বিশ্বের সফল নারী নেতৃত্বে শীর্ষবিন্দু স্পর্শী শেখ হাসিনা

বাঙলা প্রতিদিন রিপোর্ট:
বিশ্বনন্দিত নেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বিশ্বের নারী নেতৃত্বাধীন সরকারপ্রধানদের মধ্যে সবচেয়ে বেশিদিন দেশ পরিচালনার ঐতিহাসিক রেকর্ড করেছেন। ১৯৯৬, ২০০৯, ২০১৪ এবং ২০১৯ সালের ৭ই জানুয়ারি চতুর্থ বারের মতো প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ গ্রহণ করেন। বর্তমান মেয়াদের পূর্ণ সময় সমাপ্ত হলে তাঁর সরকার পরিচালনার অভিজ্ঞতা হবে ২০ বছর। আন্তর্জাতিক সংস্থা উইকিলিকসের গভীর গবেষণা থেকে জানা যায়, নারী সরকারপ্রধান হিসেবে বহু বছর দেশ পরিচালনায় ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী, যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী মার্গারেট থ্যাচার এবং শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেট ও প্রধানমন্ত্রী চন্দ্রিকা কুমারা তুঙ্গার মতো নেত্রীদের পেছনের সারিতে রেখে উল্কার মতো গতিতে এগিয়ে যাচ্ছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

উইকিলিকসের জরিপে বলা হয়েছে, ‘শেখ হাসিনা এখন নারীদের পুনর্জাগরণের প্রতীক।’ বিশ্বে পরিচিতি ও দীর্ঘদিন ক্ষমতায় থাকার বিষয়কে গুরুত্বারোপ করে এ তালিকাটি প্রস্তুত করা হয়েছে। এ জরিপ অনুসারে সেইন্ট লুসিয়ার গর্ভনর জেনারেল ডেম পিয়ারলেত্তে লুজি সবচেয়ে দীর্ঘ সময় ক্ষমতায় থাকা নারী রাষ্ট্রপ্রধান। তিনি ১৯৯৭ সালের ১১ই সেপ্টেম্বর থেকে ২০১৭ সালের ৩১শে ডিসেম্বর পর্যন্ত ক্ষমতায় ছিলেন। ২০ বছর ১০৫ দিন দেশ পরিচালনা করলেও বিশ্ব রাজনীতিতে শেখ হাসিনার মতো বহির্বিশ্বে তার ততটা পরিচিতি নেই। দেশে-বিদেশের অনেক প্রবীণ রাজনীতিবিদ ও রাজনৈতিক বিশ্লেষক বলেন, সফল রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা যদি শারীরিকভাবে সক্ষম ও সুস্থ্য থাকেন, তাহলে ডেম পিয়ারলেত্তে লুজির রেকর্ডও তিনি অনায়াসে অতিক্রম করতে পারবেন। শেখ হাসিনার বিকল্প কিংবা যোগ্য উত্তরসূরি এখনো কেউ হয়ে উঠেনি। তাঁর অভিজ্ঞতা, দক্ষতা ও যোগ্যতা সার্বিক দৃষ্টিকোণ থেকে ভাবলে তাই দেখা যায়। বিশ্বের নারী নেতৃত্বে সফলতার  আরেকটি নাম ভিগডিস ফিনবোগাদোত্তির। ১৯৮০ সালের ১লা আগস্ট থেকে একটানা ১৬ বছর আয়ারল্যান্ডের রাষ্ট্রপ্রধান ছিলেন। তিনিও আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে শেখ হাসিনার মতো এতটা সুপরিচিত নন। এছাড়াও ১৪ বছর ৩২৮ দিন রাষ্ট্রক্ষমতায় থেকে ডমিনিকান রিপাবলিকের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে ডেম উজেনিন দেশ পরিচালনা করেছেন। আয়ারল্যান্ডের প্রেসিডেন্ট হিসেবে ম্যারি ম্যাকিলিস ১৩ বছর ৩৬৪ দিন ক্ষমতায় ছিলেন। তাঁর রাষ্ট্র পরিচালনায় সফলতা ও সক্ষমতাও প্রশংসনীয়। জার্মানির চ্যান্সেলর অ্যাঞ্জেলা মার্কেল। বর্তমান বিশ্বের দীর্ঘস্থায়ী ক্ষমতাবান নারী নেতৃত্বের অন্যতম। ২০০৫ সালের ২২শে নভেম্বর তিনি রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা গ্রহণ করে এখনো জার্মানের রাষ্ট্রীয় শাসনকার্য পরিচালনা করছেন। ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় ছিলেন ১৫ বছর। ম্যার্গারেট থ্যাচার যুক্তরাজ্যের সফল প্রধানমন্ত্রী হিসেবে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় ছিলেন ১১ বছর ২০৮ দিন। চন্দ্রিকা কুমারা তুঙ্গা শ্রীলঙ্কার প্রধানমন্ত্রী ও রাষ্ট্রপতি হিসেবে দু’বারেই রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় ছিলেন ১১ বছর ৭ দিন। ১৯৯৬ সাল থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত প্রথম প্রধানমন্ত্রী হিসেবে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় ছিলেন শেখ হাসিনা। ২০০৮ সালের ২৯শে ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ জয়ী হলে ২০০৯ সালে আবার শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ গ্রহণ করে রাষ্ট্র পরিচালনা করেন। ৫ বছরের মেয়াদ পূর্ণ হওয়ায় ২০১৪ সালের ৩০শে ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও আওয়ামী লীগ একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা লাভ করে। শেখ হাসিনা তখনো প্রধানমন্ত্রী হিসেবেই রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় ছিলেন। ২০১৮ সালের ৩০শে ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও বিপুল ভোটের ব্যবধানে আওয়ামী লীগ জয়ী হয়। ২০১৯ সালের ৭ই জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রী হিসেবে আবার শপথ গ্রহণ করে রাষ্ট্র পরিচালনায় শেখ হাসিনা নিজেকে নিয়োজিত রেখেছেন। ইতোমধ্যেই প্রধানমন্ত্রী হিসেবে তাঁর ১৭ বছর পূর্ণ হয়েছে। চতুর্থ মেয়াদের ১ বছর পার করে ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী মার্গারেট থ্যাচারের সর্বোচ্চ রেকর্ড ভঙ্গ করেছেন বিশ্বনন্দিত নেত্রী শেখ হাসিনা। ইন্দিরা গান্ধী, মার্গারেট থ্যাচার, অ্যাঞ্জেলা মার্কেল ও শেখ হাসিনা, মাত্র চারজন নারী নেত্রী সার্বিক সফলতার শিখরে আরোহণ করেছেন। এরা সবাইস্বদেশকে সম্ভাবনার স্বর্ণালি দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে দিতে সক্ষম হয়েছেন। চতুর্থবার ক্ষমতায় আরোহণের পর বিশ্ব স্বীকৃত ও সুপরিচিত অন্যান্য নারী নেতাদের ঐতিহাসিক কীর্তি কর্মের সর্বোচ্চ প্রাচীর অতিক্রম করেছেন বিশ্বের সফল নারী নেতৃত্বের শীর্ষবিন্দু স্পর্শী শেখ হাসিনা। তাঁর মেয়াদে বাংলাদেশের আর্থসামাজিক খাতে কাক্সিক্ষত উন্নয়নের অগ্রগতি ব্যাপক সফলতার সাক্ষর রেখেছে। বহুমাত্রিক সমস্যায় জর্জরিত বাংলাদেশ তাঁর শাসন আমলেই সার্বিক উন্নয়নের সিঁড়িতে দাঁড়িয়েছে এবংস্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশের গৌরব অর্জন করেছে। ২০১৭ সালের ৩০শে অক্টোবর জাতিসংঘের শিক্ষা, বিজ্ঞান ও সংস্কৃতি বিষয়ক সংস্থা ইউনেস্কো কর্তৃক আয়োজিত প্যারিসে অনুষ্ঠিত দ্বি-বার্ষিক সম্মেলনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান প্রদত্ত ৭ই মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণকে বিশ্ব ঐতিহ ̈ দলিল হিসেবে স্বীকৃতি প্রদানের মাধ্যমে ইউনেস্কোর ‘Memory of the World InternationalRegister’-এ অন্তর্ভুক্ত করা হয়। জাতিসংঘের মতো বিশ্ব সংস্থার এ সিদ্ধান্ত বিশ্বব্যাপী একটি ঐতিহাসিক ঘটনা। মূলত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আন্তরিক প্রচেষ্টা এ স্বীকৃতির অন্তরালে সার্বিক প্রেরণা জুগিয়েছে। যে প্রচেষ্টায় মহাকালের মহানায়ক হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিশ্ববাসীর কাছে সার্বিক দৃষ্টিকোণ থেকে মূল্যায়িত হয়েছেন। নতুন প্রজন্মের কাছে সমাদৃত হয়েছেন। শেখ হাসিনার যোগ্যতা, দক্ষতা ও সাধনায় অমর একুশে ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে স্বীকৃতি লাভ করে, যা আমাদের আরেকটি যুগান্তকারী অর্জন। ২০১৫ সালের সূচনা পর্ব থেকে ২০১৮ পর্যন্ত তিন বছর গভীর গবেষণা ও পর্যবেক্ষণ শেষে জাতিসংঘের কমিটি ফর ডেভেলপমেন্ট পলিসি (সিডিপি) আনুষ্ঠানিকভাবে বাংলাদেশকে উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে যোগ্যতা অর্জনের স্বীকৃতিপত্র প্রদান করে। বাংলাদেশ এখন উন্নয়নের মহাসড়ক দিয়ে কাক্সিক্ষত গন্তব্যে এগিয়ে যাচ্ছে এরই আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি হচ্ছে বহুল প্রত্যাশিত এই অর্জন । বাংলাদেশ নিম্ন আয়ের দেশ থেকে নিম্ন মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হয়েছে। শেখ হাসিনার শাসন আমলেই বাংলাদেশ জাতিসংঘ ঘোষিত সহস্র্রাব্দ উন্নয়ন লক্ষ্যগুলো (এমডিজি) সর্বোত্তমভাবে অর্জনের স্বীকৃতি পেয়েছে। সমগ্র বিশ্বের কাছে বাংলাদেশ এখন অপ্রতিরোধ্য উন্নয়নের বিস্ময়। বিশ্ববাসীর শেকড় সন্ধানী দৃষ্টিতে বাংলাদেশ এখন উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে বিশ্বে স্বীকৃতিপ্রাপ্ত। এছাড়াও ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামের ইনক্লুসিভ ইকোনমিক ইনডেক্স অনুযায়ী অর্থনৈতিক দিক থেকে প্রতিবেশী রাষ্ট্র ভারত ও পাকিস্থানের চেয়ে প্রবৃদ্ধিতে এগিয়ে আছে বাংলাদেশ। ২০১৯ সালের ২৯শে আগস্ট ‘দ্য স্পেক্টেটর ইনডেক্স’-এ প্রকাশিত বিশ্বের ২৬টি দেশের তথ্যের ভিত্তিতে শীর্ষ জিডিপি অর্জনকারী দেশের তালিকায় বাংলাদেশকে বিশ্বের সেরা বলে উল্লেখ করা হয়েছে। এসব অর্জনের মধ্যদিয়ে দেশরত্ন শেখ হাসিনার নেতৃত্বের প্রতি বিশ্ব নেতৃবৃন্দের আস্থা ক্রমশ বাড়ছে। পাশাপাশি বিশ্বজুড়ে বাংলাদেশ ও বাঙালি জাতির মর্যাদা বৃদ্ধি পেয়েছে। বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবসকে সম্মান জানানোর জন্য ওয়াশিংটন ডিসি’র মেয়র মুরিয়েল বাওসার ২৬শে মার্চকে ‘বাংলাদেশ দিবস’ ঘোষণা করেছেন। বাংলাদেশের ৪৮তম স্বাধীনতা দিবস উদ্যাপনের প্রাক্কালে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রেরিত একটি চিঠিতে শেখ হাসিনার নেত্বত্বের ব্যাপক প্রশংসা করে বলা হয়েছে, বাংলাদেশ গণতান্ত্রিক সহনশীল, বন্ধুত্ববাদী দেশ। আর্থসামাজিক উন্নয়নে উল্লেখযোগ্য অবদানসহ শান্তি ও গণতন্ত্রকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপদানের অসামান্য অবদানের জন্য বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ও প্রতিষ্ঠান শেখ হাসিনাকে অনেক সম্মানসূচক ডিগ্রি ও পুরস্কার প্রদান করেছে। এসব পুরস্কার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে আন্তর্জাতিক পরিচিতি এনে দিয়েছে এবং তিনি বিশ্বনেত্রীতে পরিণত হয়েছেন।

সূত্র: সচিত্র বাংলাদেশ
লেখক: মিলন সব্যসাচী, কবি, প্রাবন্ধিক ও কথাসাহিত্যিক