আজ আন্তর্জাতিক স্বাক্ষরতা দিবস: শেখ হাসিনার প্রচেষ্টায় নিরক্ষরতার অভিশাপ মুক্ত হচ্ছে বাংলাদেশ

মোস্তাফিজ বুলবুল

মোস্তাফিজ বুলবুল:

আজ ৮ সেপ্টেম্বর আন্তর্জাতিক স্বাক্ষরতা দিবস। বর্তমান সরকারের প্রধানমন্ত্রী ও বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা বাংলাদেশের স্বাক্ষরতার বাড়ানোর জন্যে নিরলস প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। তিনি মনে করেন ২০৪১ সালের মধ্যে একটি উন্নত দেশ ও জাতি হিসেবে বাংলাদেশকে এগিয়ে নিতে একটি শিক্ষিত জাতি গড়ে তোলা ছাড়া আর কোন বিকল্প নেই। তাই একটি দক্ষ ও শিক্ষিত জাতি গড়ে তুলতে তিনি কাজ করে যাচ্ছেন। সেই প্রচেস্টার অংশ হিসেবে বাংলাদেশে সাক্ষরতার হার এবার শূন্য দশমিক ৮ শতাংশ পয়েন্ট বেড়ে ৭৪ দশমিক ৭০ শতাংশ হয়েছে। এটা আমাদের কথা নয়। এ কথা জানিয়েছেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী জাকির হোসেন। তিনি বলেছেন সরকারের নিরলস প্রচেষ্টায় সাক্ষরতার হার বেড়েছে। আজ ৮ সেপ্টেম্বর স্বাক্ষরতা দিবস উপলক্ষে গত ৬ সেপ্টেম্বর সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য তুলে ধরেন তিনি। সংবাদ সম্মেলনে জাকির বলেন, সরকারের নিরলস প্রচেষ্টায় দেশে সাক্ষরতার হার বেড়ে এই পর্যায়ে এসেছে। ২০০৫ সালে তৎকালীন বিএনপি-জামাত জোট সরকারের সময় সাক্ষরতার হার ছিল ৫৩ দশমিক ৫০ শতাংশ।

গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী জানান, উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরোর আওতায় বিভিন্ন কর্মসূচির মাধ্যমে ১৯৯৬ থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত প্রায় এক কোটি ৮০ লাখ নিরক্ষরকে সাক্ষরজ্ঞান দেওয়া হয়েছে। সাক্ষরতা বিস্তারে এই অর্জনের জন্য বাংলাদেশ সরকার ইউনেস্কোর স্বীকৃতি স্বরূপ আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা পুরস্কার লাভ করে। তিনি বলেন, ৮ সেপ্টেম্বর সারাবিশ্বের মতো বাংলাদেশেও অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবস’। ইউনেস্কো’র উদ্যোগে ১৯৬৬ সালের ৮ সেপ্টেম্বর প্রথমবারের মতো ‘আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবস’ পালন করা হয়। এ বছরের প্রতিপাদ্য ‘কভিড-১৯ সংকট: সাক্ষরতা শিক্ষায় পরিবর্তনশীল শিখন-শেখানো কৌশল এবং শিক্ষাবিদদের ভূমিকা। কাজেই বলা যায়, করোনাকালেও শিক্ষায় বাংলাদেশ পিছিয়ে নেই, বরং এগিয়ে চলেছে। এই ধারা অব্যাহত থাকলে আগামীতে এদেশের মানুষ শত ভাগ শিক্ষিত হয়ে বিশ্বের বুকে মাথা উঁচু করে দাঁড়ানোর গৌরব অর্জন করবে বলে আমাদের বিশ্বাস।

আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবস উপলক্ষে দেয়া এক বাণীতে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ বলেছেন, ‘শতভাগ সাক্ষরতা অর্জনের কর্মসূচিকে সামাজিক আন্দোলন হিসেবে গ্রহণ করতে হবে। জ্ঞাননির্ভর অর্থনীতি ও প্রযুক্তিনির্ভর বিশ্বে কোনো জাতির উন্নয়নে সাক্ষরতার বিকল্প নেই। তিনি বলেন, ‘‘শিক্ষা জ্ঞান অর্জনের মূল ভিত্তি, আর স্বাক্ষর জ্ঞান এর প্রাথমিক সোপান। সাক্ষরতার মাধ্যমে জ্ঞান অর্জনের দ্বার উন্মুক্ত হয়, যা জীবনব্যাপী শিক্ষার সুযোগ তৈরি করে। তাই সাক্ষরতা অর্জন দেশের মানব সম্পদ তৈরির প্রথম ধাপ। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার বানীতে বলেন, “সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে ১৯৭২ সালে স্বাধীন বাংলাদেশে প্রথমবার আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবস উদযাপিত হয়। স্বাধীনতার পর পরই বঙ্গবন্ধুর সরকার কর্তৃক প্রণীত সংবিধানের ১৭(গ) অনুচ্ছেদে আইনের দ্বারা নির্ধারিত সময়ের মধ্যে নিরক্ষরতা দূর করার জন্য রাষ্ট্র কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণের অঙ্গীকার করে। শেখ হাসিনা বলেন, সকলের ঐক্যবদ্ধ প্রচেষ্টায় শতভাগ সাক্ষরতা অর্জন ও মানবসম্পদ গড়ে তোলার মাধ্যমে জাতির পিতার কাঙ্ক্ষিত ক্ষুধা, দারিদ্র্য ও নিরক্ষরতামুক্ত সোনার বাংলাদেশ বিনির্মাণ করতে পারব। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বর্তমান সরকারের নিরলস প্রচেষ্টায় দেশে সাক্ষরতার হার বৃদ্ধি পেয়েছে। তিনি বলেন, “বর্তমান সরকার দেশের নিরক্ষর জনগোষ্ঠীকে সাক্ষরতা দানের লক্ষ্যে ৬৪টি জেলায় মৌলিক সাক্ষরতা প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে। আমাদের নিরলস ও অব্যাহত প্রচেষ্টার ফলে বিগত এক দশকে সাক্ষরতার হার ২৮ দশমিক ১২ শতাংশ বেশি বৃদ্ধি পেয়ে বর্তমানে ৭৪ দশমিক ৭০ শতাংশে উন্নীত হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার বাণীতে বলেছেন, শতভাগ সাক্ষরতা অর্জন ও দক্ষ মানবসম্পদ গড়ে তোলার মাধ্যমে দেশকে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের ক্ষুধা-দারিদ্র্য এবং নিরক্ষরতামুক্ত সোনার বাংলায় পরিণত করতে হবে। তিনি বলেন, বর্তমানে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রায় (এসডিজি-৪) মানসম্মত ও সার্বজনীন শিক্ষা নিশ্চিত করা এবং জীবনব্যাপী শিক্ষা প্রসারের অঙ্গীকার ব্যক্ত করা হয়েছে। এটি বাস্তবায়নের জন্য বর্তমান সরকার সপ্তম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ ও ব্যাপক কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। তিনি বলেন, আমাদের সরকারের গৃহীত সাক্ষরতা ও উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা সংক্রান্ত উন্নয়ন কর্মসূচিগুলোর মাধ্যমে ২০২১ সালের মধ্যে নিরক্ষরতার অভিশাপ থেকে দেশকে মুক্ত করে জাতির পিতার স্বপ্ন বাস্তবায়ন করা হবে।

শেখ হাসিনা বলেন, দেশের সার্বিক উন্নয়ন ও অগ্রগতির জন্য শিক্ষিত ও দক্ষ মানবসম্পদ অপরিহার্য। সরকার দেশের নিরক্ষর জনগোষ্ঠীকে সাক্ষরজ্ঞান প্রদানের লক্ষ্যে ‘মৌলিক সাক্ষরতা প্রকল্প (৬৪ জেলা)’ বাস্তবায়ন করছে। এর মাধ্যমে দেশের ১৫-৪৫ বছর বয়সী ৪৫ লাখ নিরক্ষর নারী-পুরুষ সাক্ষরতা অর্জন করবে।
সাক্ষরতার সংজ্ঞা

দেশে দেশে সাক্ষরতার সংজ্ঞা অনেক আগে থেকে প্রচলিত থাকলেও ১৯৬৭ সালে ইউনেস্কো প্রথম সাক্ষরতার সংজ্ঞা চিহ্নিত করে এবং পরবর্তী সময়ে প্রতি দশকেই এই সংজ্ঞার রূপ পাল্টেছে। এক সময় কেউ নাম লিখতে পারলেই তাকে সাক্ষর বলা হতো, কিন্তু বর্তমানে সাক্ষর হিসেবে চিহ্নিত করার জন্য অন্তত তিনটি শর্ত মানতে হয়। ব্যক্তি নিজ ভাষায় সহজ ও ছোট বাক্য পড়তে পারবে, সহজ ও ছোট বাক্য লিখতে পারবে এবং দৈনন্দিন জীবনে সাধারণ হিসাবনিকাশ করতে পারবে। এই প্রত্যেকটি কাজই হবে ব্যক্তির প্রাত্যহিক জীবনের সাথে সম্পর্কিত। সারা বিশ্বে বর্তমানে এই সংজ্ঞাকে ভিত্তি করে সাক্ষরতার হিসাব-নিকাশ করা হয়। ১৯৯৩ সালে ইউনেস্কো এই সংজ্ঞাটি নির্ধারণ করে; তবে বর্তমানে এটিও চ্যালেঞ্জের মুখে পড়েছে। অনেক আন্তর্জাতিক ফোরাম বা কনফারেন্স থেকে সাক্ষরতার সংজ্ঞা নতুন ভাবে নির্ধারণের কথা বলা হচ্ছে যেখানে সাক্ষরতা সরাসরি ব্যক্তির জীবনযাত্রা পরিবর্তনের সাথে সম্পর্কিত হবে।

কবে থেকে শুরু সাক্ষরতা দিবস

১৯৬৬ সাল থেকে ইউনেস্কো ৮ সেপ্টেম্বর আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবস হিসেবে পালন করে আসছে। এ দিবসটি পালনের মাধ্যমে সারা বিশ্বের মানুষকে তারা বলতে চায়, সাক্ষরতা একটি মানবীয় অধিকার এবং সর্বস্তরের শিক্ষার ভিত্তি। প্রতি বছর একটি বিশেষ প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে সে বছর সাক্ষরতা দিবস পালন করা হয়।
সাক্ষরতা দিবসের উদ্দেশ্য

মানুষকে নিরক্ষরতার অভিশাপ থেকে মুক্ত করতে এবং মানুষের মাঝে সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে প্রতি বছর দিবসটি পালন করা হয়। ১৯৬৫ সালের ১৭ নভেম্বর ইউনেস্কো ৮ সেপ্টেম্বরকে আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবস হিসেবে ঘোষণা করে। ১৯৬৬ সাল থেকে বিশ্বব্যাপী দিবসটি পালিত হয়ে আসছে। বাংলাদেশে ১৯৭২ সালে প্রথম দিবসটি উদযাপন করা হয়। সাক্ষরতা একটি দেশের জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। দেশের অগ্রযাত্রায় এর একটি বড় ভূমিকা রয়েছে। শিক্ষার সঙ্গেও সাক্ষরতার রয়েছে নিবিড় যোগসূত্র। দেখা গেছে যে দেশে সাক্ষরতার হার যত বেশি সে দেশ ও জাতি তত বেশি উন্নত। বিশ্বের অন্যান্য দেশের দিকে তাকালে আমরা সেই দৃস্টান্তই দেখতে পাই। তবে সাক্ষরতার সঙ্গে সঙ্গে শিক্ষার হার বৃদ্ধির বিষয়টিও গুরুত্বপূর্ণ। শিক্ষা সাধারণত তিনটি উপায়ে অর্জিত হয়। আনুষ্ঠানিক, উপানুষ্ঠানিক এবং অনানুষ্ঠানিক। যারা আনুষ্ঠানিক শিক্ষা থেকে বঞ্চিত হয় তারা উপানুষ্ঠানিক শিক্ষার মাধ্যমে সাক্ষরতা লাভ করে থাকে। তবে সরকারের বিভিন্ন উদ্যোগে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শতভাগ শিশুকে শিক্ষার আওতায় আনার প্রাণান্ত প্রচেষ্টায় আনুষ্ঠানিক শিক্ষায় বেশিরভাগ অক্ষরজ্ঞান শুরু হচ্ছে।

সারাবিশ্বে আজও বহু মানুষ শিক্ষার আলো গ্রহণ করতে পারেনি। এমনকি নিজের পরিচয়ও লিখতে পারে না অনেক মানুষ। তাদের সাক্ষরতা দানের উদ্দেশ্যে ইউনেস্কো ৮ সেপ্টেম্বর সাক্ষরতা দিবস হিসেবে ঘোষণা করে। ১৯৬৫ সালের ৮-১৯ সেপ্টেম্বর ইউনেস্কোর উদ্যোগে ইরানের তেহরানে বিশ^ সাক্ষরতা সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। ওই সম্মেলনে প্রতি বছর ৮ সেপ্টেম্বর আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবস পালনের প্রস্তাব করা হয়। পরে ১৯৬৫ সালের ১৭ নভেম্বর ইউনেস্কো সেপ্টেম্বরকে আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবস হিসেবে ঘোষণা করে। আর ১৯৬৬ সালে ইউনেস্কো দিবসটি প্রথম উদযাপন করলেও বাংলাদেশে ১৯৭২ সালে বাংলাদেশে আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবস পালিত হচ্ছে। পৃথিবীময় ১৫ বছর বা তদূর্ধ্ব সামগ্রিক জনসংখ্যায় সাক্ষরতা হার হলো ৮৪.১ শতাংশ। পৃথিবীময় পুরুষ সাক্ষরতার হার ৮৮.১ শতাংশ এবং মহিলা সাক্ষরতার হার ৭৯.৭ শতাংশ।

গত দশ বছরে সাক্ষরতার হার বৃদ্ধি পেয়েছে ২৬.১০ শতাংশ। বাংলাদেশে সাক্ষরতার হারের ওপর ইউনেস্কো ইনস্টিটিউট ফর স্ট্যাটিসটিক্সের (ইউআইএস) ২০১৬ সালের সর্বশেষ প্রতিবেদনে এ তথ্য প্রকাশ করা হয়। সেখানে আরো বলা হয় এক দশকে প্রাপ্তবয়স্ক পুরুষ ও নারীর মধ্যে সাক্ষরতার হার বৃদ্ধির পরিমাণ যথাক্রমে ৭৫ দশমিক ৬২ এবং ৬৯ দশমিক ৯০। এই তথ্যে দেখা যায়, গত দশ বছরে শিক্ষিত যুবক ও যুব মহিলার সংখ্যা উল্লেখযোগ্যহারে বৃদ্ধি পেয়েছে। ২০১৬ সালে ১৫ থেকে ২৪ বছর বয়সী পুরুষ ও মহিলার মধ্যে সাক্ষরতার হার বৃদ্ধি পেয়েছে ৯২ দশমিক ২৪ ভাগ। যা ২০০৭ সালে ছিল ৬১ দশমিক ৮৭ শতাংশ। ইউআইএস এর তথ্য অনুযায়ী, বিশে^র বিভিন্ন দেশের সাক্ষরতার হার অনুযায়ী ভারত ৬৯ দশমিক ৩০ ভাগ, নেপাল ৫৯ দশমিক ৬৩ ভাগ, ভুটান ৫৭ দশমিক ৩ ভাগ ও পাকিস্তান ৫৬ দশমিক ৯৮ ভাগ। সাক্ষরতার দিক দিয়ে বাংলাদেশ অনেক এগিয়ে রয়েছে। প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের তথ্য ও বিভিন্ন আদমশুমারি অনুযায়ী, ১৯৭১ সালে দেশে সাক্ষরতার হার ছিল ১৬ দশমিক ৮ শতাংশ। তিন বছর পর ১৯৭৪ সালে এই হার দাঁড়ায় ২৫ দশমিক ৯ শতাংশে। ১৯৯১ সালে সাক্ষরতার হার হয় ৩৫ দশমিক ৩ শতাংশে। এ সময় দেশব্যাপী শিক্ষা বিস্তারের লক্ষ্যে ‘সমন্বিত উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা বিস্তার কার্যক্রম (ইনফেপ)’ নামে একটি প্রকল্প হাতে নেয়া হয়। এরপর ২০০১ সালে সাক্ষরতার হার বেড়ে দাঁড়ায় ৪৭ দশমিক ৯ শতাংশ।

ইউআইএস অনুযায়ী, ২০১৬ সালে সরকার শিক্ষা ক্ষেত্রে দ্বিগুণ ব্যয় করেছে। ২০১৭-২০১৮ অর্থবছরে শিক্ষা ক্ষেত্রে বাজেটে বিপুল পরিমাণ বরাদ্দ দেয়া হয়। এর কারণ শিক্ষা ক্ষেত্রে দ্রুত উন্নয়ন সাধন। বর্তমান সরকার শিক্ষানুরাগী। শিক্ষা এবং শিক্ষার মূল চালিকাশক্তি শিক্ষকদের জীবনমান উন্নয়নে নানা উদ্যোগ নিয়েছেন। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের তথ্যানুযায়ী, দক্ষতা বৃদ্ধি ও মানবসম্পদ উন্নয়নের লক্ষ্যে সরকার ২০০৯ সাল থেকেই বিভিন্ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করে আসছে।

বর্তমান সরকার একটি ডিজিটাল বাংলাদেশ উপহার দিয়েছে -এটা আমাদের জন্যে কম পাওয়া নয়। আমরা এখন ডিজিটালের বদৌলতে ঘরে বসেই বিশ্বটাকে দেখার সুযোগ পাচ্ছি। বিশ্বের প্রতিটি দেশের সাথে আমাদের যোগাযোগ ব্যবস্থা সহজ ও সুন্দর হয়েছে। বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে আরো এগিয়ে যেতে চাই। এজন্যে শিক্ষার উপর গুরুত্ব দিতে হবে। সেই লক্ষ্যেই বর্তমান সরকার কাজ করে যাচ্ছে। আমরা চাই একটি আধুনিক বাংলাদেশ। এজন্যে শিক্ষা ব্যবস্থাকে এগিয়ে নিতে স্বাক্ষরতার হার বাড়াতে হবে। প্রতিটি মানুষের শিক্ষা নিশ্চিত করতে হবে। কেউ যাতে শিকাষার আলো বঞ্চিত না হয় সেই নিশ্চয়তা নিশ্চিত করতে হবে সরকারকে। সরকারের শিক্ষা উন্নয়ন কমৃসূচিতে সহযোগিতা করার জন্যে প্রত্যেকের অবস্থান থেকে এগিয়ে আসতে হবে। সাক্ষরতা শতভাগ করা আধুনিক বাংলাদেশ গড়ার জন্য যেমন গুরুত্বপূর্ণ সেরকম গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে শতভাগ শিক্ষার হার করা। সাক্ষরতা হচ্ছে শতভাগ শিক্ষিত করার প্রাথমিক ধাপ। সেজন্য ঝরে পড়ার হার শূন্যের কোঠায় নিয়ে আসতে হবে। নিরক্ষরতা, ক্ষুধা বা দারিদ্র্য হলো দেশের উন্নয়নে প্রতিবন্ধকতাস্বরূপ। এসব সমস্যাকে মোকাবেলা করতে পারে কেবল শিক্ষা। মনে রাখতে হবে, টেকসই উন্নয়নে দেশকে সামনে এগিয়ে নিতে সবার জন্য শিক্ষার বিকল্প নেই। বিশে^র মানচিত্রে একটি সুশিক্ষিত এবং উন্নত জাতি হিসেবে সুদৃঢ় অবস্থান তৈরি করতে হবে। আমাদের আয়তনের তুলনায় জনসংখ্যা অনেক বেশি, তাই বলে এনিয়ে হতাশ হওয়া যাবে না। প্রতিটি মানুষকে শিক্ষা ও প্রশিক্ষন দিয়ে একজন একজন দক্ষ মানব সম্পদ হিসেবে গড়ে তুলতে হবে। অথচ আমাদের বাস্ব অবস্থা এরখনো ভিন্ন। এখনো শিক্ষা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে হাজার হাজার শিশু, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে নানা কারনে ঝরে পড়ছে শিশুরা, আমাদের শিশুরা শ্রমদাসে পরিণত হচ্ছে। এটা শুভ লক্ষন হতে পারে না। এসব বন্ধে নিতে হবে পরিকল্পিত পদক্ষেপ। বাড়াতে হবে শিক্ষা সম্পর্কে জনসচেতনতা। তবেই প্রতিটি ঘরে জ্বলবে শিক্ষার আলো। তখনি শতভাগ শিক্ষা নিশ্চিত করা সম্ভব হবে। সেটাই হোক আগামীদিনে লক্ষ্য ও উদ্দেশ্যে সেই প্রত্যাশা ও দাবি আমাদের। দেশে শতভাগ শিক্ষা নিশ্চিত করতে আন্তজর্অতিক স্বাক্ষরতা দিবসে হোক সবার অঙ্গীকার।

লেখক : সিনিয়র সাংবাদিক