মুচলেকা দিয়ে ছাড়া পেলেন ভিপি নুর

নিজস্ব প্রতিবেদক:

মুচলেকা দিয়ে ছাড়া পেলেন ভিপি নুর। এর আগে ধর্ষণ মামলায় তাকে আটক করে পুলিশ। সেই সাথে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই ছাত্রীসহ আটক করা হয় অন্তত ৭ জনকে। তাদের রমনা থানায় নেয়া হয়েছে। রাতে ধর্ষণ মামলার প্রতিবাদে রাজধানীর মৎস ভবন মোড়ে বিক্ষোভ সমাবেশ করে, সাধারণ ছাত্র অধিকার পরিষদের। এতে পুলিশ বাধা দিলে সংঘর্ষ হয়। এসময় পাঁচ পুলিশ সদস্য আহতে হয়েছেন। এর আগে রাজধানীর লালবাগ থানায়, বাদী হয়ে মামলাটি করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থী।

মৎসভবন মোড়ে প্রায় ১৫ মিনিট ধরে এমন সংঘর্ষ চলে পুলিশ ও সাধারণ ছাত্র অধিকার পরিষদের কর্মীদের মধ্যে।

পুলিশের লাঠি চার্জের বিপরীতে নূরুর সহযোগিতা প্রতিবাদ গড়তে চাইলেও, টিকতে পারেনি বেশিক্ষণ। সংঘর্ষের রেশ গড়ায় দুদক কার্যালয়ের সামনে পর্যন্ত। সেখানেও লাঠিপেটা করে ছত্রভঙ্গ করে পুলিশ। তার আগেই ভিপি নূরু ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই ছাত্রীসহ আটক করা হয় অন্তত ৭ জনকে। তাদের নেয়া হয় রমনা থানায়।

ঘটনার শুরু টিএসসি মোড়ে। ভিপি নূরুল হক নূরুসহ সাধারণ ছাত্র অধিকার পরিষদের ৫ সদস্যের বিরুদ্ধে রাজধানীর লালবাগ থানায় ধর্ষন মামলা দায়েরের বিরুদ্ধে রাজু ভাস্কর্যের সামনে বিক্ষোভ সমাবেশ করে তারা। সেখানে নূরু অভিযোগ করেন, সম্প্রতি রাজনৈতিক দল গঠনের ঘোষণা দেয়ায় সরকারের নির্দেশে মিথ্যা মামলা দেয়া হয়েছে।

সেখান থেকে মিছিল নিয়ে শাহবাগের দিকে গেলে বাধা দেয় পুলিশ। লাঠি চার্জ না করার অনুরোধ জানিয়ে শাহবাগেই মিছিল করে নূরু ও তার সহযোগীরা। কিন্তু, অন্তক শ খানেক সঙ্গী নিয়ে তারা শাহবাগ থেকে মৎসভবনের দিকে অগ্রসর হলে ছত্রভঙ্গ করে দেয় পুলিশ।

পরে পুলিশের দাবি তারা জঙ্গি মিছিল করেছে।

রাজধানীর লালবাগ থানায় দায়ের করা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীর মামলার মূল অভিযুক্ত ছাত্র অধিকার পরিষদের আহ্বায়ক হাসান আল মামুন। আর নুরের বিরুদ্ধে আনা হয়েছে ধর্ষণে সহায়তার অভিযোগ। অন্য আসামিরা হলেন, নাজমুল হাসান সোহাগ, মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম, নাজমুল হুদা ও আবদুল্লাহ হিল বাকি।