এ্যাকশনএইডের জরিপ: ৬৫ শতাংশ নারী কৃষক খাদ্য ঘাটতিতে ভুগছেন

নিজস্ব প্রতিবেদক: করোনাভাইরাসের ফলে অর্থনৈতিক অনিশ্চয়তা সৃষ্টি হওয়ায় সবচেয়ে বেশি সংকটের মুখে পড়েছেন নারী কৃষকরা। করোনায় বাজার বন্ধ থাকার পাশাপাশি লকডাউনের জন্য মানুষের উপার্জন ও খাদ্য সুরক্ষায় মারাত্মকভাবে প্রভাব পড়েছে। করোনা মহামারী চলাকালীন ৮৩ শতাংশ নারী কৃষকের জীবিকা ব্যাহত হয়েছে। এর মধ্যে ৬৫ শতাংশ নারী কৃষক খাদ্য ঘাটতিতে ভুগছেন। শিশুরা যাতে নিয়মিত খেতে পারে সেজন্য নিজেরা নিজেরা ক্ষুধার্ত থেকে শিশুদের পেটে খাবার তুলে দিচ্ছেন।

এছাড়াও করোনায় লিঙ্গ-ভিত্তিক সহিংসতার মাত্রা বেড়ে যাওয়ার বড় প্রভাব পড়েছে নারী কৃষকদের ওপর। বাংলাদেশসহ আফ্রিকা ও এশিয়া মহাদেশের ১৪ টি দেশে ক্ষুদ্র নারী কৃষকের জীবনে করোনার প্রভাব নিয়ে এ্যাকশনএইড পরিচালিত এক জরিপে এই তথ্য উঠে এসেছে। চলতি বছরের সেপ্টেম্বর মাসে ১৯০ জন নারী কৃষক ও স্থানীয় নেতাদের উপর এই পরিচালিত হয়। বাজার বন্ধ, যাতায়াতে নিষেধাজ্ঞা ও খাদ্যের দাম বাড়ায় গ্রামীণ জনগোষ্ঠীর উপর নেতিবাকক প্রভাব ফেলছে এবং তা পরবর্তী ফসল মৌসুমের চাষাবাদকেও ক্ষতিগ্রস্ত করছে বলে ওই জরিপে উঠে এসেছে।

বাংলাদেশ ছাড়াও এই গবেষণাটি কঙ্গো, ইথিওপিয়া, জাম্বিয়া, ঘানা, কেনিয়া, মালায়ে, নেপাল, রোয়ান্ডা, সেনেগাল, তানজানিয়া, উগান্ডা, জাম্বিয়া এবং জিম্বাবুয়েতে পরিচালিত হয়েছে।

এ্যাকশনএইডের ওই গবেষণায় দেখা যায়, অর্ধেকেরও বেশি ৫৫ শতাংশ নারী কৃষক মাহামারী চলাকালীন তাদের অবৈতনিক ও গৃহস্থালির কাজের পরিমান বৃদ্ধি পেয়েছে বলে জানিয়েছেন। নারীরা তাদের শিশুর চাহিদাকে নিজের প্রয়োজনের চেয়ে অগ্রাধিকার দিয়েছেন। তাদের অনেকেই কোনো কোনো বেলার খাবার না খেয়ে বা কম খেয়ে থাকছেন যাতে পরিবারের অন্য সদস্যদের খাবারে কম না পড়ে। ৫৮ শতাংশ নারী কৃষকের পরিবারের সদস্যরা লকডাউনে অনেকদিন খাবার খেতে পারেন নি বলে জরিপে উঠে এসেছে।
এছাড়াও অর্ধেকের বেশি ৫২ শতাংশ উত্তরদাতার মতে, করোনায় লিঙ্গভিত্তিক সহিংসতা বৃদ্ধি পেয়েছে। পরিবারের পুরুষ সদস্যরা তাদের স্ত্রীর কাছ থেকে জোরপূর্বক অর্থ আদায় করা, পলিশের দ্বারা নারী ও মেয়েরা হয়রানির শিকার হওয়া, এমনকি কর্তৃপক্ষকে সহিংসতার মামলা রিপোর্ট করতেও অসুবিধার মধ্যে পড়তে হয়েছে বলে জরিপে উঠে এসেছে। লকডাউন পরিস্থিতে নারী ও মেয়েরা নির্যাতন ও শোষণ সহ্য করার ক্ষেত্রে আরো সহনশীলতার পরিচয় দিয়েছেন ৬৪ শতাংশ নারী।

নারী কৃষকদের প্রতি ক্রমবর্ধমান ক্ষুধা ও সহিংসতার প্রতিবেদন: বাংলাদেশের গাইবান্ধা জেলার ক্ষুদ্র নারী কৃষক লাইলা বেগম বলেন, ‘আমার স্বামী এবং আমি আমাদের সন্তানদেরকে খাওয়ানোর জন্য নিজেরা কম খাচ্ছি। ক্ষুধা শিশুদের উপর মারাত্মক ক্ষতিকর প্রভাব ফেলে। খালি পেটে তারা পড়াশুনায় মনোনিবেশ করতে পারে না। যেকারণে আমি এবং আমার স্বামী দুবেলা খাবার খাচ্ছি। এমনকি কখনো কখনো একবেলা খেয়েও দিন অতিবাহিত করছি।’ গাম্বিয়ার একজন কৃষক ইয়ানদেহ গিসি বলেন, ‘তার সম্প্রদায়ের নারীদের প্রতি সহিংসতার কথা বলতে গিয়ে জানান, “আমরা নারী ও মেয়েরা প্রতিনিয়ত পুরুষদের সহিংসতার শিকার হচ্ছি। বিশেষকরে আগে যারা উপার্জন করতো এখন বেকার, তাদের স্বামীরা সব সময়ই হিংস্র আচরণ করছে।

একশনএইডের জলবায়ু সহনশীল স্থায়ীত্বশীল জীবন-জীবিকা বিভাগের প্রধান ক্যাথরিন গুতুন্ডু বলেন, ‘বিশ্বজুড়ে, কোভিড-১৯ নারী কৃষকদের ঋণী ও অভাবগ্রস্ত করে দিয়েছে। তাদের অনেকেই এখন পরের মৌসুমে চাষাবাদ করার সামর্থ্য হারিয়েছেন। সরকার যদি জরুরি ভিত্তিতে এই সমস্ত পারিবারিক কৃষকের প্রতি সহায়তার হাত বাড়িয়ে না দেয় তাহলে ক্ষুধা ও দারিদ্র্য পরিস্থিতি আরো বিপজ্জনক হতে পারে। কোভিড-১৯ কে নিয়ন্ত্রণের অংশ হিসেবে একশনএইড বিভিন্ন দেশের সরকারকে টেকসই ও জলবায়ু সহনীয় স্থায়ীত্বশীল খাদ্য ব্যবস্থায় বিনিয়োগে অগ্রাধিকার দেয়ার জন্য আহবান জানাচ্ছে।

এই পরিস্থিতি থেকে উত্তরণে এ্যাকশনএইডের পক্ষ থেকে সরকারের কাছে কয়েকটি সুপারিশ করা হয়েছে। এরমধ্যে; পরবর্তী রোপন মৌসুমের জন্য নারী কৃষকদের কৃষিকাজে উৎসাহ দিতে বীজ, মূলধন ও সুদমুক্ত ঋণের ব্যবস্থা করা, জলবায়ু সংকটের সাথে খাপ খাওয়ানো এবং এগ্রোইকোলজিক্যাল চাষাবাদে প্রশিক্ষণ সহায়তা প্রদানের মাধ্যমে জলবায়ু সহনশীলতা তৈরি এবং মটির উর্বরতা ও উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধি, নারী কৃষকদের পণ্য বিক্রির জন্য বাজার এবং শহর অঞ্চলে নিরাপদে যাতায়াতের জন্য রাস্তাঘাট ও পরিবহন উন্নয়নে বিনিয়োগ, সরকার বাজারের উপর নজরদারী, খাদ্যের মূল্য নিয়ন্ত্রণ এবং সরবরাহ ব্যবস্থা সচল রাখা, জমি ও অন্যান্য প্রাকৃতিক সম্পদে নারী কৃষকদের প্রবেশাধিকার ও নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠার সুযোগ করে দেয়া উল্লেখ্যযোগ্য।