লালমনিরহাট জেলা কারাগার কর্তৃপক্ষকে  চিঠি দিয়ে হুমকি, নিরাপত্তা জোরদার

লালমনিরহাট জেলা কারা কর্তৃপক্ষ নিরাপত্তা জোড়দার করেছে - ছবি এম এ মান্নান

এম এ মান্নান, লালমনিরহাট :
লালমনিরহাট জেলা হামলা চালিয়ে সাথী ভাইদের নিয়ে যাওয়ার উড়ো চিঠি ও মোবাইলে হুমকি দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। এ ঘটনায় নিরাপত্তা জোরদারের পাশাপাশি থানায় জিডি করেছেন কারা কর্তৃপক্ষ। রোববার রাতে এ ঘটনায় লালমনিরহাট সদর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছেন লালমনিরহাট জেলা কারাগার কর্তৃপক্ষ।

লালমনিরহাট জেলা কারা কর্তৃপক্ষ নিরাপত্তা জোড়দার করেছে – ছবি এম এ মান্নান

এ ঘটনায় সোমবার (১৪ সেপ্টেম্বর) দুপুর ১২টার দিকে কারাগারের মূল ফটকের সামনের রাস্তায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়। একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র জানিয়েছে, গত সপ্তাহে লালমনিরহাট কারাগারের জেল সুপার ও জেলা প্রশাসককে একটি উড়ো চিঠি পাঠানো হয়।ওই চিঠিতে কারাগারে হামলা চালিয়ে দুর্বৃত্তরা তাদের সাথী ভাইদের ছিনিয়ে নেওয়ার কথা উল্লেখ করে হুমকি দেয়। চিঠিটি আমলে নিয়ে কারাগারের নিরাপত্তা জোরদারের পাশাপাশি ঘটনাটির তদন্ত শুরু করেছে প্রশাসন। এরই মধ্যে শনিবার (১২ সেপ্টেম্বর) বিকেলে জেল সুপার কিশোর কুমার নাগকে একটি টেলিটক নম্বর থেকে ফোন করে একইভাবে হুমকি দেওয়া হয় বলে জানান ওই সুত্রটি। বলা হয় যেকোনো মূল্যে জেলখানা থেকে তাদের সাথী ভাইদের মুক্ত করা হবে। মোবাইল ফোনে এমন কলের পরপরই কারাগারের রাস্তাসহ আশপাশের নিরাপত্তা জোরদার করা হয়। হঠাৎ নিরাপত্তা জোরদারে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হলে বিষয়টি প্রকাশ পায়। মোবাইল ফোন ও চিঠিতে হুমকি দেওয়ার ঘটনায় রোববার রাতে লালমনিরহাট সদর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন কারাগার কর্তৃপক্ষ। লালমনিরহাট সদর থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহ আলম জেলা কারাগারে হুমকি দিয়ে উড়ো চিঠি কিংবা জিডির ব্যাপারে কোন মন্তব্য না করে জানান, সেখানে গুরুত্বপূর্ন  কিছু মামলার আসামী থাকায় আমরা নিরাপত্তার ব্যাবস্থা নিয়েছি। লালমনিরহাট কারাগারের জেল সুপার কিশোর কুমার নাগ বলেন, জিডি আমাদের নিরাপত্তার একটি অংশ। সারাদেশে জেলখানার নিরাপত্তা সব সময় থাকে। নিরাপত্তার বিষয়গুলো ডিসকাস করা হয় না। তিনি আরো বলেন, ১৯০ জনের ধারণক্ষমতার এ কারাগারে এখন পর্যন্ত ৪৬৬ জন আসামি ও কয়েদি রয়েছেন। যার মধ্যে নাশকতা সহ বিভিন্ন মামলায় জঙ্গি সংগঠনের সক্রিয় সদস্য এ কারাগারে। লালমনিরহাট জেলা প্রশাসক আবু জাফর  গত সপ্তাহে তাকে কিংবা তার দপ্তরে হুমকি দিয়ে চিঠির বিষয়টি নিয়ে কোন তথ্য না দিয়ে জানান, একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে লালমনিরহাট সদর থানায় জেলা প্রশাসনের সাধারন ডায়েরী করা হয়েছে। সে ব্যাপারে তদন্ত চলছে। তিনি আরো জানান এ ধরনের গুরুত্বপুন্ন কোন ব্যাপারে কর্তপক্ষের অনুমতি ছাড়া সুনির্দিষ্ট করে কিছু বলা সম্ভব নয়।