পূর্ব পরিকল্পনা মোতাবেক নরসিংদীর সোহরাবকে হত্যা করা হয়

তিন বছর পর প্রধান

আসামি গ্রেফতার

নিজস্ব প্রতিবেদক: নরসিংদীর বেলাবো থানার নারায়ণপুর ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য রিনা বেগমের ছেলে সোহরাব ওরফে মুসা হত্যাকাণ্ডের প্রধান আসামি কবির মিয়াকে গ্রেফতার করেছে সিআইডি। এ বিষয়ে শনিবার দুপুরে সিআইডির সদরদফতরে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

সিআইডির ঢাকা বিভাগ ও ঢাকা মেট্রোর ডিআইজি মো. মাঈনুল হাসান বলেন, গাজীপুরের শ্রীপুর থেকে গ্রেফতার করা হয় তাকে। কবির মিয়া গ্রেফতার এড়ানোর জন্য দীর্ঘদিন আত্মগোপনে ছিলেন। তার বিরুদ্ধে দুটি হত্যা, একটি ডাকাতিসহ একাধিক মামলা রয়েছে।

সিআইডির এই কর্মকর্তা বলেন, নরসিংদীর বেলাবো থানার নারায়ণপুর ইউনিয়নের ৪, ৫, ৬ নম্বর ওয়ার্ড সদস্য রিনা বেগমের সঙ্গে আসামি কবির মিয়ার দীর্ঘদিন ধরে পারিবারিক ও সামাজিক বিরোধ চলে আসছিল। ওই বিরোধের জেরে কবির রিনা বেগমের ছেলে ফরিদকে হত্যার পরিকল্পনা করে। এ ঘটনা বুঝতে পেরে রিনা তার ছেলে ফরিদকে কক্সবাজার পাঠিয়ে দেন।

মাঈনুল হাসান বলেন, এ মামলার আসামি বাচ্চু মিয়া ও রিনা বেগমের ছেলে সোহরাব ওরফে মুসা একসঙ্গে রিনার বাসায় ঘুমাতেন। কবির ও শিপন বাচ্চু মিয়াকে প্রস্তাব দেন ফরিদকে ডেকে এনে তাদের কাছে দিতে। তখন বাচ্চু মিয়া কবিরকে জানান, ফরিদ কক্সবাজারে অবস্থান করছে। তখন কবির ফরিদের যেকোনো ভাইকে ডেকে আনার প্রস্তাব দেন বাচ্চু মিয়াকে। বাচ্চু মিয়া তার এই প্রস্তাব অস্বীকার করলে শিপন ও কবির বাচ্চু মিয়াকে ভয় দেখায় এবং পরে তাকে কিছু টাকা দেয়।

সংবাদ সম্মেলনে সিআইডি জানায়, ২০১৭ সালের ১২ অক্টোবর রাত ২টার দিকে শিপন ও কবির বাচ্ছু মিয়াকে রিনা বেগমের বাড়ির বারান্দার সামনের রুম থেকে বের করে নিয়ে আসে। পরিকল্পনা অনুসারে বাচ্চু মিয়া সোহরাবকে নিয়ে ঘর থেকে বের হয়। তখন শিপন ও কবির সোহরাবকে জাপটে ধরে মুখে গামছা বেঁধে কুকুর মারা স্কুলের পেছনে নিয়ে যায়।

মাঈনুল হাসান বলেন, শফিক ও মিলন সোহরাবের দুই পা ধরে, তুহিন মাথা ধরে, শিপন ডান হাতে ধরে রাখে। প্রথমে শিপন এবং পরে কবির সোহরাবের গলায় ছুরি চালিয়ে তার মৃত্যু নিশ্চিত করে পালিয়ে যায়।

এ ঘটনায় নিহত সোহরাবের মা রিনা বেগম বাদী হয়ে কবিরসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে বেলাবো থানায় একটি হত্যা মামলা করেন। বেলাবো থানা পুলিশ মামলাটির তদন্তের সময়ে পুলিশ সদরদফতরের নির্দেশে নরসিংদীর পিবিআই মামলাটির তদন্তের দায়িত্ব নেয়।

পিবিআইয়ের তদন্তকারী কর্মকর্তা মোহাম্মদ রুবেল শেখ মামলাটির তদন্ত করে মামলার এজাহারনামীয় আসামি কবিরসহ তিনজন এবং এজাহারের বাইরে আরও দুজনসহ মোট পাঁচজনের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট দেয়। পিবিআইয়ের দেয়া চার্জশিটের বিরুদ্ধে রিনা বেগমের নারাজির প্রেক্ষিতে আদালত চলতি বছরের ৯ ফেব্রুয়ারি মামলাটির তদন্তের দায়িত্ব সিআইডিকে দেয়া হয়।

সিআইডি মামলাটির তদন্তকালে পলাতক আসামি কবির মিয়াকে অভিযান চালিয়ে গাজীপুরের শ্রীপুর থানার মাওনা থেকে গ্রেফতার করে। গ্রেফতার কবির মিয়া নরসিংদীর বেলাবো থানার খামারের চর গ্রামের আবদুল হাইয়ের ছেলে।