এক স্বৈরশাসকের বিরুদ্ধে দাঁড়ানো ৩ নারী

অনলাইন ডেস্ক: বেলারুশের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ফলাফল পাঁচ সপ্তাহ পর জানতে পেরেছিল দেশটির জনগণ। ইউরোপের শেষ ও দীর্ঘমেয়াদি স্বৈরশাসক প্রেসিডেন্ট আলেক্সান্ডার লুকাশেঙ্কোকে যথারীতি বিজয়ী ঘোষণা করেছিল নির্বাচন কমিশন। ৮০ দশমিক ২৩ শতাংশ ভোট পেয়ে বিজয়ী হন লুকাশেঙ্কো।

কমিশনের এই ফলকে প্রত্যাখ্যান করে পুর্ননির্বাচনের দাবিতে আন্দোলনে নামে বিরোধী দলগুলো। স্বৈরতান্ত্রিক শাসনের বেলায় যা হয়, ফলাফল তা-ই হলো। বিরোধীদের ওপর শুরু হলো দমন-পীড়ন। দেশটিতে লুকাশেঙ্কো বিরোধী তিনটি শীর্ষস্থানীয় রাজনৈতিক দলের নেতাই নারী। লুকাশেঙ্কোর হুমকি-ধমকির মুখে এই তিন নারী শেষ পর্যন্ত জনগণের দৃষ্টির আড়ালে চলে গেলেন কিংবা দেশ ছেড়ে পালিয়ে গেল।

বেলারুশের সরকারি সংবাদমাধ্যমের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, সর্বশেষ দেশ ছেড়ে পালানোর চেষ্টা করছিলেন অন্যতম প্রধান বিরোধী দলের নেতা মারিয়া কলেসনিকোভা। মঙ্গলবার তাকে ইউক্রেন সীমান্ত থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

সিএনএন জানিয়েছে, সোমবার উধাও হয়ে যান মারিয়া কলেসনিকোভা। এর পরপর উধাও হন বেলারুশের প্রধান বিরোধীদের জোট কোঅর্ডিনেশন কাউন্সিলের দুই সদস্য। এই দুইজন স্থানীয় সময় ভোর ৪টার সময় ইউক্রেন সীমান্ত পার হয়ে যায়। তবে মারিয়া পারেননি।

আগস্টে অনুষ্ঠিত প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে লুকাশেঙ্কোর বিরুদ্ধে দাঁড়িয়েছিলেন সেভেতলানা তিখানোভস্কয়া। নির্বাচনের পরপর ফলাফল নিয়ে প্রথম তিনি চ্যালেঞ্জ ছুঁড়েছিলেন লুকাশেঙ্কোর প্রতি। নির্বাচনের ফল প্রত্যাখ্যান করে তিনি বিক্ষোভের ডাক দেন। তবে কয়েক দিনের মাথায় প্রতিবেশী লিথুনিয়ায় পালিয়ে যান তিনি। সেভেতলানার স্বামী ছিলেন দলটির নেতা। তিনি আটক আছেন কারাগারে।

ভেরোনিকা তিসেপকালো ছিলেন সেভেতলানা তিখানোভস্কয়ার উপদেষ্টা। নির্বাচনে ভেরোনিকার স্বামী ভ্যালেরি প্রার্থীতার আবেদন করলে তা প্রত্যাখ্যাত হয়। গ্রেপ্তারের হুমকির মুখে সন্তানদের নিয়ে তিনি চলে যান রাশিয়ায়। নির্বাচনের আগ মুহূর্তে হুমকি দেওয়া হয় ভেরোনিকাকেও। ওই সময় তিনি পালিয়ে মস্কোয় চলে যান স্বামীর কাছে। এই পরিবারটি এখন পোল্যান্ডে স্বেচ্ছানির্বাসনে রয়েছে।