বিদেশে রফতানি হচ্ছে নানিয়ারচরের আম

নিজস্ব প্রতিবেদক : দেশের আম রফতানি হচ্ছে বিদেশে। ইতিমধ্যে রাঙ্গামাটির নানিয়ারচর উপজেলা থেকে ইতিমধ্যে তিন মেট্টিক টন আম রফতানি করা হয়েছে। আরও সাড়ে আট টন রফতানির আদেশ পাওয়া গেছে। করোনার এই সংকটের মধ্যেও কৃষি মন্ত্রণালয়ের সময়োপযোগী পদক্ষেপে আম বিদেশে রফতানি করা সম্ভব হচ্ছে। এতে বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনেও ইতিবাচক ভূমিকা রাখবে।

কৃষি মন্ত্রনালয় সূত্রে জানা গেছে, রাঙ্গামাটি জেলার নানিয়ারচর উপজেলায় এবার আমের বাম্পার ফলন হয়েছে। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের বাস্তবায়নাধীন ‘বছরব্যাপী ফল উৎপাদনের মাধ্যমে পুষ্টি উন্নয়ন প্রকল্পের’ সহযোগিতায় ল্যাংড়, হিমসাগর, আম্রপালি, মল্লিকাসহ অন্যান্য জাতের আমের চাষ দিন দিন বাড়ছে। কিছুদিন আগেও এলাকার চাষিরা আমে পোকা-মাকড়ের উপদ্রব, কম ফলন এবং পরিচর্যার অভাবে আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হওয়ায় আম চাষে আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছিলেন। তারাই এখন ঝুঁকছেন আম চাষে।
সূত্র জানায়, করোনার এই সংকটের মধ্যেও কৃষি মন্ত্রণালয়ের সময়োপযোগী পদক্ষেপের ফলে নানিয়ারচর উপজেলার বগাছড়ি থেকে দুই হাজার ছয়শ কেজি ল্যাংড়া, হিমসাগর ও আম্রপালি জাতের আম ইতালিতে এবং চারশ কেজি আম যুক্তরাজ্যে রফতানি করা হয়েছে। আরও আট হাজার ৫০০ কেজি আম রফতানির আদেশ পাওয়া গেছে। এদিকে চিনেও আম রফতানির জন্য প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। চলতি মৌসুমে প্রায় ৭০-৮০ টন রফতানিযোগ্য আম এ উপজেলা থেকে সরবরাহ করা যাবে বলে আশা করছেন সংশ্লিষ্টরা।
বছরব্যাপী ফল উৎপাদনের মাধ্যমে পুষ্টি উন্নয়ন প্রকল্পের পরিচালক কৃষিবিদ মো. মেহেদী মাসুদ জানান, এ প্রকল্পের আওতায় স্থানীয় হর্টিকালচার সেন্টারের সরাসরি তত্ত্বাবধানে সংশ্লিষ্ট আম চাষিদের বাগানের নিবিড় পরিচর্যা, সার ও বালাইনাশক প্রয়োগসহ অন্যান্য বিষয়ে প্রশিক্ষণ এবং সহযোগিতা প্রদান করা হয়েছে। এতে এ এলাকার আম বাগানের অবস্থার ব্যাপক পরিবর্তন হয়েছে এবং রফতানিযোগ্য আমের উৎপাদন বেড়েছে ।
তিনি আরও জানান, প্রকল্প এলাকার কৃষকদের উদ্বুদ্ধ করার জন্য প্রকল্পের নিজস্ব ট্রাকের মাধ্যমে আম পরিবহন করা হচ্ছে। কৃষি মন্ত্রণালয়ের সরাসরি তত্ত্বাবধানে প্রকল্পের মাধ্যমে দেশের রফতানি আয় বৃদ্ধির লক্ষ্যে এ ধরণের কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে।

##