নোয়াখালীতে ৬ বছরের শিশু ধর্ষণ, গ্রেফতার ১

নুর রহমান, নোয়াখালী
নোয়াখালীর সুবর্ণচর উপজেলার মোহাম্মদপুর ইউনিয়নের চর নোমানে ৬ বছরের শিশু ধর্ষণ হয়েছে। গতবুধবার দিনগত গভীর রাতে মায়ের পাশ থেকে তুলে নিয়ে তাকে ধর্ষণ করেছে একই গ্রামের জসীম উদ্দিনের ছেলে হেলাল উদ্দিন (২০)। বৃহস্পতিবার (৮ অক্টোবর) সকাল ৮টার দিকে এ ঘটনায় চর জব্বার থানা পুলিশ অভিযুক্ত হেলালকে গ্রেফতার করে। পুলিশ বলছে, ধর্ষণের ঘটনায় ওই শিশুর মা ইয়াসমিন বাদী হয়ে চর জব্বার থানায় মামলা দায়ের করেছেন। সকালে পুলিশকে অভিযোগ করার পরপরই অভিযুক্ত হেলাল উদ্দিনকে সকালে আটক করে পুলিশ।মোহাম্মদপুর ইউনিয়নের ৯ নং ওয়ার্ডের সদস্য নুর আলম জানান, শিশুর বাবা মো.ইউসুফ নবীর খামারে আসামি হেলাল কাজ করে আসছিলো। এলাকার গণ্যমান্য লোকদের কাছে শিশুটিকে ধর্ষণ করেছে বলে সে নিজেই স্বীকার করেছে। চর জব্বার থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সাহেদ উদ্দিন জানান, দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে মামলা গ্রহণ করা হয়েছে। হেলালকে বিচারিক আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

বিবস্ত্র নির্যাতন ঘটনায় কালাম

ও শাহেদ ১২ দিনের রিমান্ডে

নোয়াখালী প্রতিনিধি: নোয়াখালীর বেগমগঞ্জের একলাশপুরে বাড়িতে ঢুকে নারীকে বিবস্ত্র করে নির্যাতনের ঘটনায় মামলার আসামি কালামকে ৩ মামলায় ১০ দিনের ও শাহেদকে ১টি মামলায় ২ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে আদালত। মামলার শুনানী শেষে সরকারীকৌশলী এ্যাডভোকেট গুলজার আহমেদ জুয়েল জানান, নোয়াখালী চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত বেগমগঞ্জ ৩নং আমলী আদালতের বিচারক মাসফিকুল হকের আদালতে এ রিমান্ড মঞ্জুর হয়। এ নিয়ে এ মামলায় মোট ১১ জনকে গ্রেফ্রতার করা হয়েছে।এর আগে নির্যাতনের শিকার ওই নারী বাদী হয়ে ৪ সেপ্টেম্বর ২টি মামলা করেন । পরে (৬ অক্টোবর) রাতে দোলোয়ার ও কালামকে আসামি করে একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন বেগমগঞ্জ মডেল থানায়। এদিকে মামলার অপর আসামি ইউপি সদস্য মেয়াজ্জেম হোসেন সোহাগ ১৬৪ ধারায় জবানবন্ধী দেয়ার ইচ্ছা পোষণ করায় আজ বিকেলে তাকে আদালতে তোলা হবে। মামলার এজাহারে নির্যাতনের শিকার ওই নারী উল্লেখ করেন, গত ২ সেপ্টেম্বর দীর্ঘদিন পর বাপের বাড়িতে তার স্বামী তার সাথে দেখা করতে যান। রাত ৯টার দিকে শয়ন কক্ষে স্বামী স্ত্রী একসাথে ছিলেন। এ সময় বাদল, রহিম, আবুল কালাম, ইস্রাফিল হোসেন, সাজু, সামছুদ্দিন সুমন, আবদুর রব, আরিফ ও রহমত উল্যা সহ অজ্ঞাত আসামিরা দরজা ভেঙ্গে ঘরে প্রবেশ করে। এরপর তার স্বামীকে মারধর করে পাশের কক্ষে নিয়ে আটকে রাখে। এক পর্যায়ে তারা ওই নারীকে বিবস্ত্র করে মারধর ও ধর্ষণের চেষ্টা করে। এতে রাজি না হলে আসামিরা তার ওপর নির্মম নির্যাতন চালায় এবং মুঠোফোনে ভিডিও চিত্র ধারণ করে রাখে। এ সময় তার আত্মচিৎকারে আসপাশের লোকজন এগিয়ে আসলে আসামিরা কাউকে কিছু জানালে তাকে হত্যার হুমকি দেয়। আসামিরা চলে যাওয়ার পর কাউকে কিছু না জানিয়ে নির্যাতিতা নারী জেলা শহর মাইজদীতে বোনের বাড়িতে আশ্রয় নেন। সেখানে থাকা অবস্থায় আসামিরা মুঠোফোনে তাদের প্রস্তাবে রাজি না হলে অশ্লীল ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দেয়। এক পর্যায়ে রবিবার দুপুরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মুঠোফোনে ধারণকৃত ভিডিও ছড়িয়ে দেয়।

 ৫ টুকরো করে নারীকে হত্যা, খন্ডিত আরও ৩টি অংশ উদ্ধার

নোয়াখালী প্রতিনিধিঃ নোয়াখালীর সুবর্ণচরে নুর জাহান বেগম (৫৭) নামে এক নারীকে ৫ টুকরো করে হত্যার ঘটনায় শরীরের খন্ডিত নিখোঁজ আরও তিনটি অংশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এর আগে গত বুধবার, দুর্বৃত্তরা নৃশংসভাবে ওই নারীকে টুকরো টুকরো করে কেটে হত্যা করে বিভিন্ন স্থানে শরীরের অঙ্গগুলো ছড়িয়ে ছিটিয়ে রাখে। বৃহস্পতিবার (৮ অক্টোবর) সকাল ১১টার দিকে পুলিশ উপজেলার চরজব্বার ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের উত্তর জাহাজ মারা গ্রামের প্রভিডা ফিডে পিছনের একাধিক আবাধি ধান ক্ষেত থেকে শরীরে খন্ডিত নিখোঁজ অংশ গুলো উদ্ধার করে পুলিশ। উদ্ধারকৃত শরীরের অংশ গুলোর মধ্যে রয়েছে, গলা থেকে বুকের অংশ ও দু’টি পা। এ ঘটনায় নিহতের ছেলে হুমায়ূন কবির বুধবার রাতে বাদী হয়ে অজ্ঞাত আসামি করে চরজব্বার থানায় মামলা দায়ের করেন। নিহত নারী উপজেলার চরজব্বার ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের মৃত আব্দুল বারেকের স্ত্রী। চরজব্বার থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সাহেদ উদ্দিন জানান, নিহত গৃহবধূর মরদেহের দুই টুকরো গতকাল বিকেলে একটি ধানক্ষেত থেকে উদ্ধার করা হয়। পরে সকালে আশপাশের ক্ষেতগুলোতে তল্লাশি চালিয়ে খন্ডিত দুটি পা ও বুকের অংশ উদ্ধার করা হয়েছে। উল্লেখ্য, বুধবার (৭ অক্টোবর) বিকেল ৫টার দিকে পুলিশ উপজেলার চরজব্বার ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের উত্তর জাহাজ মারা গ্রামের প্রভিডা ফিডে পিছনের একটি ধান ক্ষেত থেকে ওই গৃহবধূর মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। নিহতের ছেলে হুমায়ন কবির (২৮) জানান, বুধবার ভোর থেকে তার মা ঘর থেকে নিখোঁজ ছিল। পরে স্থানীয় এক মহিলা বিকেলের দিকে ধান ক্ষেতের আইলে শামুক খুঁজতে এসে একটি টুকরো টুকরো মরদেহ দেখতে পায়। পরে বিষয়টি জানাজানি হলে আমি মরদেহের পাশে শামুকের ব্যাগ দেখে, আমি শনাক্ত করি এটি আমার মায়ের মরদেহ।ওসি সাহেদ উদ্দিন চৌধুরী আরো জানান, পুলিশ বিষয়টি খতিয়ে দেখছে। এ বিষয়ে পরে বিস্তারিত জানানো হবে।

কোম্পানীগঞ্জে ডাকাতির মামলায় স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা গ্রেফতার

নোয়াখালী প্রতিনিধি: নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে ডাকাতির মামলায় এক স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতাকে গ্রেফতার করে কারাগারে পাঠিয়েছে পুলিশ।
গ্রেফতারকৃত, অহিদ উল্যাহ চৌধুরী দিদার (৩৩) উপজেলার বসুরহাট পৌরসভা ৮ং ওয়ার্ডের হাবিব উল্যাহ চৌধুরী বাড়ির শহীদ উল্যাহ চৌধুরী’র ছেলে এবং বসুরহাট পৌরসভা ৮নং ওয়ার্ড স্বেচ্ছাসেবকলীগের (প্রস্তাবিত) কমিটির সাধারণ সম্পাদক।
বৃহস্পতিবার (৮ অক্টোবর) দুপুর ৩টার দিকে বিচারিক আদালতের মাধ্যমে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এর আগে বুধবার সকালে উপজেলার বসুরহাট পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ড থেকে তাকে গ্রেফতার করে পুলিশ।
সূত্রে জানা যায়, ২০০৭ সালের ১২ জুন উপজেলার চরকাঁকড়া ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের পেশকারহাট সংলগ্ন এলাকায় ডাকাতির প্রস্তুতিকালে কয়েকজন ডাকাতকে হাতেনাতে গ্রেফতার করে পুলিশ। পরে গ্রেফতারকৃত ডাকাতদের ভাষ্যমতে তাকেও ওই ডাকাতির মামলায় ১২ নং ক্রমিকের আসামি করা হয়। কোম্পানীগঞ্জ থানায় যাহার মামলা নং-৫।
কোম্পানীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো.আরিফুর রহমান জানান, সে ডাকাতি মামলার ওয়ারেন্টভুক্ত পলাতক আসামি। পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে বিচারিক আদালতের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরণ করে।