হোয়াইটওয়াশ এড়াল অস্ট্রেলিয়া

মাঠে মাঠে ডেস্ক: তিন ম্যাচ টি-টোয়েন্টি সিরিজ আগেই নিশ্চিত করেছিল ইংল্যান্ড। স্বাগতিকদের লক্ষ্য ছিল অস্ট্রেলিয়াকে হোয়াইটওয়াশ করা। কিন্তু শেষ ম্যাচে জয়ের মুখ দেখেছে অ্যারন ফিঞ্চের দল। ৫ উইকেটের সহজ জয়ে হোয়াইটওয়াশ এড়িয়েছে অস্ট্রেলিয়া। আগে ব্যাটিং করে ইংল্যান্ড ৬ উইকেটে ১৪৫ রান তোলে। জবাবে শেষ ওভারে জয় নিশ্চিত করে সফরকারীরা।

সিরিজের প্রথম দুই টি-টোয়েন্টি জেতায় নিয়মিত একাদশে একাধিক পরিবর্তন আনে ইংল্যান্ড। শেষ দুই ম্যাচের নায়ক জস বাটলার ছিলেন না। নিয়মিত অধিনায়ক এউয়ন মরগ্যানও ছিলেন বিশ্রামে। নতুন অধিনায়ক মঈন আলী দলকে ভালোভাবে নেতৃত্ব দিলেও জয়ের স্বাদ দিতে পারেননি।

এদিন ইংল্যান্ডের ব্যাটিংয়ের শুরুটা ভালো হয়নি। টম বেটন মাত্র ২ রানে সাজঘরে ফেরেন। হাসেনি ডেভিড মালানের ব্যাট (২১)। স্যাম বিলিংসও (৪) এদিন ছিলেন নিষ্প্রভ। দলকে একাই টেনে যাচ্ছিলেন জনি বেয়ারস্টো। উইকেট রক্ষক ব্যাটসম্যান তুলে নেন হাফ সেঞ্চুরি।

অ্যাস্টন অ্যাগারকে তুলে মারতে গিয়ে ফিরতি ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফেরার আগে বেয়ারস্টো ৪৪ বলে করেন ৫৫ রান। সমান ৩টি করে চার ছক্কা হাঁকান বেয়ারস্টো। মঈন আলী ব্যাটিংয়ের শুরুটা ভালো করেছিলেন। কিন্তু বিতর্কিত আউটে থামে তার ইনিংস। স্টার্কের বল মিড উইকেট দিয়ে উড়িয়েছিলেন বাঁহাতি ব্যাটসম্যান। সীমানায় দাঁড়ানো স্মিথ বল ভালোভাবে লুফে নিয়েছিলেন। কিন্তু তার পা সীমানা দড়ির চুমু খেয়েছিল। আম্পায়ার সফট সিগন্যাল আউট দিলে তৃতীয় আম্পায়ার তা পরিবর্তন করেননি। ২১ বলে ২ চার ও ১ ছক্কায় ২৩ রানে থামে ইংলিশ অধিনায়কের ইনিংস। শেষ দিকে জো ডেনলি ১৯ বলে করেন ২৯ রান।

অস্ট্রেলিয়ার পাঁচ বোলার প্রত্যেকেই পেয়েছেন উইকেট। সর্বোচ্চ ২ উইকেট পান অ্যাডাম জাম্পা। এছাড়া একটি করে উইকেট নেন স্টার্ক, হ্যাজেলউড, রিচার্ডসন ও অ্যাগার।

লক্ষ্য তাড়ায় ফিঞ্চের ৩৯ ও স্টনিসের ২৬ রানে শুরুতে প্রতিরোধ পায় অস্ট্রেলিয়া। মধ্যভাগে ম্যাক্সওয়েল (৬), স্মিথ (৩) ভালো করতে পারেননি। ওয়েড করেন মাত্র ১৪ রান। শেষদিকে সেই চাপ সামলে নেন মিচেল মার্শ। ৩৬ বলে ৩৯ রান করেন ডানহাতি ব্যাটসম্যান। ২ চার ও ১ ছক্কায় মার্শ ইনিংসটি সাজান। তার সঙ্গে ১৬ রানের গুরুত্বপূর্ণ ইনিংস খেলেন অ্যাস্টন অ্যাগার।

বল হাতে আদীল রশিদ ২১ রানে নেন ৩ উইকেট। ১টি করে উইকেট নেন টম কুরান ও মার্ক উড। ম্যাচসেরার নির্বাচিত হন মার্শ। সিরিজসেরা জস বাটলার।