বুধবার আলোচিত রিফাত হত্যা মামলার রায়

বরগুনা প্রতিনিধি: বহুল আলোচিত বরগুনার রিফাত শরীফ হত্যা মামলার প্রাপ্তবয়স্ক ১০ আসামির রায় বুধবার ঘোষণা করা হবে। গত ১৬ সেপ্টেম্বর বরগুনা জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. আছাদুজ্জামান রায় ঘোষণার তারিখ ঘোষণা করেন।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, রিফাত হত্যা মামলার প্রাপ্তবয়স্ক ১০ আসামির বিরুদ্ধে ৭৬ জন সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে এক আসামির পক্ষে সাফাই সাক্ষ্যগ্রহণ করেন আদালত। এরপর সকল আসামির পক্ষে বিপক্ষে আদালতে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেন সংশ্লিষ্ট আইনজীবীরা। গত ১৬ সেপ্টেম্বর নিহত রিফাতের স্ত্রী আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নিকে নির্দোষ প্রমাণের জন্য আদালতে উপস্থাপিত যুক্তিখন্ডন শেষে এ রায়ের দিন ধার্য করেন আদালত।

গত বছরের ২৬ জুন বরগুনা সরকারি কলেজের সামনে রিফাতকে হত্যা করা হয়। পরে ১ সেপ্টেম্বর ২৪ জনকে অভিযুক্ত করে প্রাপ্ত ও অপ্রাপ্তবয়স্ক; দু’ভাগে বিভক্ত করে আদালতে প্রতিবেদন দেয় পুলিশ। এর মধ্যে প্রাপ্তবয়স্ক ১০ জন এবং অপ্রাপ্তবয়স্ক ১৪ জনকে আসামি করা হয়েছে। মামলার চার্জশিটভুক্ত প্রাপ্তবয়স্ক আসামি মো. মুসা এখনও পলাতক এবং আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নি বর্তমানে তার আইনজীবীর জিম্মায় জামিনে আছেন।

পরে চলতি বছরের ১ জানুয়ারি রিফাত হত্যা মামলার প্রাপ্তবয়স্ক ১০ আসামির বিরুদ্ধে চার্জ গঠন করেন বরগুনা জেলা ও দায়রা জজ আদালত। এরপর ৮ জানুয়ারি থেকে প্রাপ্তবয়স্ক ১০ আসামির বিরুদ্ধে সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু করেন আদালত। মোট ৭৬ জন সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ করা হয়েছে এ মামলায়।

রিফাত হত্যা মামলার প্রাপ্তবয়স্ক আসামিরা হলেন রাকিবুল হাসান রিফাত ফরাজি, আল কাইউম ওরফে রাব্বি আকন, মোহাইমিনুল ইসলাম সিফাত, রেজওয়ান আলী খান হৃদয় ওরফে টিকটক হৃদয়, মো. হাসান, মো. মুসা, আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নি, রাফিউল ইসলাম রাব্বি, মো. সাগর এবং কামরুল ইসলাম সাইমুন।

এ বিষয়ে নিহত রিফাতের বাবা আব্দুল হালিম দুলাল শরীফ বলেন, আদালতের ওপর আমার আস্থা আছে। আশাকরি আমি আমার ছেলে হত্যার ন্যায় বিচার পাবো।

তিনি আরও বলেন, এ ঘটনার মাস্টার মাইন্ড আমার ছেলের সাবেক স্ত্রী আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নির সর্বোচ্চ শাস্তি হবে বলে আমি আশা করি।

তবে আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নির বাবা মো: মোজাম্মেল হোসেন কিশোর বলেন, আমার মেয়েকে অন্যায়ভাবে স্বাক্ষী থেকে আসামি করা হয়েছে। আমার এবং মেয়ের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র চলছে। আশাকরি আদালতের ন্যায় বিচারের মাধ্যমে আমার মেয়ে মিন্নি নির্দোষ প্রমাণিত হবে।

আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নির আইনজীবী ও জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল বারী আসলাম বলেন, আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নি যে নির্দোষ আদালতে তা আমরা তথ্য প্রমাণ সহকারে উপস্থাপন করতে সক্ষম হয়েছি। আশা করি মিন্নি এ মামলায় নির্দোষ প্রমাণিত হবে।

এ বিষয়ে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী বরগুনার পাবলিক প্রসিকিউটর ভুবন চন্দ্র হালদার বলেন, আমরা আসামিদের বিরুদ্ধে সকল তথ্য প্রমাণ উপস্থাপন করতে সক্ষম হয়েছি। আশাকরি এ মামলায় আসামিদের সর্বোচ্চ শাস্তি হবে।

এদিকে মামলার রায় ঘোষণা উপলক্ষে আজ মঙ্গলবার (২৯ সেপ্টম্বর) থেকেই আইনশৃঙ্খলা বাহিনী আদালত পাড়ায় কড়া নিরাপত্তা জোরদার করেছে।

এ বিষয়ে বরগুনার পুলিশ সুপার মো: মারুফ হোসেন জানান, আলোচিত রিফাত শরীফ হত্যা মামলার রায়কে কেন্দ্র করে শহরে নিরপত্তা জোরদার করা হয়েছে। এ রায়কে কেন্দ্র করে কোন ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা যাতে ঘটতে না পারে সে ব্যাপারে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সতর্ক আছে।