রৌমারীতে ঝড়েপড়া শিশুদের আনন্দ স্কুলের প্রকল্পটি পূনরায় চালুর দাবী

পরিবার পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন

করছে ১২৪ শিক্ষক।

পিইসি পরীক্ষায় ১০৫টি স্কুলের পাশ ছিল শতভাগ

নাজমুল আলম, রৌমারী (কুড়িগ্রাম):

রস্ক প্রকল্পের আওতায় বাংলাদেশ ও বিশ্ব ব্যাংকের অর্থায়নে বাংলাদেশ সরকার পরিচালিত ঝড়েপড়া শিক্ষার্থীদের স্কুলগামী করতে ২০১৩, ২০১৪ ও ২০১৫ সালে তিন দফায় উপজেলার প্রত্যান্তঞ্চলে আনন্দ স্কুল চালু করা হয়। কুড়িগ্রামের রৌমারী উপজেলায় তিন ধাপে মোট ১২৪টি আনন্দ স্কুল চালু করা হলে ৫ বছর মেয়াদে স্কুলের পিইসি পরীক্ষা সম্পন্ন হওয়ার পর গত ২০১৯ সালে প্রকল্প শেষ হয়। এ কারনে ওইসব স্কুলের শিক্ষকরা বেকার হয়ে পড়ায় বতর্মানে পরিবার পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছেন। ঝড়েপড়া শিক্ষার্থীদের স্কুলগামী করতে প্রতিষ্ঠা হওয়া আনন্দ স্কুলগুলো পূনরায় চালু করে তাদের নিয়োগের জন্য জোর দাবী জানিয়েছেন শিক্ষকরা।
জানা যায়, পর্যায়ক্রমে তিন দফায় ১২৪টি আনন্দ স্কুল চালু করা হয়। প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় দফায় পিইসি পরীক্ষায় শিক্ষার্থীরা অংশ গ্রহণ করে ভালো ফলাফল নিয়ে পাশ করে। তৃতীয় দফায় ১৫টি আনন্দ স্কুলের পঞ্চম শ্রেণীর শিক্ষার্থীরা ২০১৯ সালে পিইসি পরীক্ষায় অংশ গ্রহন করে প্রকল্পটি মেয়াদ শেষ হয়ে যায়। পর্যায়ক্রমে পিইসি পরীক্ষায় ১০৫টি আনন্দ স্কুলের শিক্ষার্থীরা শতভাগ পাশ করে। রস্ক প্রকল্পের আওতায় বাংলাদেশ ও বিশ্ব ব্যাংকের অর্থায়নে বাংলাদেশ সরকার পরিচালিত ঝড়েপড়া শিক্ষার্থীদের স্কুলগামী করতে এ আনন্দ স্কুল চালু করা হয়।
গত ২০১৩, ২০১৪ ও ২০১৫ সালে রৌমারী উপজেলার প্রত্যান্তঞ্চলে ১ম দফায় মোট ৫১টি দ্বিতীয় দফায় ৫৮টি ও তৃতীয় দফায় ১৫টি আনন্দ স্কুল প্রতিষ্ঠিত হয়। প্রথম শ্রেণী হতে পঞ্চম শ্রেণী পর্যন্ত একটানা পাঁচবছর মেয়াদী প্রকল্প চালু হয়। প্রতিটি স্কুলে একজন করে শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। ১২৪টি আনন্দ স্কুল থেকে পর্যায় ক্রমে পিইসি পরীক্ষায় মোট ২ হাজার ৩শত ২০ জন ঝঁড়ে পড়া শিক্ষার্থী অংশ গ্রহন করে। এর মধ্যে শতভাগ পাশ করা স্কুলগুলো হচ্ছে চান্দারচর আনন্দ স্কুল, খাটিয়ামারী আনন্দ স্কুল, সুতিরপাড় আনন্দ স্কুল, মন্ডলপাড়া আনন্দ স্কুল, সবুজপাড়া আনন্দ স্কুল, যাদুরচর আনন্দ স্কুল, ধনারচর আনন্দ স্কুল, পাখিউড়া আনন্দ স্কুল, সোনাপুর আনন্দ স্কুল,পূর্ব পাখিউড়া আনন্দ স্কুল, দক্ষিণ টাপুরচর আনন্দ স্কুল, বাগুয়ারচর আনন্দ স্কুল, তিনতেলি আনন্দ স্কুল, বাঘমারা আনন্দ স্কুল, চরকাজাইকাট আনন্দ স্কুল, চর ইটালুকান্দা আনন্দ স্কুল, বালুরগ্রাম আনন্দ স্কুল, টাপুরচর আনন্দ স্কুল, চর ধনতলা আনন্দ স্কুল, উত্তর আমবাড়ি আনন্দ স্কুলসহ মোট ১০৫টি স্কুলের শতভাগ শিক্ষার্থী পাশ করেছে।

উল্লেখ্য, কুড়িগ্রাম জেলার রৌমারী উপজেলাটি চরাঞ্চল সীমান্তবর্তী এলাকা। দূর্গম, প্রত্যন্ত অঞ্চলের নিকটতম কোন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় না থাকায় অনেক শিশু প্রাথমিক শিক্ষার আলো থেকে বঞ্চিত হয়। অপর দিকে অনেক শিশু অত্র এলাকার কোন প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভর্তি হলেও দূরবর্তী ও অভাব অনটনের কারনে তারা ঝড়েপড়ে। ঝড়েপড়া শিক্ষার্থীরা লেখাপড়ায় দিনে দিনে আগ্রহ হারাচ্ছে। বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যা ও পরপর তিনবার নির্বাচিত বাংলাদেশ সরকারের সফল প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার ঘোষনা মোতাবেক ঝড়েপড়া শিক্ষাথীদের জন্য এই আনন্দ স্কুল চালু করেন। যাতে কোন শিশু শিক্ষার আলো থেকে বঞ্চিত না হয়। আনন্দ স্কুলের শিক্ষার্থীদের জন্য বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বই, পোশাক, শিক্ষা উপকরন, পরীক্ষার ভাতা ও উপবৃত্তি প্রদান করেছেন। আনন্দ স্কুলের ঘরের জন্য প্রতিমাসে ঘর ভাড়া দেওয়া হত। নিয়োগকৃত শিক্ষকের জন্য প্রতিমাসে পাঁচ হাজার টাকা বেতন দেওয়া হয়। আনন্দ স্কুল পরিদর্শনের জন্য সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি ও প্রধান শিক্ষককে দায়িত্ব দেওয়া হয়। এ জন্য তাদেরকে প্রতিমাসে সম্মানীভাতা দেওয়া হয়। তারা সব সময়ে আনন্দ স্কুলগুলো পরিদর্শন করেন ও পাঠদানের পরামর্শ দিতেন।
আনন্দ স্কুলের ৫বছর মেয়াদ শেষ হওয়ায় এই অভিভাবকেরা ঝড়েপড়া শিশুদের নিয়ে হতাশায় পড়েছেন।
খাটিয়ামারী আনন্দ স্কুলের শিক্ষক মোছা. ববিতা খাতুন, চরবামনের চর আনন্দ স্কুলের শিক্ষক মোছা. তৌহিদা খাতুন ও চান্দার চর আনন্দ স্কুলের শিক্ষক মোছা.রোকছানা খাতুন জানান, আমাদের স্কুলে শতভাগ শিক্ষার্থী পাশ করেছে। এসবের অবদান তিনবারে সফল প্রধানমন্ত্রী ও জননেত্রী শেখ হাসিনার। তিনি এ আনন্দ স্কুল চালু না করলে ঝড়েপড়া শিক্ষার্থীরা শিক্ষার আলো থেকে বঞ্চিত থাকত। অপরদিকে আনন্দ স্কুলের ৫বছর মেয়াদ শেষ হওয়ায় আমরা বেকার হয়ে পড়েছি। আনন্দ স্কুলটি পূনরায় চালু করার দাবী জানিয়ে বর্তমান সরকারের প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী জাকির হোসেন (এমপি) বরাবরে একটি স্বারক লিপি প্রদান করা হয়। অনুলিপি উধ্বর্তন কর্তৃপক্ষসহ বিভিন্ন দপ্তরে প্রেরণ করা হয়েছে। সেই সাথে বর্তমান সফল মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছেও আকুতি জানান।

আনন্দ স্কুলের পুল শিক্ষক মো. আতাউর রহমান, মো. ইদ্রিস আলী. মো. খয়রাত হোসেন জানান, অন্যান্য স্কুলের চেয়ে আনন্দ স্কুলের শিক্ষারমান অনেক ভালো। ৩৫টি স্কুলের শিক্ষার্থী শতভাগ পাশ করেছে। প্রকল্পটি আবারো চালু করলে ঝড়েপড়া শিক্ষার্থী শুন্যের কোঠায় আসবে এবং বেকারত্ব শিক্ষকদের বেকারত্ব দুর করে মানবেতর জীবন যাপন থেকে রক্ষা পাবে।

আনন্দ স্কুলের উপজেলা কো-অডিনেটর মো. আবু রায়হান বলেন, ঝড়েপড়া শিক্ষার্থীদের নিয়ে গড়ে উঠা আনন্দ স্কুলের কার্যক্রম ভালোই চলছিল। রৌমারী উপজেলায় আনন্দ স্কুলের পাশের হার ৯৬%।
উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. নজরুল ইসলাম জানান, আনন্দ স্কুলের ফলাফল অনেক ভালো। প্রকল্পটি পূনরায় চালু করা হলে ঝড়েপড়া শিক্ষার্থীর সংখ্যা কমে যাবে, পাশাপাশি কিছু বেকারের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা হবে।