‘করোনার দ্বিতীয় ঢেউ ঠেকাতে সক্ষম বাংলাদেশি ব্যানকোভিড’

নিজস্ব প্রতিবেদক:
দেশীয় ওষুধ উৎপাদন প্রতিষ্ঠান গ্লোব বায়োটেক লিমিটেড দাবি করেছে, তাদের আবিষ্কৃত করোনা ভাইরাসের ভ্যাকসিন “ব্যানকোভিড” করোনার দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবিলায়ও সক্ষম হবে। এছাড়া এটি প্রাণীদেহে এন্টিবডি তৈরি করতে সক্ষম বলে জানিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

আজ সোমবার (৫ অক্টোবর) দুপুরে রাজধানীর একটি হোটেলে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তারা এমনটি দাবি করে।

করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের জন্য দায়ী “ডি ৬১৪জি ভ্যারিয়েন্ট” এর বিরুদ্ধে ব্যানকোভিড প্রথম ও একমাত্র আবিষ্কৃত টিকা বলে দাবি করেছে গ্লোব বায়োটেক। এই ভ্যাকসিনটির গবেষণার অগ্রগতি নিয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি করা হয় প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে।

গ্লোব বায়োটেকের সিইও ড. কাকন নাগ জানান, বর্তমানে সারাবিশ্বে করোনা আক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউ চলছে। এই সংক্রমণে ডি৬১৪জি ভ্যারিয়েন্টটি শতভাগ দায়ী বলে সাম্প্রতিক গবেষণায় উঠে এসেছে। বাংলাদেশ শিল্প ও বিজ্ঞান গবেষণা পরিষদও (বিসিএসআইআর) বাংলাদেশে সংক্রমণের জন্য ডি৬১৪জি ভ্যারিয়েন্টকে দায়ী বলে নিশ্চিত করেছে। ‘আমাদের নিজস্ব প্রযুক্তিতে উদ্ভাবিত ‘ব্যানকোভিড’ টিকাটি ডি৬১৪জি ভ্যারিয়েন্টের বিরুদ্ধে প্রথম ও একমাত্র আবিষ্কৃত টিকা। ইতোমধ্যে অ্যানিমেল মডেল ইঁদুরে নিয়ন্ত্রিত ও পূর্ণাঙ্গ প্রি-ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালে ব্যানকোভিড সম্পূর্ণ নিরাপদ ও কার্যকর হিসেবে প্রমাণিত হয়েছে।