দিনাজপুরে অপহরণ ও ধর্ষণ মামলায় কনস্টেবলের যাবজ্জীবন

ফাইল ছবি

দিনাজপুর সংবাদদাতা: দিনাজপুরে স্কুলছাত্রীকে জোরপূর্বক অপহরণ ও ধর্ষণ মামলায় নবীউল ইসলাম নামে এক ইন্ডাস্ট্রিয়াল পুলিশ কনস্টেবলকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

বুধবার বিকেলে দিনাজপুর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিজ্ঞ বিচারক সিনিয়র জেলা জজ শরীফ উদ্দিন আহমেদ এই রায় দেন।

যাবজ্জীবন কারাদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি নবীউল ইসলাম দিনাজপুর সদর উপজেলার মাতাসাগর পানুয়াপাড়া গ্রামের মো. জাফর আলীর ছেলে।

আদালত সূত্রে জানা যায়, ২০১৩ সালের ২৪ এপ্রিল স্কুলে যাওয়ার পথে দিনাজপুর শহরের মহারাজা গিরিজানাথ উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির শিক্ষার্থীকে স্কুল যাওয়ার পথে বটতলা মোড় থেকে জোর করে মাইক্রোবাসে করে অপহরণ করে। পরে রংপুরের বদরগঞ্জে শিক্ষার্থীকে অজ্ঞাতনামা কাজী অফিসে নিয়ে গিয়ে বিয়ে করে। পরে কনস্টেবেল নবীউল ইসলাম শিক্ষার্থীকে ঢাকায় নিয়ে গিয়ে আটকে রেখে তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে দাম্পত্যজীবন শুরু করে।

গেলো ২০১৪ সালের এক আগস্ট দিনাজপুরে নিয়ে আসার কথা বলে ঢাকা বিমানবন্দর স্টেশন থেকে সৈয়দপুর স্টেশনে আসার পর সেখানে নবীউল ইসলাম শিক্ষার্থীকে নিয়ে নেমে যায়।

নবিউল শিক্ষার্থীকে বলে তোমার সঙ্গে আমার বিয়ে হয়নি তুমি বাড়ি চলে যাও।

এ ঘটনায় দিনাজপুর সদর উপজেলার শেখপুরা মেদ্দাপাড়া গ্রামের আমেনা বেগম (মনিষার নানী ) বাদী হয়ে ২০১৪ সালে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে নবীউল ইসলামসহ চারজনকে আসামি করে মামলা দায়ের করেন।

মামলাটি কোতোয়ালি পুলিশ তদন্ত করে পুলিশ কনস্টেবল নবীউল ইসলামসহ তিনজনকে অভিযুক্ত করে চার্জশিট দেয়।

আদালত সাক্ষ্য প্রমাণ শেষে আজ নবীউল ইসলামকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও ১০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও তিন মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেন। অন্যান্য আসামিকে বেকসুর খালাস দেন। আসামি নবীউল ইসলামকে জেলে পাঠানো হয়েছে।