সেনবাগে গণপিটুনি দিয়ে ডাকাতকে পুলিশে সোপর্দ

নুর রহমান, নোয়াখালী প্রতিনিধি :
নোয়াখালীর সেনবাগের কাদরা ইউনিয়নে আব্দুর রহিম (৩৮) এক ডাকাতকে ব্যক্তিকে গণপিটুনি দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করেছে স্থানীয় লোকজন।

এসময় তার কাছ থেকে একটি ছোরা উদ্ধার করা হয়। স্থানীয়দের অভিযোগ ডাকাতিকালে তাকে আটক করা হয়। আটককৃত ব্যক্তির ছোরার আঘাতে আহত হয়েছেন আশরাফ হোসেন মোহন নামের এক ব্যক্তি।

সোমবার (১১ অক্টোবর) ভোর রাতের দিকে কাদরা ১নং ওয়ার্ড নন্দিরপাড় গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।
আটক আব্দুর রহিম ফেনী জেলার দাগনভূঞা উপজেলার রঘুনাথপুর গ্রামের লোকমান হোসেন প্রকাশ রোকার ছেলে।

স্থানীয়রা বলছে, সোমবার ভোর রাতের দিকে নন্দিরপাড় গ্রামের প্রবাসী আশরাফ হোসেন মোহনের বাড়ীতে ১০-১২ জনের একদল ডাকাত প্রবেশ করে। এ সময় ডাকাতদল ঘরের ছাদের দরজা ভেঙে ভিতরে প্রবেশ করে। পরে তারা মালামাল লুট করে ঘরের প্রধান দরজা খুলে বের হয়ে যাওয়ার সময় প্রবাসী মোহন পিছনে থাকা ডাকাত সদস্য আব্দুর রহিমকে লোহার রড দিয়ে মাথার পিছনে আঘাত করে দ্রুত দরজা বন্ধ করে দেয়। ঘরে আটকে যাওয়া ডাকাত আব্দুর রহিমের সাথে হাতাহাতির এক পর্যায়ে সে মোহনকে ছোরা দিয়ে আঘাত করে। মোহনের চিৎকারে আশপাশের লোকজন ছুটে আসলে বাহিরে থাকা ডাকাতরা পালিয়ে যায়। এক পর্যায়ে স্থানীয়দের সহযোগিতায় ডাকাত রহিমকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করা হয়। আহত ডাকাত আব্দুর রহিম ও প্রবাসী মোহন সেনবাগ সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

প্রবাসী মোহন জানান, ডাকাত আব্দুর রহিমকে আটক করা গেলেও তার অন্য সদস্যরা ঘরের আলমেরি ভেঙে ৮ভরি স্বর্ণ, নগদ ২লাশ ৭০হাজার টাকাসহ মূল্যবান মালামাল লুট করে নিয়ে যায়। তাদের উপস্থিতি টের পেয়েও জীবন রক্ষার্থে আমরা প্রথমে বাধা দেয়নি। সুযোগ বুঝে কৌশলে এক ডাকাতকে আটক করতে সক্ষম হই।

সেনবাগ থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) ইকবাল হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, আহত ব্যক্তি পুলিশ পাহারায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছে। ক্ষতিগ্রস্থদের থানায় অভিযোগ দিতে বলা হয়েছে। ঘটনা তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।