০ কোটি ডলার আয় এসেছিল। কেন্দ্রীয় ব্যাংক সূত্রে এ তথ্য পাওয়া গেছে। এদিকে প্রবাসী আয়, রপ্তানি আয়, বিদেশি ঋণ ও সহায়তার ওপর ভর করে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ৩ হাজার ৯০০ কোটি বা ৩৯ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের রেকর্ড উচ্চতায় পৌঁছেছে।
কেন্দ্রীয় ব্যাংক সূত্রে জানা গেছে, জুলাই ও আগস্ট মাস মিলিয়ে দেশে ৪৫৬ কোটি ৩৪ লাখ ডলারের আয় এসেছে, যা গত অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় ৫০ শতাংশ বেশি। বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র সিরাজুল ইসলাম বলেছেন, করোনার মধ্যেও প্রবাসীরা ভালো আয় পাঠাচ্ছেন। ফলে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ নতুন উচ্চতায় উঠেছে।
করোনার মধ্যেও ভালো প্রবাসী আয় আসার কারণ হিসেবে ব্যাংকাররা নানা তথ্য তুলে ধরছেন। ব্যাংকাররা বলছেন, অনেকে জমানো টাকা দেশে পাঠিয়ে দিচ্ছেন। অনেক দেশে করোনার কারণে বিশেষ ভাতাও পেয়েছেন প্রবাসীরা। সেসব অর্থ তাঁরা দেশে পাঠিয়ে দিয়েছেন। আবার প্রবাসী আয়ে ২ শতাংশ হারে নগদ প্রণোদনা পেতে দেশের টাকা দেশে আসছে কি না, এ নিয়েও সন্দেহ প্রকাশ করেছেন বেশ কয়েকজন ব্যাংকার।
বৈধ পথে প্রবাসী আয় বাড়াতে গত ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেটে ২ শতাংশ হারে প্রণোদনা ঘোষণা করে সরকার। সেই অনুযায়ী গত বছরের ১ জুলাই থেকে প্রবাসীরা প্রতি ১০০ টাকার বিপরীতে ২ টাকা প্রণোদনা পাচ্ছেন। আবার সারা দেশের ব্যাংক শাখা, এজেন্ট ব্যাংকিং, মোবাইলে আর্থিক সেবা (এমএফএস) ও এনজিওগুলোর মাধ্যমে তা পৌঁছে যাচ্ছে সুবিধাভোগীদের কাছে। ব্যাংকসংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বলছেন, করোনার কারণে অনেক প্রবাসীকে দেশে ফেরত আসতে হচ্ছে। তারা সঞ্চয় ভেঙে দেশে আনছেন। দেশফেরত এসব মানুষকে কাজে লাগানো এখন বড় চ্যালেঞ্জ। করোনাভাইরাসের প্রকোপের মধ্যেও গত জুন মাসে প্রবাসীরা ১৮৩ কোটি ডলার আয় দেশে পাঠান। সব মিলিয়ে ২০১৯-২০ অর্থবছরে প্রবাসীরা ১ হাজার ৮২০ কোটি ডলার আয় দেশে পাঠান, যা আগের অর্থবছরের তুলনায় প্রায় ১১ শতাংশ বেশি। এদিকে প্রবাসী আয়, রপ্তানি আয়, বিদেশি ঋণ ও সহায়তার কারণে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ গত মঙ্গলবার দিন শেষে বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩ হাজার ৯১৫ কোটি ডলারে। ফলে করোনাভাইরাসের মধ্যে নতুন উচ্চতা ছুঁয়েছে রিজার্ভ। আমদানি ব্যয় কমে যাওয়ায়ও রিজার্ভ বৃদ্ধি পাচ্ছে প্রতিনিয়ত। প্রতি মাসে চার বিলিয়ন ডলার আমদানি ব্যয় হিসেবে এই রিজার্ভ দিয়ে প্রায় ১০ মাসের আমদানি ব্যয় মেটানো সম্ভব বলে দাবি করা হচ্ছে। এদিকে করোনার মধ্যেও তৈরি পোশাক রপ্তানি বেড়েছে ৪৭ শতাংশ।
করোনাভাইরাসের ধাক্কা সামলে উঠছে দেশের তৈরি পোশাকশিল্প। পরপর দুই মাস ৩০০ কোটি ডলার করে পোশাক রপ্তানি হয়েছে।
গত আগস্টে চলতি বছরের সর্বোচ্চ ৩৩৬ কোটি ৩৩ লাখ মার্কিন ডলারের তৈরি পোশাক রপ্তানি হয়েছে। গত জুনে শেষ হওয়া ২০১৯-২০ অর্থবছরে মোট পোশাক রপ্তানি দাঁড়ায় ২ হাজার ৭৯৫ কোটি ডলার। করোনাভাইরাসের ধাক্কা সামলে উঠছে দেশের তৈরি পোশাকশিল্প। পরপর দুই মাস ৩০০ কোটি ডলার করে পোশাক রপ্তানি হয়েছে। তাতে সাত মাস পর ইতিবাচক ধারায় ফিরেছে পোশাক রপ্তানি। সর্বশেষ গত আগস্টে রপ্তানি বেড়েছে ৪৭ শতাংশ।
পোশাকশিল্প মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএ জানিয়েছে, গত আগস্টে চলতি বছরের সর্বোচ্চ ৩৩৬ কোটি ৩৩ লাখ মার্কিন ডলারের তৈরি পোশাক রপ্তানি হয়েছে, যা গত বছরের একই সময়ের চেয়ে ৪৭ দশমিক ২৫ শতাংশ বেশি। আর জুলাইয়ে ৩২৪ কোটি ৪৯ লাখ ডলারের পোশাক রপ্তানি হয়েছিল। তার আগের পাঁচ মাসে (ফেব্রুয়ারি-জুন) রপ্তানি কখনোই ৩০০ কোটি ডলার ছাড়ায়নি। আগস্ট মাসের প্রথম দিন ঈদের কারণে কোনো পোশাক রপ্তানি হয়নি। পরদিন ১ কোটি ৯৪ লাখ ডলারের পোশাক রপ্তানি হয়। তারপর ধীরে ধীরে রপ্তানি বাড়তে থাকে। ১৩ আগস্ট ২০ কোটি ডলারের পোশাক রপ্তানি হয়, যা পুরো মাসে সর্বোচ্চ।
যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়লে গত মার্চে একের পর এক ক্রয়াদেশ বাতিল ও স্থগিতাদেশ আসতে থাকে। এদিকে দেশেও ভাইরাসটির সংক্রমণ রোধে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করায় মাসখানেক কারখানা বন্ধ থাকে। তাতে এপ্রিলে পোশাক রপ্তানি তলানিতে গিয়ে ঠেকে। মাসটিতে ৩৭ কোটি ডলারের পোশাক রপ্তানি হয়, যা গত দুই দশকে সর্বনিম্ন। পরের মাসে রপ্তানি হয় ১২৩ কোটি ডলারের পোশাক। জুনে সেটি বেড়ে ২২৫ কোটি ডলারে ওঠে। গত জুনে শেষ হওয়া ২০১৯-২০ অর্থবছরে মোট পোশাক রপ্তানি দাঁড়ায় ২ হাজার ৭৯৫ কোটি ডলারে, যা আগের ২০১৮-১৯ অর্থবছরের চেয়ে ৬১৮ কোটি ডলার কম। ওই বছরে ৩ হাজার ৪১৩ কোটি ডলারের পোশাক রপ্তানি হয়েছিল।
মার্চে পোশাকের ক্রয়াদেশ বাতিল ও স্থগিত হওয়ায় মালিকেরা আতঙ্কিত হয়ে পড়লে সরকার রপ্তানিমুখী কারখানার শ্রমিকদের মজুরি দেওয়ার জন্য ৫ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করে। সেই তহবিল থেকে প্রায় ১ হাজার ৮০০ কারখানার মালিক ২ শতাংশ সার্ভিস চার্জে ঋণ নিয়ে তিন মাসের মজুরি দিয়েছেন। সাড়ে ৪ শতাংশ সুদে জুলাইয়ের মজুরি দিতে ঋণ সহায়তা পান মালিকেরা। আগস্ট মাসেও শ্রমিক-কর্মচারীর মজুরি দিতে ঋণ চায় পোশাকশিল্প মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএ ও বিকেএমইএ। তবে সরকারের তরফ থেকে এ বিষয়ে এখনো কোনো মতামত দেওয়া হয়নি।
এদিকে পোশাক রপ্তানিতে গতি ফিরলেও ইতিমধ্যে বেশ কয়েক হাজার শ্রমিক ছাঁটাই করেছেন পোশাকশিল্প উদ্যোক্তারা। এপ্রিলে কারখানা বন্ধের সময়ে ৬৫ শতাংশ মজুরি দিয়েছেন। ক্রয়াদেশ বাতিল ও স্থগিত হওয়া পণ্য রপ্তানি হচ্ছে। তা ছাড়া মাস্ক ও পিপিই গাউনও যাচ্ছে। সব মিলিয়ে রপ্তানি বেড়েছে। পোশাক রপ্তানিতে ৪৭ শতাংশ প্রবৃদ্ধির বিষয়ে জানতে চাইলে বিকেএমইএর প্রথম সহসভাপতি মোহাম্মদ হাতেম বলেন, ক্রয়াদেশ বাতিল ও স্থগিত হওয়া পণ্য রপ্তানি হচ্ছে। তা ছাড়া মাস্ক ও পিপিই গাউনও যাচ্ছে। সব মিলিয়ে রপ্তানি বেড়েছে। তিনি বলেন, নতুন ক্রয়াদেশ আসছে। তবে ক্রেতারা এত কম মূল্য অফার করছে যে সব ক্রয়াদেশ নেওয়া যাচ্ছে না। কেউ না কেউ সেগুলো আবার নিচ্ছেনও।
এদিকে করোনার প্রভাব কাটিয়ে গতি সঞ্চার হয়েছে ব্যবসা বাণিজ্যেও। করোনার প্রভাব কাটিয়ে আবার চাঙা হতে শুরু করেছে চট্টগ্রামের পাইকারি বাজার খাতুনগঞ্জ। ফলে ট্রাক থেকে পণ্য ওঠানো–নামানোর কাজে শ্রমিকদের ব্যস্ততা বেড়েছে। খাতুনগঞ্জের আর এম এন্টারপ্রাইজের কর্ণধার শাহেদ উল আলম জানালেন, করোনার প্রভাবে এপ্রিল– -জুনে বেচাকেনা ৪০ শতাংশে নেমে এসেছিল। এখন তা ৬০ থেকে ৭০ শতাংশে উন্নীত হয়েছে। স্বাভাবিক সময়ের মতো বেচাকেনা না হলেও ক্রেতা–বিক্রেতাদের আস্থা ফিরে আসতে শুরু করেছে। ধীরে ধীরে সেসব ব্যবসায়ী আসতে শুরু করেছেন বাজারে। বেচাকেনা সামাল দিতে এখন যেন আর ঘরে বসে থাকার সুযোগ নেই।
চট্টগ্রাম বন্দর দিয়ে আমদানি করা ভোগ্যপণ্যের প্রায় ৪০ শতাংশ খাতুনগঞ্জের ব্যবসায়ীদের মাধ্যমে বেচাকেনা হয়। এখানকার প্রায় দেড় হাজার প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে এসব পণ্য সারা দেশে যায়। ভোজ্যতেল, চিনি, গম, ডাল, মসলা ও কাঁচা পণ্য থেকে শুরু করে রাসায়নিক, ঢেউটিন, রংসহ নানা ধরনের পণ্য বেচাকেনা হয়। আমদানি করা চালও বিক্রি হয় এ বাজারে। তবে চালের মূল আড়ত খাতুনগঞ্জের পাশে চাক্তাই বাণিজ্যকেন্দ্রে। খাতুনগঞ্জ ও আশপাশের বাণিজ্যকেন্দ্র মিলিয়ে পাঁচ হাজারের মতো ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান রয়েছে। গত মার্চে করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে সাধারণ ছুটি ঘোষণার আগে খুচরা বাজারে ক্রেতাদের চাপে পাইকারি বাজারেও বাড়তি চাপ এসে পড়েছিল। এপ্রিলে ধীরে ধীরে খাতুনগঞ্জে ক্রেতা–বিক্রেতারে সংখ্যা কমে আসে। সাধারণ ছুটির সময় বাজারে প্রতিষ্ঠানের কর্মীরাই দোকান খুলে বসতেন। আর ব্যবসায়ীরা বাসায় বসে টেলিফোনে ব্যবসা পরিচালনা করতেন।
খাতুনগঞ্জের একাধিক ব্যবসায়ী জানান, এপ্রিলে পাইকারি বাজারে যে পাম তেল কেজিপ্রতি প্রায় ৫৯ টাকায় বিক্রি হয়েছে, এখন তা ৭১ টাকায় উঠেছে। সয়াবিন তেলও কেজিপ্রতি ৫ টাকা বেড়ে ৮৬ টাকায় উঠেছে। চিনির দামও কেজিপ্রতি দেড় টাকা বেড়েছে। দাম বাড়ার উত্তাপ আছে কাঁচা পণ্যেও। আড়তে পেঁয়াজ ও আদার দাম বাড়তি। রসুনের দামও বাড়তির দিকে। খাতুনগঞ্জের মেসার্স বাছা মিঞা সওদাগরের কর্ণধার মোহাম্মদ ইদ্রিস জানান, এপ্রিল–মে মাসের তুলনায় বেচাকেনা ভালোর দিকে। তবে এখনো তা স্বাভাবিক সময়ের অবস্থায় ফেরেনি।
শেয়ারবাজারে ‘জেড’ শ্রেণি থেকে বেরিয়ে আগের অবস্থানে ফিরে গেছে ১২ কোম্পানি। শেয়ারবাজারে ‘জেড’ শ্রেণি থেকে বেরিয়ে আগের অবস্থানে ফিরে গেছে ১২ কোম্পানি। পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) সিদ্ধান্তে বুধবার থেকে এসব কোম্পানির শ্রেণিমানের উন্নতি ঘটেছে। এর মধ্য থেকে যে ১২টি কোম্পানি আজ বেরিয়ে গেছে, সেগুলো হলো এবি ব্যাংক, অ্যাপোলো ইস্পাত, বিডি থাই, হাইডেলবার্গ সিমেন্ট, লিবরা ইনফিউশনস, খান ব্রাদার্স পিপি ওভেন ব্যাগ ইন্ডাস্ট্রিজ, রেনউইক যজ্ঞেশ্বর, সাফকো স্পিনিং, সালভো কেমিক্যাল, ফু-ওয়াং সিরামিকস, প্রাইম ইনস্যুরেন্স ও জাহিনটেক্স।
পরিবহণ সেক্টরেও গতি ফিরে এসেছে। এখন আর সীমিত আকারে বাস ট্রাক চলাচল করছে তা নয়, প্রতিটি সড়কেই আগের মতো যানবাহণ চলাচল শুরু হয়েছে। ফলে যাতায়াতে কমেছে মানুষের দুর্ভোগ। সবকিছুতে সচলতার ঢেউ লেগেছে শহর থেকে গ্রামাঞ্চলেও। করোনার মন্দাবস্থা কাটিয়ে সবকিছুতেই যেন প্রাণ ফিরে পাচ্ছে বাংলাদেশ। সেটা আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বেই সম্ভব হচ্ছে। এখন করোনা প্রতিষেধ টিকার অপেক্ষায় রয়েছে বাংলাদেশ। সেটা পাওয়ার পর আরো একধাপ এগিয়ে যাবে বাংলাদেশ। করোনার মতো ঝঞ্ঝাল থেকে মুক্তি পাবে বাংলাদেশের মানুষ। সেলক্ষ্যে আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করুর। স্বাস্থ্য সচেতন হতে হবে সবাইকে। তবেই বাংলাদেশ করোনামুক্ত হয়ে আগের মতো ঘুরে দাঁড়াবে। সেই প্রত্যাশায় দিন গুনছি আমরা।
লেখক: সিনিয়র সাংবাদিক