সিআইডির অভিযানে জাল সনদ তৈরি চক্রের ৩ সদস্য গ্রেপ্তার

নিজস্ব প্রতিবেদক:
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ (ঢাবি) বিভিন্ন শিক্ষা-প্রতিষ্ঠানের জাল সনদ ও জাল সিল প্রস্তুতকারী জালিয়াতি চক্রের ৩ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)।

গ্রেপ্তারকৃত আসামিরা হলেন- দারুল ইহসান বিশ্ববিদ্যালয়ের কন্ট্রোলার কামরুজ্জামান মো. সালাম (৫৭), তার স্ত্রী রুমিনা আক্তার (৪০) ও সহযোগী মো. মাহমুদুল হাসান সোহাগ (৩৩)।

সোমবার (৫ অক্টোবর) সন্ধ্যায় সিআইডির অর্গানাইজড ক্রাইম বিভাগের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) মো. জিসানুল হক বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

অভিযানে গ্রেপ্তারকৃতদের কাছ থেকে বিভিন্ন শিক্ষা-প্রতিষ্ঠানের ৬৭টি জাল সনদ ও ৯টি বিভিন্ন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের সিল জব্দ করা হয়।

সিআইডি জানায়, গোপন তথ্যের ভিত্তিতে গত শনিবার সিআইডি ঢাকা মেট্রো-পূর্ব টিম এই চক্রের মূলহোতা কামরুজ্জামান ও তার স্ত্রী রুমিনা আক্তারকে গ্রেপ্তার করে। এরপর তাদের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে রোববার ডেমরা থানার সারুলিয়া বাজারে সাকসেস কোচিং সেন্টার থেকে সহযোগী মাহমুদুল হাসান সোহাগকে গ্রেপ্তার করা হয়।

২০১৬ সালের ১৬ জুলাই দারুল ইহসান বিশ্ববিদ্যালয়ের সব কার্যক্রম বন্ধ করে দেয় সরকার। এরপর থেকে গ্রেপ্তার আসামি কামনুজামান ও তার স্ত্রী রুমিনা আক্তার রাজধানীর ফার্মগেটের ইন্দ্রিরা রোডের সেধুরী ডেল ভবনের দোতলায় হোমোসেপিয়েন্স কোচিং সেন্টার প্রতিষ্ঠা করেন। কোচিং সেন্টারের অগোচরে বিভিন্ন শিক্ষা-প্রতিষ্ঠানের জাল সনদ তৈরিসহ বিভিন্ন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের জাল সিল মোহর ব্যবহার করে দীর্ঘদিন ধরে মানুষের সঙ্গে প্রতারণা করছিলেন।

সিআইডি কর্মকর্তা জিসানুল হক জানান, অধিক লাভবান হওয়ার উদ্দেশ্যে প্রতারণা করে ঢাবি, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষাবোর্ড ঢাকাসহ সারাদেশের বিভিন্ন বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় ও শিক্ষা-প্রতিষ্ঠানের জাল সনদ তৈরি করতেন। গ্রেপ্তারকৃত আসামিরা প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তার বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের জাল সার্টিফিকেট তৈরি ও জাল সিল মোহর ব্যবহারের বিষয়টি স্বীকার করেছেন। তাদের চক্রের আরও সদস্যদের বিষয় তথ্য পাওয়া গেছে। তাদের গ্রেপ্তারে সিআইডির চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। আসামিদের বিরুদ্ধে রাজধানীর শেরে-বাংলা নগর থানায় ১টি মামলা (নম্বর-৭) দায়ের হয়েছে।