শেখ হাসিনার জন্ম না হলে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণের অভিযাত্রা সফল হতো না : সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক : সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর জন্ম না হলে যেমন স্বাধীন বাংলাদেশের জন্ম হতো না, তেমনি শেখ হাসিনার জন্ম না হলে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণের অভিযাত্রা সফল হতো না। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা বিশ্বে একজন সফল রাষ্ট্রনায়ক, একজন অনুকরণীয় ও অনুসরণীয় ব্যক্তিত্ব। তিনি খাদ্য নিরাপত্তা, শান্তি চুক্তি, সমুদ্র বিজয়, নারীর ক্ষমতায়ন, অর্থনৈতিক উন্নতি এবং সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ স্বাধীনতার মর্যাদা রক্ষায় সর্বদাই সমুজ্জ্বল। এখনো তিনি সজীব ও প্রাণবন্ত। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ার জন্য তিনি নিরলস পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। উপমহাদেশের প্রাচীন ও ঐতিহ্যবাহী রাজনৈতিক দল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের দলীয় প্রতীক নৌকার মাঝি এখন তিনিই।

প্রতিমন্ত্রী শনিবার (২৬ সেপ্টেম্বর)  সকালে রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবের তোফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া হলে বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট আয়োজিত সফল রাষ্ট্রনায়ক মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার ৭৪তম জন্মদিন এবং বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের ৪০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান আলোচকের বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতা দেন পররাষ্ট্র মন্ত্রী এ. কে আব্দুল মোমেন।

সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা অত্যন্ত সফলতার সাথে করোনা পরিস্থিতি এবং উপুর্যপরি বন্যার মোকাবেলা করে যাচ্ছেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দীর্ঘায়ু ও সর্বাঙ্গীণ মঙ্গল কামনা করে তিনি বলেন, আমাদের বেঁচে থাকার চেয়ে তাঁর বেঁচে থাকাটা দেশের জন্য অনেক বেশি জরুরি। যতদিন শেখ হাসিনার হাতে আছে দেশ, পথ হারাবে না বাংলাদেশ।

বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব ফালগুনী হামিদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক বাবু সুজিত রায় নন্দী এবং ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মো. শাহে আলম মুরাদ। অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা করেন বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক মো. হাবিবুর রহমান, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মো. আসরারুল হাসান আসু ও মো. আব্দুল মতিন ভূঁইয়া। স্বাগত বক্তব্য রাখেন বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হানিফ খান।

(ফয়সল হাসান)
সিনিয়র তথ্য অফিসার
সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়।