নান্দাইলে ধানক্ষেতে ইঁদুরের উপদ্রব, চাষিরা দিশেহারা

আরএন শ্যামা, নান্দাইল (ময়মনসিংহ) : 

মাঠে মাঠে আমন ধানের শিষ বের হতে শুরু করেছে। কিন্তু এর মধ্যেই ধান ক্ষেতে দেখা দিয়েছে ইঁদুরের উপদ্রব। এতে বিপাকে পড়েছেন অনেক চাষি। যেসব এলাকার জমি নিচু, সেখানে ইঁদুরের আক্রমণ বেশি হচ্ছে। ইদানীং বৃষ্টি হওয়ায় ইঁদুরের উপদ্রব তুলনামূলকভাবে বেড়ে গেছে। এ বছর নান্দাইল উপজেলার ১৩টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভার ২২ হাজার ৩৬৫ হেক্টর জমিতে আমন ধানের চাষেরর লক্ষ্য মাত্রা নির্ধারণ করা করেছে সংশ্লিষ্ট দপ্তর।
এদিকে, বাম্পার ফলনের আশায় জমি বর্গা নিয়ে ১ হেক্টর জমিতে আমন ধানের চাষ করেছেন কৃষক আঃ রশিদ। এ বছর আবহাওয়া অনুকুল থাকায় আমন ধানের ফলনও ভাল হবে বলে আশা ছিল তার। কিন্তু আনন্দের মাঝে কাল হয়ে দাঁড়াল ইঁদুর। জমিতে পানি থাকা অবস্থাও ইঁদুর আক্রমণ করে নষ্ট করে দিয়েছে ফসল। দিশেহারা হয়ে জমিতে লাল কাপড়ের নিশান, কলাগাছের কঞ্চি, ইঁদুরের ঔষধ দিলেও ফল পাচ্ছে না। এ কারনে অসহায় হয়ে প্রতিনিয়ত ধানের ক্ষেত থেকে ইঁদুরে কাটা ফসল গরুর খাবার হিসেবে ব্যবহার করছে।
ঘুরে দেখা গেছে, উপজেলার মোয়াজ্জেমপুর, বীর বেতাগৈর, চর বেতাগৈর, শেরপুর, নান্দাইল, চন্ডীপাশা ইউনিয়নে সবচেয়ে বেশি আমন ধানের ক্ষতি করেছে ইঁদুর। ইঁদুরের আক্রমণে ব্যাপক ক্ষতির সম্ভবণায় কৃষকের মাতায় বাজ পড়েছে। ইঁদুর দমন করতে না পারায় দিশেহারা হয়ে পড়েছেন চাষিরা।

মোয়াজ্জেমপুর গ্রামের কৃষক ফরহাদ হোসেন খান বাবু জানান, ইঁদুরের যন্ত্রণায় অতিষ্ঠ, জমির ফসল সব নষ্ট করে দিয়েছে, জমিতে শুধু ধানে ঢেডা পড়ে আছে। কোন ভাবেই ইঁদুর দমন করা যাচ্ছে না জানান তিনি।
এ ব্যাপারে নান্দাইল উপজেলা কৃষি অফিসার হারুন অর রশিদ জানান, ইঁদুর দমনের জন্য সবচেয়ে ভালো উপায় খেতে এমন কিছুর ব্যবস্থা করা, যাতে সব সময় শব্দ হয়। শব্দ হলে ইঁদুর ভয়ে খেতে ঢুকবে না। এতে চাষিরা ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা পাবে।
তিনি আরো জানান, ইঁদুর দমনে সহকারী কৃষি কর্মকর্তাদের নিয়ে বিভিন্ন ইউনিয়নে ক্যাম্পেইন করা হচ্ছে।