আহমদ শফীকে হাটহাজারী বায়তুল আতিক জামে মসজিদের সামনের কবরস্থানে দাফন করা হবে

ডেস্ক রিপোর্ট:
আসগর আলী হাসপাতালে অবস্থানরত একাধিক আলেম জানান, আহমদ শফীর মরদেহ গোসল করিয়ে শুক্রবার রাতেই চট্টগ্রামের উদ্দেশে রওনা হন।

হেফাজতে ইসলামের চট্টগ্রাম মহানগর শাখার প্রচার সম্পাদক আ ন ম আহমেদ উল্লাহ জানান, আজ শনিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) দুপুর ২টায় হাটহাজারী মাদরাসা মাঠে হেফাজত আমিরের জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। সকাল থেকে জোহর নামাজ পর্যন্ত হাটহাজারী মাদরাসার কনযুদ্দাকায়েক শ্রেণীকক্ষে তার মরদেহ সকলের শেষ দেখার জন্য রাখা হবে। জানাজা শেষে মাদরাসা প্রাঙ্গণের অভ্যন্তরে বায়তুল আতিক জামে মসজিদ সম্মুখস্থ কবরস্থানে দাফন করা হবে।

উল্লেখ্য, আহমদ শফী বার্ধক্যজনিত কারণে শুক্রবার সন্ধ্যায় রাজধানীর আসগর আলী হাসপাতালে মারা যান। শাহ আহমদ শফী চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়া থানার পাখিয়ারটিলা গ্রামে ১৯৩০ সালে জন্মগ্রহণ করেন। ২০১০ সালে হেফাজতে ইসলাম নামে একটি ধর্মীয় সংগঠন প্রতিষ্ঠা করেন। তিনি একইসাথে কওমি মাদরাসা বোর্ড বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়া বাংলাদেশের চেয়ারম্যান ছিলেন।

চলতি বছরে গত বুধবার (১৬ সেপ্টেম্বর) আহমদ শফীর পদত্যাগ এবং তার ছেলে আনাস মাদানীকে মাদরাসা থেকে বহিষ্কারসহ ৫ দফা দাবি নিয়ে দারুল উলুম হাটহাজারীর ছাত্ররা আন্দোলন শুরু করে। দুপুর থেকে এ আন্দোলন শুরু হয়। রাতে আনাস মাদানীকে বহিষ্কার করা হয় এবং গত বৃহস্পতিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) আল্লামা শফী চট্টগ্রামের হাটহাজারী বড় মাদরাসার মুহতামিম পদ (মহাপরিচালক) থেকে স্বেচ্ছায় পদত্যাগ করেন। পরে স্বাস্থ্যবিধি লঙ্ঘনের কারণ দেখিয়ে অনির্দিষ্টকালের জন্য হাটহাজারী মাদরাসা বন্ধ ঘোষণা করে সরকার। এর আগে ছাত্ররা সরকারের এ ঘোষণা প্রত্যাখ্যান করে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছিলো।